Print Sermon

এই ওয়েবসাইটের উদ্দেশ্য হল ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপি এবং ধর্ম্মোপদেশের ভিডিওগুলি বিশ্বব্যাপী পালক ও মিশনারিদের বিনামূল্যে সরবরাহ করা, বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বে, যেখানে ধর্ম্মতত্ত্বমূলক সেমিনারী বা বাইবেল স্কুল থাকলেও খুব কম রয়েছে|

এই সমস্ত ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপি ও ভিডিওগুলি www.sermonsfortheworld.comওয়েবসাইটের মাধ্যমে এখন প্রতি বছর 221টি দেশের প্রায় 1,500,000 কম্প্যুটারে যায়| আরও শত শত লোক ইউটিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান এবং আমাদের ওয়েবসাইটে চলে আসেন| ইউটিউব আমাদের ওয়েবসাইটে লোক এনে দেয়| ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 42টি ভাষায় প্রায় 120,000 কম্প্যুটারে প্রচারিত হয়| ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার প্রচারের এই মহান কাজে আমাদের সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখনই আপনি ডঃ হেইমার্‍সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্‌সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




পীলাত এবং প্রোকুলা

PILATE AND PROCULA
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর. এল. হেইমার্‍স, জুনিয়র
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

2010 সালের, 28শে ফেব্রুয়ারি, প্রভুর দিনের সন্ধ্যাবেলায় লস্‍ এঞ্জেল্‍সের
ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাক্‍ল মন্ডলীতে প্রচারিত একটি ধর্ম্মোপদেশ
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Evening, February 28, 2010

‘‘তিনি বিচারাসনে বসিয়া আছেন, এমন সময়ে তাঁহার স্ত্রী তাঁহাকে বলিয়া পাঠাইলেন, সেই ধার্ম্মিকের প্রতি তুমি কিছুই করিও না; কারণ আমি আজ স্বপ্নে তাঁহার জন্য অনেক দুঃখ পাইয়াছি’’ (মথি 27:19)|


ভবিষ্যবাণীমূলক হিসাবে ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট এবং নিউজউইক, উভয়েই বলছে যে বাইবেল রোমীয় শাসক পন্তীয় পীলাতের বর্ণনা দিতে ভুল করেছে, যিনি খ্রীষ্টের ক্রুশারোপনের আদেশ দিয়েছিলেন| নিউজউইক বলছে,

[দ্য প্যাশন অফ দ্য খ্রাইস্ট-এ] [মেল] গিবসনের বর্ণিত পীলাত কোন মানবিক চরিত্রধারী ছিলেন না| আলেকজান্দ্রিয়ার ফিলো-এর বর্ণনা অনুযায়ী, দেশাধ্যক্ষ ছিলেন “অনমনীয়, জেদী, এবং নিষ্ঠুর স্বভাবের,” এবং বিচার ছাড়াই অশান্তি সম্পাদনকারী বলেই জানা ছিল (নিউজউইক, ফেব্রুয়ারি 16, 2004, পৃ. 48)|

নিউজউইক ক্রমাগতভাবে বলে চলেছিল যে খ্রীষ্ট ধর্মকে “আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপিত করার জন্য একজন শ্রোতার কাছে যতটা সুন্দরভাবে সম্ভব উদার করতে” চারটি সুসমাচারের লেখকগণ রোমীয় শাসকের চিত্র অঙ্কনে নিজেদের ধারার বাইরে চলে গিয়েছেন (আইবিড.)|

ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট বলেছে,

যীশুকে শাস্তিদানের বিষয়ে মহাযাজকের জেদের দ্বারা বিহ্বল হয়ে পন্তীয় পীলাত, গিবসনের (অথবা সুসমাচারের) কিছুটা সদয় [মানবিক] চরিত্র হওয়া থেকে অনেকটা দূরে ছিলেন| এর চেয়ে, তিনি বরং, প্রথম-শতাব্দীর ঐতিহাসিক যোষেফাস এর বর্ণনা অনুসারে, ছিলেন একজন কুখ্যাতভাবে কঠোর অধ্যক্ষ, এমনকী সম্ভাব্য বিদ্রোহীদের ক্রুশারোপনেও সিদ্ধহস্ত (ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট, মার্চ 8, 2004, পৃ. 42)|

বাইবেল বিশ্বাসকারী খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হিসাবে, আমরা টাইম, নিউজউইক, ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট এবং ধর্ম-নিরপেক্ষ মাধ্যমকে, যখন তারা খ্রীষ্ট ধর্মের বিষয়ে মন্তব্য করেন, তখন সাধারণভাবে বিশ্বাস না করতে শিখে এসেছি| উদাহরণস্বরূপ, চারটি সুসমাচারে নথিভুক্ত যীশুর প্রতি পীলাতের আচরণকে সন্দেহের বাইরে রাখতে নিউজউইক ফিলোর উল্লেখ করেছে| কিন্তু যীশু এবং পীলাতের মধ্যে কি ঘটেছিল সেই বিষয়ে ফিলো ছিলেন খুব কষ্টকল্পিত একজন প্রত্যক্ষদর্শী| যিরূশালেম থেকে শতাধিক মাইল দূরে, মিশর দেশের, আলেকজান্দ্রিয়াতে ফিলো জন্মেছিলেন এবং সেখানেই বসবাস করতেন| এমনকী তিনি পীলাত বা যীশু কাউকেই কখনও দেখেননি ! তিনি কেবলমাত্র পরোক্ষ জ্ঞানে লিখেছিলেন| এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা বলছে যে ফিলো “মনে হয় তার সমগ্র জীবন আলেকজান্দ্রিয়াতেই কাটিয়েছিলেন” (এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, 1946, ভলিউম 17, পৃ. 757)|

ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট ঐতিহাসিক যোষেফাস এর উল্লেখ করেছে| যোষেফাস এমনকী 37 এ.ডি, যীশুর ক্রুশারোপনের চার বছর পর্যন্ত জন্মগ্রহণ করেননি (এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, ভলিউম 13, পৃ. 153)| ফিলো মিশরে বাস করতেন| তিনি কখনও যিরূশালেমে ছিলেন না| যোষেফাস এমনকী তখনও জন্মগ্রহণ করেননি| প্রেরিতের দ্বারা চারটি সুসমাচারে দেওয়া প্রত্যক্ষদর্শীর বিবরণের বিরুদ্ধে এই লোকদের কাউকে উল্লেখ করা অসাধুতা| মথি উপস্থিত ছিলেন| কি ঘটেছিল তিনি তা দেখেছিলেন| মার্ক উপস্থিত ছিলেন| কি ঘটেছিল তিনি তা দেখেছিলেন| যোহন উপস্থিত ছিলেন| কি ঘটেছিল তিনি তা দেখেছিলেন| লূক তার সুসমাচার লিখেছিলেন পিতর এবং অন্যদের দেওয়া সেই প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণ থেকে যারা দেখেছিলেন যে সেখানে কি ঘটেছিল| তারা বাস্তবিকই সেখানে উপস্থিত ছিলেন| তারা ছিলেন প্রত্যক্ষদর্শী| ফিলো শতাধিক মাইল দূরে আফ্রিকাতে বাস করতেন এবং যোষেফাস তখনও জন্মগ্রহণ করেননি !

নিউজউইক এবং ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট উভয়েই প্রেরিতের প্রত্যক্ষ সাক্ষ্যের বিবরণ অস্বীকার করছে এবং একজন লোকের বর্ণনার পক্ষে সায় দিচ্ছে, যাদের একজন তখনও জন্মগ্রহণ করেননি, এবং অন্যজন শতাধিক মাইল দূরে, উত্তর আফ্রিকাতে বসবাস করতেন! এটা আমার কাছে পক্ষপাতদুষ্ট প্রতিবেদনের মত মনে হচ্ছে! কিন্তু আমরা শিখেছি যে খ্রীষ্টধর্মের বিরুদ্ধে – ধর্মনিরপেক্ষ সংবাদ মাধ্যমের একটা পক্ষপাতিত্ব থাকে | অন্য কোন ধর্মের প্রতি তারা এটা করে না, কিন্তু প্রত্যেকটি সুযোগেই তারা বাইবেল ও খ্রীষ্টধর্মের প্রতি আঘাত করেন| তাদের থেকে আমরা এটা প্রত্যাশা করে থাকি| যেমন ডেভিড লিমবাগ বলেছেন,

বড়দিন বা ইস্টারের ঋতুতে দেশের অগ্রগণ্য পত্রিকাগুলিতে বাইবেল ভিত্তিক খ্রীষ্টধর্মের সুনাম হানিকারক গল্পের প্রাদুর্ভাব আপনি কি কখনও লক্ষ্য করেছেন? সংবাদপত্রের বিভাগীয় লেখক ডন ফীডার পর্যবেক্ষণ করেছেন যে 1996 সালের পবিত্র সপ্তাহ চলাকালীন, নিউজউইক এবং ইউ.এস. নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট উভয়েই খ্রীষ্টধর্মকে অনাবৃত করে প্রচ্ছদ-কাহিনী প্রকাশ করেছিল (ডেভিড লিমবাগ, Persecution: How Liberals Are Waging War Against Christianity, রেগন্যারি পাবলিশিং, 2003, পৃ. 271)|

রক্ষণশীল অনেক লেখকই লক্ষ করেছেন যে খ্রীষ্টধর্মের বিরুদ্ধে স্বাধীন সংবাদ সংস্থাগুলি কিভাবে পক্ষপাতদুষ্ট হয়ে থাকে|

নতুন নিয়ম পন্তীয় পীলাতকে মুছে ফেলেনি| ফিলো বা যোষেফাস কারোরই কোন প্রয়োজন আমাদের নেই এই বলার জন্য যে পীলাত ছিলেন একজন নিষ্ঠুর রোমান শাসক| লূক 13:1-2 পদগুলি একটি ঘটনার কথা বলছে যখন পীলাত গালীলে বহু যিহূদীকে হত্যা করেছিলেন| ইলাস্ট্রেটেড ডিকশনারি অফ বাইবেল আমাদের বলছে যে

যিহূদীদের মধ্যে পীলাত কোনদিনই জনপ্রিয় হতে পারেননি| মনে হয় তিনি তাদের ধর্ম্মীয় দৃঢ়বিশ্বাসের প্রতি সংবেদনহীন হয়ে এবং তার নীতিগত কর্মপন্থার অনুসরণে অনমনীয় ছিলেন| কিন্তু যখন যিহূদীরা তার শাসনব্যবস্থার প্রতি ক্রুদ্ধ বিরোধীতায় প্রতিক্রিয়া জানাতেন, তিনি তার দুর্বলতা প্রকাশ করে, প্রায়শই দাবী পরিত্যাগ করতেন…নীতিবিহীন উদ্যোগীর এক প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলেন পীলাত যিনি তার নিজ স্বার্থ রক্ষার উদ্দেশ্যে সঠিক বিষয়কেও বিসর্জন দিতেন| যদিও যীশুকে নির্দোষ হিসাবে স্বীকার করার এবং ন্যায়কে উচ্চকৃত করা ও যীশুকে বেকসুর খালাশ করার ক্ষমতা তার ছিল, তা সত্বেও তার ব্যক্তিগত উন্নতিকে পশ্চাদপদ করার ঝুঁকি না নিয়ে তিনি বরং জনতার দাবীর কাছে মাথা নত করেছিলেন (হারবার্ট লকইয়ার, সিনিয়র এডিটর, ইলাস্ট্রেটেড ডিকশনারি অফ বাইবেল, থমাস নেলসন, 1986, পৃ. 842)|

তাহলে, কেন পন্তীয় পীলাত যীশুকে ক্রুশারোপিত করতে অনাগ্রহী ছিলেন? আমি মনে করছি সেখানে তিনটি প্রধান কারণ ছিল: রাজনৈতিক পরিস্থিতি, তার স্ত্রীর সতর্ক বার্তা, এবং তার দুর্বল অবস্থান| পীলাতকে সচেতন থাকতে হয়েছিল যে মাত্র এক সপ্তাহ আগেই জনগণের এক বিশাল ভিড় যীশুকে যিরূশালেমে স্বাগত জানিয়েছিল| চিৎকার করে তারা বলেছিল,

“হোশান্না দায়ূদ-সন্তান, ধন্য, যিনি প্রভুর নামে আসিতেছেন; উর্দ্ধলোকে হোশান্না| আর তিনি যিরূশালেমে প্রবেশ করিলে নগরময় হুলস্থূল পড়িয়া গেল; সকলে কহিল, উনি কে? তাহাতে লোকসমূহ কহিল, উনি সেই ভাববাদী, গালীলের নাসরতীয় যীশু” (মথি 21:9-11)|

এটা শাসককে নিশ্চিতভাবে সতর্ক করেছিল| তিনি ইতিমধ্যেই যীশুর বিষয়ে চিন্তা করছিলেন|

তারপরে যীশু মন্দির পরিষ্কার করেছিলেন|

“পরে যীশু ঈশ্বরের ধর্ম্মধামে প্রবেশ করিলেন, এবং যত লোক ধর্ম্মধামে ক্রয়বিক্রয় করিতেছিল, সেই সকলকে বাহির করিয়া দিলেন, এবং পোদ্দারদের মেজ ও যাহারা কপোত বিক্রয় করিতেছিল, তাহাদের আসন সকল উল্টাইয়া ফেলিলেন, আর তাহাদিগকে কহিলেন, লেখা আছে, “আমার গৃহ প্রার্থনা গৃহ বলিয়া আখ্যাত হইবে,” কিন্তু তোমরা ইহা “দস্যুগণের গহ্বর” করিতেছ| পরে অন্ধেরা ও খঞ্জেরা ধর্ম্মধামে তাঁহার নিকট আসিল, আর তিনি তাহাদিগকে সুস্থ করিলেন” (মথি 21:12-14)|

পীলাত সত্যিই, সেইগুলি সম্বন্ধেও সবকিছু জানতেন|

যিরূশালেমে বিজয়সূচক প্রবেশ, মন্দির পরিষ্কার, এবং অতিপ্রাকৃতিক আরোগ্য – শাসক হিসাবে, পীলাত ঐসব বিষয়ের সবকিছু শুনেছিলেন| তারপরে তারা যীশুকে তার কাছে এনেছিল| তিনি যীশুকে প্রশ্ন করেছিলেন,

“তিনি তাঁহাকে এক কথারও উত্তর দিলেন না; ইহাতে দেশাধ্যক্ষ অতিশয় আশ্চর্য্য জ্ঞান করিলেন” (মথি 27:14)|

দ্বিতীয়ত, তার স্ত্রী তাকে একটি বার্তা পাঠিয়েছিলেন| আসুন আমরা উঠে দাঁড়াই এবং জোরে জোরে মথি 27:19 পদটি পাঠ করি|

‘‘তিনি বিচারাসনে বসিয়া আছেন, এমন সময়ে তাঁহার স্ত্রী তাঁহাকে বলিয়া পাঠাইলেন, সেই ধার্ম্মিকের প্রতি তুমি কিছুই করিও না; কারণ আমি আজ স্বপ্নে তাঁহার জন্য অনেক দুঃখ পাইয়াছি’’ (মথি 27:19)|

আপনারা বসতে পারেন|

প্রাচীন পরম্পরাগত প্রথা অনুযায়ী তার স্ত্রী ছিলেন যিহূদী ধর্মে পরিবর্তিত| পীলাত স্বয়ং কোন অর্থেই একজন আধুনিক মানুষ ছিলেন না| একজন রোমীয় হিসাবে, তিনি বহু দেবতায়, ভাল ও মন্দ - আত্মায়, এবং পূর্বাভাস ও স্বপ্নে বিশ্বাস করতেন| শাস্ত্রের নথি থেকে জানা যায়, পীলাত সম্ভবত তার স্ত্রীর খুব অন্তরঙ্গ ছিলেন| তার নাম ছিল ক্লাউডিয়া প্রোকুলা| যখন পীলাত একটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার শুনানির মধ্যে বসে রয়েছেন, সেইসময়ে তার কাছে প্রোকুলার এই বার্তা প্রেরণের ঘটনা, তাদের উভয়ের মধ্যকার আবেগপূর্ণ অন্তরঙ্গতার পরিচয় দেয়|

সেইজন্য, দুঃখভোগের সপ্তাহ চলাকালীন এই অবিশ্বাস্য সক্রিয়তার দৃশ্য আপনি দেখতে পেয়েছেন| তাঁর ভজনা এবং প্রশংসারত সমস্ত লোকদের সঙ্গে নিয়ে, খ্রীষ্টের বিজয়সূচক প্রবেশ আপনি দেখেছেন| তারপরে সেখানে ছিল মন্দির পরিষ্কার| আমি মনে করি মেল গিবসন সঠিক ছিলেন যখন তিনি দেখলেন পীলাত বলছেন, “ইনিই কি সেই ভাববাদী নন যাকে আপনি নগরে অভ্যর্থনা জানিয়েছিলেন? আপনি কি আমাকে এই উন্মত্ততার ব্যাখ্যা দিতে পারেন?” (cf. নিউজউইক, ফেব্রুয়ারি, 2004, পৃ. 49)| সেটা সত্য শোনায়| এটা খুবই প্রত্যাশিত যে সেগুলি ছিল পীলাতের যথাযথ চিন্তাভাবনা|

তারপরে, আপনি তার স্ত্রীকে যীশুর সম্বন্ধে পীলাতের কাছে সতর্ক বার্তা পাঠাতে দেখছেন – তিনি বিচার করাকালীন| বার্তাটির অতিপ্রাকৃতিক সুরুচিকর সুগন্ধ সেই সময়কার একজন কুসংস্কারাচ্ছন্ন রোমীয়কে অস্থির করে থাকবে|

তৃতীয়ত, পীলাত অপেক্ষাকৃত অতি দুর্বল অবস্থাতে ছিলেন| কৈফিয়ৎদানকারী লী স্ট্রোবেল বলছেন যে তাঁকে

     স্মরণ করানো হয়েছিল…কিভাবে কয়েকজন সমালোচক সুসমাচারের সঠিকতা নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন সেই কারণে যেভাবে তারা রোমীয় নেতার চিত্র অঙ্কন করেছিলেন| যেখানে নতুন নিয়ম তাকে দোলায়মান এবং যীশুকে দোষী করার দ্বারা যিহূদী জনতার চাপের কাছে নমনীয় হতে ইচ্ছুক হিসাবে চিত্রিত করছে, সেখানে অন্যান্য ঐতিহাসিক বিবরণে তাকে জেদী এবং অনমনীয় বলে দেখানো হয়েছে|
     [কিন্তু ডঃ এডউইন ইয়ামৌচি, একজন বিখ্যাত প্রত্নতত্ত্ববিদ এবং বাইবেল পন্ডিত, স্পষ্ট করেছেন যে পল মেইয়ার এর 1968 সালের বই, পন্তীয়াস পীলাত] “…দেখাচ্ছে যে তার [পীলাতের] অভিভাবক বা উৎসাহদাতা ছিলেন সেজানাস এবং সেই সেজানাস A.D. 31 এ ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিলেন কারণ তিনি সম্রাটের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিলেন…এই ক্ষতি A.D. 33 এ পীলাতের অবস্থানকে খুব দুর্বল করতে পারতো…যখন যীশুকে ক্রুশারোপিত করা হল| সুতরাং নিশ্চিতভাবে এটা বোধগম্য যে পীলাত অনিচ্ছুক হয়েছিলেন…তার অর্থ হল বাইবেল সংক্রান্ত বিবরণ…সঠিক” (লী স্ট্রোবেল, দ্য কেস ফর খ্রাইষ্ট, জোনডারভ্যান, 1998, পৃ. 85)|

ঐ তিনটি কারণের জন্য আমি মনে করি না যে যীশুকে ক্রুশারোপিত করতে পীলাতের অনাগ্রহের বিষয়ে সেখানে অদ্ভূত কোন একটা কিছু ছিল| পীলাতের প্রাক-আধুনিক মন সন্দেহহীনভাবে যীশুকে এক ধরণের অতিপ্রাকৃতিক ক্ষমতাসম্পন্ন হিসাবেই দেখেছিল| বাইবেল বলছে যে তিনি “ভীষণভাবে আশ্চর্য্যান্বিত হইয়াছিলেন” [ভীষণভাবে বিস্ময়াপন্ন ছিলেন] যে যীশু তার প্রশ্নের প্রতি অতি সামান্য উত্তর করেছিলেন| এবং, সেইজন্য, তিনি দ্বিধাগ্রস্ত হয়েছিলেন| তিনি তার স্ত্রীর অদ্ভূত স্বপ্নের বিষয়ে ভেবেছিলেন| তিনি শুনলেন যে যীশু বলছেন,

‘‘যদি উর্দ্ধ হইতে তোমাকে দত্ত না হইত, তবে আমার বিরুদ্ধে তোমার কোন ক্ষমতা থাকিত না…’’ (যোহন 19:11)|

যেকোনভাবে, তার কুসংস্কারাচ্ছন্ন, পৌত্যলিক হৃদয়ে, পীলাত জানতেন তিনি অতিপ্রাকৃতিক ক্ষমতার সঙ্গে – ঈশ্বরের সঙ্গে আচরণ করছেন| তার স্ত্রীর কথাগুলি তার মনে ঘোরাফেরা করছিল,

‘‘সেই ধার্ম্মিকের প্রতি তুমি কিছুই করিও না; কারণ আমি আজ স্বপ্নে তাঁহার জন্য অনেক দুঃখ পাইয়াছি’’ (মথি 27:19)|

আসুন আরও গভীরভাবে পীলাতের প্রতি তার স্ত্রীর পাঠানো বার্তার দিকে নজর করি|

I. প্রথম, পাপের বিরুদ্ধে এটা একটা সতর্কবার্তা |

এটা ছিল একটা সৌভাগ্যক্রমে পাওয়া স্বপ্ন| পুরানো নিয়মে ঈশ্বর প্রায়ই স্বপ্নের মাধ্যমে কথা বলতেন| মিশরদেশে ঈশ্বর স্বপ্নের মাধ্যমে ফৌরানের সঙ্গে কথা বলেছিলেন| ঈশ্বর একটি স্বপ্নের মাধ্যমে রাজা নবখুদনিৎসরের সঙ্গে কথা বলেছিলেন| যোষেফের সঙ্গে ঈশ্বর স্বপ্নের মাধ্যমে কথা বলেছিলেন, এবং রাজা হেরোদের হাত থেকে উদ্ধারের জন্য শিশু যীশুকে নিয়ে তাকে মিশরদেশে চলে যেতে বলেছিলেন| প্রোকুলার স্বপ্ন মানসিক দুঃখভোগ নিয়ে বর্তমান ছিল| তিনি বলেছিলেন, “আমি…স্বপ্নে তাঁহার জন্য অনেক দুঃখ পাইয়াছি” (মথি 27:19)| গ্রীক শব্দ “pascho” অনুবাদিত হয়ে “suffered” (দুঃখভোগ করা) হয়েছে| খ্রীষ্টের দুঃখ, খ্রীষ্টের দুঃখভোগ, উল্লেখ করে প্রেরিত 1:3 পদে এটা “passion” (দুঃখ) হিসাবে অনুবাদিত হয়েছে| পীলাতের স্ত্রী, প্রোকুলা, হয়তো তার স্বপ্নে খ্রীষ্টের ভীষণ দুঃখভোগ দেখে থাকবেন| তার স্বামীর ভয়ঙ্কর ভাগ্য বিষয়ক কিছু তিনি দেখে থাকতে পারেন|

নিশ্চিতভাবে তার স্বপ্নটি ছিল পাপের বিরুদ্ধে দেওয়া একটি সতর্কবার্তা| এবং এটা পীলাতের বিবেকের প্রতি বলেছিল| প্রোকুলা পীলাতকে বলেছিলেন যে যীশু হলেন একজন “সঠিক মানুষ,” একজন ধার্ম্মিক ব্যক্তি| পীলাতের নিজস্ব বিবেক প্রোকুলার সঙ্গে সহমত হয়েছিল| যখন তিনি বিষয়টি থেকে হাত ধুয়ে নিলেন, তিনি তার স্ত্রীর দেওয়া খ্রীষ্টের বর্ণনার প্রতিধ্বনি করে, যীশুকে “এই ধার্ম্মিক ব্যক্তি” বলে অভিহিত করলেন (মথি 27:24)| যদিও পীলাত তার স্ত্রীর কথায় প্রভাবিত হয়েছিলেন, কিন্তু তিনি আন্দোলিত হয়েছিলেন| একদিকে তার নিজের বিবেকের দ্বারা, এবং অন্যদিকে তার লোকভয়ের দ্বারা তিনি আকর্ষিত হচ্ছিলেন|

তখন জনতা চিৎকার করছিল,

‘‘আপনি যদি উহাকে ছাড়িয়া দেন, তবে আপনি কৈসরের মিত্র নহেন; যে কেহ আপনাকে রাজা করিয়া তুলে, সে কৈসরের বিপক্ষে কথা কহে’’ (যোহন 19:12)|

সেটাই তাকে সীমারেখার বাইরে নিয়ে গেছিল| ডঃ রেইরী বলছেন,

তিনি চাননি যে রোমকে আর একটি প্রতিবেদন দিতে যে তিনি যিহূদী প্রথা লঙ্ঘন করেছেন অথবা একটি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি – এর আগে [সম্রাট] টিবরিয়াসের প্রতি অভিযোগ করা হয়েছিল (চার্লস সি. রেইরী, পিএইচ.ডি., দ্য রেইরী স্টাডি বাইবেল, মার্ক 15:1 পদের টীকা)|

সেই…শাসকবর্গ যীশুর বিরুদ্ধে করা রাজনৈতিক অভিযোগের পুনরুল্লেখ করছেন, একজন আঞ্চলিক শাসকের প্রতি [পীলাতের মতন] শক্তিশালী হুমকি দেওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছেন, যিনি সম্রাটের [টিবরিয়াস] ইচ্ছানুসারে কাজ করছেন| রোম পীলাতের কাজকর্মের প্রতিবাদ যিহূদীরা ইতিমধ্যেই অন্যান্য ব্যাপারে করেছিলেন যেখানে তিনি তাদের রীতিনীতির প্রতি অসংবেদী ছিলেন (আইবিড., যোহন 19:12 পদের টীকা)|

আর সেইজন্য লোকভয় পীলাতকে প্রোকুলার সতর্কবার্তা অমান্য করতে, তার নিজের বিবেকের বিরুদ্ধে যেতে, এবং পাপ করতে বাধ্য করেছিল| বাইবেল বলছে,

‘‘লোক-ভয় ফাঁদজনক’’ (হিতোপদেশ 19:12)|

আজ সন্ধ্যায় এখানে সেইসব লোকেরা আছেন যারা খ্রীষ্টের বিষয়ে চিন্তা করছেন| পীলাতের মতন, তাঁর বিষয়েও আপনাকে সতর্ক করা হয়েছে| আপনাকে বলা হয়েছে পাপ থেকে মুখ ঘুরিয়ে নিতে এবং যীশুকে বিশ্বাস করতে| আপনি কি সেটা করবেন? সেখানে একটা শক্তিশালী প্রলোভন থাকবে “আপনার হাত ধুয়ে ফেলার” এবং যীশুর থেকে দূরে চলে যাওয়ার, যেমন পীলাত করেছিলেন| লোকে আপনাকে বলবে “একজন গোঁড়া” না হতে| তারা আপনাকে খ্রীষ্টের থেকে দূরে নিয়ে যেতে চাইবে| কোন পথে আপনি যাবেন? আপনি কি খ্রীষ্টের কাছে আসবেন এবং উদ্ধার লাভ করবেন? অথবা আপনি কি তাদের দ্বারা পিছনে আকর্ষিত হবেন যারা খ্রীষ্টের বিরুদ্ধাচারী? আপনার সামনে একই বিকল্প রয়েছে যা পীলাতের ছিল| পীলাতের স্ত্রী তাকে সতর্ক করেছিলেন, কিন্তু তিনি দ্বিধান্বিত ছিলেন – অতি দীর্ঘকাল!

II. দ্বিতীয়, এটা ছিল একটা সতর্কবার্তা যা প্রত্যাখাত হয়েছিল |

এখানে কোন ভুল করবেন না| পীলাত তার স্ত্রীর দেওয়া সতর্কবার্তা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন| তার স্ত্রীর দেওয়া ঈশ্বরীয় পরামর্শে কান দেওয়ার পরিবর্তে তিনি জনতাকে অনুসরণ করেছিলেন| জন ট্র্যাপ বলছেন, “এটা কি দুর্বল-চিত্ততা [ভীরুতা] এবং জনপ্রিয়তা ছিল না, যা পীলাতকে বিভ্রান্ত করেছিল এবং তাকে এত বেশী হতবুদ্ধি করেছিল, যে তিনি বহু নেতৃস্থানীয় মানুষের বিরুদ্ধে যেতে পারেননি?” (জন ট্র্যাপ, এ কমেন্টারি অন দ্য ওল্ড এন্ড নিউ টেস্টামেন্ট, ট্রান্সকি পাবলিকেশনস, 1997 পুনর্মুদ্রন, ভলিউম V, পৃ. 271)|

তিনি কেন নিজের স্ত্রীর কথা শোনেননি? আত্ম-স্বার্থ এবং ভীরুতার কারণে| তিনি ভয় পেয়েছিলেন যে তিনি যদি স্ত্রীর কথা শোনেন তাহলে শাসক হিসাবে তিনি হয়তো তার পদ খোয়াবেন|

আপনি কি ভয় পাচ্ছেন যে যদি আপনি খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করেন তাহলে আপনি কিছু হারাবেন? সুসমাচারগুলিতে চারবার এটা লিপিবদ্ধ রয়েছে যে যীশু বলেছেন,

‘‘যে কেহ আপন প্রাণ রক্ষা করিতে ইচ্ছা করে, সে তাহা হারাইবে’’ (মথি 16:25; মার্ক 8:35; লূক 9:24; লূক 17:33)|

আপনার বাইবেল খুলে মথি 16:25-26 পদ দুটি বের করুন| আসুন আমরা উঠে দাঁড়াই এবং এই দুটি পদ জোরে জোরে পাঠ করি| যীশু বলেছেন,

‘‘কেননা যে কেহ আপন প্রাণ রক্ষা করিতে ইচ্ছা করে, সে তাহা হারাইবে, আর যে কেহ আমার নিমিত্তে আপন প্রাণ হারায়, সে তাহা পাইবে| বস্তুত মনুষ্য যদি সমুদয় জগৎ লাভ করিয়া আপন প্রাণ হারায়, তবে তাহার কি লাভ হইবে? কিম্বা মনুষ্য আপন প্রাণের পরিবর্ত্তে কি দিবে?’’ (মথি 16:25-26)|

আপনারা বসতে পারেন|

যীশু বলেছিলেন যে এইভাবেই যদি আপনি আপনার জীবন ধরে রাখতে চান, আপনি আপনার জীবন হারাবেন| কি লাভ আপনি করবেন যদি আপনি সমগ্র জগৎ লাভ করেন এবং আপনার নিজের আত্মা হারিয়ে ফেলেন? পীলাত ভুল পছন্দ করেছিলেন| শাসক হিসাবে নিজের ভূমিকা তিনি বজায় রেখেছিলেন – আরও তিন বছরের জন্য – কিন্তু তিনি তার আত্মাকে হারিয়েছিলেন|

শমরীয়দের সঙ্গে একটি রক্তাক্ত সংগ্রামের কথা বলেছিলেন যোষেফাস, যিনি পীলাতের ওপরওয়ালা, সিরিয়ার শাসক, ভিটিলিয়াস এর কাছে একটি অভিযোগ পেশ করেছিলেন| ভিটিলিয়াস পীলাতকে পদ থেকে অপসারণ করেন এবং আদেশ দেন রোমস্থিত সম্রাটের সামনে দাঁড়াতে এবং তার আচরণের উত্তর দিতে বলেন…ইসুবিয়াস জানিয়েছেন যে তাকে…গল দেশে(ফ্রান্স) নির্বাসন দেওয়া হয়েছিল যেখানে এর পরিণামে তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন (ইলাস্ট্রেটেড ডিকশনারি অফ দ্য বাইবেল, আইবিড.)|

পীলাত সেই সতর্কবাণী প্রত্যাখ্যান করেছিলেন যা ঈশ্বর তার স্ত্রী এর মাধ্যমে তাকে দিয়েছিলেন| পীলাত তার সবকিছু হারিয়েছিলেন – তারা আত্মা সমেত সবকিছু| আমরা আদৌ তাকে স্মরণ করছি এর একমাত্র কারণ হল যে তিনি যীশুর বিচারসভার সভাপতিত্ব করেছিলেন, যিনি খ্রীষ্ট নামে অভিহিত হন ! পীলাতের স্ত্রী তাকে সতর্ক করেছিলেন – কিন্তু তিনি তার সতর্কতা অগ্রাহ্য করেছিলেন|

III. তৃতীয়, এটা ছিল একটি সতর্কবার্তা যার পরিণতি ছিল অনিবার্য্য |

পিউরিটান টীকাকার জন ট্র্যাপ থিওফাইল্যাক্ট-কে উল্লেখ করেছেন, যিনি বলেছিলেন, “Opus providentie Dei; non ut solveratur Christus, sed ut servaretur uxor,” – “ঈশ্বরের দূরদর্শিতার কাজ, খ্রীষ্টকে রক্ষা করার জন্য নয়, কিন্তু তার স্বামীকে পরিচর্য্যা করার জন্য” (জন ট্র্যাপ, এ কমেন্টারি অন দ্য ওল্ড এন্ড নিউ টেস্টামেন্ট, ট্রান্সকি পাবলিকেশনস, 1997 পুনর্মুদ্রন, ভলিউম V, পৃ. 271)| থিওফাইল্যাক্ট ছিলেন দ্বাদশ শতকের একজন দক্ষ এবং বিচক্ষণ গ্রীক বাইবেল টীকাকার| তিনি আমাদের বলছেন যে প্রোকুলার সতর্কবার্তা খ্রীষ্টকে রক্ষা করার জন্য দেওয়া হয়নি, কিন্তু তার স্বামীর সেবা করতে| “সেই ধার্ম্মিক ব্যক্তির প্রতি তুমি কিছুই করিও না” (মথি 27:19)| সেই স্বপ্ন দিয়ে ঈশ্বর তার স্বামীর সেবা করেছিলেন, কিন্তু পীলাত তার স্ত্রীর সতর্কবার্তা অগ্রাহ্য করেছিলেন| অনুগ্রহ করে প্রেরিত 13:28-31 পদগুলি দেখুন| আসুন আমরা উঠে দাঁড়াই এবং ঐ চারটি পদ জোরে জোরে পাঠ করি|

‘‘আর প্রাণদন্ডের যোগ্য কোনই দোষ না পাইলেও তাহারা পীলাতের নিকটে যাচ্ঞা করিল, যেন তাঁহাকে বধ করা হয়| আর তাঁহার বিষয়ে যে সকল কথা লিখিত ছিল, তাহা সিদ্ধ করিলে পর তাঁহাকে গাছ হইতে নামাইয়া কবরে সমাহিত করিল| কিন্তু ঈশ্বর মৃতগণের মধ্য হইতে তাঁহাকে উঠাইলেন| আর যাঁহারা তাঁহার সহিত গালীল হইতে যিরূশালেমে আসিয়াছিলেন, তাঁহাদিগকে তিনি অনেকদিন পর্য্যন্ত দেখা দিলেন; তাঁহারাই এক্ষণে প্রজালোকদের কাছে তাঁহার সাক্ষী’’ (প্রেরিত 13:28-31)|

যীশু জীবিত আছেন| তিনি মৃত্যু থেকে পুনরুত্থিত হয়েছেন| পীলাত মৃত| তিনি তার স্ত্রীর ঐশ্বরীয় সতর্কবাণী শুনতে ব্যর্থ হয়েছিলেন| তিনি তারা আত্মা হারিয়েছেন – চিরকালের জন্য নরকে রয়েছেন|

স্পারজিয়ন বলেছেন যে শেষ বিচারে প্রোকুলা দাঁড়াবেন এবং তার নিজের স্বামী, পীলাতকে, দোষী করবেন| স্পারজিয়নের মনে ছিল মথি (12:42) পদ,

‘‘দক্ষিণ দেশের রাণী বিচারে এই কালের লোকদের সহিত উঠিয়া ইহাদিগকে দোষী করিবেন…”(মথি 12:42)|

স্পারজিয়ন বলেছিলেন,

     এটা বিশুদ্ধ একখন্ড কল্পনা হবে না যদি আমি কল্পনা করি শেষের সেই মহান দিনের বিষয়ে, যখন যীশু বিচার সিংহাসনে বসেন, এবং জীবিত অবস্থাতে পীলাত যেসব কাজ করেছেন তার বিচারের অপেক্ষায় তিনি সেখানে দাঁড়িয়ে থাকেন এবং তাকে দোষী সাব্যস্ত করতে তার বিরুদ্ধে তার স্ত্রী হবেন দ্রুত সাক্ষ্য| আমি কল্পনা করতে পারি যে সেই শেষ মহান দিনে সেখানে একইরকমের বহু দৃশ্যপট তৈরী হবে, যাতে দেখা যাবে যারা আমাদের সবথেকে বেশী ভালবেসেছেন তারাই আমাদের বিরুদ্ধে নিয়ে আসবে সবথেকে ভারী সাক্ষ্য, যদি আমরা এখনও আমাদের পাপের মধ্যে থাকি| আমি জানি যে কিভাবে এটা পুত্র হিসাবে আমাকে প্রভাবিত করেছিল, যখন আমার মা তার সন্তানদের সামনে পরিত্রাণের পথ ঠিক করে দেওয়ার পরে বলেছিলেন, “যদি তোমরা খ্রীষ্টকে অস্বীকার কর এবং বিনষ্ট হও, আমি তোমাদের পক্ষে বিনতি করতে পারব না এবং বলতে পারব না যে তোমরা নির্দোষ| না, কিন্তু তোমরা দন্ডাদেশ প্রাপ্ত হলে আমাকে অবশ্যই আমেন বলতে হবে|” আমি সেটা সহ্য করতে পারিনি! আমার দন্ডাদেশে আমার মা কি “আমেন” বলবেন? আর তবুও, পীলাতের স্ত্রী, অন্যথায় আপনি আর কি করতে পারেন? যখন সবাইকে অবশ্যই সত্য বলতে হচ্ছে তখন আপনি আর কি বলতে পারেন, এটা ছাড়া যে আমার স্বামী আপনার দ্বারা বিনীতভাবে এবং আন্তরিকভাবে সতর্কিত হয়েছিলেন এবং তবুও পরিত্রাতাকে তাঁর শত্রুদের হাতে সমর্পণ করেছিলেন|
     ওহ, আমার ঈশ্বরবিহীন শ্রোতাগণ, আমার আত্মা আপনাদের পিছনে যাচ্ছে| “আপনি ফিরুন, আপনি ফিরুন, কেন আপনি মারা যাবেন?” কেন আপনারা পরিত্রাতার বিরুদ্ধে পাপ করবেন? ঈশ্বর আপনাকে অনুমোদন করেছেন, আপনি নিজের পরিত্রাণ প্রত্যাখ্যান করবেন না, কাজেই খ্রীষ্টের প্রতি ফিরে আসুন এবং তার মধ্যে অনন্তকালীন মুক্তির অন্বেষণ করুন| “যে কেহ তাঁহাতে বিশ্বাস করিবে সে অনন্ত জীবন পাইবে” (সি. এইচ. স্পারজিয়ন, “দ্য ড্রিম অফ পীলাতʼস ওয়াইফ,” দ্য মেট্রোপলিটান ট্যাবারন্যাক্‍ল পুলপিট, পিলগ্রিম পাবলিকেশনস, 1973 পুনর্মুদ্রন, ভলিউম 28, পৃ. 132)|

যীশু দন্ডায়মান পীলাতের বৃহৎ কক্ষে –
   বন্ধুহীন, পরিত্যাক্ত, সকলের দ্বারা প্রতারিত:
শুন! আকস্মিক আহ্বানের অর্থ কি!
   আপনি যীশুর সহিত কি করিবেন?
আপনি যীশুর সহিত কি করিবেন?
   আপনি উদাসীন হইতে পারেন না;
কোন দিন আপনার হৃদয় প্রশ্ন করিবে,
   “সে আমার সহিত কি করিবে?”
(“হোয়াট উইল ইউ ডু উইথ জিসাস?” এলবার্ট বি. সিম্পসন, 1843-1919) |


যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তাহলে ডঃ হাইমার্স আপনার কাছ থেকে কিছু শুনতে চান| যখন আপনি ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখবেন তখন অবশ্যই তাকে জানাবেন যে কোন দেশ থেকে আপনি তাকে লিখছেন নয়ত তিনি আপনার ই-মেলের জবাব দিতে সক্ষম হবেন না| যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তবে ডঃ হাইমার্সকে একট ই-মেল পাঠান এবং তাকে সেইকথা জানান, কিন্তু কোন দেশ থেকে আপনি লিখছেন চিঠিতে সেটা অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত করবেন| ডঃ হাইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net (এখানে ক্লিক করুন) | আপনি যে কোন ভাষায় ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখতে পারেন, কিন্তু যদি পারেন তো ইংরাজিতেই লিখুন| যদি আপনি ডঃ হাইমার্সকে ডাক-ব্যবস্থার মাধ্যমে চিঠি পাঠাতে চান, তবে তার ঠিকানা হল P.O. Box 15308, Los Angeles, CA 90015 | আপনি তাকে (818)352-0452 নম্বরে ফোন করতে পারেন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে গিয়ে পড়তে পারেন| ক্লিক করুন “প্রচার পান্ডুলিপি|”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

প্রচারের আগে পঠিত শাস্ত্র: মথি 27:15-24
প্রচারের আগে একক সংগীত:
“হোয়াট উইল ইউ ডু উইথ জিসাস?”(এলবার্ট বি. সিম্পসন রচিত, 1843-1919)|


খসড়া চিত্র

পীলাত এবং প্রোকুলা

PILATE AND PROCULA

লেখক : ডঃ আর. এল. হেইমার্‍স, জুনিয়র

‘‘তিনি বিচারাসনে বসিয়া আছেন, এমন সময়ে তাঁহার স্ত্রী তাঁহাকে বলিয়া পাঠাইলেন, সেই ধার্ম্মিকের প্রতি তুমি কিছুই করিও না; কারণ আমি আজ স্বপ্নে তাঁহার জন্য অনেক দুঃখ পাইয়াছি’’ (মথি 27:19)|

(মথি 21:9-11, 12-14; 27:14; যোহন 19:11)

I.    প্রথম, পাপের বিরুদ্ধে এটা একটা সতর্কবার্তা,
যোহন 19:12; মথি 27:24; হিতোপদেশ 29:25 |

II.   দ্বিতীয়, এটা ছিল একটা সতর্কবার্তা যা প্রত্যাখাত হয়েছিল,
মথি 16:25-26; মার্ক 8:35; লূক 9:24; 17:33 |

III.  তৃতীয়, এটা ছিল একটি সতর্কবার্তা যার পরিণতি ছিল অনিবার্য্য,
প্রেরিত 13:28-31; মথি 12:42 |