Print Sermon

এই ওয়েবসাইটের উদ্দেশ্য হল ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপি এবং ধর্ম্মোপদেশের ভিডিওগুলি বিশ্বব্যাপী পালক ও মিশনারিদের বিনামূল্যে সরবরাহ করা, বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বে, যেখানে ধর্ম্মতত্ত্বমূলক সেমিনারী বা বাইবেল স্কুল থাকলেও খুব কম রয়েছে|

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রতি মাসে 221টিরও বেশি দেশের প্রায় 1,500,000 কম্প্যুটারে যায়| শত শত লোক ইউটিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান এবং আমাদের ওয়েবসাইটে চলে আসেন| ইউটিউব আমাদের ওয়েবসাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 40টি ভাষায় প্রায় 120,000 কম্প্যুটারে প্রচারিত হয়| প্রচারের পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখনই আপনি ডঃ হেইমার্‍সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্‌সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




নোয়াহ-র প্রচার কার্য্য

THE PREACHING OF NOAH
(Bengali)

লেখকঃ ডাঃ আর.এল.হাইমার্স,জুনি.
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

১৩-ই জানুয়ারী,২০১৩ সালে সদা প্রভুর দিনে এক সন্ধ্যাকালে লস এঞ্জেলেসের ব্যাপটিস্ট
ট্যাবারনেকেলে এক সংবাদ প্রচারিত হয়েছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Evening, January 13, 2013

“আর তিনি পুরাতন জগতের প্রতি মমতা করেন নাই, কিন্তু যখন ভক্তিহীনদের জগতে জল প্লাবন আনিলেন, তখন আর সাতজনের সহিত ধার্মিকতার প্রচারক নোয়াহ-কে রক্ষা করিলেন” (২য় পীটার ২:৫)


এই অনুচ্ছেদটি বাক্যাংশের এক ক্ষুদ্র অংশ। ইহার প্রয়োজন ছিল কেননা চার পদ হইতে নয় পদ পর্যন্ত ইহা হল একটি বাক্য। ইহা হল নতুন নিয়মের মধ্যে সবথেকে বড় একটি বাক্যাংশ। এই অধ্যায়ের সূচনা হয় ভ্রান্ত ভাববাদীদের বর্ণনা দেওয়ার মধ্য দিয়ে। এর পরে প্রেরিত বর্গ এই সমস্ত ভ্রান্তগামীদের নরক দন্ড সম্বন্ধে বলেন। ইহা অতীতে পাপের তিনটি উদাহরণে ঈশ্বরের দণ্ডাজ্ঞার যে উদাহরণ তার দ্বারা অনুবর্ত্তী হয়। প্রথমত সেই সমস্ত দূতগণের দন্ডাজ্ঞা বিষয়ে উল্লেখ করা হয় যারা পাপ করেছিল। দ্বিতীয়ত নোয়াহ-র সময়ে যে সমস্ত মনুষ্য জাতি ছিল তাদের দন্ডাজ্ঞার বিষয়ে বলে। তৃতীয়ত ইহা হল সদোম ও ঘামোরা নগরীর দন্ডাজ্ঞা। এই কার্য্যাবলী এই কথা বলার দ্বারা সমাপ্ত হয় ও এই তিনটি ইদাহরণ এই বিষয়টাই আমাদের দেখায় যে ‘পরীক্ষার মধ্য থেকে কি ভাবে ঈশ্বর ভয়কারীদের উদ্ধার করতে হয় সেই বিষয়ে ঈশ্বর জানেন এবং অন্যায়কারী ও অধার্মিকদের তিনি দন্ডাজ্ঞার সময়ে শাস্তি দিতে হয় সেই বিষয়ে তিনি অন্যায়কারীদের সংরক্ষিত করে রাখেন। (২য় পীটার২:৯)। দন্ডাজ্ঞার এই যে দ্বিতীয় উদাহরণ তা হল আজকে রাত্রে আমার যে সংবাদ তার মুখ্য বিষয়। আমাদের বলা হয়েছে যে ঈশ্বর

“...আর তিনি পুরাতন জগতের প্রতি মমতা করেন নাই, কিন্তু যখন ভক্তিহীনদের জগতে জল প্লাবন আনিলেন, তখন আর সাতজনের সহিত ধার্মিকতার প্রচারক নোয়াহ-কে রক্ষা করিলেন” (২য় পীটার ২:৫)

আমরা হয়তো এই পাঠ্যাংশের অনুচ্ছেদটিকে তিনটি অংশে ভাগ করে দিতে পারিঃ শ্রোতা, প্রচারক এবং দন্ডাজ্ঞা বা বিচার।

১. প্রথম, শ্রোতা বা শ্রোতৃমন্ডলী।

প্রথমে আমরা নোয়াহ, সেই প্রচারকের প্রতি দেখার আগে, তার যে শ্রোতা মন্ডলী ছিলেন তাদের বিষয়ে আমাদের চিন্তা করতে হবে, সেই সমস্ত লোক যাদের উদ্দেশ্যে তিনি প্রচার করেছিলেন। আমাদের পাঠ্যাংশে তাদের বলা হয়, ‘সেই পুরাতন জগৎ’ সেই সমস্ত লোক যারা মহা প্লাবনের আগে জীবন যাপন করতেন। শাস্ত্রের কেবল মাত্র কয়েকটি পদ আমাদের কাছে তাদের বিষয়ে উল্লেখ করে। কিন্তু তাদের বিষয়ে জেনে আমাদের যা করনীয় তা কিন্তু খুবই বার্তাবহুল। এই সমস্ত লোকেদের বিষয়ে জানাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কেননা যীশু বলেছেন এই জগতের শেষ হওয়ার আগে অন্তিম প্রজন্ম ঠিক নোয়াহ-র সময়কার লোকেদের মতো হবে। তিনি বলেছেন, ‘বাস্তবিক নোয়াহ-র সময়ে যেরুপ হইয়াছিল; মনুষ্য পুত্রের আগমনও তদ্রুপ হইবে’ (ম্যাথুজ ২৪:৩৭)। সেই সময়ে লোকেরা কেমন ছিলেন?

তারা ছিলেন বস্তুবাদী। তাদের সম্বন্ধে সেটাই ছিল মুখ্য বিষয়। তাদের সমস্ত কিছুই অনুবর্ত্তী হয়েছিল বস্তুবাদের মধ্য থেকে। যীশু আমাদের বলেছেন যে তাদের মনোনিবেশ ছিল ‘ভোজন করার প্রতি, বিবাহ করিত ও বিবাহিতা হইতো, ঠিক ততদিন পর্যন্ত যতক্ষণ না নোয়াহ সেই জাহাজের মধ্যে প্রবেশ করলেন’ (ম্যাথুজ ২৪:৩৮)। তাদের জীবন ধারা কেন্দ্রীভূত হয়েছিল কেবল মাত্র খাবার ও কৌতুকের প্রতি। তারা জীবনে উত্তম বিষয়টাকেই চাইতো আর অন্য কোন বিষয় তাদের কাছে বিচার্য্য বিষয় ছিল না। ডাঃ ফ্রান্সিস চ্যাফার বলেছেন, খ্রীষ্টিয়ানদের মূল্যবোধ আমাদের সময়ে এতোটাই দূর্বল হয়ে পড়েছে যেখানে বেশীর ভাগ লোকেরা কেবলমাত্র ব্যাক্তিগত শান্তি এবং বৈভবের জন্যই বসবাস করছেন। ডাঃ চ্যাফার বলেছেন,

ব্যাক্তিগত শান্তির অর্থ হল আমাদের বা আমার জীবনকালীন সময়ে আমার ব্যাক্তিগত জীবনের ভাবধারা কেবলমাত্র ব্যাক্তিগত শান্তি ও চাহিদার উপরেই আধারিত, তা আমাদের সন্তানদের এবং তাদের সন্তান সন্ততিদের জীবন কালের পরিণাম কি হবে সেই সম্পর্কে ওয়াকিবহাল নয়। বৈভবের অর্থ হল অভিভুত হওয়া এবং সদাকালের জন্য সমৃদ্ধশালী হওয়া—এই জীবন এমন সমস্ত কিছু দ্বারা গঠিত; আরো বিষয় বস্তুর উপরে আধারিত বস্তুবাদের প্রাচুর্য্যের সর্ব্বোচ্চ যে স্তর সেখানেই কৃতকার্য্যশীল বিচারক হতে চান। (Francis A. Schaeffer, How Should We Then Live?, Revell, 1976, p. 205).

আমি যখন যুবক ছিলাম তখন আমি বিস্মিত হয়ে পড়তাম যে কেন লোকেরা কল্পনাপ্রবণ দামী গাড়ির প্রতি এতোটা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়তো, কেন তারা অনুভব করতো যেন তারা জীবনের সব চেয়ে জাঁকালো জিনিসটি তাদের কাছে এতো প্রয়োজন! আমি তো কোন ‘হিপি’ ছিলাম না; একেবারেই নয়। কিন্তু আমি আমার সেই ছোট্ট ডজ ডার্ট গাড়ি এবং অট্টালিকার ছোট ঘরটিতেই সন্তুষ্ট ছিলাম। এমন কি আজও আমি সেই ষোল বৎসরের পুরাতন ‘টয়োটা করোলা’ গাড়িটিকেই চালাই। আমার পরিধানের জন্য ছিল দুটো স্যুট। আর সেটাই আমার কাছে যথেষ্ঠ ছিল। আমার মা যদি আমাকে বাড়িটি না দিতেন তবে আমার বাড়ি থাকতো না। বাইবেল বলে ‘ঐশ্বর্য্যের বাহুল্য হইলে তাহাতে মন দিও না’। (গীত সংহিতা ৬২:১০)। আপনার কাছে প্রকৃত ভাবেই সৎ হতে চাই, আমি সাধারণ ভাবেই একজন ব্যাক্তিকে বুঝে উঠতে পারি না যার জীবন কেবলমাত্র ব্যাক্তিগত শান্তির এবং প্রতিপত্তির জন্য আবর্তন করে। আমার বয়স যখন আঠারো তখন একজনের নাম ভূমিকায় সেই প্রাচীন ধনী বাক্তির অভিনয় করেছিলাম যা লিউক লিখিত সুসমাচারে বারো অধ্যায়ে নির্বোধ ধনী নামক গল্পে আধারিত। এই সময়ে আমি যখন হৃদপিন্ডের ব্যাথায় আক্রান্ত হই তখন ঈশ্বরের ধ্বনি/ রব/ আওয়াজ স্পীকারের ওপরে আঘাত করতে থাকে, ‘হে নির্বোধ অদ্য রাত্রেই তোমার প্রাণ তোমা হইতে দাবী করিয়া লওয়া যাইবে, তবে তুমি যে এই আয়োজন করিলে, এ সকল কাহার হইবে? যে কেহ আপনার জন্য ধন সঞ্চয় করে এবং ঈশ্বরের উদ্দেশ্যে ধনবান নয়, যে এইরুপ’।(লিউক ১২:২০-২১)। নোয়াহ-র সময়ে যে লোকেরা ছিল তারাও ঠিক সেই নির্বোধ ধনী ব্যাক্তির মতো। আর সেই বস্তুবাদ আজও আমাদের সকলকে উত্তেজিত করে চলেছে।

এই সঙ্গে তারা তাদের কল্পনা সকল নিরন্তর মন্দতায় পূর্ণ ছিল। আদি পুস্তক ৬:৫ আমাদের বলে যে,

“আর সদাপ্রভু দেখিলেন পৃথিবীতে মনুষ্যদের দুষ্টতা বড় এবং তাহাদের অন্তঃকরণের চিন্তায় সমস্ত কল্পনা নিরন্তর কেবল মন্দ” (আদি পুস্তক ৬:৫)

লুথার বলেছেন, ‘লোকেরা যখন কেবল মন্দ হতে শুরু করে তখন তারা আর ঈশ্বরকে ভয় করে না আর তাঁকে বিশ্বাসও করে না, কিন্তু তাঁকে অবমাননা করে, তাঁর বাক্যকে ও তাঁর পরিচর্যা কাজকে.... । এই অধার্মিকতা বা পাপাসক্ততা নোয়াহ-র সময়ে দ্রুত ভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে’। (Martin Luther, Th.D., Luther’s Commentary on Genesis, Zondervan, ১৯৫৮, ভল্যুম ১, পৃ.১২৮; আদি পুস্তক ৬-অধ্যায়ের মন্তব্য)।

যেহেতু সেখানে বন্দুকের গুলিতে বেশ কিছু নৃশংস কাজ ঘটেছে, তাই রাজনীতিবিদরা আমাদের বলেছেন বন্দুক আমাদের কাছ থেকে নিয়ে নেওয়া হবে এবং এর পরেও তারা বলে, এই ভাবে আমরা হিংসাকে রোধ করতে পারবো। এই প্রকার মূর্খামির ন্যায় কথা শোনাটা আমার হৃদয়কে দূর্বল করে তোলে। প্রায় কয়েক প্রজন্ম ধরেই আমাদের কাছে বন্দুক রয়েছে। এমন কি আমি যখন শিশু ছিলাম তখন বরং আমাদের বেশী বন্দুক চিল। আমার নিজেরও রাইফেল ছিল এবং ছোট গুলি যুক্ত বন্দুকও, আর সেই সময়ে আমার বয়স কেবল মাত্র দশ বৎসর। ১৯৪৯-১৯৫৩ পর্যন্ত আমি এ্যারিজোনার মরুদেশে বসবাস করেছি। সেই সময়ে প্রায় প্রত্যেক যুবকের কাছেই বন্দুক থাকতো। কিন্তু সেই সময়ে আমাদের মধ্যে প্রচুর ভাবে হত্যা লীলা চলতো না। এখনকার পার্থক্য তাহলে কোথায়? ইহা কেবল মাত্র হলিউড জঞ্জাল, যা সন্তানদের মাথায়/ মস্তিষ্কে এই বিষয়টাকে প্রবেশ করিয়ে দিয়েছে!

লস এঞ্জেলস টাইমস (১/৭/১৩,পৃ ডি১) একটি নতুন কাহিনী এই ভাবে দিয়েছেন, ‘নতুন ভাবে রক্তাক্তের প্রদর্শন পরিকল্পিত হয়েছে কিন্তু এন বি সি এই জঘন্য সতর্কীকরণের বিরুদ্ধে যে চিন্তাধারা তারা প্ররোচিত করতে তা হল প্রকৃত হিংসা’ সেই প্রতবেদন বলে, ‘সম্প্রতি সময়ে নৃশংস ভাবে গুলি ...টেলিভিশানের কার্য্য নির্বাহী জোর করছে যেন আরো একবার ধাপে ধাপে বৃদ্ধি লাভ করা এই হিংসা ছোট পর্দার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখতে.... কেন না ইহাকে উসকে দেওয়াটা জগৎকে প্রকৃতভাবেই হত্যা করবে’। হলিউডের এই সমস্ত নোংরামীর অর্থ পেটের মধ্যে যেন আমাকে দূর্বল করে দিয়েছে! তাদের রক্তক্ষয়ী চলচ্চিত্র এবং টি.ভি সমুদয় প্রজন্মকে দুর্নীতিগ্রস্ত করে তুলেছে। ইহা আমাকে অসুস্থ করেছে। আর সেই একই প্রকার হয়তো নোয়াহ অনুভব করে ছিলেন!

“ তৎকালে পৃথিবী ঈশ্বরের সাক্ষাতে ভ্রষ্ট, পৃথিবী দৌরাত্ম পূর্ণ ছিল। আর ঈশ্বর পৃথিবীতে দৃষ্টিপাত করিলেন, আর দেখ, সে ভ্রষ্ট হইয়াছে। কেননা পৃথিবীস্থ সমুদয় প্রাণী ভ্রষ্টাচারী হইয়াছিল। তখন ঈশ্বর নোয়াহ-কে কহিলেন, আমার গোচরে সকল প্রাণীর অন্তিমকাল উপস্থিত; কেননা তাহাদের দ্বারা পৃথিবী দৌরাত্মে পরিপূর্ণ হইয়াছে, আর দেখ আমি পৃথিবীর সহিত তাহাদিগকে বিনষ্ট করিব” (আদি পুস্তক ৬:১১-১৩)

হে আমার যুবক ভাইয়েরা আমি তোমাদের কিছু বলতে চাই। এবং আমি যতদূর পারি ইহাকে আমি পরিষাক্র করতে চাই। আপনার মাথাকে বস্তুবাদের মধ্য থেকে বার করে নিয়ে আসুন আর অদৃষ্টের কথা একটু কম করে চিন্তা করুন এবং স্বর্গে ধন সঞ্চয় করার বিষয়ে সামান্য চিন্তা করুন।

আর সেই সঙ্গে আপনার মাথাকে খন্ডে প্রকাশিত হত্যালীলা এবং টি.ভি-র রুপকথা থেকে বের করে নিয়ে আসুন--- আপনার মাথাকে ভিডিও গেম থেকে বের করে নিয়ে আসুন—সমস্ত প্রকার ভিডিও গেম আর সেখান থেকে আপনার মাথা বার করে বাইবেলের মধ্যে আপনার মাথাকে একটু ঢোকান এবং সেই সঙ্গে মন্ডলী ও প্রার্থনার মধ্যে আপনার মাথাকে নিয়ে আসুন। আপনি যদি তা না করেন তবে আপনি হলিউডের মুঘলদের সঙ্গে নরকে যেতে চলেছেন, সেই সমস্ত রক্তচোষা লোক, মস্তিষ্কে মৃতপ্রায় লোক --- যারা ঠিক তেমনি যারা নোয়াহ-র সময়ে ছিলেন। আমি যে এই কথা বলছি, তা কাউকে বলুন! আর আমি যখন ইহা বলি তখন আমি হাসি নি!

নোয়াহ-র শ্রোতারা ছিলেন ঠিক হলিউডে জমায়েতকারী লোকেদের মতো। তাদের মধ্যে যে কেউই উদ্ধার পান নি ইহাতে আশ্চর্য্যের কিছু নেই। আপনি যদি হাতে ও পায়েও ধরেন, তবুও আপনি সেই লোকেদের উদ্ধার করতে পারবেন না। ‘পুরাতন জগতের’ লোকেরা অশোচনীয় ভাবেই ঈশ্বরের বিরুদ্ধে ছিলেন। আর ঈশ্বর তাদের ‘অশুচিতায় সমর্পণ করলেন’ (রোমানস ১:২৪)।

২. দ্বিতীয়, সেই প্রচারক ।

“আর তিনি পুরাতন জগতের প্রতি মমতা করেন নাই..... ধার্মিকতার প্রচারক নোয়াহ-কে রক্ষা করিলেন”
       (২য় পীটার ২:৫)

নোয়াহ কোন বাইবেলের শিক্ষক ছিলেন না। তিনি ছিলেন এক প্রচারক। ইহার গ্রীক প্রতিশব্দ ছিল ‘কারিক্স’। ইহার অর্থ হল ‘প্রকাশ্য ঘোষণা’। তিনি ধার্মিকতাকে প্রকাশ্যে ঘোষণা করেছিলেন, ‘জন সম্মুখে’ এক ঘোষক হিসেবেই তা করেছিলেন (কঠোর ভাবে)। ডাঃ জন গীল (১৬৯৭-১৭৭১) বলেছেন, ‘যিহুদীরা বলতেন নোয়াহ ছিলেন একজন ভাববাদী; আর তারা তাকে আবার একজন প্রচারক হিসেবেও উপস্থাপন করেন, আর তিনি সেই পুরাতন জগতের কাছে যে অনুরোধ বা উপদেশ তিনি দিয়েছিলেন সেই কথা আমাদের বলেন’। (John Gill, D.D., An Exposition of the New Testament, The Baptist Standard Bearer, 1989 reprint, volume III, pp. 597, 598).

এরপরে ডাঃ গীল প্রাচীন রাব্বিদের বিষয়ে উদ্ধৃতি করেন, যিনি তা দিয়েছিলেন তা তারা এই ভাবে বলেন যে এই ভাবেই নোয়াহ এক কথা প্রচার করেছিলেন, ‘তোমরা তোমাদের মন্দপথ এবং কর্ম থেকে ফির, তা না হলে প্লাবন তোমাদের আচ্ছাদিত করবে এবং মনুষ্য জাতির সমস্ত সন্তানদের ছিন্ন করে ফেলবে। (গীল,ইবিড)। ডাঃ আর.লি.এইচ. লেনস্কি (১৮৬৪-১৯৩৬) বলেন,

      ইহা জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল পুরাতন নিয়ম যখন নোয়াহ-কে একজন ধার্মিক ব্যাক্তি বলে ঘোষণা করছে, তখন পীটার কি ভাবে জানলেন যে নোয়হ ছিলেন ‘ধার্মিকতার এক ঘোষক’! এটা মনে হচ্ছে যেন সংঘাতময় এক প্রশ্ন। নোয়াহ কি সেই ১২০ বৎসর পর্যন্ত স্থির ছিলেন? ঈশ্বর কি আসন্ন প্লাবনের অজ্ঞানতায় জগৎকে ছেড়ে দিয়েছিলেন? পীটার কি কোন প্রকার প্রকাশ ছাড়াই ইহা লিখে ছিলেন ?
      ১২০ বৎসরের সেই বিলম্ব ছিল অনুগ্রহের সংযোজনকারী মৌসম। নোয়াহ-র যে প্রচার তা হল মানুষকে ধার্মিকতার প্রতি ফেরানো যাতে ঈশ্বর প্লাবন নিয়ে আসতে বাধ্য না হোন। ধার্মিকতা যদি সেখানে পাওয়া যেতো তবে সদোম ও ঘোমরা কি ঈশ্বর রেহাই দিতেন কিন্তু সেখানে দশ জন ধার্মিক ব্যাক্তিত্ত্ব পাওয়া যায় নি (আদি পুস্তক ১৮:৩২); নোয়াহ-র সময়ে সারা পৃথিবীতে সেখানে কেবল মাত্র আট জন (নোয়াহ তার স্ত্রী, তার তিন পুত্র এবং তাদের স্ত্রী’রা)। ‘ধার্মিকতা’ উদ্দেশ্যমূলক এক সম্বন্ধ, ইহা গুণমান সম্পন্ন নয়। ‘একজন ধার্মিক ঘোষক’ নয়। এই শব্দটিকে সম্পূর্ণ ভাবে নীতি সম্বন্ধীয় (বৈধ) মানসিক অবস্থান বলা হয়। নোয়াহ সেই গুণকে ঘোষণা করেন যা ছিল ঈশ্বরের ন্যায় বা বিচার সম্বন্ধীয় অনুমোদন মানে অধার্মিকেরা অনুতাপ করে মন পরিবর্তন করতে পারে আর এই ভাবে যেন ঈশ্বরের দ্বারা ধার্মিক বলে ঘোষিত হয়। কিন্তু তারা নিদারুণ ভাবেই ঈশ্বরের বাক্যকে অগ্রাহ্য করে, তার জাহাজের প্রতি হাসতে থাকে এবং সেই জগতে ‘অধার্মিক’ জগতের ন্যায় ‘অপরিবর্তিত থাকে’। (R. C. H. Lenski, Th.D., The Interpretation of the Epistles of St. Peter, St. John and St. Jude, Augsburg Publishing House, 1966 edition, p. 312).

ঈশ্বর নোয়াহ-র সময়কার লোকেদের সতর্ক করে দিয়েছিলেন আর তা হল তার পবিত্র আত্মা চিরকাল সেই মানুষের সঙ্গে দ্বন্দ্ব বা লড়াই করবে না। পবিত্র আত্মা সর্ব্বদা তাদের সচেতন করবে না এবং অনুতাপের প্রতি ফিরাবে না। লুথার এই ভাবে সে শব্দ গুলো বলেছেন, ‘আমার আত্মা সর্ব্বদা, মানুষের সঙ্গে লড়াই করবে না, আর সেই একই বাক্য নোয়াহ প্রচার করেছিল’, ‘সেই লোকেরা যেন সকলের সাক্ষাতে আরাধনা করে’। তার বলার যে অর্থ তা ছিল এই প্রকার, ‘আমরা বৃথাই তিরস্কার এবং শিক্ষা দিই, কেন এই জগত নিজে থেকে সংশোধিত হতে চায় না’। এই যে ব্যাথা তা বিশ্বাসের ও শাস্ত্রের সঙ্গে একমত পোষণ করে; কেননা ঈশ্বরের বাক্য যখন স্বর্গ হইতে প্রকাশিত হইল, তখন কেবলমাত্র কয়েকজনই রুপান্তরিত হয়েছিল পক্ষান্তরে বেশির ভাগ তা অবমাননা করেছিলেন, তারা নিজেদের লালসার প্রতি সমর্পণ করেন,অশুচিতা এবং অন্যান্য দোষ...। অতএব, ইহা ছিল তাদের উপরে ঈশ্বরের মহা দণ্ডাজ্ঞা যা পবিত্র পূর্ব পুরুষের (নোয়াহ) মুখ দ্বারা তা নির্গত হয়। তিনি ভয়গ্রস্ত হলেও মানুষের সঙ্গে সংগ্রাম করে যান। এর দ্বারা তিনি ঘোষণা করেন যে তার শিক্ষার যেন কোন উদ্দেশ্য নেই, আর তিনি মানুষকে কোনমতে তাঁর উদ্ধারকারী বাক্য সাব্যস্ত করবেন না। অতএব তারা, যাদের মধ্যে বাক্য রয়েছে তারা যেন ইহাকে আনন্দের সঙ্গে গ্রহণ করে, ইহার জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিন এবং ‘... যাখন ইত৬কে পাওয়া যায় অন্তঃকরণের সঙ্গে তাঁর অন্বেষণ করুন’। (লুথার, ইবিড, পৃ. ১২৯,১৩০)।

আজকে রাত্রে বেশ কিছু যুবকদের সতর্ক করার ক্ষেত্রে আমি আবার বলি ঈশ্বর কোন মানুষের সঙ্গে দ্বন্দ্ব বা সংগ্রাম করবেন না। আর পবিত্র আত্মা যখন তাঁর কাজকে বন্ধ বা সমাপ্ত করে দেবেন তখন আপনি কোন দিনই রুপান্তরিত বা কনভার্ট হতে পারবেন না। আপনি ঠিক নিশ্চিত ভাবেই সেই নোয়াহ-র সময়কার অধার্মিক লোকেদের মতো জলে আচ্ছন্ন হয়ে যাবেন।

৩. তৃতীয়, সেই বিচার।

“...আর তিনি পুরাতন জগতের প্রতি মমতা করেন নাই, কিন্তু যখন ভক্তিহীনদের জগতে জল প্লাবন আনিলেন, তখন আর সাতজনের সহিত ধার্মিকতার প্রচারক নোয়াহ-কে রক্ষা করিলেন” (২য় পীটার ২:৫)

‘মধ্যে’ বলে যে শব্দ তা গ্রীক ভাষা থেকে নেওয়া নয়। ইহাকে এই ভাবে পড়তে হবে, ‘ভক্তিহীনদের জগতে জলপ্লাবন আনিলেন’।

নোয়াহ ও তাঁর পরিবার ছাড়া জগতের সমস্ত লোক যখন বিনষ্ট হয়ে যায় ইহাতে আমরা যেন আশ্চর্য্য বোধ না করি। বাইবেল বলে,

“দুষ্টেরা পাতালে ফিরিয়া যাইবে; যে জাতি ঈশ্বরকে ভুলিয়া যায় তাহারাও যাইবে” (গীতসংহিতা ৯:১৭)

প্রভু যীশু খ্রীষ্ট বলেছেন,

“কেননা জীবনে যাওয়ার দ্বার সংকীর্ণ ও পথ দূর্গম এবং অল্প লোকই তাহা পায়” (মাথুজ ৭:১৪)

সমুদয় ‘ভক্তিহীনদের জগৎ’ মহা প্লাবনে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। ডাঃ গীল বলেন, তাদের মধ্যে জগতের সকলে থাকলেও ইহা তাদের কাউকেই ঈশ্বরের সেই অভিশাপ থেকে তাদের নিরাপদে রুখতে পারে নি। এটা ছিল ঈশ্বর নিজে, যিনি পাতালের ফোয়ারা সকল উন্মুক্ত করলেন এবং স্বর্গের বাতায়ন সকল খুলে দিলেন এবং মনুষ্য সমাজের সকলকে, নর ও নারী, শিশু এবং সমস্ত জীবন্ত সৃষ্টিকে ধ্বংস করলেন। কেবল মাত্র নোয়াহ এবং জাহাজের মধ্যে যারা ছিল তারা ছাড়া; আর তাদের শাস্তি এখানেই সমাপ্ত হয়েছে বলে ধরে নিলে হবে না;(এক প্রাচীন রাব্বিসই বলেছেন), পরবর্তী যে প্রজন্ম আসতে চলেছিল সেই জগতের কাছে এই বংশের আর কিছুই করার ছিল না’। (গীল, ইবিড পৃ. ৫৯৮)।

সংখ্যার মধ্যে সেখানে কোন নিরাপত্তা ছিল না। এখানে আমরা জনমন নিয়ে যাচাই করছি না। আমরা ঈশ্বরের সঙ্গে আদান প্রদান করছি। সমুদয় জগৎ যদি মন পরিবর্ত্তন করে পরিত্রাণ লাভ করাতে প্রত্যাখান করে তাহলে সমুদয় জগৎ ঈশ্বরের দ্বারা অনন্তকালীন যাতনাতে দণ্ডাজ্ঞা বা দোষী সাব্যস্ত হবে। আর ঈশ্বর এই ভাবেই তা বলেছেন। জগৎ হয়তো ইহার প্রতি হাস্য করতে পারে। কিন্তু সেটাই হল ঈশ্বরের অপরিবর্ত্তনীয় সত্যতা।

“দুষ্টেরা পাতালে ফিরিয়া যাইবে; যে জাতি ঈশ্বরকে ভুলিয়া যায় তাহারাও যাইবে” (গীতসংহিতা ৯:১৭)

“কেননা জীবনে যাওয়ার দ্বার সংকীর্ণ ও পথ দূর্গম এবং অল্প লোকই তাহা পায়” (মাথুজ ৭:১৪)

এখন এবার একটা শেষ চিন্তা কর। নোয়াহ-র সময়ে লোকেরা কেন অনুতাপ ও মন পরিবর্তন করে নিরাপত্তা লাভের জন্য সেই জাহাজের কাছে আসেন নি? সেই জাহাজ ছিল খ্রীষ্টের এক প্রতিচ্ছবি। আমাদের পাপের দন্ড মেটাবার জন্য খ্রীষ্ট মৃত্যু বরণ করে কবর প্রাপ্ত হয়ে মৃত্যু থকে পুণরুত্থিত হয়ে আমাদের জীবন দিয়েছেন। কিন্তু উদ্ধার লাভ করার জন্য আপনাকে অতি অবশ্যই খ্রীষ্টের কাছে আসতে হবে, ঠিক নোয়াহ-র সময়ে লোকেদেরও সেই জাহাজের কাছে আসার প্রয়োজন ছিল। কেন তাহলে তারা মন পরিবর্তন করে নিরাপত্তা লাভ করার জন্য জাহাজের কাছে আসে নি?

আমার মনে হয় এর প্রথম কারণ অবিশ্বাস। ঈশ্বর আগত বিচার বা দণ্ডাজ্ঞা সম্বন্ধে যা বলে ছিলেন তারা তাতে বিশ্বাস করে নি। আর তাই তারা মন পরিবর্তন করে নিরাপত্তা লাভের জন্য জাহাজের কাছে আসেন নি।

আরো অনেকের কাছে আমার যা মনে হয় দ্বিতীয় যে কারণ তা ছিল তারা তাদের জীবনের পথকে পরিবর্তন করতে চায় নি। তারা যে ভাবে বা পন্থায় বসবাস করতো তাতে পরিবর্তনে তারা ভীত হয়ে পরেছিল আর তারপরে তারা আবার ঈশ্বরের অভিশাপ লাভ করবে আর তাই তারা মন পরিবর্তন করে নিরাপত্তা লাভের জন্য জাহাজের কাছে আসেন নি।

তৃতীয় যে যুক্তি আমার মনে হয় তাদের অনেকে মনে করেছিল তারা যদি মন পরিবর্তন করে সেই জাহাজের কাছে যায় তাহলে তাদের পরিবার ও বন্ধুরা কি মনে করবে এই বিষয়ে তারা ভয় পেয়েছিল। অনিশ্চিত রুপে জাহান্নামে যাওয়াটা ড্রাগ, মদ, ও অবৈধভাবে যৌনতায় সংযুক্ত হওয়ার মতোই দূরে নিয়ে যায়। আমার বন্ধু এই বিষয়ে কি মনে করবে? আমার পরিবার এই বিষয়ে কি মনে করবে? পরিবার ও বন্ধু বান্ধবদের ভয় এতোটাই পরিহাসকর আর তাই তারা মন পরিবর্তন করেনি ও নিরাপত্তার জন্য জাহাজের কাছে আসে নি।

আপনি কি মনে করেন? আপনি কি চান যেন এই ভয় আপনাকে মন পরিবর্তন করে খ্রীষ্টকে গ্রহণ করা থেকে দূরে রাখবে? কেউ কেউ বলে, ‘আমি যদি গম্ভীর রুপে খ্রীষ্টিয়ান হয়ে যাই ও যীশুকে বিশ্বাস করি তাহলে আমার প্রতি কি ঘটবে’? আমার সৎ হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে , ‘আমি যদি প্রকৃতভাবে খ্রীষ্টিয়ান হই তবে আমার কি হবে তা আমি জানি না। আপনি যদি ভয় করে তাদের একজনের মতো হয়ে পড়েন তবে আমি জানি আপনার কি হবে,

“কিন্তু যাহারা ভীরু....তাহাদের এবং সমস্ত মিথ্যাবাদীর অংশ অগ্নি ও গন্ধকে প্রজ্জ্বলিত হইবে; ইহাই দ্বিতীয় মৃত্যু” (প্রকাশিত বাক্য ২১:৮)

ঈশ্বরের আত্মা আপনার কাছ থেকে সরে যাওয়ার ও আপনাকে বিনষ্ট করার আগে আমি প্রার্থনা করি যেন আপনি খ্রীষ্টে নির্ভর করতে পারেন। ঠিক তিনি যে ভাবে ‘ভক্তিহীন জগতের প্রতি প্লাবন নিয়ে এসেছিলেন’ (২য় পীটার ২:৫) তা যেন আপনার প্রতি না হয়। খ্রীষ্টিয়ান হওয়ার বিষয়ে আপনি যদি আমাদের সঙ্গে কথা বলতে চান তবে এই মুহুর্তে অডিটরিয়ামের পেছন দিকে পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে আসুন। ডাঃ কাগান আপনাকে অন্য একটি কক্ষে নিয়ে যাবেন যেখানে তার সঙ্গে আপনি কথা বলতে ও প্রার্থনা করতে পারবেন। ডাঃ চেন অনুগ্রহ করে আমাদের প্রার্থনায় এগিয়ে নিয়ে চলুন।

সংবাদের পরিসমাপ্তি
ডাঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে
www.realconversion.com এই সাইটে পড়তে পারেন। ক্লিক করুন “সংবাদের হস্তলিপি”

You may email Dr. Hymers at rlhymersjr@sbcglobal.net, (Click Here) – or you may
write to him at P.O. Box 15308, Los Angeles, CA 90015. Or phone him at (818)352-0452.

সংবাদের আগে শাস্ত্রের যে অংশ পাঠ করা হয়েছে, তা করেছেন মিঃ কিউ ডং লি আদি পুস্তক ৬:৫-১২
সংবাদের আগে একক সংগীত গেয়েছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিন গেইড গ্রীফিথ ঃ
“Abide With Me” (by Henry F. Lyte, 1793-1847).


খসড়া চিত্র

নোয়াহ-র প্রচারকার্য্য

THE PREACHING OF NOAH
লেখকঃ ডাঃ আর. এল. হাইমার্স, জুনি.
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

“...আর তিনি পুরাতন জগতের প্রতি মমতা করেন নাই, কিন্তু যখন ভক্তিহীনদের জগতে জল প্লাবন আনিলেন, তখন আর সাতজনের সহিত ধার্মিকতার প্রচারক নোয়াহ-কে রক্ষা করিলেন” (২য় পীটার ২:৫)

(২য় পীটার ২:৯)

১.  প্রথম, শ্রোতা বা শ্রোতৃমন্ডলী।
ম্যাথুজ ২৪:৩৭,৩৮; গীত সংহিতা ৬২:১০; লিউক ১২:২০,২১;
আদি পুস্তক ৬ঃ৫; রোমনস ১:২৪

২.  দ্বিতীয়, সেই প্রচারক। ২য় পীটার ২:৫

৩.  তৃতীয়, সেই বিচার।
গীত সংহিতা ৯:১৭; ম্যাথুজ ৭:১৪; প্রকাশিত বাক্য ২১:৮