Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 34টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




প্রার্থনায় বিন্যাস এবং হেতুবাদ - দ্বিতীয় অংশ

ORDER AND ARGUMENT IN PRAYER – PART II
(Bengali)

লেখক : মিঃ জন শমূয়েল কেগান
by Mr. John Samuel Cagan

2016 সালের, 3রা সেপ্টেম্বর, শনিবারের
সন্ধ্যাবেলায় লস্ এঞ্জেল্সের
ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাক্ল মন্ডলীতে এই ধর্ম্মোপদেশটি
প্রচারিত হয়েছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Saturday Evening, September 3, 2016

‘‘আহা, যদি তাহার উদ্দেশ্য পাইতে পারি, যদি তাঁহার আসনের নিকট যাইতে পারি! তবে আমি তাঁহার সন্মুখে আপনি বিচার বিন্যাস করিব, আমি নানা হেতুবাদে আপন মুখ পূর্ণ করিব’’ (ইয়োব 23:3-4)|


আমরা আলোচনা করছি কিভাবে বিন্যাস এবং হেতুবাদের প্রার্থনা করতে হয়| তা করার জন্য, এটা গুরুত্বপূর্ণ যে বাইবেলের পদ এবং গল্পগুলিকে আপনি মনে ধরে রাখবেন| অনুরূপ উদাহরণের দ্বারা হেতুবাদ হল শক্তিশালী নির্দ্দিষ্ট বিষয়বস্তু প্রস্তুত করার পক্ষে একটি শক্তিশালী উপায়| একটি উপমা হল কাঠামোগত সাদৃশ্যের মাধ্যমে দুটি জিনিষের মধ্যে তুলনামূলক বিচার| যখন আপনি কোন মহৎ এবং অলৌকিক বিষয়ের জন্য প্রার্থনা করেন, তখন যা ঈশ্বর বাইবেলে করেছিলেন তেমনই কোন একটা কিছুর উদাহরণ দিন যা ছিল এইরকমের মহৎ এবং অলৌকিক| যদি আপনি কোন কিছুর জন্য প্রার্থনা করেন যেটা অপেক্ষাকৃত কম পরিমানে দৃষ্টি আকর্ষণ করছে, তাহলে কোন একটা কিছু উল্লেখ করুন যা দেখায় যে কিভাবে ঈশ্বর বিস্তারিত ভিত্তিক এবং নির্দ্দিষ্ট ছিলেন| এইগুলি সমস্ত কিছুই একমাত্র অর্থপূর্ণ কারণ ঈশ্বর প্রার্থনার উত্তর দেন| এবং সেখানে বাইবেলে বহু উদাহরণ রয়েছে যে ঈশ্বর বিন্যস্ত, যুক্তিপূর্ণ, এবং হেতুবাদিত প্রার্থনার উত্তর দিয়েছেন| বাইবেলে এমন বহু লোকের সম্বন্ধে উদাহরণ রয়েছে যারা ঈশ্বরকে যুক্তি প্রদান করেছিলেন|

I. প্রথমত, বিন্যস্ত প্রার্থনার প্রতি ঈশ্বর প্রতি উত্তর দেন |

মোশী প্রান্তরে ইস্রায়েলের জন্য প্রার্থনা করেছিলেন| লোকেরা ঈশ্বরের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল এবং একটি স্বর্ণময় গোবৎসের আরাধনায় রত হয়েছিলেন| ঈশ্বর তাদের বিনষ্ট করার ভয় দেখিয়েছিলেন| মোশী সেই সমস্ত লোকেদের জন্য প্রার্থনা করেছিলেন| বাইবেল বলেছে,

‘‘তখন মোশী আপন ঈশ্বর সদাপ্রভুকে বিনয় করিয়া কহিলেন, হে সদাপ্রভু, তোমার যে প্রজাদিগকে তুমি মহা পরাক্রম ও বলবান হস্ত দ্বারা মিশর দেশ হইতে বাহির করিয়াছ, তাহাদের বিরুদ্ধে তোমার ক্রোধ কেন প্রজ্জ্বলিত হইবে? মিশরীয়রা কেন বলিবে, অনিষ্টের নিমিত্তে, পর্ব্বতময় অঞ্চলে তাহাদিগকে নষ্ট করিতে ও ভূতল হইতে লোপ করিতে, তিনি তাহাদিগকে বাহির করিয়া আনিয়াছেন? তুমি নিজ প্রচন্ড ক্রোধ সংবরন কর ও আপন প্রজাদের অনিষ্টকরন বিষয়ে ক্ষান্ত হও’’ (যাত্রাপুস্তক 32:11-12)|

মোশী ঈশ্বরকে বলছিলেন, ‘‘প্রভু, লোকেরা তোমার সম্বন্ধে কি বলিবে? যদি তুমি এই লোকেদের ধ্বংস কর তবে তাহারা তোমার মহান নামের বিষয়ে কি চিন্তা করিবে?’’ তখন মোশী ঈশ্বরকে তাঁর প্রতিজ্ঞার কথা মনে করিয়ে দিয়েছিলেন:

‘‘তুমি নিজ দাস অব্রাহাম, ইসহাক, ও যাকোবকে স্মরণ কর, যাহাদের কাছে তুমি নিজ নামের দিব্য করিয়া বলিয়াছিলে, আমি আকাশের তারাগণের ন্যায় তোমাদের বংশ বৃদ্ধি করিব, এবং এই যে সমস্ত দেশের কথা কহিলাম ইহা তোমাদের বংশকে দিব| তাহারা চিরকালের জন্য ইহা অধিকার করিবে’’ (যাত্রাপুস্তক 32:13)|

মোশী ঈশ্বরকে অব্রাহাম, ইসহাক এবং যাকোব (ইস্রায়েল) এর প্রতি তাঁর প্রতিজ্ঞার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন যে, তিনি তাদের বংশ বৃদ্ধি ঘটাবেন এবং কনান দেশ তাদের দান করবেন| ‘‘যদি এখন আপনি লোকেদের ধ্বংস করেন, তবে আপনার প্রতিজ্ঞা পূর্ণ হইবে না|’’ ঈশ্বর মোশীর প্রার্থনার উত্তর দিয়েছিলেন| বাইবেল বলছে, ‘‘তখন সদাপ্রভু আপন প্রজাদের যে অনিষ্ট করিবার কথা বলিয়াছিলেন, তাহা হইতে ক্ষান্ত [এই বিষয়ে মন পরিবর্তন করিলেন] হইলেন’’ (যাত্রাপুস্তক 32:14)| ঈশ্বর তাঁর মন পরিবর্তন করেছিলেন| তিনি লোকেদের ধ্বংস করেননি| মোশীর প্রার্থনার উত্তর ঈশ্বর দিয়েছিলেন|

ঈশ্বরের লোকেদের দুঃখ উল্লেখ করে একটা হেতুবাদ অন্তর্ভূক্ত করা যেতে পারে| আমরা সকলেই মানুষ| যখন কোন ভয়ানক জিনিষ ঘটে যায়, আমরা ব্যাথা এবং দুঃখভোগের মধ্যে দিয়ে সেই জিনিষগুলি উপলব্ধি করি| এমনকী যীশুও কেঁদে ফেলেছিলেন, যখন লাসার মারা যান| যদি একজন ভালবাসার পাত্র আপনার কাছে আসেন, এবং যে যন্ত্রণার মধ্যে তারা ছিলেন সেই কথাগুলি বলেন, এবং সাহায্যের আবেদন হিসাবে সেই কথাগুলি ব্যবহার করেন, তাহলে সেটা বিশ্বাস উৎপাদনের পক্ষে খুব শক্তিশালী এক উপায় হয়ে থাকে| আমরা অন্য একজনকে যতটা না কখনও ভালবাসতে পেরেছি তার তুলনায় ঈশ্বর আমাদের অনেক বেশি ভালবাসেন| আপনার হেতুবাদের মধ্যে আপনার নিজ অন্তঃকরণের দুঃখ, আপনার বন্ধুর মনের দুঃখ, এবং ঈশ্বরের লোকেদের মনের দুঃখ তুলে ধরুন|

যিরূশালেম ধ্বংস হওয়ার পরে যিরমিয় প্রার্থনা করেছিলেন, ‘‘হে সদাপ্রভু, আমাদের প্রতি যাহা ঘটিয়াছে, স্মরণ কর, দৃষ্টিপাত কর, আমাদের অপমান দেখ’’ (বিলাপ 5:1)| যিরূশালেম ধবংস হওয়ার পরে, গীতরচক বলেছিলেন,

‘‘হে ঈশ্বর, জাতিগণ তোমার অধিকারে প্রবেশ করিয়াছে; তাহারা তোমার পবিত্র মন্দির অশুচি করিয়াছে; যিরূশালেমকে স্তুপের ঢিবী করিয়াছে| তাহারা তোমার দাসদের শব আকাশের পক্ষীগণকে ভক্ষণার্থে দিয়াছে, তোমার সাধুদের মাংস পৃথিবীর পশুজনকে দিয়াছে| তাহারা যিরূশালেমের চারিদিকে জলের ন্যায় তাহাদের রক্ত ঢালিয়াছে; উহাদের কবর দিবার কেহ ছিল না| আমরা প্রতিবেশীগণের কাছে তিরষ্কারের বিষয় হইয়াছি, চারিদিকে লোকেদের কাছে হাস্য ও বিদ্রুপের পাত্র হইয়াছি’’ (গীতসংহিতা 79:1-4)|

তিনি ঈশ্বরকে তাঁর যিহুদী লোকদের দুঃখের কথা বলেছিলেন| তারপরে তিনি ঈশ্বরের কাছে তাঁর নিজ সম্মান, তাঁর নিজ নাম রক্ষা করার জন্য প্রার্থনা করেছিলেন| তিনি ঈশ্বরকে বলেছিলেন, ‘‘হে আমাদের ত্রাণেশ্বর, তোমার নামের গৌরবার্থে, আমাদের সাহায্য কর: তোমার নামের অনুরোধে আমাদিগকে উদ্ধার কর, আমাদের সকল পাপ মার্জনা কর’’ (গীতসংহিতা 79:9)| তারপরে তিনি প্রার্থনা করেন, ‘‘জাতিগণ কেন বলিবে, উহাদের ঈশ্বর কোথায়?’’ (গীতসংহিতা 79:10)| হারানো লোকদের কাছে ঈশ্বর যেন নিজের সম্মান এবং নাম বজায় রাখেন তার জন্য তিনি প্রার্থনা করেছিলেন|

প্রার্থনা করার জন্য উঠে দাঁড়ানোর আগে, আমি ভেবে নেওয়ার চেষ্টা করছি বাইবেলে ঈশ্বর যা করেছিলেন সেই বিষয়ে যা আমাদের এই বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রয়োগ করা যেতে পারে| বাইবেলের উল্লেখ হচ্ছে ঈশ্বরের সামনে প্রামাণিক তথ্য উপস্থাপনা| এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি আপনার বাইবেলটি পড়বেন এবং যখন সেটা পড়ছেন তাতে মনোযোগ দেবেন| প্রায়শই, এমনকী যদি আপনি কোন একটি পদ হুবহু মনে রাখতে নাও পারেন তবুও, আপনি একটি ধারণা মনে রাখবেন যা আপনি বাইবেল থেকে পেয়েছেন, এবং আপনি সেই ধারণাটিকে আপনার যুক্তিতে প্রয়োগ করতে পারেন| এতে কিছু সৃজনশীলতার এবং চিন্তা ভাবনার প্রয়োজন আছে, কিন্তু সেটা প্রায় সময়েই প্রয়োজন হয় কোন ব্যক্তির সঙ্গে, বিশেষত ঈশ্বরের সঙ্গে বিতর্ক করা সময়ে| এখনও তিনি সেই একই ঈশ্বর আছেন আগে যেমন ছিলেন| দায়ূদ প্রার্থনা করেছিলেন, ‘‘তুমি আমার সহায় হইয়া আসিতেছ; আমার ত্রাণেশ্বর, আমাকে ফেলিও না, ত্যাগ করিও না’’ (গীতসংহিতা 27:9)|

মোশী প্রার্থনা করেছিলেন, ‘‘তোমার যে প্রজাদিগকে তুমি মহাপরাক্রম, ও বলবান হস্ত দ্বারা মিশর দেশ হইতে বাহির করিয়াছ’’ (যাত্রাপুস্তক 32:11)| তিনি বলছিলেন, ‘‘হে সদাপ্রভু, তুমি আমাদের মিশর দেশ হইতে বাহির করিয়া আনিয়াছিলে| তুমি প্রান্তরে মৃত্যুর প্রতীক্ষায় আমাদের ছাড়িয়া দিবার জন্যই শুধুমাত্র আমাদের বাহির করিয়া আন নাই!’’ অন্যান্যদের প্রতি ঈশ্বর কি করেছিলেন? বাইবেলের সেই সময়ে? ইতিহাসে? আমাদের মন্ডলীতে? আপনার জন্য? চিন্তা করুন ঈশ্বর অতীতে কি করেছিলেন তার প্রতি এই যুক্তিগুলি কিভাবে একটি আবেদন হয়ে উঠতে পারে|


হে সদাপ্রভু, 18তম শতাব্দীতে ওয়েস্লী এবং হোয়াইটফিল্ডের প্রতি আপনি উদ্দীপনা পাঠিয়েছিলেন|

লুইস দ্বীপে, এবং চীনে আপনি আপনার আত্মা পাঠিয়েছিলে| সেইভাবে আপনি এখানেও আপনার আত্মা পাঠাতে সক্ষম!

আপনি আমার আত্মাকে রক্ষা করেছেন| এখানে অন্যদের আত্মাকেও আপনি রক্ষা করেছেন| এই ব্যক্তিকেও রক্ষা করুন!

ভয়ঙ্কর ভাঙ্গনের হাত থেকে আপনি আমাদের মন্ডলীকে রক্ষা করেছিলেন| শুধুমাত্র মৃত্যুর জন্যই আপনি আমাদের নিয়ে আসেননি| অতএব, প্রভু, আমাদের মন্ডলীকে বাঁচিয়ে রাখুন!

আপনি আমাদের জন্য মহান সব কর্ম করেছেন যেমন (উদাহরণ দিন)| আপনি আমার সমস্ত প্রার্থনার উত্তর দিয়েছেন| আপনি অন্য সকলের প্রার্থনার উত্তর দিয়েছেন (আপনার প্রার্থনা অথবা অন্যদের প্রার্থনাগুলির নাম উল্লেখ করুন)| সেইজন্য এই প্রার্থনার উত্তর দিন!


সর্বদা দুঃখভোগ, মৃত্যু, রক্ত, খ্রীষ্ট যীশুর সেই মধ্যস্থতামূলক প্রার্থনার বিষয়ে কথা বলুন| খ্রীষ্ট তাঁর নামে প্রার্থনা করার জন্য আমাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন| যীশু হলেন আমাদের ধার্ম্মিকতা| পিতা ঈশ্বরের কাছে যাওয়ার একমাত্র পথ হলেন তিনি| যীশু বলেছেন, ‘‘আমা দিয়া না আসিলে, কেহ পিতার নিকটে আইসে না’’ (যোহন 14:6)| যীশু শিষ্যদের প্রতি বলেছিলেন, ‘‘যদি আমার নামে আমার কাছে কিছু যাচ্ঞা কর, তবে আমি তাহা করিব’’ (যোহন 14:14)| আপনার নিজস্ব কোন ধার্ম্মিকতা নাই| আপনার নিজের মধ্যে আপনি শুধুমাত্র একজন পাপী এবং আপনি কখনও অন্য কিছু হবেন না| কিন্তু যদি আপনি খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করেন, ঈশ্বর আপনার সমস্ত পাপ মার্জনা করে, যীশুর রক্তের দ্বারা ধৌত করে আপনার দিকে মুখ তুলে চান| এবং আপনি খ্রীষ্টের ধার্ম্মিকতা প্রাপ্ত হন| সেইজন্য আপনি যীশুর নামে ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা জানাতে পারেন এবং ঈশ্বর আপনার কথা শুনবেন যেন আপনি পাপী ছিলেন না - আসল সত্যি, যেন আপনিই স্বয়ং যীশু ছিলেন| বাইবেল বলে,

‘‘ভাল আমরা এক মহান মহাযাজককে পাইয়াছি...যীশু ঈশ্বরের পুত্র, অতএব আইস আমরা ধর্ম্ম-প্রতিজ্ঞাকে দৃঢ়রূপে ধারণ করি... অতএব আইস আমরা সাহসপূর্ব্বক অনুগ্রহ সিংহাসনের নিকটে উপস্থিত হই, যেন দয়া লাভ করি এবং সময়ের উপযোগী উপকারার্থে অনুগ্রহ প্রাপ্ত হই’’ (ইব্রীয় 4:14, 16)|

বাইবেল বলে, ‘‘অতএব, হে ভ্রাতৃগণ, যীশুর রক্তের গুনে পবিত্র স্থানে প্রবেশ করিতে সাহস প্রাপ্ত হইয়াছি’’ (ইব্রীয় 10:19)| আমাদের নিজেদের ঈশ্বরের সামনে দাঁড়ানোর কোন অধিকার নেই, কিন্তু খ্রীষ্ট এবং তাঁর রক্তের দ্বারা আমরা সরাসরি তাঁর উপস্থিতিতে সাহস করে ভিতরে প্রবেশ করতে পারি|

খ্রীষ্ট স্বয়ং আমাদের জন্য প্রার্থনা করছেন| বাইবেল বলে, ‘‘কারণ তাহাদের [আমাদের] নিমিত্ত অনুরোধ করণার্থে [প্রার্থনা করতে] তিনি সতত জীবিত আছেন’’ (ইব্রীয় 7:25)|

এটা স্মরণে রাখুন যে ঈশ্বর হলেন একজন ব্যক্তি, কোন যন্ত্র বা শক্তি নন| ঈশ্বর প্রার্থনার উত্তর দেন, তবুও আপনি অবশ্যই অটল থাকুন এবং ক্রমাগত যাচ্ঞা করে যান - কিছু সময়ে অনেক বছরের জন্য| ডঃ হেইমার্স তার মায়ের পরিত্রাণ পাওয়ার আগে অনেক বছর ধরে তার জন্য প্রার্থনা করেছিলেন| মেইরী মনসন, চীনের সেই মিশনারী, উদ্দীপনা আসার আগে কুড়ি বছরেরও বেশি সময় ধরে তা আনার জন্য প্রার্থনা করেছিলেন| অনেক সময় লোকেরা উদ্দীপনা আসার আগে কুড়ি বা ত্রিশ বছর ধরে প্রার্থনা করে যেতেন|

কিভাবে প্রার্থনা করতে হয় তাঁর শিষ্যদের সেটা শেখাতে গিয়ে, যীশু নাছোড়বান্দা বন্ধুর দৃষ্টান্ত দিয়েছিলেন| তিনি বলেছিলেন, ‘‘যদিও সে না উঠে এবং তাহাকে না দেয়, কারণ সে তাহার বন্ধু, তথাপি তাহার আগ্রহ প্রযুক্ত যাচ্ঞায় [নাছোড়বান্দা, হাল না ছাড়া] সে উঠিবে এবং তাহার যতটা প্রয়োজন তাহাকে দিবে’’ (লূক 11:8)| যতক্ষণ না উত্তর আসে আপনাকে প্রার্থনা চালিয়ে যেতে হবে|

যীশু বলেছিলেন, ‘‘যাচ্ঞা কর, তোমাকে দেওয়া যাইবে; অন্বেষণ কর, পাইবে, দ্বারে আঘাত কর, তোমাদের জন্য খুলিয়া দেওয়া যাইবে’’ (মথি 7:7)| গ্রীকে এগুলির অর্থ ‘‘ক্রমাগত যাচ্ঞা করা,’’ ‘‘ক্রমাগত অন্বেষণ করা,’’ ‘‘ক্রমাগত আঘাত করা|’’ আপনার উত্তর পাওয়ার আগে হয়ত কিছুটা সময় লাগতে পারে| খ্রীষ্ট বলেছিলেন, ‘‘তবে ঈশ্বর কি আপনার সেই মনোনীতদের পক্ষে অন্যায়ের প্রতিকার করিবেন না, যাহারা দিবারাত্র তাঁহার কাছে রোদন করে, যদিও তিনি তাহাদের বিষয়ে দীর্ঘসহিষ্ণু?’’ (লূক 18:7)| উত্তর পাওয়ার আগে কখনও কখনও এত দীর্ঘ সময় লেগে যায় কেন? কারণ ঈশ্বর হলেন একজন ব্যক্তি, একটি শক্তি নন| যদি ঈশ্বর একটি যন্ত্র অথবা একটি শক্তি হতেন, তবে আপনি মাত্র একবারই প্রার্থনা করতে পারতেন এবং উত্তর প্রস্তুত করাতে পারতেন| কিন্তু ঈশ্বর হলেন একজন ব্যক্তি| কোন কোন সময়ে উত্তর দেওয়ার আগে ঈশ্বর দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেন|

যেহেতু ঈশ্বর একজন ব্যক্তি, শক্তি নন, কোন কোন সময়ে উত্তর হয় ‘‘না|’’ প্রার্থনা কোন জাদু নয়| কোন উদ্দেশ্য সাধনের জন্য এটি ঈশ্বরকে ব্যবহার করে না| প্রার্থনা ঈশ্বরকে দিয়ে কোন কিছু করায় না| প্রার্থনা ঈশ্বরকে কিছু করার জন্য যাচ্ঞা করে| ঈশ্বর একটি শক্তি নন| তিনি হলেন একজন ব্যক্তি| যেহেতু তিনি একজন প্রেমময় এবং যত্নশীল ঈশ্বর, সেহেতু তিনি প্রার্থনার উত্তর দেন; শক্তির মত আপনাআপনিভাবে নয়, বরঞ্চ একজন ব্যক্তি যেমন অন্য আর এক ব্যক্তিকে উত্তর দেন সেইভাবে|

আপনি যার জন্য প্রার্থনা করছেন তা সবসময়ে পাবেন না| ঈশ্বর হলেন একজন ব্যক্তি| তিনি হয়ত ‘‘না’’ বলতে পারেন| একজন যুবতী হিসাবে, মিশনারী এমী কারমাইকেল চেয়েছিলেন যে ঈশ্বর তার চোখের রঙ বদলে দিন| তা হয়নি, আর কেন হয়নি ভেবে মেয়েটি বিস্মিত হয়েছিল যতক্ষণ না ঈশ্বর তাকে বলেছিলেন যে ঠিক যেমন ‘‘হ্যাঁ’’ একটা উত্তর তেমনি ‘‘না’’ হল আর একটি উত্তর|

II. দ্বিতীয়ত, বিন্যস্ত প্রার্থনা ঈশ্বরের প্রতিজ্ঞা দাবি করে |

ঈশ্বর সত্য| ঈশ্বর বিশ্বস্ত| ঈশ্বর তাঁর প্রতিজ্ঞা রক্ষা করেন| বাইবেলের সমস্ত কিছুই সত্য| বাইবেলে ঈশ্বর যা কিছু বলেছেন তার সবই সত্য হিসাবে প্রার্থনাতে দাবি করা যায়| যীশু বলেছেন, ‘‘তোমার বাক্যই সত্যস্বরূপ’’ (যোহন 17:17)| তিনি বলেছিলেন, ‘‘শাস্ত্রের খন্ডন ত হইতে পারে না’’ (যোহন 10:35)|

এইভাবে ঈশ্বরের বাক্যের দাবি করুন:

‘‘তুমিই ত বলিয়াছ’’ (আদিপুস্তক 32:12)|

‘‘যেমন বলিয়াছ, তদনুসারে কর’’ (II শমূয়েল 7:25)|

ডঃ হেইমারসের প্রিয় সঙ্গীত হল গীতসংহিতা 27 | যখন তার বয়স দুইবছর তার বাবা তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন| যখন তিনি বার বছর বয়সী হলেন আর মায়ের সঙ্গে বসবাস করতে পারলেন না, এবং বহু বছর ধরে তাকে আত্মীয়দের সঙ্গে থাকতে হল যারা তার বিষয়ে যত্নশীল ছিলেন না| গীতসংহিতা 27:10 পদটি থেকে তিনি সান্ত্বনা পেতেন, ‘‘যখন আমার পিতা এবং আমার মাতা আমাকে ত্যাগ করিয়াছেন, তখন সদাপ্রভু আমাকে তুলিয়া লইবেন|’’

যীশু বলেছিলেন, ‘‘তোমাদের মধ্যে এমন লোক কে, যে আপনার পুত্র রুটি চাহিলে, তাহাকে পাথর দিবে? কিম্বা মাছ চাহিলে, তাহাকে সাপ দিবে? অতএব তোমরা মন্দ হইয়াও যদি তোমাদের সন্তানদিগকে উত্তম উত্তম দ্রব্য দান করিতে জান, তবে ইহা কত অধিক নিশ্চয় যে তোমাদের স্বর্গস্থ পিতা, যাহারা তাঁহার কাছে যাচ্ঞা করে, তাহাদিগকে উত্তম উত্তম দ্রব্য দান করিবেন?’’ (মথি 7:9-11)| আমার বাবা, ডঃ কেগান, বহুবার এই পদগুলি দাবি করেছেন| তিনি বলেছিলেন, ‘‘ঈশ্বর, যদি আমার পুত্র মাছ চায় তাহা হইলে আমি তাহাকে সাপ দিই না| সে যদি আমার নিকটে রুটি চায় তাহা হইলে আমি তাহাকে পাথর দিই না| এবং ঈশ্বর, আপনিও আমার সহিত সেইরূপ ভিন্ন অন্য আচরণ করেন নাই| ঈশ্বর, আমি প্রার্থনা করি, আমার যাহা প্রয়োজন তাহা আমাকে দান করুন|’’ এবং ঈশ্বর সেটা করেছিলেন|

আমার বাবা ঈশ্বরের বাক্য দাবি করেছেন উত্তম বিষয় যাচ্ঞা করার জন্য - যা তার প্রয়োজন ছিল| আপনার যা দরকার তা যাচ্ঞা করার জন্য আপনিও ঈশ্বরের বাক্য দাবি করতে পারেন| আর আপনি ঈশ্বরের বাক্য দাবি করতে পারেন তাঁর সাহায্য এবং উপস্থিতি - যাতে ঈশ্বর তাঁর পবিত্র আত্মাকে প্রেরণ করেন এই যাচ্ঞা করার জন্য| খ্রীষ্ট বলেছিলেন, ‘‘অতএব তোমরা মন্দ হইয়াও যদি তোমাদের সন্তানদিগকে উত্তম উত্তম দ্রব্য দান করিতে জান, তবে ইহা কত অধিক নিশ্চয় যে তোমাদের স্বর্গস্থ পিতা, যাহারা তাঁহার কাছে যাচ্ঞা করে, তাহাদিগকে পবিত্র আত্মা দান করিবেন?’’ (লূক 11:13)|

তাঁর মাধ্যমে, তাঁর নামে কৃত প্রার্থনার উত্তর দিতে খ্রীষ্ট প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলেন| যীশু বলেছিলেন, ‘‘যদি আমার নামে আমার কাছে কিছু যাচ্ঞা কর, তবে আমি তাহা করিব’’ (যোহন 14:14)| আপনার প্রার্থনার সময়ে সেই প্রতিজ্ঞা দাবি করুন|

যীশু বিশেষভাবে প্রতিজ্ঞা করেছিলেন লোকদের দ্বারা প্রস্তুত প্রার্থনা, মন্ডলীর প্রার্থনা সভাগুলির প্রার্থনা অথবা ছোট দল যারা প্রার্থনার জন্য একত্রিত হয়েছেন তাদের প্রার্থনা শোনার জন্য| খ্রীষ্ট বলেছিলেন, ‘‘পৃথিবীতে তোমাদের দুইজন যাহা কিছু যাচ্ঞা করিবে, সেই বিষয় যদি একটিও হয়, তবে আমার স্বর্গস্থ পিতা কর্ত্তৃক তাহাদের জন্য তাহা করা যাইবে’’ (মথি 18:19)| আবার যীশু বলেছিলেন, ‘‘যেখানে দুই কি তিন জন আমার নামে একত্রিত হয়, সেইখানে আমি তাহাদের মধ্যে আছি’’ (মথি 18:20)| আপনার প্রার্থনার সময়ে সেই প্রতিজ্ঞা দাবি করুন|

ঈশ্বর আমাদের প্রয়োজন মেটানোর প্রতিজ্ঞা করেছিলেন| বাইবেল বলে, ‘‘আমার ঈশ্বর গৌরবে খ্রীষ্ট যীশুতে স্থিত আপন ধন অনুসারে তোমাদের সমস্ত প্রয়োজনীয় উপকার পূর্ণরূপে সাধন করিবেন’’ (ফিলিপীয় 4:19)| এর মানে এই বোঝায় না যে যদি আপনি অর্থ যাচ্ঞা করেন তাহলে ঈশ্বর আপনাকে ধনী করে দেবেন| এটা বোঝায় যে ঈশ্বর আপনার সমস্ত প্রয়োজন যোগান দেবেন| আর তিনি করবেন! আপনার প্রার্থনার সময়ে ঈশ্বরের বাক্যের সেই প্রতিজ্ঞা দাবি করুন!

ঈশ্বর প্রতিজ্ঞা করেছেন যে আপনার যা করা দরকার সেটা করার শক্তি তিনি আপনাকে দেবেন| বাইবেল বলছে, ‘‘যাহারা সদাপ্রভুর অপেক্ষা করে [‘সদাপ্রভুর অপেক্ষা করে’ এর অর্থ হল প্রার্থনা করা!] তাহারা উত্তরোত্তর নতুন শক্তি পাইবে; তাহারা ঈগল পক্ষীর ন্যায় পক্ষসহকারে উর্দ্ধে উঠিবে; তাহারা দৌড়িলে শ্রান্ত হইবে না; তাহারা গমন করিলে ক্লান্ত হইবে না’’ (যিশাইয় 40:31)| আপনার প্রার্থনার সময়ে সেই প্রতিজ্ঞা দাবি করুন!

ঈশ্বর প্রতিজ্ঞা করেছেন যে আপনি যখন বিপদের মধ্যে রয়েছেন তখন যদি তাঁকে ডাকেন তাহলে তিনি সাড়া দেবেন| সদাপ্রভু বলেছিলেন, ‘‘সঙ্কটের দিনে আমাকে ডাকিও: আমি তোমাকে উদ্ধার করিব ও তুমি আমার গৌরব করিবে’’ (গীতসংহিতা 50:15)| সেই প্রতিজ্ঞা দাবি করুন| ঈশ্বরকে বলুন যে তিনি তাঁর বাক্যে কি বলেছিলেন| তারপরে তাঁকে ডাকুন| ‘‘ঈশ্বর, আমি সংকটের মধ্যে রয়েছি| অনুগ্রহ করে আমাকে সাহায্য করুন|’’

ঈশ্বর প্রতিজ্ঞা করেছেন যে তিনি আপনার প্রার্থনা শুনবেন এমনকী আপনি যদি এমন কোন বিষয়ের জন্য যাচ্ঞা করেন - যেমন হচ্ছে উদ্দীপনা - যা আপনি কখনও দেখেননি| ঈশ্বর বলেছেন, ‘‘তুমি আমাকে আহ্বান কর, আর আমি তোমাকে উত্তর দিব, এবং মহৎ ও দুরূহ নানা বিষয় তোমাকে জানাইব, যাহা তুমি জান না’’ (যিরমিয় 33:3)| আপনি যখন উদ্দীপনার জন্য দাবি করেন তখন এই প্রতিজ্ঞা দাবি করুন|

আপাতদৃষ্টিতে যা অসম্ভব বলে মনে হচ্ছে এমন কোন বিষয়ের জন্য প্রার্থনা করতে ভীত হবেন না| খ্রীষ্ট বলেছেন, ‘‘ঈশ্বরের সকলই সাধ্য’’ (মার্ক 10:27)| যিরমিয় ঈশ্বরকে বলেছিলেন, ‘‘তোমার অসাধ্য কিছুই নাই’’ (যিরমিয় 32:17)|

আপনি সেই বিষয়ের জন্য প্রার্থনা করতে পারেন যা কোনদিন ঘটবে, বা ঘটতে পারে বলে আপনি বিশ্বাস করেন না| একজন লোক খ্রীষ্টকে জানিয়েছিলেন যে কিভাবে এক দিয়াবলের দ্বারা তার ছেলে আক্রান্ত হয়েছে| খ্রীষ্ট লোকটিকে বলেছিলেন, ‘‘যে বিশ্বাস করে তাহার পক্ষে সকলই সাধ্য’’ (মার্ক 9:23)| সেই লোকটি বলেছিলেন, ‘‘প্রভু, বিশ্বাস করিতেছি; আমার অবিশ্বাসের প্রতিকার করুন’’ (মার্ক 9:24)| এমনকী যদিও ছেলেটির বাবা এইরকম ঘটবে বলে বিশ্বাস করেননি তবুও খ্রীষ্ট দুষ্ট আত্মার প্রভাব থেকে ছেলেটিকে উদ্ধার করেছিলেন| এমনকী যদি আপনার বিশ্বাস দূর্বল থাকে, এমনকী যদি উত্তর আসবে বলে আপনি বিশ্বাস নাও করেন তাহলেও ঈশ্বর আপনাকে প্রার্থনা করার জন্য উৎসাহিত করেন|

ডঃ হেইমার্স ‘‘অবিশ্বাস এবং উদ্দীপনা - একটি নূতন অন্তর্দৃষ্টি’’ নামের একটি ধর্ম্মোপদেশ প্রচার করেছিলেন| তিনি দেখিয়েছেন যে কিভাবে আপনি কোন বিষয়ের জন্য প্রার্থনা করতে পারেন, উদাহরণ স্বরূপ উদ্দীপনার অলৌকিক ঘটনা, এমনকী যদিও আপনি সেটা কখনও দেখেননি| বাইবেলে ঈশ্বর বলেছেন, ‘‘কেননা আমি তৃষিত ভূমির উপর জল, এবং শুষ্ক স্থানের উপরে জলপ্রবাহ ঢালিয়া দিব: আমি তোমার বংশের উপরে আপন আত্মা, তোমার সন্তানদের উপরে আপন আশীর্ব্বাদ ঢালিব’’ (যিশাইয় 44:3)| লুইস দ্বীপপুঞ্জের একজন ব্যক্তি তার প্রার্থনায় এই প্রতিজ্ঞা দাবি করেছিলেন| এবং ঈশ্বর সেখানে একটি মহা উদ্দীপনা প্রেরণ করেছিলেন|

সেখানে অনেক, অনেক প্রতিজ্ঞার কথা বাইবেলের মধ্যে বলা আছে| ঈশ্বর তাঁর বাক্যকে সম্মান করবেন| প্রার্থনায় তাঁর বাক্যকে দাবি করুন| তাঁর প্রতিজ্ঞাকে দাবি করুন! ঈশ্বর আপনার প্রার্থনার বিন্যস্ত হেতুবাদ শুনবেন| আমেন|


যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তাহলে ডঃ হাইমার্স আপনার কাছ থেকে কিছু শুনতে চান| যখন আপনি ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখবেন তখন অবশ্যই তাকে জানাবেন যে কোন দেশ থেকে আপনি তাকে লিখছেন নয়ত তিনি আপনার ই-মেলের জবাব দিতে সক্ষম হবেন না| যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তবে ডঃ হাইমার্সকে একট ই-মেল পাঠান এবং তাকে সেইকথা জানান, কিন্তু কোন দেশ থেকে আপনি লিখছেন চিঠিতে সেটা অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত করবেন| ডঃ হাইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net (এখানে ক্লিক করুন) | আপনি যে কোন ভাষায় ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখতে পারেন, কিন্তু যদি পারেন তো ইংরাজিতেই লিখুন| যদি আপনি ডঃ হাইমার্সকে ডাক-ব্যবস্থার মাধ্যমে চিঠি পাঠাতে চান, তবে তার ঠিকানা হল P.O. Box 15308, Los Angeles, CA 90015 | আপনি তাকে (818)352-0452 নম্বরে ফোন করতে পারেন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে গিয়ে পড়তে পারেন| ক্লিক করুন “প্রচার পান্ডুলিপি|”

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

খসড়া চিত্র

প্রার্থনায় বিন্যাস এবং হেতুবাদ - দ্বিতীয় অংশ

ORDER AND ARGUMENT IN PRAYER – PART II

লেখক : মিঃ জন শমূয়েল কেগান

‘‘আহা, যদি তাহার উদ্দেশ্য পাইতে পারি, যদি তাঁহার আসনের নিকট যাইতে পারি! তবে আমি তাঁহার সন্মুখে আপনি বিচার বিন্যাস করিব, আমি নানা হেতুবাদে আপন মুখ পূর্ণ করিব’’ (ইয়োব 23:3-4)|

I.   প্রথমত, বিন্যস্ত প্রার্থনার প্রতি ঈশ্বর প্রতি উত্তর দেন, যাত্রাপুস্তক 32:11-12, 13, 14;
 বিলাপ 5:1; গীতসংহিতা 79:1-4, 9, 10; গীতসংহিতা 27:9; যোহন 14:6, 14;
ইব্রীয় 4:14, 16; 10:19; 7:25; লূক 11:8; মথি 7:7; লূক 18:7 |

II.  দ্বিতীয়ত, বিন্যস্ত প্রার্থনা ঈশ্বরের প্রতিজ্ঞা দাবি করে, যোহন 17:17; যোহন 10:35; আদিপুস্তক 32:12; II শমূয়েল 7:25; গীতসংহিতা 27:10; মথি 7:9-11; লূক 11:13;
 যোহন 14:14; মথি 18:19, 20; ফিলিপীয় 4:19; যিশাইয় 40:31; গীতসংহিতা 50:15;
 যিরমিয় 33:3; মার্ক 10:27; যিরমিয় 32:17; মার্ক 9:23, 24; যিশাইয় 44:3 |