Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 34টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




যীশুতে সরল বিশ্বাস

(যিশাইয় ৫৩ অধ্যায়ের উপর উদ্দীপনার পঞ্চদশ প্রচার)
SIMPLE FAITH IN JESUS
(SERMON NUMBER 15 ON ISAIAH 53)
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর এল হাইমার্স, জুনিয়র।
By Dr. R. L. Hymers, Jr.

২০১৩ সালের, ২১শে জুলাই, সদাপ্রভুর একটি দিনে সকালবেলায়
লস্ এঞ্জেলসের ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাকল মন্ডলীতে এই ধর্ম্মোপদেশটি
প্রচারিত হয়েছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord's Day Morning, July 21, 2013

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করে” (যিশাইয় ৫৩:৩)|


“আমরা যাহা হইতে আমাদের মুখ আচ্ছাদন করি|” একজন আধুনিক টীকা লেখক বলেছেন যে এই শব্দগুলি বলা হয়েছিল ইস্রায়েলের “ক্রুশারোপিত মোসীহের প্রতি বিরূপভাব এবং ঈশ্বর পুত্রের রক্তমাংসে আবির্ভাবের প্রতি শ্রদ্ধার অভাব” প্রসঙ্গে| তিনি পদটিকে সীমাবদ্ধ করেছিলেন খ্রীষ্টের সময়ে শুধুমাত্র যিহুদী লোকেদের অন্তর্ভূক্ত করতে| কিন্তু আমার ভাল লাগে মোডীর কথাগুলি যে, “বাইবেল টীকাগুলির উপর মহৎ আচরণের মাধ্যমে আলোকসম্পাত করেছে|” না, এই পদটি খ্রীষ্টের প্রতি অবিমিশ্রভাবে ইস্রায়েলের “বিরূপভাব” পেশ করে না| সেটা পদের শুরুতেই পরিষ্কার করে দেওয়া হয়েছে| এটা বলে যে, “তিনি অবজ্ঞাত ও মনুষ্যদের ত্যাজ্য|” শুধুমাত্র যিহুদীদের থেকে নয়, কিন্তু সাধারনভাবে “মনুষ্যদের”! “মনুষ্যদের ত্যাজ্য” – অবিমিশ্রিত যিহুদীদের দ্বারা নয়| “বাইবেল টীকাগুলির উপর মহৎ আচরণের মাধ্যমে আলোকসম্পাত করেছে|”

লুথার “শাস্ত্রের উপমা”র বিষয়ে বলেছেন| মহান সংস্কার সাধকের অভিপ্রায় ছিল যেন আমরা শাস্ত্রের সঙ্গে শাস্ত্রের তুলনা করি, এটা দেখানোর জন্য যে ঈশ্বর কোন একটা বিষয় সম্বন্ধে বাইবেলের অন্যান্য অংশে কি বলেছেন| যিশাইয় ৪৯:৭ পদে আমরা পড়ছি যে,

“যে ব্যক্তি মনুষ্যের অবজ্ঞা প্রজাবৃন্দের ঘৃণাস্পদ ও কর্ত্তৃত্বকারীদের দাস, তাহাকে সদাপ্রভু ইস্রায়েলের মুক্তিদাতা, এবং তাহার পবিত্রতম, এই কথা কহেন…” (যিশাইয় ৪৯:৭)|

সুতরাং, এখানেও আমরা দেখি যে “মনুষ্য” সাধারনভাবে যীশুকে, সেই “পবিত্রতম একজনকে,” অবজ্ঞা করেছেন| নূতন নিয়মে, যীশু নিজে বলেছেন,

“জগৎ যদি তোমাদিগকে দ্বেষ করে, তোমরা তো জান যে সে তোমাদিগের অগ্রে আমাকে দ্বেষ করিয়াছে” (যোহন ১৫:১৮)|

এই পদে, আমরা দেখি যে এই জগতের হারানো লোকেরা হয় তিক্তভাবে খ্রীষ্টকে ঘৃণা করেন, অথবা তারা তাদের মুখকে তাঁর থেকে লুকিয়ে রাখেন এবং তাঁর বিষয়ে কিছুই চিন্তা করেন না|

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করে” (যিশাইয় ৫৩:৩)|

লোকেরা বিভিন্ন উপায়ে যীশুর থেকে নিজেদের মুখকে আচ্ছাদন করেন| এখানে সেই উপায়গুলির তিনটির বিষয়ে বলা হল|

১| প্রথম, সেখানে যারা সম্পূর্ণ ঘৃণায় খ্রীষ্ট থেকে তাদের মুখকে আচ্ছাদন করে |

আমি পাষ্টার উমব্রান্ডের, খ্রীষ্টের জন্য তাড়না নামের বইটি পড়ছিলাম| আমি প্রত্যেক বছর এটা পড়ি| সেইসব কম্যুনিষ্ট যারা খ্রীষ্টকে ঘৃণা করেন তাদের কাছ থেকে পাষ্টার উমব্রান্ড যে আতঙ্কজনক অবস্থার মধ্যে দিয়ে গিয়েছিলেন তার কথা বলেছেন| তিনি বলেছেন,

         অসহ্য যন্ত্রনা ও পশুবৎ অত্যাচার বিরামহীনভাবে ক্রমাগত চলিতে থাকিত| যখন আমি জ্ঞান হারাইয়া ফেলিতাম অথবা অসহ্য যন্ত্রনায় আমি যখন হতবুদ্ধি হইয়া পড়িতাম তখন অধিকতর স্বীকারোক্তি পাইবার আশায়, আমাকে আমার কারাকক্ষে ফিরাইয়া আনা হইত| সেইস্থানে আমি পরিচর্য্যাহীন এবং মৃত অবস্থায় পড়িয়া থাকিতাম, কিছু শক্তি অর্জনের জন্য, যাহাতে তাহারা আমার প্রতি পুনরায় তাহাদের কার্য্য শুরু করিতে পারে| অনেকেই এই অবস্থায় মারা যাইত…আসন্ন বৎসরগুলিতে, বিভিন্ন পৃথক কারাগারে, তাহারা আমার মেরুদন্ডের চারটি অস্থিসন্ধি, এবং আরও অনেক অস্থি ভাঙ্গিয়া দিয়াছিল| তাহারা আমার শরীরের বারোটি জায়্গায় খন্ড খন্ড করিয়া কাটিয়া দিয়াছিল| তাহারা পুড়াইয়া ও কাটিয়া আমার শরীরে আঠারোটি গর্ত করিয়া দিয়াছিল…
         সপ্তাহের পর সপ্তাহ্, মাসের পর মাস, বৎসরের পর বৎসর ধরিয়া – প্রত্যেক দিন সতেরো ঘন্টা করিয়া আমাদের বসিয়া থাকিতে হইত – শুনিতে হইত

         কম্যুনিজম্ হইতেছে ভাল!
         কম্যুনিজম্ হইতেছে ভাল!
         কম্যুনিজম্ হইতেছে ভাল!
         খ্রীষ্টধর্ম্ম হইল অর্থহীন!
         খ্রীষ্টধর্ম্ম হইল অর্থহীন!
         খ্রীষ্টধর্ম্ম হইল অর্থহীন!
         ছাড়িয়া দাও!
         ছাড়িয়া দাও!
         ছাড়িয়া দাও!

(Richard Wurmbrand, Th.D., Tortured for Christ, Living Sacrifice Books, 1998 edition, pp. 38, 39)|

তিনি মোটেই অতিরঞ্জিত করেন নি| আমি তাকে খুব ভাল করেই জানি|

খ্রীষ্ট সাংঘাতিকভাবে কম্যুনিষ্ট এবং অন্যান্য সমাজতান্ত্রিকদের দ্বারা ঘৃণিত হয়েছিলেন| আমরা দেখছি যে বর্তমানে সমাজতন্ত্রীদের কাছ থেকে যীশু এবং তাঁর অনুসরনকারীদের বিরুদ্ধে বড়সড় আঘাত আসছে এমনকী আমেরিকাতেও - হোয়াইট হাউস থেকে শুরু করে বিদ্যালয় গৃহ সব জায়গায়| এখন উঁচু মানের অফিসের লোকেরা সম্পূর্ণ অবজ্ঞায় খ্রীষ্ট থেকে তাদের মুখকে লুকিয়ে রাখছে| যারা খ্রীষ্টের এবং তাঁর অনুসরনকারীদের মর্যাদাহীন করে তারা নিশ্চিতভাবে আমাদের এই পাঠ্যাংশকে পরিপূর্ণ করে,

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করে” (যিশাইয় ৫৩:৩)|

২| দ্বিতীয়, সেখানে গতানুগতিকতার দ্বারা তারা খ্রীষ্ট থেকে তাদের মুখ আচ্ছাদিত করে |

নিশ্চিতভাবে সেটা আজ সকালে এখানে আপনাদের মধ্যের কাউকে বর্ণনা করে! আপনি কখনও চিন্তা করেন না একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসীকে আঘাত করার কথা, বা এই বলে চিৎকার করার কথা যে “খ্রীষ্টধর্ম্ম অর্থহীন|” আপনি আতঙ্কে সংকুচিত হয়ে যাবেন যখন আমি আপনাদের বলব যে ঐ সব কম্যুনিষ্টরা পাষ্টার উমব্রান্ডের সঙ্গে কি করেছিলেন| আপনি বলবেন, “আমি কখনও এইরকম করব না!” আমি আপনাদের বিশ্বাস করি| আমি মনে করি না যে আপনি কখনও যীশুকে আক্রমন করবেন সেই পশুবৎ কম্যুনিষ্ট অত্যাচারীদের একজনের মতন| এবং যদিও…! এবং যদিও…! আপনি অবশ্যই আপনার যীশুর প্রতি শান্ত গতানুগতিকতায় আমাদের পাঠ্যাংশ সম্পূর্ণ করবেন,

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করে” (যিশাইয় ৫৩:৩)|

আপনি মন্ডলীতে আসুন ও শুধু এখানে বসে থাকুন| আমি যখন যীশুর বিষয়ে বলব তখন আপনার চোখ চক্চক্ করে উঠবে| আপনাদের মধ্যে কেউ কেউ এমনকী চোখ বন্ধ করে ফেলবেন| আপনাদের মধ্যে অন্য কেউ হৃদ্পিন্ড স্তব্ধ করে দেবেন| শান্ত গতানুগতিকতার সঙ্গে আপনি আপনার মুখ যীশুর থেকে আচ্ছাদিত করবেন|

আপনি কি জানেন যে একজন প্রচারকও এই রকম করতে পারেন? যখন আমি সানফ্রান্সিস্কোর উত্তরদিকে সাউদার্ন ব্যপটিষ্ট সেমিনারীতে ছিলাম, সেখানে টম ফ্রেডরিক নামের একজন ছাত্র ছিলেন| তিনি আমার বন্ধু হয়ে উঠেছিলেন| টম ছিলেন একজন প্রচারক| কিন্তু এক রবিবারে তার নিজের প্রচার তার নিজেরই হৃদয়ে সূঁচের মতন আঘাত করেছিল! তিনি এত প্রচন্ডভাবে কাঁদতে শুরু করেছিলেন যে তিনি আর প্রচার করতে পারলেন না| তিনি পুলপিট থেকে নেমে আসলেন এবং বেদীর সামনে নতজানু হলেন| সেখানে তিনি পরিত্রাতার প্রতি তার ভালবাসার অভাবের বিষয়ে বার বার অনুতাপ প্রকাশ করেছিলেন| সেখানে, তার বিস্মিত ও বিহ্বল সদস্যদের সামনে, তিনি খ্রীষ্টের থেকে তার মুখ আচ্ছাদন করা বন্ধ করেছিলেন| তিনি পরিত্রাতাকে বিশ্বাস করেছিলেন, এবং তিনি প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসীতে পরিনত হয়েছিলেন| তিনি একজন অতি নরম হৃদয়ের মানুষে পরিনত হয়েছিলেন| তিনি আমার শোবার বড় ঘরে আসলেন সেই লোকেদের সঙ্গে করে যারা আমার সঙ্গে সেখানে প্রত্যেক বৃহস্পতিবার প্রার্থনায় যোগ দিত| যে অধ্যাপকেরা বাইবেলকে আক্রমন করতেন তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াবার জন্য তিনি আমাকে সমর্থন করলেন| তিনি আমার সঙ্গে গিয়েছিলেন যখন আমরা সেমিনারীর সভাপতির দরজার সামনে দাঁড়িয়ে তার মুখোমুখি বিরোধিতা করেছিলাম| এমনকী তারা তাকে “হেইমার’র গোঁড়া অনুরাগী” বলা সত্ত্বেও তিনি আমাকে সমর্থন করেছিলেন| তিনি সাউদার্ন ব্যপটিষ্টের একজন হারানো প্রচারক হয়ে যাওয়া থেকে, একজন প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসীতে পরিনত হয়েছিলেন| তার মন পরিবর্তন ঘটেছিল যখন তিনি শান্ত গতানুগতিকতার সঙ্গে যীশুর প্রতি বিরূপ আচরণ বন্ধ করেছিলেন|

কয়েক সপ্তাহ আগে টম মারা গিয়েছেন| আমি কিছু টাকা তার স্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছিলাম| ১৯৭০ সালের প্রথমদিকে গোল্ডেন গেট ব্যপটিষ্ট থিওলজিক্যাল সেমিনারীতে বাইবেলের স্বপক্ষে মুখোমুখি সংঘাতে আমাকে সমর্থন করার জন্য এটাই ছিল আমার সামান্যতম শ্রদ্ধাযুক্ত নিবেদন| আর আমি ঈশ্বরের কাছে কৃতজ্ঞ যে টমের হৃদয় যীশুর প্রতি তিনি খুলে দিয়েছিলেন, যখন বহুদিন আগের এক রবিবারের সকালে টম তার নিজের ধর্ম্মোপদেশ প্রচার করার সময়ে পরিত্রাণ পেয়েছিলেন|

কেউ কেউ বলেন, “ডঃ হাইমার্স, আপনি চান না যে আমি টম ফ্রেডরিকের মতন হই, সত্যিই আপনি চান?” ঈশ্বর আমাকে সাহায্য করুন! আমি স্বর্গে ঈশ্বরের দূতদের সামনে আনন্দ করব যদি আপনি টম যেমন ছিলেন তার এমনকী অর্দ্ধেকটার মতন মানুষও হতে পারেন! আপনাদের মধ্যে কিছু যুবক আছেন যারা সপ্তাহের পর সপ্তাহ ধরে এখানে নির্বিকার, অজাগরিত, এবং গতানুগতিকভাবে বসে আছেন – আমি ঈশ্বরের কাছে ইচ্ছা প্রকাশ করি যে আপনারা সামান্যতম হলেও টমের মতন হন!

এখন, এইভাবে ভাবুন – যদি আপনি ১৯৭১ বা ১৯৭২ সালে গোল্ডেন গেট সেমিনারীতে থাকতেন তবে কী হত? কি হত যদি আপনি সেখানে অন্য কোন মন্ডলী থেকে আসতেন, বা যদি আমি আপনার পালক না হতাম? এখন চিন্তা করুন! যখন আমি সেইসব অধ্যাপকদের মুখোমুখি বিরোধীতা করেছিলাম যারা বাইবেলকে আক্রমন করেছিলেন তখন কি আপনি আমাকে সমর্থন জানাতেন? এখন ভাবুন! আপনি কি আমাকে সমর্থন করতেন? অথবা আপনি “শান্তভাবে” বিষয়টিকে গ্রহণ করতেন আর বিতর্ক থেকে দূরে সরে থাকতেন? চিন্তা করুন!

এখন, আপনি যদি নিজের প্রতি সৎ হন, আপনাদের মধ্যে কেউ কেউ একথা স্বীকার করবেন যে আপনি শান্ত এবং দূরে চলে গেছেন| তা সত্ত্বেও, আপনি চাইবেন আপনার ডিগ্রী, এবং “হেইমারস্’র একজন অনুসরনকারীর” তকমা ছাড়া এখান থেকে বেরিয়ে আসতে, চাইবেন না কী? যে পথে আপনি এখন আছেন সেখান থেকে আপনি হঠাৎ করে পরিবর্তিত হতে পারবেন না, এবং খ্রীষ্টের প্রতি একান্ত অনুরক্ত হতে পারবেন না, আপনি পারবেন কী? চিন্তা করুন! আমি বিশ্বাস করি যে আপনাদের মধ্যে যারা বাইরে এবং ভিতরে এলোমেলোভাবে অনুসন্ধান ঘরে রয়েছেন, তারা ঐ উদারপন্থী সেমিনারীতে আমার পক্ষ অবলম্বন করতেন না| না, আপনি বর্তমানে যেমন শান্ত এবং গতানুগতিক আছেন ঠিক তেমনই থাকতেন! আপনাকে তাদের সঙ্গেই যোগ দিতে হত যারা বলেন,

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করে” (যিশাইয় ৫৩:৩)|

৩| তৃতীয়, সেখানে তারা তাদের মুখ অবহেলায় খ্রীষ্ট থেকে আচ্ছাদিত করে |

আপনি দীর্ঘ সময় ধরে আপনার মুখকে যীশু থেকে আচ্ছাদিত করে রেখেছেন| আমি যীশুর বিষয়ে প্রচার করি বা না করি সেই বিষয়ে আপনি কোন ভ্র্ক্ষেপ করেন না| যদি আমি এখন মনোবিদ্যার বিষয়ে বলি তবে আপনি চেয়ারে সোজা হয়ে বসবেন এবং মনোযোগ দিয়ে শুনবেন| যদি আমি রাজনীতির বিষয়ে বলি তবে আপনি আপনার চেয়ারের সামনের দিকে এমন ঝুঁকে পরবেন যাতে আপনি সব শব্দ শুনতে পান| মাঝে মাঝে আমি ভাববাণীর উপর প্রচার করি, তখন আপনি আপনার পূর্ণ মনোযোগ প্রচারের প্রতি দেন| কয়েক সপ্তাহ আগে আমি যখন স্বর্গের বিষয়ে বলেছিলাম, তখন আপনারা সকলে পূর্ণ মনোযোগের সঙ্গে সেটা শুনেছিলেন, কারন সেটা আপনাদের কাছে নতুন এক বিষয় ছিল| কিন্তু যখন আমি সুসমাচারের প্রতি ফিরে আসি, তখন আপনাদের চোখ চক্চক্ করে ওঠে| যখন আমি যীশুর বিষয়ে প্রচার করি তখন আপনারা সব আগ্রহ বা কৌতূহল হারিয়ে ফেলেন! আপনি আগ্রহ ফেলেন না কী? আগ্রহ ফেলেন না কী?

আপনার মতন যুবক ব্যক্তিরা কলেজে অধ্যয়ণের জন্য অনেক সময় ও কর্মশক্তি ব্যয় করেন| আপনারা ঘন্টার পর ঘন্টা অধ্যয়ণ করেন যাতে শ্রেনীতে ভাল ফল করতে পারেন| আপনি পড়াশোনা করার জন্য সকাল সকাল উঠে পড়েন| আপনি অনেকক্ষণ পর্যন্ত্য পড়াশোনা করেন| আপনি এইরকম করার জন্য আমি খুশী হচ্ছি কারন আপনি যদি এখন বিদ্যালয়ে ভাল ফল না করেন তবে আপনি আপনার পেশার ক্ষেত্রেও ভাল ফল করতে পারবেন না| বিদ্যালয়ে কঠোর অধ্যয়ণ করার জন্য আমি আপনাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি| কিন্তু আপনি কখনো প্রথাগত বাইবেল অধ্যয়ণের জন্য অথবা এই প্রচার, যেগুলি ছাপিয়ে আপনাকে প্রতি রবিবারে দেওয়া হয়ে থাকে, অধ্যয়ণের জন্য এক ঘন্টার পর আর স্থির থাকেননি| এমনকী আপনি কখনো চিন্তা করেননি যে খ্রীষ্টের বিষয়ে অধ্যয়ণ করার জন্য এক ঘন্টা আগে উঠব, যিনি আপনার পাপপূর্ণ আত্মার পরিত্রাণের জন্য মৃত্যুবরণ করেছেন| আপনার কাছে মনে হয় জগতের আর সমস্ত জিনিষ বেশী গুরুত্বপূর্ণ খ্রীষ্টের তুলনায়, যিনি আপনাকে ভালবাসেন এবং যিনি আপনার জন্য স্বর্গে প্রার্থনা করছেন|

এমনকী এই মন্ডলীতে, যখন আমি যিশুর বিষয়ে প্রচার করি, তখনও আপনি আপনার মনকে উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘুরে বেড়াতে দেন সেই সব বিষয়ের প্রতি যেগুলি মনে হয় আপনার কাছে তাঁর চাইতে বেশী গুরুত্বপূর্ণ| আর যখন আপনি অনুসন্ধান ঘরে আসেন, তখনও আমি আপনাকে যীশুর বিষয়ে কোন কথা বলতে শুনি না| আপনি আপনার নিজের বিষয়ে কথা বলেন, কিন্তু আমি আপনাকে যীশুর বিষয়ে কথা বলতে শুনি না| আমি মাঝে মাঝে আপনাকে তত্ত্ব এবং বাইবেলের পদের বিষয়ে বলতে শুনি, কিন্তু যীশুর নিজের বিষয়ে আপনাকে কথা বলতে আমি শুনি না! তিনি আপনার চিন্তার মধ্যে নেই| বেশীর ভাগ সময়েই আপনি শুধু যা অনুভব করেন – বা করেন না সেই বিষয়েই কথা বলেন! আপনি নিজের নিশ্চয়তা প্রদান করার জন্য এক অনুভূতির অনুসন্ধান করেন, কিন্তু যীশুর অনুসন্ধান করেন না| আপনি আপনার নিশ্চয়তার অভাবের কথা বলেন, কিন্তু আপনি পরিত্রাতার বিষয়ে কথা বলেন না, যিনি হলেন একমাত্র ব্যক্তি যিনি আপনার পরিত্রাণের নিশ্চয়তা দিতে পারেন! আপনাদের মধ্যে কেউ কেউ চিন্তা করেন যে, “আমার ভগ্ন হৃদয় নাই|” আমি আপনাদের বলছি, “ভগ্ন হৃদয়ের দিকে দেখবেন না, যীশুর দিকে দেখুন!” কিন্তু যখন আমি তাঁর নাম উল্লেখ করি আপনার চোখদু’টি জ্বলজ্বল করে ওঠে, আর আপনি চিন্তা করেন, “আমার গভীর অনুভূতির প্রয়োজন আছে| আমার এই অনুভূতির প্রয়োজন যে আমি পরিত্রাত!” আমি বলি যে, “না, আপনাদের সকলের প্রয়োজন যীশুকে|” কিন্তু যখন আমি তাঁর নাম উল্লেখ করি আপনারা সবাই তৎক্ষনাৎ আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন| আমি বলি, “এখন যীশুর দিকে দেখুন, আপনার জন্য ক্রুশের উপরে রক্তমোক্ষনরত|” কিন্তু আপনি ফিরে তাকাচ্ছেন সেই নিজের দিকেই| আপনি নিজের ভিতরের এক অনুভূতিকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন! আমি আপনার দৃষ্টিকে আপনার নিজের দিক থেকে সরিয়ে যীশুর দিকে নিয়ে যাওয়াতে পারছি না! আমি উদ্ধৃত করছি সেই ভাববাদীকে যিনি বলেছিলেন, “সদাপ্রভুর অন্বেষণ কর যাবৎ তাঁহাকে পাওয়া যায়, তাঁহাকে ডাক যাবৎ তিনি নিকটে থাকেন” (যিশাইয় ৫৫:৬)| কিন্তু আপনি আপনার অনুভূতির অথবা আবেগের অন্বেষণ করছেন যীশুর অন্বেষন করার ছেড়ে দিয়ে, যিনি আপনাকে এতটা ভালবাসেন!

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করেন” (যিশাইয় ৫৩:৩)|

আমি আপনাদের বলব যে আপনি আপনার মুখকে যীশুর দিক থেকে ফিরিয়ে নেওয়া বন্ধ করুন| যে মূহুর্তে আপনি যীশুর প্রতি ফিরবেন, তিনি নিজে আপনাকে উদ্ধার করবেন| আপনি সম্ভবতঃ পরিত্রাত হয়েছেন তা “অনুভব” করবেন না| সেই দিনটি যেদিন আমি যীশুর দ্বারা পরিত্রাণ পেয়েছিলাম, আমি “অনুভব” করিনি যে আমি পরিত্রাণ পেয়েছি| এমনকী বেশ কয়েক মাস অতিক্রান্ত হওয়ার পরেও আমি জানতাম না যে আমি সেই দিনটিতেই পরিত্রাণ পেয়েছিলাম| আমি শুধু সেই দিনটিতে জেনেছিলাম যীশুকে! আমি তাঁর উপর আগেই বিশ্বাস করেছিলাম, কিন্তু সেই দিনটিতে – আমি শুধু বলতে পারি যে – যীশু সেখানে ছিলেন! এটা ছিল খুবই প্রাথমিক এক বিশ্বাস, কিন্তু সেটা ছিল যীশুর উপরে বিশ্বাস, খুব সরল, খুব প্রারম্ভিক – কিন্তু ইনি ছিলেন যীশু!

পাষ্টার উমব্রান্ড যখন প্রচারের জন্য কারাগারে ছিলেন তিনি অনেক লোককে খ্রীষ্টের জন্য কম্যুনিষ্টদের দ্বারা অসহ্য যন্ত্রনা ভোগ করতে দেখেছিলেন| তিনি এটাও দেখেছিলেন যে অনেক কারাবন্দী, এবং এমনকী কম্যুনিষ্ট রক্ষীরাও, যীশুতে বিশ্বাস করত| পাষ্টার উমব্রান্ড বলেছিলেন,

কোনসময়ে একজন বিশ্বাসে পৌঁছাইয়াছিল – যদিও খুব প্রারম্ভিক বিশ্বাস – এই বিশ্বাস বৃদ্ধি পাইয়া থাকে এবং সম্প্রসারিত হয়| আমরা নিশ্চিত যে ইহা জয়ী হইবে কারন উমব্রান্ড মন্ডলীর সদস্য হিসাবে আমরা পুনঃ পুনঃ দেখিয়াছি যে ইহা জয়ী হইয়াছে| কম্যুনিষ্ট এবং অন্যান্য “বিশ্বাসের শত্রু”গণকে খ্রীষ্ট ভালবাসেন| তাহারা খ্রীষ্টের জন্য পারিবেন এবং অবশ্যই জয়ী হইবেন (Wurmbrand, ibid., p. 115)|

সেই দস্যু যে ক্রুশের উপর যীশুর পাশে মারা গিয়েছিল সে পৃথিবী ছেড়ে চলে যাওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই পরিত্রাণ পেয়েছিল| সে খুব কমই জানত| পাষ্টার উমব্রাণ্ডের শব্দ ব্যবহারের পক্ষে, তার বিশ্বাস ছিল খুবই “প্রারম্ভিক|” কিন্তু যে মূহুর্তে সে তার হৃদয়ে যীশুকে বিশ্বাস করেছিল সে পরিত্রাণ পেয়েছিল| আর সেই পরিত্রাতা তাকে বললেন, “অদ্যই তুমি পরমদেশে আমার সহিত উপস্থিত হইবে” (লূক ২৩:৪৩)| আমার কাছে এটা মনে হয় যে আজ সকালে সম্ভবতঃ কেউ একজন এখানে আছেন যিনি অন্ততঃ যীশুতে বিশ্বাস করতে পারেন সেইভাবে যেমনভাবে সেই দস্যুটি বিশ্বাস করেছিল| এটা হতে পারে খুব সাধারন, “প্রারম্ভিক” বিশ্বাস, কিন্তু আপনি যদি যীশুতে খুব অল্প পরিমানে বিশ্বাস করে থাকেন, কোন প্রমাণের জন্য নিজের দিকে না তাকিয়ে, শুধুমাত্র যীশুতে বিশ্বাস করে এবং সেভাবেই, কোন রকম আত্মবিশ্লেষণ ছাড়া সেখানেই সেই অবস্থাতেই শেষ অবধি থাকেন, তবে যীশু আপনাকে উদ্ধার করবেন| যীশুর প্রতি সরল, দূর্বল, “প্রারম্ভিক,” শিশু-সুলভ বিশ্বাস – এইগুলিই কেবল আপনার দরকার| এমনকী একবারের জন্যও আপনি আপনার নিজের দিকে তাকাবেন না| এমনকী একবারের জন্যও কোনরকম অনুভূতির দিকে দেখবেন না| সরলভাবে শুধু যীশুর দিকে দেখুন এবং সেই অবস্থাতেই থাকুন| অন্য কোন কিছুর সঙ্গে এটা মিলিয়ে ফেলবেন না| এটা পরীক্ষা করে দেখতে যাবেন না| এটা বিশ্লেষণ করবেন না| কেবলমাত্র যীশুতে বিশ্বাস করুন আর সেই অবস্থাতেই একে ছেড়ে দিন| অবশিষ্ট সব কিছু যীশু নিজেই করবেন| এমনকী আপনি যখন ঘুমিয়ে থাকেন, তখনও যীশুতে বিশ্বাসের এই বীজ বৃদ্ধি পাবে| কিন্তু আপনাকে অবশ্যই যীশুতে বিশ্বাস করতে হবে – খুব স্বল্পভাবে, খুব সরলভাবে, যুক্তিসঙ্গতভাবে, এবং খুব প্রারম্ভিকভাবে| আপনি সেইটুকুই যীশুতে বিশ্বাস করতে পারেন| আপনি তাঁর কাছে যেতে পারেন, এবং আপনার নিজস্ব অনুভূতির নিশ্চয়তা পরীক্ষা করে দেখা ছাড়াই, সেই অবস্থায় ছেড়ে দিতে পারেন| যীশুর সঙ্গে সেটা ছাড়ুন| তখন, এমনকী যখন আপনি রাত্রে ঘুমান, এই বিশ্বাসের বীজ, যেমন পাষ্টার উমব্রান্ড বলেছেন, “সম্প্রসারিত হয় ও বৃদ্ধি পায়|” আপনার সর্বসাকুল্যে প্রয়োজন হল যীশুতে এক খুবই দূর্বল, প্রারম্ভিক এবং তরঙ্গায়িত বিশ্বাস! মিঃ গ্রিফিত যে গানটি গাইলেন সেটি আবার শুনুন| কোনরকম অনুভূতি ছাড়াই, যীশুতে সরল, প্রারম্ভিক বিশ্বাসের কথা এর মধ্যে দিয়ে বলা হচ্ছে!

আমার আত্মা হয় অন্ধকার, আমার হৃদয় হয় কঠিন –
   আমি দেখতে পারি না, আমি অনুভব করতে পারি না;
আলোর জন্য, জীবনের জন্য, আমি অবশ্যই আবেদন করি
   যীশুর প্রতি সহজ সরল বিশ্বাসে|
(“In Jesus” by James Procter, 1913).

আপনি যদি চান আমরা আপনার সাথে প্রার্থনা করব| প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হওয়ার জন্য আমরা আপনাকে সাহায্য করতে চাই| শুধু নিজের আসন ছেড়ে উঠুন এবং এখনি অডিটোরিয়ামের পিছনে চলে যান| ডঃ কাগন আপনাকে প্রার্থনার জন্য এক নির্জন জায়্গায় নিয়ে যাবেন| আপনি যান আর ততক্ষন আমি সেই গানটি আবার গাই|

সহস্র উপায়ের চেষ্টায় আমি ব্যর্থ
   আমার ভয় চূর্ণ হয়েছে, আমার আশা জাগ্রত হয়েছে;
কিন্তু আমার যা প্রয়োজন, বাইবেল বলে,
   তা চিরকালের, শুধু যীশু|

আমার আত্মা হয় অন্ধকার, আমার হৃদয় হয় কঠিন –
   আমি দেখতে পারি না, আমি অনুভব করতে পারি না;
আলোর জন্য, জীবনের জন্য, আমি অবশ্যই আবেদন করি
   যীশুর প্রতি সহজ সরল বিশ্বাসে|
(“In Jesus” by James Procter, 1913).

ডঃ চ্যান, অনুগ্রহ করে আসুন এবং যারা সাড়া দিয়েছেন তাদের জন্য প্রার্থনা করুন| আমেন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডাঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে
www.realconversion.com এই সাইটে পড়তে পারেন। ক্লিক করুন “সংবাদের হস্তলিপি”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মিঃ আবেল প্রধুম্মে: লূক ২৩:৩৯-৪৩ |
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
“In Jesus” (by James Procter, 1913).


খসড়া চিত্র

যীশুতে সরল বিশ্বাস

(যিশাইয় ৫৩ অধ্যায়ের উপর উদ্দীপনার পঞ্চদশ প্রচার)

লেখক : ডঃ আর এল হাইমার্স, জুনিয়র।

“লোকে যাহা হইতে মুখ আচ্ছাদন করে” (যিশাইয় ৫৩:৩)|

(যিশাইয় ৪৯:৭; যোহন ১৫:১৮)

১| প্রথম, সেখানে যারা সম্পূর্ণ ঘৃণায় খ্রীষ্ট থেকে তাদের মুখকে আচ্ছাদন করে,
যিশাইয় ৫৩:৩ |

২| দ্বিতীয়, সেখানে গতানুগতিকতার দ্বারা তারা খ্রীষ্ট থেকে তাদের মুখ আচ্ছাদিত করে, যিশাইয় ৫৩:৩ |

৩| তৃতীয়, সেখানে তারা তাদের মুখ অবহেলায় খ্রীষ্ট থেকে আচ্ছাদিত করে,
যিশাইয় ৫৫:৬; ৫৩:৩; লূক ২৩:৪৩ |