Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 34টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




এই কথা তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল

THIS SAYING WAS HID FROM THEM
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর এল হাইমার্স, জুনিয়র।
By Dr. R. L. Hymers, Jr.

২০১৫ সালের, ২২শে মার্চ, প্রভুর দিনের সন্ধ্যাবেলা লস্ এঞ্জেলসের
ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাকল মন্ডলীতে এই ধর্ম্মোপদেশটি প্রচার করেন
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Evening, March 22, 2015

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩৪)|

লূকের সুসমাচারে, এটা হল তৃতীয়বার, যে যীশু সেই বারোজন শিষ্যকে বলেছিলেন যে তাঁকে মৃত্যুবরণ করতে হবে (লূক ৯:২২; ৯:৪৪)| লূক ১৮:৩১-৩৩ পদে, যীশু এই কথা খুব পরিষ্কার করে দিয়েছেন, যেখানে তিনি বলেছেন,

“পরে তিনি সেই বারোজনকে কাছে লইয়া তাঁহাদিগকে কহিলেন দেখ, আমরা যিরুশালেমে যাইতেছি, আর ভাববাদিগণ দ্বারা যাহা যাহা লিখিত হইয়াছে সে সমস্ত মনুষ্যপুত্রে সিদ্ধ হইবে| কারণ তিনি পরজাতীয়দের হস্তে সমর্পিত হইবেন, এবং লোকেরা তাঁহাকে বিদ্রূপ করিবে, তাঁহার অপমান করিবে, তাঁহার গায়ে থুথু দিবে: এবং কোড়া প্রহার করিয়া, তাঁহাকে বধ করিবে: পরে তৃতীয় দিবসে তিনি পুনরায় উঠিবেন” (লূক ১৮:৩১-৩৩)|

আর কিভাবে এই বাক্য আরও স্বচ্ছতর হবে? তবুও, “এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩৪)| মার্ক ৯:৩২ পদে বলা হয়েছে, “তাঁহারা সেই কথা বুঝিলেন না|” ডঃ এ. টি. রবার্টসন মার্ক ৯:৩২ পদের উপর এই মন্তব্য করেছেন, “তাহারা অবিরাম বুঝিতে না পারাটিকেই চালাইয়া যাইতেছিলেন| তাহারা [খ্রীষ্টের] মৃত্যু এবং পুনরুত্থানের বিষয়ে অজ্ঞবাদী [অবিশ্বাসী] ছিলেন” (A. T. Robertson, Litt.D., Word Pictures in the New Testament, Broadman Press, 1930, volume I, p. 344; note on Mark 9:32)|

প্রেরিত পৌলের দ্বারা খ্রীষ্টের সুসমাচার সংক্ষেপে এবং সহজভাবে বর্ণিত হয়েছে,

“শাস্ত্রানুসারে খ্রীষ্ট আমাদের পাপের জন্য মরিলেন; ও কবরপ্রাপ্ত হইলেন, আর শাস্ত্রানুসারে তিনি তৃতীয় দিবসে উত্থাপিত হইয়াছেন” (১ম করিন্থীয় ১৫:৩-৪)|

যদিও, এই সময়ে, সেই বারোজন শিষ্য বুঝতে পারেননি অথবা সুসমাচারকে বিশ্বাস করেননি|

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩৪)|

যেমন ডঃ এ. টি. রবার্টসন বলেছেন, “তাহারা [খ্রীষ্টের] মৃত্যু এবং পুনরুত্থানের বিষয়ে অজ্ঞবাদী [অবিশ্বাসী] ছিলেন” (ibid.)| সেই বারোজন শিষ্য তবুও সুসমাচারকে বিশ্বাস করেনি! মার্ক ৯:৩০-৩২ পদের উপর মন্তব্য করে, ডঃ জে. ভারনন ম্যাকগী বলেছেন, “তাঁহার মৃত্যু ও পুনরুত্থান সম্বন্ধে তাহাদের নিকট ইহা প্রথমবারের ঘোষনা ছিল না, এবং তবুও তাহারা ইহা বুঝিতে পারে নাই” (J. Vernon McGee, Th.D., Thru the Bible, Thomas Nelson Publishers, 1983, volume IV, p. 201; note on Mark 9:30-32)|

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩৪)|

পাঠ্যাংশের তিনটি বাক্য আমাদের বলে যে সুসমাচারে তাদের অবিশ্বাস ছিল|

১| প্রথম, তাহারা সুসমাচারকে বুঝিতে পারেন নাই |

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না|” গ্রীক শব্দের অনুবাদে “বুঝিতে পারা”এর অর্থ হল “মানসিকভাবে উপলব্ধি করা”(স্ট্রং)| যদিও খ্রীষ্ট সহজভাবে ও আক্ষরিকভাবে বলেছিলেন, তবুও সেই শিষ্যেরা তিনি যা বলেছিলেন তা উপলব্ধি করতে সক্ষম ছিলেন না| পাঠ্যাংশ বলছে, “এই সকলের কিছুই তাহারা বুঝিলেন না|” ম্যাথু পৌল বলেন, “শব্দসকল বুঝিবার পক্ষে যথেষ্ট সহজ ছিল” (A Commentary on the Whole Bible, The Banner of Truth Trust, 1990 reprint, volume 3, p. 258; note on Luke 18:34), তবুও এই সকলের কিছুই তাহারা বুঝিলেন না! শিষ্যেরা বোঝেনি যে খ্রীষ্ট “পরজাতীয়দের হস্তে সমর্পিত হইবেন|” তারা বুঝতে পারেনি যে “লোকেরা তাঁহাকে বিদ্রূপ করিবে, তাঁহার অপমান করিবে, তাঁহার গায়ে থুথু দিবে|” তারা বুঝতে পারেনি যে তাঁকে “চাবুক মারা” হবে, তাঁর পিঠের হাড় অবধি কষাঘাত করা হবে| শিষ্যেরা বুঝতে পারেননি যে যীশুকে একটি ক্রুশের উপরে “বধ” করা হবে| সেই শিষ্যেরা কেউই বুঝতে পারেনি যে “তৃতীয় দিবসে” তিনি মৃত্যু থেকে পুনরুত্থিত হবেন| যেমন আমাদের মার্কের সুসমাচারে বলা হয়েছে,

“মনুষ্যপুত্র মনুষ্যদের হস্তে সমর্পিত হইবেন, এবং তাহারা তাঁহাকে বধ করিবে; হত হইলে পর, তিনি তিনদিন পরে উঠিবেন| কিন্তু তাঁহারা সেই কথা বুঝিলেন না, এবং তাঁহাকে জি্জ্ঞাসা করিতেও ভয় করিলেন” (মার্ক ৯:৩১-৩২)|

শিষ্যদের অজ্ঞতার মানবসুলভ উত্তরের ব্যাখ্যা করেছিলেন উইলিয়াম ম্যাকডোনাল্ড,

তাহাদের মন পার্থিব উদ্ধারকর্ত্তা যিনি তাহাদের রোমীয় শাসন হইতে মুক্ত করিবেন, এবং অবিলম্বে রাজ্য স্থাপন করিবেন, এই বিষয়ের চিন্তায় এমনই মগ্ন ছিল যে তাহারা অন্য কোন কার্যক্রম গ্রহণ করিতে অসম্মত ছিলেন (William MacDonald, Believer’s Bible Commentary, Thomas Nelson Publishers, 1989 edition, p. 1440; note on Luke 18:34)|

তাদের মন দুঃখভোগকারী মশীহের (মশীহ বেন যোষেফ) অস্তিত্ব স্বীকারের বিরুদ্ধে পক্ষপাতদুষ্ট ছিল কারণ ঐ সময়ের বেশির ভাগ যিহুদী লোকেরা এমন একজন মশীহের (মশীহ বেন্ ডেভিড) অন্বেষণ করতেন যিনি তাদের রোমীয় শাসন থেকে মুক্ত করবেন| তারা উপলব্ধি করত না যে ঐ দুই মশীহই এক| আমার এই প্রচারটি দেখুন, “The Fear of the Disciples” – পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন| কিন্তু সুসমাচারের প্রতি তাদের অজ্ঞতার আরও একটি কারণ আছে|

২| দ্বিতীয়, সুসমাচার তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল |

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল…” (লূক ১৮:৩৪)|

এই “গুপ্ত” শব্দটি অনুবাদিত হয়েছে একটা গ্রীক শব্দ থেকে যার অর্থ হল “লুকানো, অব্যক্তভাবে গোপন রাখা” (স্ট্রং)| এটা ঠিক সেই একই শব্দ যেটা দেখতে পাওয়া যায় যোহন ৮:৫৯ পদে যা বলছে, “যীশু অন্তর্হিত হইলেন|” সুতরাং, আমাদের পাঠ্যাংশে, “এই কথা তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল|” যখন লোকেরা ধর্ম্মধামে তাঁর দিকে ছুঁড়ে মারার জন্য পাথর তুলে নিয়েছিল, তখন যীশু অন্তর্হিত হয়েছিলেন আর এই ঘটনার সঙ্গে অতিপ্রাকৃত এক উপাদান জড়িয়ে ছিল (যোহন ৮:৫৯)| সেখানে আমাদের পাঠ্যাংশেও একটি অতিপ্রাকৃত উপাদান আছে, “এবং এই কথা তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল|” লূক ১৮:৩৪ পদের এই বাক্যের উপর, ডঃ ফ্রাঙ্ক গেইবেলিন্সের টিকা বলছে, “লূকের আরোপিত শিষ্যদের অজ্ঞতা যাহা আপাতদৃষ্টিতে স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান করে যে সেখানে বোধশক্তিকে এক অতিপ্রাকৃত উপায়ে প্রতিরোধ করা হয়েছিল” (Frank E. Gaebelein, D.D., general editor, The Expositor’s Bible Commentary, Zondervan Publishing House, 1984 edition, volume 8, p. 1005; note on Luke 18:34)| আমি মনে করি যে পাঠ্যাংশতে ঠিক এটাই বোঝান হয়েছে| সেটা ছিল বোধশক্তির উপরে একটা অতিপ্রাকৃত প্রতিরোধ| “এবং এই কথা [সেই সুসমাচার] তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল|”

এখন আমরা দেখছি যে সে সময়ের শিষ্যেরা কেউই সাধু ছিলেন না| তারা সকলে সাধারন মানুষ ছিলেন| মানুষ হিসাবে তারা ছিলেন, আমাদের অবশিষ্টাংশের মতন, আদমের বংশধর| সেই কারণে, তারা ছিলেন “অন্যায়ে এবং পাপে মৃত” যেমন, পরিত্রাত হওয়ার আগে সাত বছর মন্ডলীতে থাকাকালীন সময়ে আমি ছিলাম; এবং যেমন আপনারা কেউ কেউ এখনও আছেন (ইফিষীয় ২:১,৫)| আদমের বংশধর হিসাবে, তাদের মাংসের ভাব ছিল “ঈশ্বরের প্রতি শত্রুতা” (রোমীয় ৮:৭)| আদমের বংশধর হিসাবে তারা ছিল শুধু প্রাণিক মানুষ, এবং “প্রাণিক মনুষ্য ঈশ্বরের আত্মার বিষয়গুলি গ্রহণ করে না” (১ম করিন্থীয় ২:১৪)| আদমের বংশধর হিসাবে, “সেই ক্রুশের কথা [ছিল] যাহারা বিনাশ পাইতেছে, তাহাদের কাছে মূর্খতা” (১ম করিন্থীয় ১:১৮)| যেমন সত্য হিসাবে খ্রীষ্ট নিকদীমকে বলেছিলেন, “তোমার নতুন জন্ম হওয়া আবশ্যক” (যোহন ৩:৭), সেই কারণে শিষ্যদের “নতুন জন্ম হওয়া আবশ্যক|” শিষ্যেরা নিজেদের পেশা ত্যাগ করে এবং খ্রীষ্টকে অনুসরন করে নতুন জন্ম পেতে পারে না| সেটা হবে কাজের দ্বারা পরিত্রাণ! এইভাবে রোমান ক্যাথলিকেরা এটা কে ব্যাখ্যা করে থাকেন! কিন্তু আমরা অনুগ্রহের দ্বারা পরিত্রাণে বিশ্বাস করি, সেই কারণে তারা তাঁকে শুধু অনুসরন করার মাধ্যমে পরিত্রাণ পাননি!

“কেননা অনুগ্রহেই বিশ্বাস দ্বারা তোমরা পরিত্রাণ পাইয়াছ; এবং ইহা তোমাদের হইতে হয় নাই: ইহা ঈশ্বরেরই দান: কর্মের ফল নয়, যেন কেহ শ্লাঘা না করে” (ইফিষীয় ২:৮-৯)|

যিহুদা ছিলেন সেই বারোজন শিষ্যদের মধ্যে একজন| তিনি কী নতুন জন্মপ্রাপ্ত ছিলেন? খ্রীষ্ট বলেছেন যে তিনি “হারিয়ে গিয়েছিলেন,” এবং তাকে তিনি বলতেন “বিনাশের সন্তান” (যোহন ১৭:১২)| থোমা কী নতুন জন্মপ্রাপ্ত ছিলেন? পুনরুত্থানের পর, থোমা অবিচলিতভাবে বলেছিলেন, “আমি বিশ্বাস করিব না” (যোহন ২০:২৫)| আমি জানি যে পিতর কিছুটা আলোকপ্রাপ্ত হয়েছিলেন ঈশ্বরের কাছ থেকে (মথি ১৬:১৭) কিন্তু কয়েক দন্ড পরেই তিনি যীশুকে তাড়না করেছিলেন শিষ্যদের এই কথা বলার জন্য যে তাঁকে “হত হইতে হইবে, এবং তৃতীয় দিবসে উঠিতে হইবে” (মথি ১৬:২১-২২), আর যীশু “পিতরের প্রতি বলিলেন, আমার সন্মুখ হইতে দূর হও, শয়্তান: তুমি আমার বিঘ্নস্বরূপ: কেননা যাহা ঈশ্বরের তাহা নয়, কিন্তু যাহা মনুষ্যের তাহাই তুমি ভাবিতেছ” (মথি ১৬:২৩)| পরিষ্কারভাবে বোঝা যাচ্ছে যে পিতর সুসমাচারকে অস্বীকার করেছিলেন, এবং খৃষ্টের ক্রুশারোপন এবং পুনরুত্থানকে অস্বীকার করার জন্য শয়তানের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন|

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা [সুসমাচারের কথা] তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল…” (লূক ১৮:৩৪)|

প্রেরিত পৌল বলেছেন,

“কিন্তু আমাদের সুসমাচার যদি আবৃত থাকে, তবে যাহারা বিনাশ পাইতেছে তাহাদেরই কাছে আবৃত থাকে: তাহাদের মধ্যে এই যুগের দেব [শয়্তান] অবিশ্বাসীদের মন অন্ধ করিয়াছে…” (২য় করিন্থীয় ৪:৩-৪)|

হ্যাঁ, সেখানে একটা “অতিপ্রাকৃত” অন্ধতা ছিল, শিষ্যদের জন্য এক শয়্তানিক অন্ধতা, আর সেই সঙ্গে ছিল তাদের নিজস্ব মাংষিক, আদমীয় স্বভাব থেকে উদ্ভূত সুসমাচারের প্রতি অন্ধতা| যীশু বলেছিলেন, “তোমরা যদি না ফির, ও শিশুর ন্যায় না হইয়া উঠ, তবে কোন মতে স্বর্গরাজ্যে প্রবেশ করিতে পাইবে না” (মথি ১৮:৩)| এই কথা তিনি কাদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন? তিনি এটা বলেছিলেন “সেই শিষ্যদের” উদ্দেশ্যে (মথি ১৮:১)| অনুগ্রহ করে উঠে দাঁড়ান এবং মথি ১৮:১-৩ পদগুলি পড়ুন,

“সেই দন্ডে শিষ্যেরা যীশুর নিকটে আসিয়া, বলিলেন, তবে স্বর্গ-রাজ্যের মধ্যে শ্রেষ্ঠ কে? তিনি একটি শিশুকে আপনার নিকটে ডাকিয়া, তাঁহাদের মধ্যে দাঁড় করাইলেন, এবং কহিলেন, আমি তোমাদিগকে সত্য কহিতেছি, তোমরাদি না ফির, ও শিশুদের ন্যায় না হইয়া উঠ, তবে কোন মতে স্বর্গ-রাজ্যে প্রবেশ করিতে পাইবে না” (মথি ১৮:১-৩)|

আপনারা এখন বসতে পারেন| শিষ্যেরা জানতে চেয়েছিলেন যে স্বর্গ-রাজ্যে তাদের মধ্যে কে সর্বশ্রেষ্ঠ হবে (মথি ১৮:১)| উত্তরে যীশু তাদের বলেছিলেন, “তোমরা যদি না ফির…তবে কোন মতে স্বর্গ-রাজ্যে প্রবেশ করিতে পাইবে না” (মথি ১৮:১-৩)|

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা [সুসমাচারের কথা] তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল…” (লূক ১৮:৩৪)|

৩| তৃতীয়, তারা সুসমাচার অভিজ্ঞতার দ্বারা জানিতেন না |

আমাদের পাঠ্যাংশের শেষে এটা বলা হচ্ছে যে, “কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩৪)| গ্রীক শব্দ থেকে অনুবাদিত এই “জানিয়াছিল” শব্দটির অর্থ হল “অবগত হওয়া, নিশ্চিত হওয়া, অভিজ্ঞতার দ্বারা সচেতন হওয়া” (George Ricker Berry, A Greek-English Lexicon of New Testament Synonyms, coded to Strong, number 1097)| সেই একই শব্দ ফিলিপীয় ৩:১০ পদে ব্যবহার করা হয়েছে, “যেন আমি তাঁহাকে, তাঁহার পুনরুত্থানের পরাক্রম, ও তাঁহার দুঃখভোগের সহভাগিতা জানিতে পারি…” সেই শিষ্যেরা সুসমাচারকে অভিজ্ঞতার মাধ্যমে জানেনি| তারা এর কথাগুলি শুনেছিলেন, কিন্তু সুসমাচারের সত্যতার অভিজ্ঞতা তাদের ছিল না| এখন আসুন আমরা সবাই উঠে দাঁড়াই এবং আবার গোটা অধ্যায়টি উচ্চস্বরে পাঠ করি| এটা হল লূক ১৮:৩১-৩৪ পদ|

“পরে তিনি সেই বারোজনকে কাছে লইয়া, তাঁহাদিগকে কহিলেন, দেখ, আমরা যিরূশালেমে যাইতেছি, আর ভাববাদিগণ দ্বারা যাহা যাহা লিখিত হইয়াছে সে সমস্ত মনুষ্যপুত্রে সিদ্ধ হইবে| কারণ তিনি পরজাতীয়দের হস্তে সমর্পিত হইবেন, এবং লোকেরা তাঁহাকে বিদ্রূপ করিবে, তাঁহার অপমান করিবে, তাঁহার গায়ে থুথু দিবে: এবং কোড়া প্রহার করিয়া, তাঁহাকে বধ করিবে: পরে তৃতীয় দিবসে তিনি পুনরায় উঠিবেন| এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩১-৩৪)|

আপনারা এখন বসতে পারেন|

আপনারা এখন কী দেখতে পাচ্ছেন? “এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা [অভিজ্ঞতার দ্বারা] বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না|”

সি. এইচ. স্পারজিয়নের সাক্ষ্য শুনুন| স্পারজিয়ন লালিত পালিত হয়েছিলেন একজন সুসমাচার প্রচারক পালকের গৃহে – যিনি ছিলেন তার নিজের পিতা| গ্রীষ্মকালীন সময়টি তিনি অতিবাহিত করতেন তার ঠাকুর্দার বাড়িতে, যিনি একজন প্রচারক ছিলেন| তার সমস্ত জীবন ধরে, তিনি প্রতি রবিবারে প্রচারিত সুসমাচার শুনে এসেছেন| তবুও পুনরুত্থানের আগে সেই শিষ্যেরা যেমন ছিলেন ঠিক তাদেরই মতন স্পারজিয়নও ছিলেন অপরিত্রাণপ্রাপ্ত এক ব্যক্তি| স্পারজিয়ন বলেছিলেন,

যীশুর বলিদানের মাধ্যমে পরিত্রাণের পরিকল্পনা আমার যুবক অবস্থা হইতে আমি শুনিয়া আসিতেছি, কিন্তু অন্যত্র [এক ধর্মহীন দেশে] জন্মাইলে এই বিষয়ে যাহা জানিতাম তদাপেক্ষা অধিক কিছু আমি আমার অন্তরাত্মায় জানিতাম না| ইহা আমার নিকট আসিয়াছিল এক নূতন প্রকাশের ন্যায়, তেমনই বিশুদ্ধভাবে যেন আমি কখনও শাস্ত্র পড়ি নাই…[তখন] আমি বুঝিতে পারিয়াছিলাম এবং বিশ্বাসে দেখিয়াছিলাম যে যিনি ঈশ্বরের পুত্র তিনি মনুষ্য হইয়াছিলেন এবং, যিনি তাঁহার আপন আশীর্ব্বাদের পাত্র, তিনি বৃক্ষের উপরে [ক্রুশের উপরে] নিজ দেহে আমার সমস্ত পাপ বহন করিয়াছিলেন...আপনি কী কখনও ইহা দেখিয়াছেন? (C. H. Spurgeon, How Can a Just God Justify Guilty Man?, Chapel Library, Pensacola, Florida)|

স্পারজিয়ন খ্রীষ্টের সম্বন্ধে সব জেনেছিলেন| তিনি পরিত্রাণের পরিকল্পনার বিষয়ে শুনেছিলেন| কিন্তু তিনি “এই সকলের কিছুই বুঝিলেন না: এই কথা [সুসমাচারের কথা] গুপ্ত রহিল [তাহার] হইতে, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা [তিনি অভিজ্ঞতার দ্বারা] বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না|” সেই সুসমাচার স্পারজিয়নের কাছে অতর্কিতে, এমন প্রচন্ড বেগে এসেছিল, যে তিনি বলেছিলেন, “ইহা আমার নিকট আসিয়াছিল এক নূতন প্রকাশের ন্যায়, তেমনই বিশুদ্ধভাবে যেন আমি কখনও শাস্ত্র পড়ি নাই|”

সেটাই হল প্রকৃত মন পরিবর্তন – যখন আপনার আত্মাকে বাধ্য করা হবে আপনার পাপের বোঝার ভার অনুভব করতে – এবং সেই পুনরুত্থিত খ্রীষ্টের প্রতি আপনি আকর্ষিত হবেন| কোন এক লোক আমাকে বলেছিলেন, “বাইবেলের কোন জায়গায় শিক্ষা দেওয়া হইয়াছে যে শিষ্যেরা পুনরুত্থিত খ্রীষ্টের সহিত অপ্রত্যাশিতভাবে সন্মুখীন হইবার দ্বারা মন পরিবর্তন করিয়াছিলেন?” এর উত্তরটি খুব সহজ – চারটি সুসমাচারের সব কয়টিরই শেষে দেওয়া আছে – মথি ২৮ অধ্যায়ে; মার্ক ১৬ অধ্যায়ে; লূক ২৪ অধ্যায়ে (বিশেষ করে এখানে, এর ৩৬-৪৫ পদগুলিতে স্পষ্টভাবে আছে); এবং যোহন ২০:১৯-২২ পদগুলিতে| আমেরিকার সর্বাধিক সুপরিচিত বাইবেল শিক্ষক, ডঃ জে. ভারনন্ ম্যাকগী, যোহন ২০:২২ পদের বিষয়ে বলেছেন, “আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি যে যেই মুহূর্তে আমাদের প্রভু তাহাদের উপর ফুঁ দিয়াছিলেন, এবং বলিয়াছিলেন, ‘তোমরা পবিত্র আত্মা গ্রহণ কর,’ এই মনুষ্য সকলের পুনঃসৃষ্টি [নূতন জন্ম] হইয়াছিল| ইহার পূর্বে, তাহাদিগের মধ্যে ঈশ্বরের আত্মা বাস করিত না” (J. Vernon McGee, Th.D., Thru the Bible, Thomas Nelson Publishers, volume IV, p. 498; note on John 20:21)| ইন্টারনেটের ওয়েবসাইট www.thruthebible.org থেকে আপনি ডঃ ম্যাকগীর কথা শুনতে পারেন|

এখন এই হল আমাদের প্রার্থনা যে আপনি আপনার পাপের জন্য পবিত্র আত্মার দ্বারা দন্ডিত হবেন, এবং ঈশ্বরের আত্মা আপনার হৃদয় উন্মুক্ত করবে, এবং আপনাকে যীশুর দিকে, ঈশ্বরের সেই পুনরুত্থিত পুত্রের দিকে আকর্ষণ করবেন, তাঁর বহুমূল্য রক্তের দ্বারা আপনাকে সমস্ত পাপ থেকে শুচি করবার জন্য|

ডঃ ম্যাকগীর প্রত্যেকটি প্রচার, “যীশু এই সমস্ত প্রদান করেছেন” এই সঙ্গীত গেয়ে শেষ করা হয়| এটা আপনার গানের পাতার চার নম্বর গান| উঠে দাঁড়ান এবং এই গানটি করুন|

আমি শুনিতেছি পরিত্রাতার রব, “সত্য তোমার শক্তি সামান্য,
শিশুর ন্যায় দূর্বলতা, জাগরণ এবং প্রার্থনা, তোমার সমস্ত কিছু আমাতে দৃষ্ট|”
যীশু এই সমস্ত প্রদান করিয়াছে, তাঁহাতে সবই আমার ঋণ;
পাপ ছাড়িয়াছে টক্টকে লাল নোংরা দাগ, তিনি ইহা ধৌত করিয়াছেন তুষারের ন্যায় শুভ্র|

প্রভু, এখন আমি সত্যই তোমার শক্তির সন্ধান পাইয়াছি, এবং একমাত্র তোমাতে,
কুষ্ঠের দাগ পরিবর্তন হইতে পারে, গলিতে পারে হৃদয়ের কঠিনতা|
যীশু এই সমস্ত প্রদান করিয়াছে, তাঁহাতে সবই আমার ঋণ;
পাপ ছাড়িয়াছে টক্টকে লাল নোংরা দাগ, তিনি ইহা ধৌত করিয়াছেন তুষারের ন্যায় শুভ্র|

আমার মধ্যে কোন উত্তমতা নাই যদ্দ্বারা তোমার অনুগ্রহ দাবি করি –
আমি আমার বস্ত্র ধৌত করিব কালভেরীর মেষশাবকের রক্তে|
যীশু এই সমস্ত প্রদান করিয়াছে, তাঁহাতে সবই আমার ঋণ;
পাপ ছাড়িয়াছে টক্টকে লাল নোংরা দাগ, তিনি ইহা ধৌত করিয়াছেন তুষারের ন্যায় শুভ্র|

এবং যখন, সিংহাসনের সন্মুখে, আমি তাঁহাতে সম্পূর্ণভাবে দাড়াই,
“যীশু মরিয়াছেন আমার আত্মার মুক্তির জন্য,” আমার ওষ্ঠদ্বয় এখনও পুনঃ পুনঃ বলিবে|
যীশু এই সমস্ত প্রদান করিয়াছে, তাঁহাতে সবই আমার ঋণ;
পাপ ছাড়িয়াছে টক্টকে লাল নোংরা দাগ, তিনি ইহা ধৌত করিয়াছেন তুষারের ন্যায় শুভ্র|
      (“Jesus Paid It All” by Elvina M. Hall, 1820-1889)|

ডঃ চেন, অনুগ্রহ করে আমাদের প্রার্থনায় পরিচালনা করুন| আমেন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডাঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে
www.realconversion.com এই সাইটে পড়তে পারেন। ক্লিক করুন “সংবাদের হস্তলিপি”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মিঃ আবেল প্রধুম্মে: লূক ১৮:৩১-৩৪|
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
“Open My Eyes” (by Clara H. Scott, 1841-1897)|


খসড়া চিত্র

এই কথা তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল

THIS SAYING WAS HID FROM THEM

লেখক : ডঃ আর এল হাইমার্স, জুনিয়র।

“এই সকলের কিছুই তাঁহারা বুঝিলেন না: এই কথা তাঁহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, এবং কি কি বলা যাইতেছে তাহা তাঁহারা বুঝিয়া উঠিতে পারিলেন না” (লূক ১৮:৩৪)|

(লূক ১৮:৩১-৩৩; মার্ক ৯:৩২; ১ম করিন্থীয় ১৫:৩-৪)

১| প্রথম, তাহারা সুসমাচারকে বুঝিতে পারেন নাই, লূক ১৮:৩৪ক;
মার্ক ৯:৩১-৩২ |

২| দ্বিতীয়, সুসমাচার তাহাদের হইতে গুপ্ত রহিল, লূক ১৮:৩৪খ; যোহন ৮:৫৯;
ইফিষীয় ২:১,৫; রোমীয় ৮:৭; ১ম করিন্থীয় ২:১৪; ১:১৮; যোহন ৩:৭;
ইফিষীয় ২:৮-৯; যোহন ১৭:১২; ২০:২৫; মথি ১৬:১৭;
মথি ১৬:২১-২২,২৩; ২য় করিন্থীয় ৪:৩-৪; মথি ১৮:১-৩ |

৩| তৃতীয়, তারা সুসমাচার অভিজ্ঞতার দ্বারা জানিতেন না, লূক ১৮:৩৪গ; ফিলিপীয় ৩:১০ |