Print Sermon

এই ওয়েবসাইটের উদ্দেশ্য হল ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপি এবং ধর্ম্মোপদেশের ভিডিওগুলি বিশ্বব্যাপী পালক ও মিশনারিদের বিনামূল্যে সরবরাহ করা, বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বে, যেখানে ধর্ম্মতত্ত্বমূলক সেমিনারী বা বাইবেল স্কুল থাকলেও খুব কম রয়েছে|

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রতি মাসে 221টিরও বেশি দেশের প্রায় 1,500,000 কম্প্যুটারে যায়| শত শত লোক ইউটিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান এবং আমাদের ওয়েবসাইটে চলে আসেন| ইউটিউব আমাদের ওয়েবসাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 40টি ভাষায় প্রায় 120,000 কম্প্যুটারে প্রচারিত হয়| প্রচারের পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখনই আপনি ডঃ হেইমার্‍সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্‌সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




শয়তানকে জয় করার জন্য যে উপবাস

FASTING TO OVERCOME SATAN
(Bengali)

লেখক ডাঃ আর এল হাইমার্স, জুনি
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

২৬-শে আগষ্ট,২০১২ সালে সন্ধ্যাকালীন সময়ে সদাপ্রভুর এক দিনে ব্যাপটিস্ট ট্যাবারনাকালের
লস এঞ্জেলসে একটি সংবাদ প্রচারিত হইয়াছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Evening, August 26, 2012

“পরে তিনি গৃহে আসিলে, তাঁহার শিষ্যেরা বিজনে তাঁহাকে জিজ্ঞাসা করিলেন,আমরা কেন সেটা তাড়াইতে পারিলাম না? তিনি কহিলেন, ‘প্রার্থনা আর উপবাস ভিন্ন আর অন্য কিছুতেই এই জাতি বাহির হয় না’।” (মার্ক ৯ঃ২৮,২৯)


বাইবেল বলে, “.... উত্তরকালে কতক লোক ভ্রান্তিজনক আত্মাদিগতে ও ভূতগপণের শিক্ষামালায় মন দিয়া বিশ্বাস হইতে হটিয়া যায়”। (১-ম টিমোথি ৪ঃ১)। সেই পদটি পরিষ্কার করে দেয় যে, আমরা যে ভাবে জানি, ঠিক জগতের শেষ সময়ে ‘উত্তরকালীন সময়ে’ ভুতুড়ে কার্য্যসকল বৃদ্ধি পাবে। মন্ডলীর বিরুদ্ধে এক হিংস্র আক্রমণের ন্যায় শয়তান তার মন্দ আত্মাদের লেলিয়ে দেবে। সমস্ত চিহ্ন সমূহ এই প্রকার ইংগিত প্রদান করিতেছে যে আমরা এখন সেই সময়ে বসবাস করিতেছি। তথাপি পশ্চিমী দেশের মন্ডলী সকলের আজকের বর্তমান দিনে শয়তান ও মন্দ আত্মাদের সম্বন্ধে চিন্তা করার প্রয়োজন রহিয়াছে। ডালাস থিয়লজিকাল সেমিনারীর ডাঃ মেরিল এফ উঙ্গার বলেছেন, ‘বিংশতিতম শতাব্দীতে অধিকারপূর্ণ ও অনুভুতি সম্পন্ন মন্ডলী বিপদজনক ভাবে অস্বীকার করিবে অতিপ্রাকৃতিক শক্তির অস্তিত্ব সম্বন্ধে’। অবিশ্বাসের এই শর্তাবলী মন্ডলীর মধ্যে আরোপিত হবে কেবল মাত্র আত্মিক অবস্থার নিম্নধারায় ও শক্তিতে। এরপরে ডাঃ উঙ্গার বলেছেন, ‘খৃষ্টিয়ান লোকেদের অবিশ্বাসে বহু বিশ্বাসী যে ভাবে কষ্ট ভোগ করছে শয়তানের চাতুরীতে তা অত্যন্ত ভাবে বিয়োগান্তক ও সর্বশান্ত করে দেওয়ার মতো। আর তা কেবলমাত্র শয়তান ও তার দলবলের নিছক অজ্ঞানতার জন্যই। যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়াতে এমন কি বহু আত্মিক বিশ্বাসীরাও এই সাংঘাতিক আত্মাগণের বিরুদ্ধে ভালো ভাবে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়াতে অপারগ হয়ে ওঠে। “জ্ঞানের অভাবে” সে ইহার সঙ্গে কি সংযুক্ত হইয়া রহিয়াছে। তিনি বলেন আজকে বহু সেবাকারী ব্যাক্তিরাও ‘শাস্ত্রে শয়তানের পরাক্রম শক্তি সম্বধে যে প্রকাশ প্রদান করা হয়েছে, তারাও সেই যুদ্ধ জগতে সেই পরাক্রম শক্তির অধিপতির কাছে অন্ধ হয়ে পড়েছে। (Merrill F. Unger, Th.D., Ph.D., Biblical Demonology, Kregel Publications, 1994 edition, p. 201).

ডাঃ উঙ্গার অতিব গোঁড়া ব্যাক্তি ছিলেন না। তিনি ডালাস থওলজিকাল সেমিনারী থেকে Th.D. প্রাপ্ত করেছেন এবং Ph.D. করেছেন জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটি থেকে । আমি যা উদ্ধৃত করেছি সেখানে ডাঃ উঙ্গারের বই এর বিষয়ে ডাঃ উইল্বার এম. স্মিথ বলেন, ‘বাইবেল ভিত্তিক মন্দশক্তির বিষয়ে যুক্তিযুক্ত আচরণ, আমার প্রতি ইহা বহু বৎসর অবস্থান করিয়া থাকিবে’। (জ্যাকেট বিবৃতি)। ডা; স্মিথ ছিলেন বিংশ শতাব্দীর এক নির্ভর যোগ্য বাইবেক শিক্ষক। আর ডাঃ উঙ্গারের বইয়ে তার যে অনুমোদন তা ইহার বিশ্বাস যোগ্যতাকে দেখায়।

ডাঃ উঙ্গার কি যথাবিহীত ছিলেন ? আজকে মন্ডলীর বিহু সেবাকারী কি ‘শয়তান ও তার দলবলের নিছক অজ্ঞানতার কারণে....এই শয়তানিক প্রতারণায় দুঃখ কষ্ট ভোগ করছে’? এর মধ্যে যা সংযুক্ত হয়ে রয়েছে সেই জ্ঞানের অভাবেই কি মন্দ আত্মাদের বিরুদ্ধে কৃত-কার্যতার সঙ্গে অগ্রসর হওয়ার প্রতি অক্ষম হয়ে পড়ছে? নিশ্চিত ভাবেই এই বিষয়ে তিনি ঠিক ছিলেন। প্রত্যেকেই জানেন যে মন্ডলী ৮৫% হারে ২১-বৎসরের মধ্যে যাদের বয়েস সেই যুবক যুবতীদের হারাতে বসেছেন। প্রত্যেকেই আজকে জানেন যে আজকে এই জগত থেকে যুবক ব্যাক্তিদের কনভার্ট করার প্রতি মন্ডলী আজকে বড্ড শক্তিহীন ও দূর্বল হয়ে পড়েছে। এক বৃহত্তর পরিমাপে এটা এইজন্য, কেননা তারা শয়তান ও তার দলবলের প্রতি অজ্ঞানতার জন্যই!

ডাঃ টমোথি লিন প্রায় তেইশ বৎসর আমার পালক ছিলেন। তাকে জানার আগে তিনি বব জোনস বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক বিভাগে শিক্ষা দিতেন। পরবর্তী সময়ে তিনি ট্যালবট থিওলজিকাল সেমিনারীতে এবং ডিয়ারফিল্ড, ইলিনয়েস স্কুলে ট্রিনিটি ইভাঞ্জলিকাল ডিভিনিটি স্কুলে অধ্যাপনা করেন। ডাঃ লিন, তাইওয়ানের চাইনিজ ইভানলজিকাল সেমিনারীতে সভাপতি হিসেবে কাজ করেন, সভাপতি ডাঃ জেমস হাডসন টেইলর, তৃতীয়-র পরে। দাঃ লিন বলেন, ‘বহু পালক, সুসমাচার প্রচারক আর এমন কি সেমিনারীর অধ্যাপকেরা পর্যন্ত শয়তানের এই চাপের কাছে ধরাশায়ী হতে থাকে যাতে তারা সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরে প্রার্থনা করতে না পারে! আমাদের প্রভুর আগমণ যত নিকটবর্তী হতে থাকে সেই অবস্থা ক্রমাগতভাবেই মন্দতার প্রতি অগ্রসর হতে থাকে। তাদের প্রতি শয়তানের নিয়ন্ত্রণের অপ্রত্যাশিত যে ভাবে.... তার পরিণাম হয়ে ওঠে দুঃখদায়ক ও বেদনা প্রবণ’। (Timothy Lin, Ph.D., মন্ডলী বৃদ্ধির গোপন কথা, লস এঞ্জেলসের সর্ব্বপ্রথম ব্যাপটিস্ট মন্ডলী, ১৯৯২ প্রকাশন, পৃষ্ঠা ৯৬)।

ডাঃ লিন বলেন, ‘আজকের বহু মন্ডলী দুর্বল ও শক্তিহীন, সম্পূর্ণ ভাবেই’ তাদের প্রতি শয়তানের যে নিয়ন্ত্রণ, তার প্রতি পরিপূর্ণ অজ্ঞতা। সেই সব মন্ডলী জানেই না যে তারা ‘দুর্ভাগ্যের মধ্যে রয়েছে ও দুর্দশাগ্রস্ত। তারা দরিদ্র, অন্ধ ও নগ্ন’। (প্রকাশিত বাক্য ৩ঃ১৭)।

আর সেই বিষয়টিই আমাদের পাঠ্যাংশতে নিয়ে আসে মার্ক ৯ঃ২৮,২৯ পদে। ইহা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন পাঠ্যাংশ যা আবার ম্যাথুজ নতজিভুক্ত হয়ে রয়েছে ১৭ঃ১৯-২১-এ। অনুগ্রহ করে মার্ক্স ৯ঃ২৮ এবং ২৯ উচ্চ স্বরে পড়ুন।

“পরে তিনি গৃহে আসিলে তাঁহার শিষ্যেরা বিজনে তাঁহাকে জিজ্ঞাসা করিলেন আমরা কেন সেটা তা ড়াইতে পারিলাম না! তিনি কহিলেন প্রার্থনা এবং উপবাস ভিন্ন ইহা আর কিছুতেই এই জাতি বাহির হয় না” (মার্ক ৯ঃ২৮,২৯)

এখন আপনারা আসন গ্রহণ করিতে পারেন।

এই পদটি প্রয়োগ করার আগে আমি এই পাঠ্যাংশের শেষ যে দুটি শব্দ রয়েছে তার উপরে মন্তব্য করিতে চাই। ‘প্রার্থনা ও উপবা ভিন্ন আর কোন কিছুতেই এই জাতি বাহির হয় না’। আর ‘এবং উপবাস’ এই যে শব্দ তা কেবলমাত্র কিং জেমস এবং আগে অন্য কয়েকটি অনুবাদ ছাড়া সমস্ত অনুবাদেই দূরীভুত করে ফেলা হয়েছে। ‘আর উপবাস’ এই শব্দটি দূরীভূত করার পিছনে যে চিন্তা ধারা তা প্রস্তাবিত করে জন ম্যাকআরথার বলেন ‘ প্রাচীনকালের হস্তলিপি এই শব্দটিকে অন্তর্ভুক্ত করে নি’। (ম্যাক আরথারের অধ্যয়ন মূলক বাইবেল; মার্ক ৯ঃ২৯ পদের মন্তব্য)।

তিনি যেটা বলেন নি তাহা হইল এটাই যে কার্যত সেই দুটি হস্তলিপি ছিল ত্রুটিপুর্ণ। যেটার ওপরে তাহারা নির্ভর করিয়াছিলেন, তা ছিল সম্পুর্ণ ভাবে সিনয়টিকাস হস্তলিপিতে যেটা টিসেনডর্ফ সিনয় পর্বতের তলদেশে সেইন্ট ক্যাথারিন মনাস্টারির ত্যাজ্য কোন কুড়াদানের মধ্যে পান। এই হস্তলিপিটি আলেকজান্দ্রিয়ার সাধুদের দ্বারা নকল করা, যারা জ্ঞান বা চেতনা দানকারী প্রচলিত ধর্ম মতের বিরুদ্ধাচারণ দ্বারা গভীর ভাবে প্রভাবিত হইয়াছিলেন যা উভয়ক্ষেত্রে মন্দ আত্মা সংক্রান্ত এবং মানবীয় শরীরের গুরুত্ব সম্বন্ধে অধঃপতনের কার্য করেছে। আর সেই কারণেই সিনয়টিকান হস্তলিপি ‘আর উপবাস’ শব্দটিকে পরিত্যাগ করেছে। গুরুত্বপূর্ণ পাঠ্যাংশ বাদ দেওয়ার এই যে প্রচলন, মন্ডলীকে ততদিন পর্যন্ত প্রভাবিত করতে সাহায্য করে নি, যতক্ষন পর্যন্ত না ১৮৮১ খৃষ্টাব্দে নতুন নিয়মের সংশোধনকারী ভাষা প্রকাশ হয়; যেটা ছিল সর্ব্বপ্রথম অনুবাদ যেখানে ‘আর উপবাস’ শব্দটিকে ছেড়ে দেওয়া হইয়াছিল। আর সেই তখন থেকেই কেবল্মাত্র জে.এন.ডারবে (১৮৭১); জেমস মোফাট(১৯১৩) এবং নূতন কিং জেমস অনুবাদ ছাড়া অন্য সমস্ত প্রকার আধুনিক অনুবাদে এই শব্দটিকে ছেড়ে দেওয়া হইয়াছে। অবশ্য আই ভি পি কমেন্টারী এই শব্দটিকে ছেড়ে দেওয়ার এই সব কারণকে চূড়ান্ত বলে বিবেচনা করেন না।

কেন আমি সেই শব্দটি ‘আর উপবাস’ কথাটির ওপর জোর দিচ্ছি তার পাঁচটি কারণ রয়েছে। সেগুলি হল, সত্য সত্যই খৃষ্টের বলা শব্দ আর তাকে অনুবাদের সঙ্গেও যেন রাখা হয়ঃ (১) কেন না ইহা এতটাই স্বচ্ছ যে গুপ্ত আধ্যাত্ম রহস্যের জ্ঞানবাদী বিরুদ্ধচারী বিশ্বাসীরা প্রাচীনকালের ওই দুটি হস্তলিপিকারীদের উপরে প্রভাব বিস্তার করেছিলেন; (২) সেই একই সময়ের কাছাকছি সময়ে আরোও বহুশত হস্তলিপির মধ্যে ‘আর উপবাস’ শব্দটি রয়েছে; (৩) কেন না চীনের যে পালক, ঠিক ডাঃ লিনের মতোই সব সময়েই জানতেন যে বেশ কিছু প্রকার মন্দ আত্মাদের উপবাস ছাড়া বিজয় লাভ করা সম্ভন নয়। ডাঃ লিন যে এই কথা বহুবার বলেছেন তা আমি শুনেছি। আর তাই চীনের বহু পালক ডাঃ লিনের মতোই মন্দ আত্মাগ্রস্ত লোকেদের সঙ্গে সেবাকার্যে হস্ত প্রদান করেছেন, যারা পরিশুদ্ধ ভাবেই জানেন যে সেই প্রকার মন্দ শক্তির আধিপত্য, প্রার্থনা ও উপবাস ব্যাতিক্রমে উত্তীর্ণ হুয়া যায় না। অতএব ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা সেই শব্দের ‘আর উপবাস’ কাথাটিকে শক্তিযুক্ত করে; (৪) পশ্চিমী দেশের মন্ডলী সকল ‘আর উপদেশ’ শব্দটিকে বাতিল করে দিয়ে ক্রমবর্ধনশীল ভাবে তা দূর্বল করে দিয়েছে আর পরিণাম স্বরুপ ‘প্রার্থনা ও উপবাসের’ ব্যাবহারকে জলাঞ্জলি দিয়েছে। যখন থেকে ‘আর উপবাস’ শব্দটিকে বাতিল করা হয়েছে, তখন থেকেই পশ্চিমী বিশ্বে সেখানকার মুখ্য কোন উদ্বিপনাই আর নেই। ডা; মেরিল এফ. উঙ্গার যেভাবে উল্লেখ করেন,’অবিশ্বাসের এই যে অবস্থা, তা মন্ডলীর মধ্যে কেবল মাত্র আত্মিক জীবন ও শক্তির দিক দিয়ে এক নিম্ন মানের ধাপ বলিয়াই আরোপিত হইয়াছে’। (Unger, ibid.). আমার মনে হয় শয়তানের বিষয়ে এই যে সচেতনশীলতার কারণেই চীন দেশের মন্ডলী ক্ষিপ্র গতিতে বর্দ্ধনশীল হয়ে চলেছে, পক্ষান্তরে, পশ্চিমী দেশের মন্ডলী ধরাশায়ী হয়ে চলেছে।

আরও একটি বিষয়ঃ (৫) আমি বিশ্বাস করি যে উনবিংশতিতম শতাব্দীর পরবর্তী সময় পর্যন্ত শয়তান নিজেই সেই দুই গুপ্ত আধ্যাত্ম রহস্যের জ্ঞানের গুরুত্বপূর্ণ অংশ বাদ দিয়ে পাঠ্যাংশের খুঁত ধরিয়েছে আর তার পরে সেগুলোকে আধুনিক পন্ডিতদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে যেন এই শেষ সময়ে মন্ডলী শক্তিকে দূর্বল করে দিয়ে তাকে বিহবল করে দেয়। আমি বিশ্বাস করি যে আধুনিক কালের এই পন্ডিত ব্যাক্তিরাও শয়তানের দ্বারা প্রভাবিত। ডাঃ লিন যেভাবে বলেছেন, ‘তাদের উপরে শয়তানের নিয়ন্ত্রণের অপ্রত্যাশিত ভাবের ....... সেই পরিণাম হল দুঃখ দায়ক এবং বেদনাময়, উভয়ই’। (লিন,ইবিড)।

সেই বিষয়টি আমাদের পিছনের পাঠ্যাংশের প্রতি নিয়ে যায়,

“পরে তিনি গৃহে আসিলে তাঁহার শিষ্যেরা বিজনে তাঁহাকে জিজ্ঞাসা করিলেন আমরা কেন সেটা তাড়াইতে পারিলাম না! তিনি কহিলেন প্রার্থনা এবং উপবাস ভিন্ন ইহা আর কিছুতেই এই জাতি বাহির হয় না” (মার্ক ৯ঃ২৮,২৯)

এই পাঠ্যাংশ থেকে আমরা দুটি বিষয় শিখতে পারি।

১. প্রথম,শয়তানের শক্তির স্তরের বিভিন্নতা

এই পদটি শিষ্যদের কাছে একেবারে হিসেবের শেষে এসে উপস্থিত হুয় যেখানে তারা ‘ভূতগ্রস্ত বালককে সুস্থ করতে অপারগ’ হয়ে পড়ে। সেই যুবক বালকের পিতা তাকে শিষ্যদের কাছে নিয়ে আসেন। সেই বালকটিও ভুতগ্রস্ত ছিল কিন্তু শিষ্যরা তার ভিতর থেকে ভুতেদের বের করতে অক্ষম হয়। আগেই তাদের ‘মন্দ আত্মাদের বার করার’ শাস্তি প্রদান করা হয়েছিল (ম্যাথুজ ১০ঃ৮)। তাই আমাদের এই যে পাঠ্যাংশ সেখানে এই ঘটনার আগেও তারা মন্দ আত্মাদের তাড়িয়ে ছিলেন। কিন্তু তারা এই যুবক বালকটির ভেতোর থেকে ভুতগ্রস্ত আত্মাদের বের করতে অক্ষম হোন। সেই পিতা যীশুকে বললেন, ‘আমি আপনার শিষ্য দিগকে তাহা ছাড়াইতে বলিলাম; কিন্তু তাহারা পারিলেন না;(মার্ক ৯ঃ১৮)। এই প্রকার অবিশ্বাস থাকার জন্য যীশু তাদের ধমক দিলেন। এর পরে তারা বালকটিকে যীশুর কাছে নিয়ে এলেন আর আর সেই অন্ধআত্মা বালকটিকে মোচড় মেরে ফেলে দিলে, সে মাটিতে পড়ে গিয়ে মুখ দিয়ে ফেনা বের করতে লাগলো। যীশু বলিলেন,’ হে বধির ও মূক আত্মা, আমি তোমাকে আজ্ঞা দিতেছি ইহা হইতে বাহির হও আর কখনও ইহার মধ্যে প্রবেশ করিও না’। (মার্ক ৯ঃ২৫)।

তখন মন্দ আত্মা চেঁচাইতে লাগিল ও অতিশয় মুচড়াইয়া শোচনীয় ভাবে বালকটিকে ফেলে দিল ও তার মধ্য থেকে বের হইয়া গেল। বালকটি সেখানে পড়িয়া রইলো আর তখন লোকেরা মনে করিল যে সে মারা গিয়াছে। তখন যীশু তার হাত ধরে তুললে সে পায়ে ভর দিয়া উঠে দাঁড়ালো আর সে ভালো হয়ে গেল। এর কিছু পরেই, যীশু যখন ঘরে ফিরে এলেন তখন শিষ্যরা জিজ্ঞাসা করিলেন কেন তারা মন্দ আত্মাটিকে তাড়াইতে পারিল না! যীশু বলিলেন,

“এই প্রকার জাতি প্রার্থনা ও উপবাস ভিন্ন আর কিছুতেই বাহির হয় না” (মার্ক ৯ঃ২৯)

“এই জাতি” কেবলমাত্র প্রার্থনা ও উপবাসের স্বারাই বাহির হয়। ডাঃ উইলিয়াম হেন্ড্রিক্সেন বলেন, ‘ খৃষ্ট এখানে বলেছেন, অতএব শয়তানের শব্দে সেখানে পার্থক্য রয়েছেঃ তাদের মধ্যে কেউ শক্তিশালী এবং কেউ আবার অন্যদের থেকে অত্যধিক মারাত্মক। (উইলিয়াম হেন্ড্রেকসেন, Th.D., New Testament Commentary: Exposition of the Gospel According to Mark, বেকার বুক হাউস, ১৯৭৩, পৃষ্ঠা ৩৫২; মার্ক ৯ঃ২৯-র উপরে মন্তব্য)।.

১৯৭০-এর প্রথম দিকে স্যানফ্র্যানসিসকোতে গোল্ডেন গেট ব্যাপটিস্ট সেমিনারীতে আমি যখন যোগদান করেছিলাম, তখন আমি একটি মন্ডলী আরম্ভ করি যার সাথে আমার দুই বন্ধু ছিলেন, সেখানে হিপ্পি আন্দোলনের দ্বারা বহু যুবক ব্যাক্তিদের কাছে পৌঁছানো হয়েছিল। এখন ইহা সাউদার্ন ব্যাপটিস্ট মন্ডলীতে পরিণত হয়েছে। বহু যুবক ব্যাক্তি ছিল যারা গভীর ভাবেই মানসিক ভাবে আক্রান্তকারী ড্রাগ এবং অতিলৌকিক বিদ্যায় সংযুক্ত ছিল। এর জন্যে আমাদের সপ্তাহে কম পক্ষে একদিন প্রার্থনা ও উপবাসে কাটাতে হতো অথবা তা না হলে আমরা এই সমস্ত যুবক ব্যাক্তিদের কনভার্ট হিসেবে দেখতে পেতাম না।

মিল ভ্যালিতে যখন একটি বালিকা আমাদের মন্ডলীতে আসে, তার কথা আমার বেশ মনে আছে। সেই সময়ে ঠিক আরোও অন্য সকলের মতোই সেও ড্রাগ ব্যাবহার করতো এবং অত্যন্ত বাঁধনাহারা ভাবে জীবন যাপন করছিল। আমার সুসমাচার প্রচার শুনে কনভার্ট হয়েছিল ও শয়তানের শাস্তির হাত থেকে মুক্ত হয়েছিল। কিন্তু সে যখন খৃষ্টিয়ান হল, তখন তার মা তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় আর তখন তাকে মন্ডলীর অন্য কোন বালিকাদের সাথে থাকতে হয়। আমি মনে করেছিলাম তার পক্ষে এটাই ভালো হবে, যেন সে বাড়িতে ফিরে যায় আর তাই আমি তার মা’কে পরিদর্শন করতে গেলাম। আমি আমার স্যুট ও টাই পড়ে তার বাড়িতে গেলাম, যেটা ছিল মারিন কাউন্টি এলাকার এক সম্পদশালী এলাকায়। আমি বাড়ির দরজাতে টোকা মারলাম আর তার মা আমাকে ভিতরে প্রবেশ করতে দিলেন। তার শ্বাস প্রশ্বাসের মধ্যে আমি মদের গন্ধ উপলব্ধি করতে পারছিলাম। আমি সেই মহিলাকে বললাম, যে আমি অনুভব করছি ইহাই ভালো যদি তিনি তার কন্যাকে ভিতিরে আসতে দেন। আমি যখন সেই কথা বলি তখন তিনি যে মন্দ চোখে আমার প্রতি তাকালেন তা আমি কোনদিন ভুলবো না। তিনি নাক সিঁটকে আমার প্রতি তাকিয়ে বললেন, ‘ সে যখন অন্য ছেলেদের সঙ্গে ঘুরতো সেটা আমি সামলাতে পারতাম। সে যখন ড্রাগ নিচ্ছিল, তখন আমি তা সামলাতে পারতাম। কিন্তু এখন সে তো ‘খৃষ্টিয়ান’, হয়ে গিয়েছে (তিনি খৃষ্টিয়ান শব্দটিকে এমন ভাবে উগরে দিলেন, যেন মনে হল এটা তার চিন্তার মধ্যে সব থেকে জঘন্য বিষয়)- কিন্তু এখন সে তো ‘খৃষ্টিয়ান’ হয়ে গিয়েছে আর তাই এখন আমি কোন মতেই তাকে তুলে নিতে পারি না’। আমি তো বিস্মিত হয়ে পড়লাম, কেন না সেই মহিলা শ্বেত বর্ণ এ্যাংলো, স্যাকসন থেকে, এক প্রোটেস্টান্ট পাশ্চাত্তভূমি থেকে। এক জন যার মনে করা দরকার ছিল, তার কন্যা খৃষ্টিয়ান হয়েছে এই বিষয়ে তার নিরপেক্ষ থাকা উচিত। তার কন্যার সহিত পুণর্মিলন করার বিষয়ে তাকে আশ্বস্ত করতে না পেরে আমি তার বাড়ি ত্যাগ করলাম। হতভাগী বালিকা সেই বাড়িতে আর বসবাস করিতে পারিল না। পরে আমি শুনলাম যে সেই বালিকাটি একজন খৃষ্টিয়ানকে বিবাহ করেছে আর তারা ইউরোপের চেক রিপাবলিকে মিশনারি হসেবে গিয়াছে। আর পরে আমি স্যানফ্র্যানসিসকো ত্যাগ করি এবং প্রায় ত্রিশ বৎসর আমার সঙ্গে সেই মেয়েটির দেখা সাক্ষাৎ হয় না।

দু সপ্তাহ আগেই আমার স্ত্রী ও পুত্র লেসলী এবং আমি মারিন কাউন্টিতে ফিরে গিয়েছিলাম মাইক রিলে মন্ডলীর ৪০-বৎসর পুর্তির বার্ষিক অনুষ্ঠান উদযাপন করার জন্য, যা, রজার হফম্যান ও আমি শুরু করেছিলাম। বার্ষিক অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পরে আমি মঞ্চ থেকে নেমে এলাম আর দেখলাম যে সেই মেয়েটি চোখে জল নিয়ে আমার সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য এগিয়ে আসছে। সে আমাকে আলিঙ্গন করে তার স্বামীর সাথে আমার পরিচয় করিয়ে দেয়। আমরা একসাথে চোখের জলে আনন্দে মাতলাম। এর পরে তাকে আমি জিজ্ঞাসা করলাম যে তার মায়ের কি হল! সে আমাকে বললো, যে সেই মহিলা ৫০ বৎসর বয়সে মদ্যপানের জন্যে মারা গিয়াছেন। কতো দুঃখজনক ঘটনা। কিন্তু সেই সুন্দর মেয়েটি শয়তানের অত্যাচার ও বিতৃষ্ণাময় জীবন থেকে যীশুর দ্বারা মুক্ত হয়েছিল। ইহা সম্ভব কেবল্মাত্র প্রার্থনা ও উপবাসের দ্বারাই।

“এই প্রকার জাতি প্রার্থনা ও উপবাস ভিন্ন আর কিছুতেই বাহির হয় না” (মার্ক ৯ঃ২৯)

২. দ্বিতীয়,পাপীদের শয়তানের কবল থেকে মুক্ত করার জন্য উপবাস হল ঈশ্বরের দেওয়া শক্তি

অনুগ্রহ করে উঠে দাঁড়িয়ে আমার সঙ্গে ইশার ৫৮ঃ৬ খুলুন। ইহা আপনার পাবেন স্কফিল্ড স্টাডি বাইবেলের ৭৬৩ নম্বর পাতায়। উঠে দাঁড়ান ও উচ্চ স্বরে আবৃত্তি করুন।

“আমি কি সেই প্রকার উপবাস মনোনীত করি নি, যা দুষ্টতার সকল গাঁট খুলিয়া দিবে, সকল বোঝা হইতে মুক্ত করিবে আর পরাধীন মানবকে মুক্ত করিবে, সমস্ত শৃঙ্খল ভাঙিতে সাহায্য করিবে”! (ঈশা ৫৮ঃ৬)

আপনারা এখন বসিতে পারেন।

এই শিক্ষা যে সত্য তা বলার এক পন্থা হল শাস্ত্রের অংশ বিশ্লেষণ করা। বিষয়টা যদি কেবল মাত্র বাইবেলের একটা জায়গায় উপস্থিত হয় তবে ইহার উপরে শিক্ষাকে গঠন করাটা বিপদ সংকুল হয়ে পড়ে। কিন্তু উপবাস সহকারে লোকেদের শয়তানের শক্তি হতে উদ্ধার করা তা কেবল পাওয়া যায় মার্ক ৯ঃ২৯ ও ম্যাথুজ ১৭ঃ২১ পদে। আমি জানি যে পাঠ্যাংশের সমালোচকরা ম্যাথুজ ১৭ঃ২১ পাঠ্যাংশটিকেও উঠিয়ে নিতে চেয়েছিল, সেই দুই অর্থহীন গুপ্ত আধ্যাত্ম রহস্যের আবেদনের দ্বারা। কিন্তু এটাকে কেউই ঈশার ৫৮ঃ৬ অংশে উল্লেখিত স্বচ্ছ বাক্য থেকে সরিয়ে নিতে পারে নি। সেতাই হল এই পদ যা মার্ক ৯ঃ২৯ পদের সঙ্গে যোগ সাধন করেছে। সেটাই হল শাস্ত্রের বিশ্লেষণ যা প্রমাণ করে যীশি ঠিকই বলেছিলেন যখন তিনি বললেন ‘ প্রার্থনা ও উপবাস ভিন্ন আর কিছুতেই এই জাতি বাহির হয় না’। (মার্ক ৯ঃ২৯)।

“আমি কি সেই প্রকার উপবাস মনোনীত করি নি,যা দুষ্টতার সকল গাঁট খুলিয়া দিবে, সকল বোঝা হইতে মুক্ত করিবে আর পরাধীন মানবকে মুক্ত করিবে, সমস্ত শৃঙ্খল ভাঙিতে সাহায্য করিবে”!

সেটাই হল উপবাস যা ঈশ্বর মনোনীত করছেন। মন্দতার গাঁট খুলে দেওয়া, জোয়ালের খিল মুক্ত করা, যারা শয়তানের দ্বারা পদদলিত তাদের স্বাধীন করা এবং সমস্ত রকম মন্দ আত্মার জোয়াল ভেঙে ফেলার জন্য সেই প্রকার উপবাস ঈশ্বরের দ্বারা ব্যাবহার করা যেতে পারে! অষ্টবিংশতিতম শতাব্দীতে হাজার হাজার মানুষকে কনভার্ট করার প্রতি সব থেকে মহান সুসমাচার প্রচারক জন ওয়েলেসলি ঈশ্বরের দ্বারা ব্যাবহৃত হয়েছিলেন। জন ওয়েলেসলি বলেন,

“তুমি কি উপবাস ও প্রার্থনার কোন দিন ধার্য্য করেছ? অনুগ্রহের সিংহাসনে ঝড় তুলুন আর সেখানেই সুরক্ষিত হোন; তবেই অনুগ্রহ নীচে নেমে আসবে”।

“আমি কি সেই প্রকার উপবাস মনোনীত করি নি, যা দুষ্টতার সকল গাঁট খুলিয়া দিবে, সকল বোঝা হইতে মুক্ত করিবে আর পরাধীন মানবকে মুক্ত করিবে, সমস্ত শৃঙ্খল ভাঙিতে সাহায্য করিবে’। (ঈশা ৫৮ঃ৬ )

জনের ভাই, চার্লস ওয়েসলে, তার একটি গীতে এই বিষয়টী ভালো ভাবে বলেছেন,

বাতিল পাপের শাস্তিকে তিনি করেন খর্ব,
   তিনি করেন বন্দীকে মুক্তি;
তাঁর শোণিত করতে পারে ক্লিষ্টকে স্বাধীন
   তাঁর শোণিত আমার জন্য প্রাপ্য।
(“O For a Thousand Tongues to Sing” by Charles Wesley, 1707-1788).

আপনার জীবনে মন্দতার শৃঙ্খল যদি যীশুর দ্বারা ভগ্ন হয়েছে তাহলে আমার সঙ্গে উঠে দাঁড়িয়ে গান!

বাতিল পাপের শাস্তিকে তিনি করেন খর্ব,
   তিনি করেন বন্দীকে মুক্তি;
তাঁর শোণিত করতে পারে ক্লিষ্টকে স্বাধীন
   তাঁর শোণিত আমার জন্য প্রাপ্য।

আমেন,আমেন ! আপনারা এবার বসতে পারেন।

“আমি কি সেই প্রকার উপবাস মনোনীত করি নি, যা দুষ্টতার সকল গাঁট খুলিয়া দিবে, সকল বোঝা হইতে মুক্ত করিবে আর পরাধীন মানবকে মুক্ত করিবে,সমস্ত শৃঙ্খল ভাঙিতে সাহায্য করিবে’। (ঈশা ৫৮ঃ৬ )

বাতিল পাপের শক্তিকে চূর্ণ করা এবং বন্দীদের মুক্ত করার জন্য উপবাস ও প্রার্থনাকে ঈশ্বরের দ্বারা ব্যাবহার করা যেতে পারে ! ঈশ্বরের জয় গান হোউক। হাল্লে লুইয়া !

এই গ্রীষ্মের সময়ে যাদের আমরা মন্ডলীতে নিয়ে এসেছি, সেই সমস্ত যুবক যুবতীদের শয়তানের শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করার জন্য আমরা যখন ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি, তখন আমি অনুরোধ করি আগামী শুক্রবার দিনে উপবাস ও প্রার্থনা করার জন্য আমার সঙ্গে যোগদান করুন। আমি আপনাকে উপবাস করতে বলছি, খাবার থেকে বিরত থাকুন, যদি সম্ভব হয় তবে কেবল্মাত্র জলের সঙ্গে থাকুন শুক্রবার সারাদিন- যতক্ষণ পর্যন্ত না আমরা মন্ডলীতে আসছি, উপবাসে থাকুন। শুক্রবার সন্ধ্যাবেলা আমরা আপনাকে হাল্কা সান্ধ্য খাবার দেব। আপনার যদি ঔষধ পত্র নিয়ে কোন সমস্যা রয়েছে তবে আমাদের সঙ্গে সেই দিন পুরোদিন উপবাসে যোগদান করার আগে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নিন। নিশ্চিতভাবেই যথেষ্ঠ জল পান করুন। আপনি যদি কফি বা চা পান করতে অভ্যস্থ তবে সম্ভবত তা আপনি পান করতে পারেন কেননা হঠাৎ করে সেটা যদি ছেড়ে দেন তবে হয়তো মাথার যন্ত্রণা বা মাথা ধরা উপলব্ধি করতে পারেন!

আর নিশ্চিত ভাবেই নতুন লোকেদের নাম ধরে প্রার্থনার সময় কাটাবেন উপবাসের শুক্রবার দিনে। আপনি যদি অত্যন্ত বয়স্ক বা অসুস্থ অথবা যিদি শুক্রবার দিনে কাজ করছেন, তবে হতে পারে আংশিক উপবাস হিসেবে আপনি ট্মেমেটো জু্স নিতে পারেন। আর সেই সঙ্গে সঙ্গে ডাঃ জেরী ফল ওয়েলের বাক্য মনে রাখবেন, তিনি হলেন লিবার্টি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপক।

      প্রায় লোকেরা কেবলমাত্র একদিনের জন্য উপবাস করে, তা বিশেষত উপবাস তাদের কাছে যদি নতুন হয়। কেবল মাত্র যারা যীশুখৃষ্টতে পরিপক্ক আর বহু বৎসর কাল উপবাসের অভিজ্ঞতা রয়েছে, তারা যেন খাবার থেকে দূরে থাকেন..... বেশ কিছু দিনের জন্য। (Jerry Falwell, D.D., Fasting: What the Bible Teaches, Tyndale House Publishers, 1984 edition, p. 29).

হারিয়ে যাওয়াদের মন্ডলীতে আনতে ও পরিত্রাণ লাভ করাবার জন্য আপনি যদি পরবর্তী শুক্রবার দিনে উপবাস ও প্রার্থনায় যোগদান করেন তবে অনুগ্রহ করে এই বেদীর সামনে চলে আসুন এবং মিঃ উইনসটন সৎ ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করবেন, আগামী শুক্রবার দিন এখানে এসে প্রার্থনায় ও উপবাসে সময় কাটাবার জন্য। এখন আপনারা বসতে পারেন। ‘তিনিই বাতিল পাপের শক্তিকে খর্ব করেন’ পুণরায় গান..

বাতিল পাপের শাস্তিকে তিনি করেন খর্ব,
   তিনি করেন বন্দীকে মুক্তি;
তাঁর শোণিত করতে পারে ক্লিষ্টকে স্বাধীন
   তাঁর শোণিত আমার জন্য প্রাপ্য।

আরোও একটা বিষয়—আপনি যদি নব জন্ম প্রাপ্ত খৃষ্টিয়ান না হোন, তবে সতর্কতার সাথে শুনুন। প্রভু যীশুখৃষ্ট ক্রুশের উপরে মৃত্যু বরণ করেছেন আপনার পাপের শাস্তি মেটাবার জন্য। খৃষ্ট তাঁর মহামূল্য শোণিত দান করেছেন আপনাকে সমস্ত পাপ থেকে পবিত্র করার জন্য। খৃষ্ট অস্থি ও মজ্জা নিয়ে মৃত্যু থেকে পুণরায় জীবিত হয়েছেন মৃত্যুর তিন দিন পরে। তিনি স্বর্গে ফিরে গিয়েছেন, আর তিনি পিতা ঈশ্বরের দক্ষিণে বসে রয়েছেন। সেখানে তিনি আমাদের জন্য প্রার্থনা করছেন। বিশ্বাস সহকারে খৃষ্টের কাছে আসুন, তাহলে আপনি নুতন জন্ম লাভ করবেন আর আপনার পাপের ক্ষমা গ্রহণ করবেন ও অনন্ত জীবন পাবেন। আপনি কি খৃষ্টের কাছে অতি শীঘ্র আসবেন! এই মন্ডলীতে পরের রবিবার নিশ্চিতভাবে ফিরে আসবেন! আমেন!

বক্তৃতার সমাপ্তি
ইন্টারনেটে www.realconversion.com. প্রতি সপ্তাহে আপনি ডাঃ হাইমারের বক্তৃতা
পড়িতে পারেন। ক্লিক করুন “বাংলায় বক্তৃতা”

You may email Dr. Hymers at rlhymersjr@sbcglobal.net, (Click Here) – or you may
write to him at P.O. Box 15308, Los Angeles, CA 90015. Or phone him at (818)352-0452.

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাথ করেছেন মিঃ কিউ ডং লীঃ মার্ক ৯ঃ ২০-২৯
একক সঙ্গীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেইড গ্রিফিথঃ
“তারপরে যীশু এলেন”(by Homer Rode heaver, 1880-1955).


খসড়া চিত্র

শয়তানকে জয় করার জন্য যে উপবাস

ডাঃ আর এল হাইমার্স, জুনি

“পরে তিনি গৃহে আসিলে তাঁহার শিষ্যেরা বিজনে তাঁহাকে জিজ্ঞাসা করিলেন আমরা কেন সেটা ছাড়াইতে পারিলাম না! তিনি কহিলেন প্রার্থনা এবং উপবাস ভিন্ন ইহা আর কিছুতেই এই জাতি বাহির হয় না” (মার্ক ৯ঃ২৮,২৯)

(১-ম টিমোথি ৪ঃ১; প্রকাশিত বাক্য ৩ঃ১৭)

১.  প্রথম,শয়তানের শক্তির স্তরের বিভিন্নতা ম্যাথুজ ১০ঃ৮; মার্ক ৯ঃ১৮-২৫.

২.  দ্বিতীয়,পাপীদের শয়তানের কবল থেকে মুক্ত করার জন্য উপবাস হল ঈশ্বরের
দেওয়া শক্তি ইশা ৫৮ঃ৬