Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 34টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




আপনি কিসের জন্য যাচ্ঞা করছেন তা না পাওয়া পর্যন্ত – প্রার্থনা করুন!

PRAYING THROUGH – ‘TILL YOU GET WHAT YOU ASK FOR!
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর. এল. হাইমার্স, জুনিয়র।
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

২০১৫ সালের, ২৩শে অগাষ্ট, সদাপ্রভুর দিনের সন্ধ্যাবেলায় লস্ এঞ্জেল্সের
ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাকল মন্ডলীতে এই ধর্ম্মোপদেশটি প্রচারিত হয়েছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Evening, August 23, 2015


লূকের সুসমাচারে যীশু “শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা”র উপর জোর দিয়েছিলেন – এর অর্থ, নির্দ্দিষ্ট একটি বিষয়ের জন্য প্রার্থনা করা য্তক্ষণ না সেটা আপনি পাচ্ছেন, এমনকী যদি আপনাকে উত্তর আসার আগে পর্যন্ত দীর্ঘ সময় ধরে প্রার্থনা করতে হয় তবুও| এটাই হল “শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা”র অর্থ| ডঃ জন্ আর. রাইস বলেছেন,

যখন আমরা “শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা”র কথা বলি তখন আমরা একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসীর কথা বলি যিনি তার [সমস্যা] ঈশ্বরের নিকট লইয়া আসিয়াছেন এবং তাহার প্রার্থনার উত্তর না পাওয়া পর্যন্ত ঈশ্বরের জন্য অপেক্ষা করিতেছেন…হয়ত আমরা ঈশ্বরের ইচ্ছার প্রতিশ্রুতি নাও পাইতে পারি, যে তিনি আমাদের নির্দ্দিষ্ট কোন বস্তু দিবেন, যদি না আমরা ঈশ্বরের জন্য অপেক্ষা করি…বাইবেলের কয়েকখানি বৈশিষ্ট্যপূর্ণ নাছোড়বান্দা প্রার্থনার উদাহরন লক্ষ্য করুন…তার শত্রুদের দ্বারা বন্দি থাকাকালীন নহিমিয় জনশূণ্য যিরুশালেম নগরীর দুরাবস্থার জন্য উপবাস এবং প্রার্থনা করিয়াছিলেন| তিনি বলিয়াছিলেন, “আমি কিছুদিন রোদন ও শোক করিলাম, এবং স্বর্গের ঈশ্বরের সাক্ষাতে, কিছুদিন প্রার্থনা, এবং উপবাস করিলাম” (নহিমিয় ১:৪)…তিনি বিনতির সহিত ঈশ্বরের নিকট প্রার্থনা করিয়াছিলেন…তাহার প্রার্থনার [উত্তর অবশেষে দেওয়া] হইয়াছিল| রাজার হৃদয় স্পর্শ করিতে পারা গিয়াছিল, এবং ঈশ্বর নগরের প্রাকার নির্মানের জন্য নহিমিয়কে পুনঃপ্রেরণ করিয়াছিলেন…কারণ তিনি শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করিয়াছিলেন…
     পারসের রাণী ইস্থারের সময়ে [যখন তাহারা প্রায় ধ্বংস হইতে বসিয়াছিল] যিহুদীরা উপবাস এবং প্রার্থনা করিয়াছিলেন যেন ঈশ্বর তাহাদের জীবন ছাড়িয়া দেন, এবং টানা তিন দিন তিন রাত্রি ধরিয়া তাহারা প্রার্থনা করিয়াছিল এবং যিহুদীরা পরিত্রাণ পাইয়াছিল এবং পরে তাহাদের শত্রুদের উপর সমুচিত প্রতিশোধ লইয়াছিল|
     নিনেভের লোকেরা উপবাস ও প্রার্থনা করিয়াছিল, এবং ঈশ্বর তাহাদের মহান নগরীকে [ছাড় দিয়াছিলেন], এবং [ইহা ধ্বংস করেন নাই, পরিবর্তে সেস্থানে মহা উদ্দীপনা পাঠাইয়াছিলেন]|
     নতুন নিয়মের মধ্যেও অনুরূপভাবে লিখিত [ছিল]| পঞ্চসপ্তমীর [পূর্বে]…শিষ্যেরা শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করিয়াছিলেন [একটি কক্ষের ভিতরে একত্রিতভাবে| আর ঈশ্বর তাহাদের প্রার্থনা শুনিয়াছিলেন, এবং উত্তর দিয়াছিলেন| প্রেরিত ১ এবং ২ এর মধ্যে লিখিত আছে যে বেশ কয়েক দিন যাবৎ প্রার্থনা করিবার পরে ঈশ্বর তাহাদের নিকট পঞ্চসপ্তমীর শক্তিশালী উদ্দীপনা প্রেরণ করিয়াছিলেন, যখন তিন সহস্র হারানো যিহুদী আশ্চর্য্যজনকভাবে মন পরিবর্তন করিয়াছিল, যাহা হইতেছে কোন বস্তু লাভ করিবার নিমিত্ত, ঈশ্বর যতক্ষণ না তাহা প্রদান করিতেছেন, ততক্ষণ পর্যন্ত প্রার্থনা চালাইয়া যাইবার একটি লক্ষ্যণীয় উদাহরন]…
     প্রেরিত পুস্তকের দ্বাদশ অধ্যায়ের, ১ হইতে ১৭ নং পদে, আমরা দেখিতেছি যে কিরূপে খ্রীষ্ট বিশ্বাসীগণের একটি দল মরিয়মের গৃহে একত্রিত হইয়াছিলেন…এবং শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করিয়াছিলেন যতক্ষণ না একজন স্বর্গদূতের দ্বারা প্রেরিত পিতর কয়েদখানা হইতে মুক্ত হইয়াছিলেন| [তাহারা শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করিয়াছিল যতক্ষণ না প্রেরিত দৈবক্রমে কারাগার হইতে মুক্ত হইয়ছিল]| উহা ছিল দীর্ঘ-অপ্রতিহত, হৃদয়-অনুসন্ধানী, ভগ্ন-হৃদয়ের প্রার্থনা| এবং উহাই হইতেছে নতুন নিয়মের খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের সর্বব্যাপী উদাহরন (John R. Rice, D.D., Prayer – Asking and Receiving, Sword of the Lord Publishers, 1981 reprint, pp. 203, 206-209, Dr. Hymers’ comments in brackets)|

যীশু শেষ পর্যন্ত প্রার্থনার দুইটি উদাহরন দিয়েছিলেন লূকের সুসমাচারের মধ্যে| এর প্রথমটি নথিভূক্ত হয়েছে লূক ১১:৫-৮ পদে| অনুগ্রহ করে উঠে দাঁড়ান এবং এই চারটি পদ উচ্চঃস্বরে পড়ুন| এটা স্কোফিল্ড স্টাডি বাইবেলের ১০৯০ পৃষ্ঠায় লিপিবদ্ধ আছে|

“আর তিনি তাহাদিগকে কহিলেন, তোমাদের মধ্যে কাহারও যদি কোন বন্ধু থাকে, আর সে যদি মধ্যরাত্রে, তাহার নিকটে গিয়া বলে, বন্ধু, আমাকে তিনখানা রুটি ধার দেও; কেননা আমার এক বন্ধু পথে যাইতে যাইতে আমার কাছে আসিয়াছেন, তাহার সন্মুখে রাখিবার আমার কিছুই নাই? তাহা হইলে সেই ব্যক্তি ভিতরে থাকিয়া কি এমন উত্তর দিবে এবং বলিবে, আমাকে কষ্ট দিও না: এখন দ্বার বদ্ধ, এবং আমার সন্তানেরা আমার কাছে শুইয়া আছে; আমি উঠিয়া তোমাকে দিতে পারি না| আমি তোমাদিগকে বলিতেছি, সে যদ্যপি বন্ধু বলিয়া উঠিয়া তাহা না দেয়, তথাপি উহার আগ্রহ প্রযুক্ত উঠিয়া উহার যত প্রয়োজন, তাহা দিবে” (লূক ১১:৫-৮)|

আপনারা এখন বসতে পারেন| ৮ নং পদটি লক্ষ্য করুন| এটা হল একটি মূল পদ,

“তথাপি উহার আগ্রহ প্রযুক্ত উঠিয়া উহার যত প্রয়োজন তাহা দিবে” (লূক ১১:৮)|

আধুনিক ভাষাতে এই “আগ্রহ প্রযুক্ত” শব্দটি আর ব্যবহৃত হয় না অথবা বোঝা যায় না| এর অর্থ হল “সনির্বন্ধ অনুরোধ|” ডঃ রাইস বলেছেন, “এই অধ্যায়টি অবশ্যই একজন ক্ষমতাপ্রাপ্ত হইবার নিমিত্ত প্রার্থনারত [খ্রীষ্ট বিশ্বাসীর] প্রতি ইঙ্গিত করিতেছে [যাহাতে তাহার বন্ধুরা মন পরিবর্তন করেন]| একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসীর অধিকার আছে ঈশ্বরের কাছে যাইবার এবং অপরের [জন্য] জীবনের রুটি ভিক্ষা করিবার…পাপীদের নিমিত্ত রুটি একমাত্র তাহাদেরই দেওয়া হয় যাহারা উন্মোচন করিয়াছে ‘নাছোড়বান্দার অনুরোধ’এর রহস্য [শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা যতক্ষণ না ঈশ্বর একজন হারানো বন্ধুর প্রতি মন পরিবর্তনের অনুগ্রহ করেন]…একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসীর, যিনি চাহিতেছেন পবিত্র আত্মার অতি-প্রাকৃতিক ও অলৌকিক কার্যের শক্তি [তাহার বন্ধুর মন পরিবর্তনের জন্য], ঈশ্বরের উপর অপেক্ষা করিবার অধিকার আছে [যতক্ষণ না তার বন্ধু পরিত্রাণ পাইতেছেন ততক্ষণ পর্যন্ত প্রার্থনা চালাইয়া যাইবার অধিকার]” (Rice, ibid., p. 209)|

“তথাপি উহার [নাছোড়বান্দা অনুরোধ, আগ্রহ প্রযুক্ত হইয়া] তিনি উঠিয়া উহার যত প্রয়োজন তাহা দিবেন” (লূক ১১:৮)|

আবার, যীশু আমাদের লূক ১৮:১-৮ পদগুলির মাধ্যমে শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করার শিক্ষা দিয়েছেন| অনুগ্রহ করে উঠে দাঁড়ান এবং ঐ আটটি পদ জোরে জোরে পড়ুন| এগুলি স্কোফিল্ড স্টাডি বাইবেলের ১১০০ পৃষ্ঠায় আছে|

“আর তিনি তাঁহাদিগকে এই ভাবের একটি দৃষ্টান্ত কহিলেন যে, তাঁহাদের সর্বদাই প্রার্থনা করা উচিৎ, নিরুৎসাহ হওয়া উচিৎ নয়; তিনি বলিলেন, কোন নগরে এক বিচারকর্ত্তা ছিল, সে ঈশ্বরকে ভয় করিত না, মনুষ্যকেও মানিত না: আর সেই নগরে এক বিধবা ছিল; সে তাহার নিকটে আসিয়া বলিত, অন্যায়ের প্রতীকার করিয়া, আমার বিপক্ষ হইতে আমাকে উদ্ধার করুন| বিচারকর্ত্তা কিছুকাল পর্যন্ত সম্মত হইল না: কিন্তু পরে মনে মনে কহিল, যদিও আমি ঈশ্বরকে ভয় করি না, মনুষ্যকেও মানি না; তথাপি এই বিধবা আমাকে ক্লেশ দিতেছে, এইজন্য অন্যায় হইতে ইহাকে উদ্ধার করিব, পাছে এ সর্ব্বদা আসিয়া আমাকে জ্বালাতন করিয়া তুলে| পরে প্রভু কহিলেন, শুন ঐ অধার্ম্মিক বিচারকর্ত্তা কি বলে| তবে ঈশ্বর কি আপনার ঐ মনোনীতদের পক্ষে অন্যায়ের প্রতীকার করিবেন না, যাহারা দিবারাত্র তাঁহার কাছে রোদন করে, যদিও তিনি তাহাদের বিষয়ে দীর্ঘসহিষ্ণু? আমি তোমাদিগকে বলিতেছি তিনি শীঘ্রই তাহাদের পক্ষে অন্যায়ের প্রতিকার করিবেন| কিন্তু মনুষ্যপুত্র যখন আসিবেন, তখন কি পৃথিবীতে বিশ্বাস পাইবেন?” (লূক ১৮:১-৮)|

আপনারা এখন বসতে পারেন|

এই দৃষ্টান্তের মূল বিষয় হল শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করা| এই ধাপটি দেওয়া হয়েছে ১ নং পদে,

“আর তিনি তাঁহাদিগকে এই ভাবের একটি দৃষ্টান্ত কহিলেন যে, তাঁহাদের সর্বদাই প্রার্থনা করা উচিৎ, নিরুৎসাহ হওয়া উ্চিৎ নয়” (লূক ১৮:১)|

আমাদের “সর্বদাই প্রার্থনা করা উচিৎ, কখনই নিরুৎসাহ হওয়া উচিৎ নয়|” “নিরুৎসাহ”র অর্থ “পরিত্যাগ করা,” “ছেড়ে চলে যাওয়া|” আমাদের সর্বদা প্রার্থনা করতে হবে কখনই পরিত্যাগ করা এবং ছেড়ে চলে যাওয়া যাবেনা| এর অর্থ হল যখন আমরা কোন কিছু পাওয়ার জন্য প্রার্থনা শুরু করি, তখন যতক্ষণ না সেটা পাচ্ছি ততক্ষণ আমাদের প্রার্থনা চালিয়ে যেতে হবে| ছেড়ে দেবেন না, পরিত্যাগ করবেন না, যতক্ষণ না আপনি যা চাইছেন তা পাচ্ছেন|

পঞ্চাশ বছর আগে প্রথম চিনা ব্যাপটিষ্ট মন্ডলীর সানডে স্কুলে যারা আমার ছাত্রছাত্রী ছিলেন এমন অনেক পুরুষ ও মহিলাদের কাছ থেকে আমি প্রতি বছর বড়দিনের কার্ড পেয়ে থাকি| আমি পরিষ্কার মনে করতে পারি যে আমি তাদের প্রত্যেকের জন্য প্রার্থনা করতাম যতক্ষণ না তারা মন পরিবর্তন করেছিল| এইসব জিনিষ দেখে আমার মনে গভীর আনন্দের অনুভূতি হয় যে পঞ্চাশ বছর পরে এখনও তারা ভাল খ্রীষ্ট বিশ্বাসী আছেন| কয়েক সপ্তাহ আগে ডঃ মারফি লামের সমাধি সভায় আমি তাদের অনেককেই দেখেছিলাম| এটা আমাকে আনন্দ দিয়েছিল যে এত বছর পরে তারা এখনও ভাল খ্রীষ্ট বিশ্বাসী!

১৯৬০ সালের দিকে, চিনা মন্ডলীতে আমার থাকার বছরগুলিতে, আমি উদ্দীপনার প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে উদ্বিগ্ন হয় পড়েছিলাম| কয়েক বছর আগে ডঃ মারফি লাম আমাকে মনে করিয়ে দিয়েছিলেন যে যখনই আমি মন্ডলীতে প্রকাশ্য জনসভায় প্রার্থনা করতাম, প্রতিবারেই আমি উদ্দীপনার জন্যে প্রার্থনা করতাম| এমনকী মাঝে মাঝে যখন আমাকে মন্ডলীর আহারের আগের প্রার্থনায় ডাকা হত, তখনও আমি প্রার্থনা করতাম যেন ঈশ্বর আমাদের উদ্দীপনা পাঠান| এবং আমি আমার ব্যক্তিগত প্রার্থনার মধ্যেও একটি মন্ডলী উদ্দীপনার জন্যে প্রায়শঃই প্রার্থনা করতাম| অন্য অনেকেই এই জন্যে একইরকমভাবে প্রার্থনা করতেন, কিন্তু আমি সততার সাথে বলতে পারি যে, মন্ডলীতে উদ্দীপনার প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে আমি সত্যিকারেই আচ্ছন্ন হয়ে পড়তাম, এমনকী নিজেকে শেষ করে দিতেও চাইতাম| আমি গভীরভাবে এবং দীর্ঘ সময় নিয়ে প্রার্থনা করতাম যেন ঈশ্বর ঐ পথে চালিত হন| এবং ১৯৬৯ সালের গ্রীষ্মকাল থেকে ঈশ্বর শুরু করেছিলেন উদ্দীপনা পাঠাতে যা ক্রমাগত চার বছর ধরে, মাঝে মাঝেই, চলেছিল| ১৯৭০ সালের ২৯শে আগষ্ট, একটি সুসমাচারমূলক প্রচারসভায় আমার প্রচারের পর সেই মন্ডলীর চল্লিশজন যুবক, ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিল, আর অশ্রুসজল চোখে এগিয়ে এসেছিল (“To God Be the Glory,” 20th Anniversary booklet, FCBC, March 1972, p. 28)|

প্রায় ১৫০ জন সদস্যবিশিষ্ট কোন মন্ডলীর সদস্যদের মধ্যে ৪০ জনের সাড়া দেওয়ার ব্যাপারটি সেই মন্ডলীর প্রথম কুড়ি বছরের ঘটনাগুলির মধ্যে একটা “উজ্জ্বল” ঘটনা হিসাবে লিপিবদ্ধ করার পক্ষে যথেষ্ট ছিল| আমি মন্ডলীর রেকর্ড থেকে দেখেছিলাম যে, সেই চল্লিশ জনের প্রত্যেককে ব্যাপ্তিষ্ম দেওয়া হয়েছিল, পরবর্তী দুইটি ব্যাপ্তিষ্ম সেবা সভায় (“To God Be the Glory,” p. 29)| রেকর্ডে তাদের নাম তালিকাবদ্ধ করা হয়েছে| তাদের প্রায় সকলেই আজ খ্রীষ্ট বিশ্বাসী| এই মাসের গোড়ার দিকে ডঃ লামের সমাধি সভায় আমি তাদের বেশ কয়েকজনকে দেখেছিলাম| ঈশ্বর একাগ্র প্রার্থনার উত্তর দিয়েছিলেন যখন আমরা সেই শক্তিশালী উদ্দীপনার জন্যে শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা চালিয়ে গিয়েছিলাম, যে উদ্দীপনা ১৯৬০ এর দশকের শেষে এবং ১৯৭০ এর দশকের প্রথমের দিকে চিনা ব্যাপটিষ্ট মন্ডলীতে এসেছিল| এটা শেষ হওয়ার আগেই, শতাধিক যুবক সেই মন্ডলীতে এসেছিলেন|

১৯৯০ সালে পূর্ব উপকূলের ককেশিয়ান মন্ডলীতে আমি আবার উদ্দীপনার প্রয়োজন গভীরভাবে অনুভব করেছিলাম| সমস্ত দিন ধরে আমি উপবাস ও প্রার্থনা চালিয়ে গিয়েছিলাম| কম্পমান অবস্থায় আমি পুলপিটের দিকে এগিয়ে গিয়েছিলাম এবং একটি সাধারন পরিত্রাণ বার্তা প্রচার করেছিলাম| পালকের নিজের ছেলে, সেই মন্ডলীর সহপালক, অশ্রুসিক্ত নয়নে এগিয়ে এসেছিলেন, এই বলে যে তিনি হারিয়ে গিয়েছেন এবং তাঁর মন পরিবর্তন করার প্রয়োজন আছে| সেই আমন্ত্রণ রাত্রি ১১ টার পর অবধি চলেছিল| ৭৫ জনের বেশি লোক কাঁদতে কাঁদতে বেদীর কাছে এসেছিলেন| একটি বৃদ্ধ লোক তার হাত ও হাঁটুর উপর ভর করে, “আমি হারিয়ে গেছি! আমি হারিয়ে গেছি!” বলে কাঁদছিলেন| যে সব কিশোর সারাজীবন ধরে এই মন্ডলীতে বসবাস করে আসছে তারাও এগিয়ে এসেছিল, এবং কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছিল| ডঃ ইয়ান পাইসলের ছেলে, কাইলী, আমার স্ত্রী ও পুত্রের কাছে দাঁড়িয়ে ছিলেন| সে ফিস্ ফিস্ করে আমার স্ত্রীকে বলেছিল, “আমি এইরকম জিনিষ কখনও দেখিনি!” পরের তিন মাস ধরে প্রায় পাঁচশ লোক এসেছিলেন, তাদের সকলেই খুব আন্তরিক ছিলেন, তাদের মধ্যে কেউ কেউ কাঁদছিলেন, এমনকী অনেকে উচ্চঃস্বরে কান্নাকাটিও করছিলেন| পরবর্তীতে পালক তাদের মধ্যে একশ জনকে খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে ব্যাপ্তিষ্ম দিয়েছিলেন| সম্প্রতি আমি শুনেছি একজন বিখ্যাত মুখ্য ব্যাপটিষ্ট প্রচারক বলছেন যে তিনি এই ধরনের একটি উদ্দীপনা কখনও দেখেননি| আমি ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিই এইজন্যে যে একাগ্র প্রার্থনার উত্তর হিসাবে - আমি দুইবার উদ্দীপনা দেখেছি| যদি আমরা একাগ্রচিত্তে প্রার্থনা করি, এবং “সিদ্ধান্তবাদের” ভাঁড়ামো ছেড়ে দিই, তাহলে আমি বিশ্বাস করি যে ঈশ্বর আবার উদ্দীপনা পাঠাবেন – যেরকম তিনি আগেকার দিনে করতেন|

আমি জানি যখন আমরা শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করি তখন ঈশ্বর আমাদের প্রার্থনার উত্তর দেন| আমার মা ৮০ বছরের বৃদ্ধা ছিলেন এবং তবুও তিনি পরিত্রাত হননি| তার স্ট্রোক হয়েছিল যা তাকে মেরে ফেলতে পারত| তিনি নরকে যেতে পারতেন| কিন্তু আমি তার পরিত্রাণের জন্যে গত চল্লিশ বছর যাবৎ প্রার্থনা করে চলেছি, আক্ষরিক অর্থে প্রতিদিন| অবশেষ, একদিন, আমি আমার অন্তরে জেনেছিলাম যে আমি শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করেছি| আমি নিউ ইয়র্কে প্রচার করছিলাম| আমি ডঃ কেগানকে ফোন করেছিলাম, এবং তাকে বলেছিলাম আমার মায়ের কাছে যেতে এবং তাকে খ্রীষ্টের প্রতি পরিচালিত করতে| ডঃ কেগান সেখানে যেতে ভয় পাচ্ছিলেন কারণ এর আগে একবার আমার মা তাকে স্পষ্ট করে বলেছিলেন যে তিনি “পরিত্রাত হওয়ার” বিষয়ে কিছু শুনতে চাননা| কিন্তু আমি ডঃ কেগানকে বলেছিলাম যে আমি শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করেছি, এবং আমার অন্তর থেকে জেনেছি যে সেদিন আমার মা পরিত্রাণ লাভ করবেন| সেদিন বিকালে ডঃ কেগান মায়ের ঘরে গিয়েছিলেন – এবং, কেন সেটা এতটাই সহজ হয়ে গিয়েছিল! আমার মা তৎক্ষণাৎ মন পরিবর্তন করেছিলেন| সেই বছরের ৪ঠা জুলাই, ডঃ ওয়ালদ্রিপের মন্ডলীর একটি যৌথ ব্যাপ্তিষ্ম সেবায় আমি আমার মাকে ব্যাপ্তিষ্ম দিয়েছিলাম| সেই মুহূর্ত থেকে মা খ্রীষ্ট যীশুর সংসারে এক নতুন সৃষ্টি হিসাবে, নিজের ৮০ বছর বয়সে মন পরিবর্তন করেছিলেন|

আমি জানি যে আপনি কোন ব্যক্তির পরিত্রাত হওয়ার জন্য শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করতে পারেন! আমি জানি যে আপনি উদ্দীপনা আনয়নের জন্য, স্থানীয় মন্ডলীতে শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করে যেতে পারেন, এবং যা চাইছেন তা পেতে পারেন| আমি জানি যে আপনি হারানো বন্ধুর জন্য সেই মন্ডলীতে শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা করে যেতে পারেন| এবং আপনি নিজে এটাও জানবেন যে – যারা এখানে নিয়মিতরূপে আসছেন, তাদের মধ্যেকার কোন হারানো আত্মার জন্য আপনি যদি প্রার্থনা করা শুরু করেন, এবং সেই লোকটির জন্য শেষ পর্যন্ত প্রার্থনা চালিয়ে যান এবং নিরুৎসাহ না হন, যতক্ষণ না ঈশ্বর আপনি যা চাইছেন তা আপনাকে দিচ্ছেন! আমেন!

আমরা আবার পরের শনিবারে উপবাস এবং প্রার্থনা করতে চলেছি| যদি আপনি আমাদের সঙ্গে উপবাসে যোগদান করতে সক্ষম থাকেন, তবে অনুগ্রহ করে শুক্রবারের সন্ধ্যার আহারের পরে আর কিছু খাবেন না, যতক্ষণ না আমরা এই মন্ডলীতে আসি এবং শনিবারের সন্ধ্যা ৫.৩০ মিনিটে একসঙ্গে একটি আহার গ্রহণ করি| যেহেতু সামনের শনিবারে আপনি উপবাস এবং প্রার্থনা করতে চলেছেন, তাই আপনার পড়ার জন্যে এখানে আরও একবার, কিছু বিষয়ের উপর একটি তালিকা যুক্ত করা হল| এই প্রচারের শেষে তালিকাটি লেখা আছে| আমরা আপনাদের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্যে এর একটি প্রতিলিপি দিয়ে দেব|

আমি আপনাদের জন্য খুব গর্ব বোধ করছি! আপনারা মহান মানুষ! আমি বিশ্বাস করি যে বহু যুবক পরিত্রাত হবেন যেহেতু আপনারা তাদের জন্য উপবাস এবং প্রার্থনা করেছেন! ডঃ চেন্, অনুগ্রহ করে আমাদের প্রার্থনায় পরিচালিত করুন|


১| আপনার উপবাসের কথা গোপন রাখুন (যতটা সম্ভব)| লোকদের বলে বেড়াবেন না যে আপনি উপবাস করছেন|

২| বাইবেল পাঠে কিছুটা সময় দিন| প্রেরিত পুস্তকের কিছু অংশ পড়ুন (বিশেষ করে শুরুর দিকটি)|

৩| শনিবারের উপবাসকালে যিশাইয় ৫৮:৬ মুখস্থ করুন|

৪| প্রার্থনা করুন যেন ঈশ্বর আমাদের মন্ডলীতে দশজন অথবা তার চেয়েও বেশি নতুন যুবকদের এনে দেন যারা আমাদের সঙ্গে থাকবেন|

৫| আমাদের অপরিত্রাত যুবকদের মনপরিবর্তনের জন্য প্রার্থনা করুন| প্রার্থনা করুন ঈশ্বর যেন তাদের জন্য তাই করেন যেমন তিনি যিশাইয় ৫৮:৬ পদে বলেছেন|

৬| প্রার্থনা করুন যে আজকের দিনের (রবিবার) যিনি প্রথম সাক্ষাৎকারী তিনি পুনরায় আকর্ষিত হবেন পরের রবিবারেও| যদি সম্ভব হয় তো নাম ধরে ধরে তাদের জন্য প্রার্থনা করুন|

৭| পরের রবিবারে – সকালে এবং সন্ধ্যায় আমি কি প্রচার করবো তা ঈশ্বর যেন আমাকে দেখান তার জন্য ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করুন|

৮| প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন| প্রত্যেক ঘন্টায় প্রায় এক গ্লাস করে| শুরুতে আপনি পান করতে পারেন বড় কাপের এক কাপ কফি যদি আপনার প্রতিদিন সেটা পান করার অভ্যাস থাকে তাহলে| নরম পানীয়, উদ্দীপক পানীয়, ইত্যাদি গ্রহণ করবেন না|

৯| যদি আপনার স্বাস্থ্য সম্বন্ধিত কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে উপবাসের আগে একজন চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করুন| (আপনি আমাদের মন্ডলীর ডঃ ক্রেইগটন চ্যান অথবা ডঃ জুডিথ ক্যাগন’এর সঙ্গে দেখা করতে পারেন|) উপবাস করবেন না যদি আপনার সঙ্কটজনক কোন রোগ থাকে, যেমন বহুমূত্র বা উচ্চ রক্তচাপ| এই সমস্ত প্রার্থনার জন্য খালি শনিবারের দিনটি ব্যবহার করুন|

১০| শুক্রবারের সন্ধ্যার খাবারের পর আপনার উপবাস শুরু করুন| শুক্রবারের রাতের খাবারের পর আর কিছু খাবেন না যতক্ষণ না শনিবার সন্ধ্যা ৫.৩০ মিনিটে আমাদের মন্ডলীতে একটি আহার গ্রহণ করা হচ্ছে|

১১| মনে রাখবেন যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা প্রার্থনা করতে হয় তা হল আমাদের মন্ডলীর হারানো যুবকদের মন পরিবর্তনের জন্য প্রার্থনা - এবং এই সময়কালের মধ্যে এসেছেন, এমন নতুন যুবকদের আমাদের সাথে স্থায়ীভাবে থাকার জন্য প্রার্থনা|


যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তবে অনুগ্রহ করে ডঃ হাইমার্সকে
একট ই-মেল পাঠান এবং তাকে বলুন| অনুগ্রহ করে তাকে এটাও বলুন যে কোন
দেশ থেকে আপনি তাকে লিখছেন| ডঃ হাইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল
rlhymersjr@sbcglobal.net (এখানে ক্লিক করুন)| আপনি যে কোন ভাষায় ডঃ
হাইমার্সকে চিঠি লিখতে পারেন, কিন্তু যদি পারেন তো ইংরাজিতেই লিখুন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডাঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে
www.realconversion.com এই সাইটে পড়তে পারেন। ক্লিক করুন “সংবাদের হস্তলিপি”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মিঃ আবেল প্রধুম্মে: লূক ১৮:১-৮ |
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
“Teach Me To Pray” (Albert S. Reitz, 1879-1966)|