Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 34টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




এখন আপনাদের পরীক্ষা করুন !

EXAMINE YOURSELVES NOW!
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর. এল. হেইমার্স, জুনিয়র
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

2017 সালের, 5ই ফেব্রুয়ারী, প্রভুর দিনের সকালবেলায় লস্ এঞ্জেল্সের
ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাক্ল মন্ডলীতে এই ধর্ম্মোপদেশটি প্রচারিত হয়েছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord's Day Morning, February 5, 2017

‘‘আপনাদের পরীক্ষা করিয়া দেখ, তোমরা বিশ্বাসে আছ কি না; প্রমাণার্থে আপনাদেরই পরীক্ষা কর| অথবা তোমরা কি আপনাদের সম্বন্ধে জান না যে, যীশু খ্রীষ্ট তোমাদিগেতে আছেন? অবশ্য যদি তোমরা অপ্রামাণিক না হও’’ (II করিন্থীয় 13:5)|


প্রেরিত পৌলের বিরুদ্ধে আক্রমণ চালাতে একদল লোক করিন্থীয় মন্ডলীতে উপস্থিত হয়েছিলেন| পৌল এর আগে যাদের কথা বলেছিলেন তারা ছিলেন সেই একই অপরিত্রাণপ্রাপ্ত লোক| তারা বলেছিলেন পৌল দুর্বলচিত্ত এবং সত্যিকারের প্রেরিত নন| তারা খানিকটা সেই সমস্ত লোকদের মতন যারা আমাদের মন্ডলীতেও ছিলেন - সেই সব লোক যারা মন্ডলী বিভাজনে আমাকে আক্রমণ করেছিলেন| লস্ এঞ্জেল্সের নগর সভ্যতার কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্থিত এই বিখ্যাত মন্ডলীকে রক্ষা করতে আমাদের দিয়াবলের সঙ্গে যুদ্ধ করতে হয়েছিল| এই বদমায়েশ লোকদের কেউ কেউ বলেছিলেন যে পৌল প্রকৃত প্রেরিত ছিলেন না| সেই কারণে পৌল তাদের বলেছিলেন ‘‘আপনাদের পরীক্ষা করিয়া দেখ, তাহারা বিশ্বাসে আছে কি না|’’ এই পদটি এইভাবে অনুবাদিত হতে পারত, ‘‘নিজেরা বিশ্বাসে আছ কি না তা দেখতে নিজেদের পরীক্ষা কর|’’ পৌল তাদের নিজেদের হৃদয় এবং নিজেদের জীবনের প্রতি তাকিয়ে তারা প্রকৃতভাবে পরিত্রাণ পেয়েছেন কিনা তা দেখতে বলেছিলেন| ‘‘বিশ্বাসে আছে’’ এর মানে হল প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হওয়া| সেই সব লোকেরা পৌলকে আক্রমণ করেছিলেন, ঠিক যেমন যারা আমাদের মন্ডলী ত্যাগ করেছিলেন তারা আমাকে আক্রমণ করেছিলেন| এখন তাদের অধিকাংশই আর মন্ডলীতে যায় না| বাকিরা সকলে দুর্বল নতুন সুসমাচার সংক্রান্ত মন্ডলীগুলিতে রয়েছেন| ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি তাদের মধ্যে খুব অল্প লোকই যদি থেকে থাকেন তো তারা হলেন প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসী|

‘‘আপনাদের পরীক্ষা করিয়া দেখ, তোমরা বিশ্বাসে আছ কি না; প্রমাণার্থে [অথবা পরীক্ষার্থে] আপনাদেরই পরীক্ষা করুন|’’

প্রেরিত পৌল আপনাকে বলছেন নিজেকে পরীক্ষা করে দেখতে| তিনি নিজেকে পরীক্ষা করে দেখতে বলেছিলেন যে আপনার খ্রীষ্টে পরিত্রাণের বিশ্বাস আছে কি না| যদি আপনি এখন নিজেকে পরীক্ষা না করেন তাহলে শেষ বিচারের দিনে ঈশ্বর আপনাকে পরীক্ষা করবেন| যে সব পাপ আপনি করেছেন তার প্রত্যেকটি ঈশ্বর দেখতে পান| আপনার অন্তরের প্রত্যেকটি পাপ এবং আপনার করা প্রত্যেকটি পাপ তিনি লিখে রেখেছেন| তিনি তাঁর বই থেকে আপনার করা পাপগুলি পড়বেন| যখন আপনি মারা যাবেন আপনার আত্মা ঈশ্বরের সামনে দাঁড়াবে এবং বিবেচিত হবে| আপনাকে অবশ্যই এখন নিজের পাপগুলিকে পরীক্ষা করে দেখতে হবে, নাহলে ঈশ্বর সেগুলি পরীক্ষা করবেন আর তার জন্যে আপনার বিচার করবেন, এবং আপনি ‘‘অগ্নিহ্রদে নিক্ষিপ্ত হইবেন’’ (প্রকাশিত বাক্য 20:15)| মারা যাওয়ার আগে, এখন আপনাকে অবশ্যই নিজের চিন্তাভাবনা, কথাবার্তা এবং বাহ্যিক পাপ পরীক্ষা করে দেখতে হবে| কারণ যখন আপনি মারা যান তখন নরকের আগুন থেকে রক্ষা পাওয়ার পক্ষে খুব দেরী হয়ে যাবে| এখন ‘‘আপনাদের পরীক্ষা করিয়া দেখ, তোমরা বিশ্বাসে আছ কি না|’’ কারণ আপনি মারা যাওয়ার পরে তখন রক্ষা পাওয়ার পক্ষে সেটা খুবই দেরী হয়ে যাবে| যদি এখনও আপনি অনুতপ্ত না হন এবং খ্রীষ্টে বিশ্বাস স্থাপন না করেন তবে আপনি ‘‘অগ্নি ও গন্ধকে যাতনা পাইবে...তাহাদের যাতনার ধূম যুগপর্য্যায়ের যুগে যুগে উঠে: তাহারা দিবাতে কি রাত্রিতে কখনও বিশ্রাম পায় না’’ (প্রকাশিত বাক্য 14:10, 11)| এই কারণে এখনই আপনি অবশ্যই নিজেকে পরীক্ষা করুন - কারণ আপনি মারা যাওয়ার পরে পরিত্রাণ পাওয়ার পক্ষে সেটা খুবই দেরী হয়ে যাবে|

আমরা যে পুরানো পথ অনুসরণ করছি তাৎক্ষণিকভাবে এটা অনুভব না করে আপনি আমাদের মন্ডলীতে ঢুকতে পারেন না| যখন আপনি আমাদের মন্ডলীতে প্রবেশ করেন প্রথমেই দেখেন কিছু ধারাবাহিক রঙিন চিত্র| তাদের মধ্যে সকলেই হলেন বহুদিন আগেকার প্রচারক - যোনাথান এডওয়ার্ড, জন ব্যানিয়ন, জর্জ হোয়াইটফিল্ড, জন ওয়েসলী, মার্টিন লুথার, স্পারজিয়ন, জেম্স হাডসন টেলার, ডঃ জন সাং, এবং পুরানো কালের অনেকে| তারপরে যা দেখবেন তা হলো আমাদের মন্ডলীর প্রত্যেকে স্যুট এবং টাই পড়ে মন্ডলীতে এসেছেন| এটা দরকার| যদি তাদের টাই এবং সাদা সার্ট না থাকে তাহলে আমরা সেগুলি ধার হিসাবে তাদের দিয়ে থাকি| যদি তারা সেগুলি নিতে অস্বীকার করেন, তাহলে তাদের প্রবেশাধিকার দেওয়া হয়না| রূঢ় মনে হচ্ছে? সম্ভবত, কিন্তু এটাই হচ্ছে পুরানো প্রথা এবং আমরা তা পরিবর্তন করতে যাচ্ছি না| মহিলাদের অবশ্যই শালীন পোষাকে থাকতে হবে| সেটাই হচ্ছে প্রাচীন পথ, এবং এটাই সঠিক পথ| যেমন ডঃ টোজার বলেছিলেন, ‘‘প্রাচীন পথই সঠিক পথ|’’ যখন আপনি অডিটোরিয়ামে প্রবেশ করেন তখন শোনেন যে সেখানে পিয়ানো এবং অর্গ্যানে পুরানো ধাঁচের গান বাজানো হচ্ছে| সমগ্র সেবাকাজের মধ্যে কোথাও গিটার বা ড্রাম দেখা যাবেনা বা সেগুলির আওয়াজ শোনা যাবে না| আমরা যে গানগুলি গাই তা সবই সেকেলে ধাঁচের গান| সেখানে কোন আধুনিক কোরাস গান করা হয় না| একমাত্র ‘‘বিশেষ সঙ্গীত’’ হলো একটি একক সঙ্গীত, যা আমাদের বয়োজ্যেষ্ঠ ডিকন, ষাট বছর বয়্সী একজন বৃদ্ধ, গেয়ে থাকেন - যিনি প্রচারের আগে সেকেলে ধাঁচের একটি গান করেন| আর আমরা সবসময়ে পুরানো কিং জেম্স বাইবেল থেকে প্রচার করি|

কেউ হয়তো বলেন, ‘‘আপনাদের অবশ্যই বৃদ্ধ লোকদের দ্বারা পূর্ণ একটি মন্ডলী থাকা দরকার!’’ না, আমাদের তার দরকার নেই! আমাদের লোকদের অধিকাংশেরই বয়স ত্রিশ বছরের কম! আর তাদের মধ্যে প্রায় শতকরা পঁচিশ ভাগ হলেন কলেজ-বয়সী অথবা হাই স্কুল বয়সী যুবক| তাদের খুব কম সংখ্যক যুবক অন্য যে কোন মন্ডলীতে পালিত হয়েছেন| ক্রমাগত সক্রিয় সুসমাচার প্রচারের দ্বারা অনতিদূরে অবস্থিত কলেজ এবং হাই স্কুল থেকে তাদের বেশির ভাগকেই মন্ডলীতে নিয়ে আসা হয়েছে|

আমরা প্রতিটি কাজ করি, আমরা আধুনিকতাবাদী
      মন্ডলীগুলিকে প্রতিদ্বন্দীতায় আহ্বান
      করাতে বিশ্বাস করি| আমরা ভিন্নভাবে চিন্তা
      করাতে বিশ্বাস করি|
তাদের তুলনায় শ্রেষ্ঠতর খ্রীষ্ট বিশ্বাসী তৈরী
করার দ্বারা আমরা সেই সব মন্ডলীকে
            প্রতিদ্বন্দীতায় আহ্বান করি|
এবং আমরা প্রকৃতই তাদের তুলনায় শ্রেষ্ঠতর
      খ্রীষ্ট বিশ্বাসী তৈরী করি!
      আপনি কি তাদের একজন হতে চান?
(Paraphrased from Start With Why, by Simon Sinek, p. 41) |

মাত্র কয়েক মাসের জন্য এখানে আসুন, আর একটি প্রকৃত মন পরিবর্তনের অভিজ্ঞতা লাভ করুন এবং আপনি যে কোন ‘‘আধুনিকায়িত’’ মন্ডলীর উৎপাদিত খ্রীষ্ট বিশ্বাসীর তুলনায় শ্রেষ্ঠতর খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হবেন! আপনি হবেন যে কারোর জানা খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ!

বর্তমানে খুব কম সংখ্যক মন্ডলী রয়েছে যারা প্রাচীন পথ অনুসরণ করে| খ্রীষ্ট এবং প্রেরিতদের দ্বারা প্রদত্ত শিক্ষানুসারে প্রাচীন পথ তারা অনুসরণ করেন না| তারা 18 অথবা 19তম শতাব্দীর সংস্কারকদের, বা পিউরিটানদের, অথবা সুসমাচার সংক্রান্ত প্রচারকদের দেখানো প্রাচীন পথে প্রচার করেন না| তারা নতুন পথে চলেন, সেই ভ্রান্ত পথে যা শুরু হয়েছিল বিরুদ্ধ মতাবলম্বী চার্লস ফিনির পেলেজিয়ান মতবাদ থেকে - চলেন সেই পথে যা আমাদের সময়ে উৎপন্ন করেছে এক অদ্ভূত সিদ্ধান্তবাদী গোষ্ঠী, যাতে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে নব্য-সুসমাচারসংক্রান্তরা, ক্যারিস্‌মেটিকেরা, এন্টিনোমিয়ান বাইবেল শিক্ষার্থীরা এবং নিও-ক্যালভিনিষ্টরা (যারা ক্যালভিনিষ্টি মতবাদের কথা বলে, কিন্তু তাদের শ্রোতাদের মন অন্বেষণ করেন না যেমন যোনাথান এডওয়ার্ড, জর্জ হোয়াইটফিল্ড, স্পারজিয়ন এবং ডঃ লয়েড-জোন্‌স করেছিলেন)| ফিনির এই সমস্ত ফলের ব্যাখ্যা দিয়ে আমি আপনাদের সময় নষ্ট করতে চাই না| আমি খুব সরলভাবে বলছি যে আমরা তাদের সবাইকে একটি দলে ফেলতে পারি যাকে বলা যায় নব্য-সুসমাচার সংক্রান্ত প্রচারক| তারা নিজেদেরকে ‘‘নব্য-সুসমাচার প্রচারক’’ বলে থাকেন! এবং তারা ঠিক বলেন, কারণ তারা যা শিক্ষা দেন তা সবই নতুন| আমি বিশ্বাস করি না যে সেই মন্ডলীর প্রত্যেকেই হারিয়ে রয়েছেন| কিন্তু যারা পরিত্রাণ লাভ করেছেন তারা সকলেই কেবলমাত্র আমাদের সময়কার অবশিষ্টাংশ| আপনি যদি ‘‘প্রাচীন সুসমাচার সংক্রান্ত’’দের বিষয়ে পড়তে চান তাহলে আয়ান এইচ. ম্যুরের লেখা ‘‘প্রাচীন ইভানজেলিক্যানিজ্ম’’ এর একটি কপি কিনে নিন| আপনি এটা আমাদের বইয়ের দোকান থেকে অথবা Amazon.com থেকে অনলাইনে কিনতে পারেন| এর পিছনের মলাটে রয়েছে ডঃ এ. ডব্লিউ. টোজারের উদ্ধৃতি, ‘‘প্রাচীন ধারাই প্রকৃত ধারা এবং অন্য কোন নতুন ধারা নাই’’ - কোন নতুন ধারা নাই যা আপনাকে প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হতে সাহায্য করতে পারে| যেমন ভাববাদী যিরমিও বলেছিলেন,

‘‘কোন্‌ কোন্‌টা চিরন্তন মার্গ, তাহা জিজ্ঞাসা করিয়া বল, উত্তম পথ কোথায়? আর সেই পথে চল, তাহাতে তোমরা আপন আপন প্রাণের জন্য বিশ্রাম পাইবে’’ (যিরমিয় 6:16)|

এখন আমি চিরন্তন পথ যা পরিত্রাণ পরিচালনা করে - এবং সেই নূতন পথ যা আপনাকে অনন্ত শাস্তির দিকে পরিচালিত করে তাদের মধ্যে তুলনামূলক বৈসাদৃশ্য আলোচনা করব|

1. প্রথমত, ঈশ্বর এবং তাঁর গৌরবগাথা দিয়ে চিরন্তন পথ শুরু হয়; নূতন পথ শুরু হয় মানুষ এবং তার চাহিদা ও অনুভূতির বিষয় দিয়ে |

ওহ, সেই ‘‘নতুন পথে’’ তারাও ঈশ্বরের উল্লেখ করেন| কিন্তু তিনি শাস্ত্রের ঈশ্বর নন| তিনি বাইবেলের সেই সার্বভৌম ঈশ্বর নন| তিনি সেই ঈশ্বর নন যিনি কাদের পরিত্রাণ দেবেন আর কাদেরকে তাদের পাপের মাঝে ছেড়ে দেবেন তা মনোনীত করেন| "নুতন পথ" এর ঈশ্বর বাইবেলের ঈশ্বর নন, যার বিষয়ে প্রেরিত পৌল বলেছিলেন,

‘‘অতএব তিনি যাহাকে ইচ্ছা, তাহাকে দয়া করেন; এবং যাহাকে ইচ্ছা, তাহাকে কঠিন করেন’’ (রোমীয় 9:18)|

নতুন পথ কখনও সেই সত্যের বিষয়ে বলে না যে ঈশ্বর যাকে পরিত্রাণ দেবেন তাকেই মনোনীত করেন, এবং অবশিষ্ট প্রত্যেককে নরকে যাওয়ার জন্য ছেড়ে দেন| একজন প্রচারক ঈশ্বরের সম্পর্কে এই কথাগুলি বলেছেন বলে আপনি সর্বশেষ কবে শুনেছেন? আপনি সম্ভবত বাইবেলের প্রকৃত ঈশ্বরের বিষয়ে কখনও শোনেননি| বাইবেল তাঁকে বলে ‘‘তিনি মহান্ ও ভয়ঙ্কর ঈশ্বর’’ (দ্বিতীয় বিবরণ 7:21)| বাইবেল তাঁকে বলে ‘‘তুমি মহান্‌ ও ভয়ঙ্কর ঈশ্বর’’ (নহিমিয় 1:5) এবং আবার ঈশ্বরকে বলা হয়েছে ‘‘মহান, বিক্রান্ত ও ভয়ঙ্কর ঈশ্বর’’ (নহিমিয় 9:32)| আর আমাদের এই বলে সতর্ক করা হয়েছে যে, ‘‘জীবন্ত ঈশ্বরের হস্তে পতিত হওয়া ভয়ানক বিষয়’’ (ইব্রীয় 10:31)| ‘‘কেননা আমাদের ঈশ্বর গ্রাসকারী অগ্নিস্বরূপ’’ (ইব্রীয় 12:29)|

আপনি কি কখনও একজন পালক বা যাজককে সেই ঈশ্বরের বিষয়ে বলতে শুনেছেন - যাঁকে বাইবেলে ‘‘জীবন্ত ঈশ্বর’’ বলা হয়েছে? (ইব্রীয় 10:31)| আপনি কি কখনও কোন প্রচারককের নাম শুনেছেন যিনি বলেন উদ্ধার করার জন্য ঈশ্বর খুব কম সংখ্যক লোককে মনোনীত করেন এবং পৃথিবীতে অবশিষ্ট সকলকেই নরকে যাওয়ার জন্য ছেড়ে দেন? খ্রীষ্ট বলেছিলেন, ‘‘বাস্তবিক অনেকে আহূত, কিন্তু অল্পই মনোনীত’’ (মথি 22:14)| অথবা আপনি তাদের একজন ক্ষুদ্র গুরুত্বহীন ঈশ্বরের বিষয়ে বলতে শুনেছেন যিনি সমস্ত কিছু উদ্ধার করবেন - একজন ঈশ্বর যিনি আপনার সেবা এবং আপনার সব চাহিদা পূরণ করবেন - ভয়ঙ্কর ঈশ্বরের পরিবর্তে, যিনি সেই ‘‘জীবন্ত ঈশ্বর’’? আপনি বলছেন, ‘‘আমি আপনার সেই ভয়ঙ্কর ঈশ্বরের বিষয়ে শুনতে চাই না! আমি আর এই মন্ডলীতে ফিরে আসব না!’’ ঠিক আছে, ফিরে আসতে হবে না! ‘‘আপনার আপন ঈশ্বরে’’ বিশ্বাস বজায় রাখুন! কিন্তু মনে রাখবেন, আপনার নিজের ঈশ্বর কিন্তু সেই প্রকৃত ঈশ্বর নন| এবং আপনি কখনও পরিত্রাণ প্রাপ্ত হবেন না যদি না আপনি প্রথমে বাইবেলের ‘‘জীবন্ত ঈশ্বরে’’ বিশ্বাস রাখেন|

2. দ্বিতীয়ত, চিরন্তন পথ আপনাকে আপনার পাপের বিষয়ে ভাবতে প্রস্তুত করে, যার শাস্তি প্রকৃত ঈশ্বর নরকে দিয়ে থাকেন; যেখানে নতুন পথ আপনাকে আপনার চাহিদা ও অনুভূতির বিষয়ে ভাবতে প্রস্তুত করে |

আপনি কি কখনো শুনেছেন কোন পালক বা যাজক আপনাকে বলেছেন যে আপনি গভীরভাবে পাপপূর্ণ হয়েছিলেন? আপনার হৃদয় বিকৃত এবং দূষিত? কখনো বলেছেন যে আপনার ‘‘অন্তঃকরণ সর্ব্বাপেক্ষা বঞ্চক...এবং অপ্রতিকার্য্য’’? (যিরমিয় 17:9)| যে যদি আপনি প্রকৃতভাবে মন পরিবর্তন না করেন তাহলে আপনি ‘‘অনন্ত দন্ডে যাইবেন’’? (মথি 25:46)| অথবা আপনি ফ্যুলার সেমিনারীর রব বেলের মতন পালকের কথা শুনেছেন, যিনি বলেন প্রত্যেকেই, এমনকী হিটলারও স্বর্গে যাবেন| হ্যাঁ, তিনি এরকম বলেছিলেন! (ভালবাসা জয় করে)? যদি ফ্যুলার সেমিনারীর ভাল কিছু থেকে থাকে, তাহলে তারা তার ডিগ্রি বাতিল করবে, এবং তার টাকা তাকে ফিরিয়ে দেবে|

আপনি বলছেন, ‘‘একজন মিষ্টভাষী, নম্র পালকের দ্বারা আমি আমার চাহিদা মেটাতে চাই| আমি এই সেকেলে ঢঙের মন্ডলীতে আর ফিরে আসছি না যা খালি আমার পাপের বিরুদ্ধে প্রচার করছে আর আমাকে বলছে যে আমি নরকে যেতে চলেছি!’’ ঠিক আছে, চলে যান আর আমাদের ত্যাগ করুন| চলে যান এবং যোয়েল অস্টিনের ছোট্ট মধুর ‘‘পাপীর প্রার্থনা’’তে বিশ্বাস করুন - যার পরে তিনি তার টিভি প্রদর্শনীতে বলেন, ‘‘আমরা বিশ্বাস করি যে যদি আপনি সেই প্রার্থনা করেন, আপনি ঠিক আবার পুনর্জন্ম প্রাপ্ত হবেন|’’ চলে যান আর তাকে বিশ্বাস করুন| কিন্তু তার মতন প্রচারকদের আমি মিথ্যা ভাববাদী, মিথ্যাবাদী প্রচারক বলে থাকি যারা নিজেরাই নরকে যেতে বসেছেন! তাদের বলুন যে আমি এই কথা বলেছি, এবং পান্ডুলিপি ও ভিডিওতে এটা প্রচার করছি!

3. তৃতীয়ত, চিরন্তন পথ আপনাকে আপনার সমস্ত পাপের বিষয়ে ভাবতে প্রস্তুত করে, বিশেষ করে আপনার সমস্ত গোপন পাপ এবং আপনার অন্তঃকরণের পাপ; নতুন পথ আপনাকে নিজের সম্বন্ধে ভাল অনুভূতি পেতে প্রস্তুত করে |

যোনাথান এডওয়ার্ড (1703-1758) বলেছিলেন, ‘‘প্রকৃতিগতভাবে মানুষের [রয়েছে] কেবলমাত্র আত্মপ্রেম’’ (‘‘মানুষ অতি মন্দ এবং ক্ষতিকর এক প্রাণী’’)| আত্ম-প্রেম, কিন্তু ঈশ্বরের প্রতি প্রেম নয়| অন্য কারও প্রতি নয় কেবল নিজের প্রতি ভালবাসা - কারণ আপনি হলেন সেইরকম, যেমন যোনাথান এডওয়ার্ড বলেছিলেন, ‘‘অতি মন্দ এবং ক্ষতিকর এক প্রাণী|’’ আপনি সেইরকমের কেন হলেন? কারণ সমগ্র মানবজাতির পিতা, আদমের কাছ থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে আপনি অর্জন করেছেন এক পাপপূর্ণ স্বভাব (আদিম পাপ)! সেই কারণেই আপনি শুধু নিজেকে ভালবাসেন| ‘‘না, না!’’ কেউ একজন বলছেন, ‘‘আমি আমার স্বামীকে ভালবাসি|’’ আপনি কি তা করেন? তাহলে আপনি তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করছেন এবং দিনরাত অনবরত অভিযোগ জানাচ্ছেন কেন? আসল কথা হল এই যে আপনি শুধু আপনাকেই ভালবাসেন!

আপনি ঈশ্বরকে ভালবাসেন না, এই বিষয়ে কোন ভুল নয়| আপনি বন্ধুদের দেখতেই শুধু মন্ডলীতে আসছেন| যদি আপনার বন্ধুদের কেউ একজন মন্ডলী ত্যাগ করেন, তাহলে আপনিও তা ত্যাগ করবেন| আপনি কি ধরনের কপট এতে তার প্রমাণ পাওয়া যাবে! এতে প্রমাণিত হবে যে খ্রীষ্টকে ভালবাসা এবং তাঁকে বিশ্বাস করা সম্বন্ধে আপনি নিজেকে যাই বলে থাকুন না কেন সেটা কোন ব্যাপারই ছিল না, আপনি শুধু নিজেকেই প্রতারিত করে চলেছিলেন| সর্বক্ষণের জন্য আপনি ছিলেন একজন ভ্রান্ত খ্রীষ্ট বিশ্বাসী| একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হিসাবে আপনি নিজেকে ছদ্মবেশের আড়ালে গোপন রেখেছিলেন| আপনি কপট মৃদুহাসি এবং বন্ধুসুলভ দৃষ্টি ধরে রাখেন, কিন্তু আপনি একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসী নন| আপনি শুধু একজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসীর ছদ্মবেশে থাকেন, ঠিক যেমন হ্যালোউইনের সময়ে অনেক লোক ছদ্মবেশ ধরে থাকেন! না, আসল কথা এই যে আপনি খ্রীষ্টকে ভালবাসেন না| আপনি কেবল আপনাকেই ভালবাসেন| শুধু আপনাকে! শুধু আপনাকে! শুধু আপনাকে! বাইবেল বলছে, ‘‘শেষকালে... মনুষ্যেরা আত্মপ্রিয় হইবে’’ (II তীমথিয় 3:1, 2)| সেই কারণে আপনার বাইবেল পড়ার সময় নেই| প্রার্থনা করার সময় নেই| সুসমাচার সংক্রান্ত প্রচারের সময় নেই - কিন্তু ভিডিও গেম খেলা এবং টিভি ও অশ্লীল পর্ণোগ্রাফি দেখার জন্য, আপনার হাতে যথেষ্ট সময়, ঘন্টার পর ঘন্টা সময় রয়েছে| শনিবার বা রবিবারের রাত্রে মন্ডলীতে আসার সময় আপনার নেই - কিন্তু মুভি দেখতে যাওয়ার যথেষ্ট সময় আপনার কাছে আছে! আপনি ঐরকমের কেন? কারণ আপনি কেবলমাত্র নিজেকে ভালবাসেন! ঈশ্বরের জন্য কোন ভালবাসা নেই| যীশুর জন্য কোন ভালবাসা নেই| ভালবাসা রয়েছে শুধু নিজের জন্য| এটা স্বীকার করুন! এখনই এটা স্বীকার করুন - অথবা আপনি কখনও অনুতাপ বোধ করবেন না এবং খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করার মাধ্যমে একজন প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসীতে পরিণত হবেন না|

‘‘নতুন’’ পথটি হল চিরন্তন পথের একেবারে সম্পূর্ণ বিপরীত পথ - যা আমরা বিশ্বাস করি| ‘‘নতুন’’ পথ আপনাকে মন্ডলীর সামনে আসতে বলে এবং আপনাকে দিয়ে খুব তাড়াতাড়ি একটা পাপীর প্রার্থনা বলিয়ে নেয়| তারপরে তারা তখনই আপনাকে ব্যাপ্তিস্ম দেন! এই কথা বলার জন্যে অনেক ব্যাপটিষ্টই আমাকে ঘৃণা করবেন, কিন্তু আমাকে অবশ্যই আপনার কাছে সত্যি কথা বলতে হবে| আপনি একটি তথাকথিত "সিদ্ধান্ত" নেওয়ার ঠিক পরেই, তারা যতটা দ্রুত সম্ভব আপনাকে ব্যাপ্তিস্ম দিচ্ছেন| তারা ঠিক তক্ষুনি কেন আপনাকে ব্যাপ্তিস্ম দিচ্ছেন, প্রায় দেখা যায় সেই একই সভাতে? যীশুকে ভালবাসার কারণে তারা এইরকম করছেন না! বাইবেলে বিশ্বাস রাখার কারণে তারা এইরকম করেন না! তারা এইরকম করেন কারণ তারা শুধু ভালবাসেন নিজেদেরকে! তারা আপনার বিষয়ে মোটেও যত্নশীল নন| ব্যাপ্তিস্ম দেওয়ার কত বেশি রিপোর্ট তারা দিতে পারেন সেই ব্যাপারেই তারা যত্নশীল| আমি মনে করি জেনেশুনে এইরকম করেন যেসব পালকেরা তারা নিজেদের এক্ষা করতে পারেন না! তাদের বলুন যে আমি এই কথা বলেছি, এবং পান্ডুলিপি ও ভিডিওতে এটা প্রচার করছি!

আপনি বলছেন, ‘‘আমি সেটা পছন্দ করছি না| আমি পছন্দ করছি না আপনি আমাকে বলেন যে ঈশ্বরের প্রতি আমার ভালবাসা নেই| আমি পছন্দ করছি না আপনি আমাকে বলেন যে আমি শুধু নিজেকেই ভালবাসি| আমি আর এই মন্ডলীতে ফিরে আসছি না!’’ ঠিক আছে, ফিরে আসবেন না| কিন্তু মনে রাখবেন, এই বৃদ্ধ প্রচারক আপনাকে সত্যি কথা জানিয়েছে, সম্পূর্ণ সত্য, এবং সত্য ছাড়া অন্য কিছু নয় - আপনার নিজের সম্বন্ধে! আর আপনি কি বলছেন বা করছেন সেটা কোন ব্যাপার নয় কিন্তু আমি এইরকম করা থেকে বিরত হচ্ছি না| কোন কোন যুবক বলেন, ‘‘আমি আমার বন্ধুদের এখানে আনতে পারি না কারণ আপনি খুব কঠোর ভাষায় প্রচার করেন|’’ না, আমার প্রিয়তম, সেটা কারণ নয় - আর আপনি সেটা জানেন! আপনি নিজের বন্ধুদের এখানে আনেন না তার কারণ আপনি তাদের আত্মার ব্যাপারে যত্নশীল নন! আপনি তাদের আত্মার বিষয়ে মোটেও যত্নশীল নন - কারণ আপনি শুধু আপনাকেই ভালবাসেন! আপনার মুখের ঐ কুৎসিত অভিব্যক্তি মুছে ফেলুন এবং আমি যা বলছি সেই বিষয়ে চিন্তা করুন! এটাই হল যথোপযুক্ত জায়গা যেখানে আপনার জানা হারানো তরুণদের নিয়ে আসা আপনার দরকার! কেন? কারণ এটাই হল আমার জানা এখানকার কাছেপিঠে অবস্থিত একমাত্র জায়গা যেখানে তারা হয়ত উদ্ধার পেতে পারবে! সেটাই কারণ! আপনি নিজেকে যতটা ভালবাসেন তাদেরকেও যদি ততটাই ভালবেসে থাকেন, তাহলে আপনি তাদের বলবেন, ‘‘আমার সঙ্গে মন্ডলীতে এস! এর মূল মজবুত! এটা প্রাচীন-শিক্ষাস্থান! কিন্তু L.A এর ডাউনটাউনের এটাই হচ্ছে সর্বশ্রেষ্ঠ মন্ডলী, আর এটা ঠিক তোমার এবং আমার মতনই বহু যুবক দ্বারা ভর্তি রয়েছে|’’ যদি আপনি একজন প্রকৃত খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হয়ে থাকেন তাহলে এই সেই কথা যা আপনি তাদের বলবেন| কিন্তু আপনি তা নন| আপনি যথার্থই একজন নকল লোক! যথার্থ এক ব্যক্তি যিনি শুধু নিজেকে ভালবাসেন| ঠিক আর একটি হারানো তরুণ|

একটি অপরিত্রাণপ্রাপ্ত মেয়ে বুধবার রাত্রে আমাকে বলেছিলেন যে তিনি আর আমার কথা শুনবেন না কারণ আমি খুব চিৎকার করি| আমি মেয়েটিকে বলেছিলাম, ‘‘অনেক বছর ধরে আপনি এখানে আছেন, এবং আপনি এখনও হারানো আর বিদ্রোহী অবস্থাতেই রয়েছেন| আমার মনে হয় আমার এমনকী আরও জোরে চিৎকার করার দরকার আছে!’’ হ্যাঁ, জোরে - এবং আরও জোরে - আরও জোরে| যদি আপনি দেখেন যে কোন অন্ধ লোক খোলা রাস্তা ধরে হাঁটছেন, আপনি কি চিৎকার করবেন না? ‘‘ঐ খোলা রাস্তা থেকে সরে আসুন, নাহলে আপনি মারা পড়বেন!’’ সেইজন্যেই আমি চিৎকার করি - কারণ আমি আপনার আত্মাকে ভালবাসি| যে প্রচারকেরা কখনও চিৎকার করেন না তারা আপনাকে আদৌ ভালবাসেন না| তারা শুধু আপনার টাকা চায়! আর আপনি কখনও প্রকৃত মন পরিবর্তনের অভিজ্ঞতা লাভ করবেন না যতক্ষণ না আপনি ঈশ্বর এবং নিজের কাছে স্বীকার করছেন যে আপনি কতটা পাপপূর্ণ ও স্বার্থপর| আপনাকে অবশ্যই নিজের গোপন পাপ এবং নিজের অন্তঃকরণের পাপের জন্য অপরাধী হতে হবে| দাউদের সঙ্গে সঙ্গে আপনাকেও অনুভব করতে হবে, ‘‘আমার পাপ সতত আমার সম্মুখে আছে’’ (গীতসংহিতা 51:3)| সেটাই হল মন পরিবর্তনের চিরন্তন পথ| আপনাকে অবশ্যই পাপের চেতনার অধীনে আসতে হবে, অথবা আপনার জীবনে আপনি কখনও অনুভব করবেন না সেই খ্রীষ্টের প্রয়োজন যিনি আপনার পাপের দেনা শোধ করতে মৃত্যুবরণ করছেন এবং আপনাকে সমস্ত পাপ থেকে শুচি করতে ক্রুশের উপরে রক্ত ঝরাচ্ছেন|

4. চতুর্থত, প্রাচীন পথ ছিল আপনার নিজেকে পরীক্ষা করা; নতুন পথ মন্ডলীর চারিদিকে ঠিক ঘুরে বেড়ানোর জন্য যতক্ষণ না আপনি তা ত্যাগ করছেন এবং পাপের জীবনে ফিরে যাচ্ছেন |

আমাদের পাঠ্যাংশ বলছে, ‘‘আপনাদের পরীক্ষা করিয়া দেখ, তোমরা বিশ্বাসে আছ কি না; প্রমাণার্থে আপনাদেরই পরীক্ষা কর’’ (II করিন্থীয় 13:5)| সেটাই হচ্ছে পুরানো পথ| নিজেকে পরীক্ষা করে দেখুন যে আপনি যথার্থই পরিত্রাণ লাভ করেছেন কি না| যোনাথান এডওয়ার্ড বলেছেন, ‘‘ইহার প্রতি দেখুন যে [আপনি] শুধুমাত্র পাপের চেতনা পাইবার ভাণ করিতেছেন না; কিন্তু পাপের জন্য একটি যথাযথ শোক করিতেছেন| এবং আরও দেখুন, যে সেই পাপ [আপনার] পক্ষে গুরুভার হইয়াছে এবং [আপনার] হৃদয় কোমল ও সংবেদনশীল হইয়াছে|’’

এটা সেই জিনিষ যা আপনাকে অবশ্যই অনুভব করতে হবে অথবা আপনি একটা নকল মন পরিবর্তন লাভ করবেন| আপনাদের মধ্যে কেউ কেউ অন্য লোকদের মন পরিবর্তনের বিষয়ে শুনেছেন বা পড়েছেন| আপনার শোনা বা পড়া মন পরিবর্তন সাক্ষ্য দিচ্ছে যে আপনি তা স্মৃতিতে ধরে রেখেছেন| আমি আপনাদের মন পরিবর্তনের সাক্ষ্যের কয়েকটি পড়ে বলে দিতে পারি যে সেগুলি স্মৃতিতে সঞ্চিত হয়েছে একমাত্র শীলা নাংগমের সাক্ষ্য পড়ে, অথবা জনের শক্তিশালী সাক্ষ্য শুনে| আপনি ঠিক একটুখানি চেতনার অধীনস্থ হয়েছিলেন এবং তারপরে তাদের বলা মূল বিষয়গুলি নকল করেছেন! আপনার একটি প্রকৃত মন পরিবর্তনের অভিজ্ঞতা অর্জিত হয়নি, হয়েছে শুধুমাত্র অন্য কারও থেকে মনে রাখা অভিজ্ঞতা যাদের প্রকৃত মন পরিবর্তন হয়েছিল| জন্‌ কেগানের সাক্ষ্যের বেশিটাই আমি পাঠ করছি| যেমন যেমন আমি এটা পড়ছি, সেইমতন নিজেকে পরীক্ষা করুন| যখন আমি জন্‌ কেগানের সাক্ষ্য পড়ছি তখন নিজেকে প্রশ্ন করুন, ‘‘প্রকৃতই কি এইরকম আমার ক্ষেত্রেও ঘটেছিল? নাকি যা তিনি বলেছিলেন আমি শুধু তাই নকল করেছি?’’ প্রত্যেকটি বাক্য যত্ন নিয়ে শুনুন এবং নিজেকে প্রশ্ন করুন যে সত্যিই সেটা আপনার ক্ষেত্রেও ঘটেছিল কি না| যদি তা না ঘটে থাকে তাহলে আপনার একটা মিথ্যা মন পরিবর্তন হয়েছে| আর তাড়াতাড়ি হোক বা দেরী করেই হোক আপনি আমাদের মন্ডলী ত্যাগ করে যাবেন, যেমন অন্য অনেকে করেছেন| আপনাকে অবশ্যই একটি প্রকৃত মন পরিবর্তন পেতে হবে অথবা যখন দিয়াবল আপনার জন্য আসবে আপনি আমাদের মন্ডলী ত্যাগ করে চলে যাবেন|

আমার সাক্ষ্য
21শে জুন, 2009
জন্‍ শমূয়েল কেগান

আমি আমার মন পরিবর্তনের মুহূর্তটি এত স্পষ্ট এবং অন্তরঙ্গভাবে স্মরণ করিতে পারি যে খ্রীষ্ট যে কত বিশাল পরিবর্তন করাইয়াছিলেন তাহার তুলনায় বাক্যগুলিকে অতি ক্ষুদ্র বলিয়া বোধ হয়| আমার মন পরিবর্তনের পূর্বে আমি ক্রোধ এবং ঘৃণায় পরিপূর্ণ ছিলাম| আমি আমার পাপের জন্য গর্ব অনুভব করিতাম এবং যাহারা ঈশ্বরকে ঘৃণা করিত উহাদের সহিত নিজেকে যুক্ত করিয়াছিলাম| ঈশ্বর আমার জীবনে কার্য্য করিতে শুরু করিয়াছিলেন| আমার মন পরিবর্তনের পূর্বের সেই কয়েকটি সপ্তাহে অনুভব করিতাম যেন মরিয়া যাইতেছি: আমি ঘুমাইতাম না, আমি হাসিতে পারিতাম না, আমি কোনরূপ শান্তি খুঁজিয়া পাইতেছিলাম না| আমার মন্ডলীতে সুসমাচার সংক্রান্ত সভাগুলি চলিতে থাকিত এবং তাহার প্রতি কৃত উপহাস আমি স্পষ্টভাবে স্মরণ করিতে পারি যেমন আমি আমার পালক এবং পিতাকে অসম্মান করিতাম| (আমার উচ্চস্বরে প্রচার চালানোর জন্য জন্ অপরিত্রাণপ্রাপ্ত অবস্থায় আমার উপরে একেবারে ক্ষিপ্ত ছিল সেই মেয়েটির মতন যার কথা আমি আপনাদের আগেই বলেছি)|

সেই পবিত্র আত্মা অতি নিশ্চিতভাবে সেইসময়ে আমাকে আমার কৃত পাপের জন্য অপরাধী সাব্যস্ত করিবার কার্য্য শুরু করিয়াছিলেন, কিন্তু আমার সমগ্র ইচ্ছাশক্তি দিয়া আমি ঈশ্বর এবং মন পরিবর্তন সম্বন্ধিত সমস্ত চিন্তা যাহা আমার হইত তাহার সকলই প্রত্যাখ্যান করিয়াছিলাম| আমি এই বিষয়ে চিন্তা করিতে অস্বীকার করিয়াছিলাম, তথাপি আমি এত যন্ত্রণা অনুভব করা বন্ধ করিতে পারি নাই| (যদি আপনি কখনও আপনার পাপের দ্বারা যন্ত্রণার অনুভূতি পাননি, তাহলে আপনি কখনও উদ্ধারপ্রাপ্ত হননি!)

যখন ডঃ হেইমার্স প্রচার করিতেন, আমার গর্ব নিদারুণভাবে তাহা প্রত্যাখ্যান করিবার, না শুনিবার চেষ্টা করিত, কিন্তু তাহার প্রচার চলিতে থাকাকালীন আমি আক্ষরিকভাবেই নিজের আত্মায় আমার সমস্ত পাপ অনুভব করিতে পারিতাম| আমি প্রতিটি সেকেন্ড গণনা করিতাম যে কখন প্রচার শেষ হইবে, কিন্তু পালক প্রচার চালাইয়া যাইতেন, এবং আমার পাপসমূহ অন্তহীনভাবে মন্দ হইতে মন্দ হইতে থাকিত| আমাকে অবশ্যই উদ্ধার পাইতে হইত! এমনকী আমাকে যখন আমন্ত্রণ জানানো হইত আমি বাধা দিতাম, কিন্তু আমি উহা আর সহ্য করিতে পারিতেছিলাম না| আমি জানিতাম যে আমি ছিলাম যতটা সম্ভব হইতে পারে ততটাই মন্দ পাপী এবং আমাকে নরকে যাওয়ার মতন দোষী সাব্যস্ত করিতে ঈশ্বর ন্যায়নিষ্ঠ ছিলেন| (আপনার শুধু ঐ অনুভূতির প্রয়োজন| যোনাথান এডওয়ার্ড বলেছিলেন আপনাকে অবশ্যই সেই অনুভূতি পেতে হবে নয়তো আপনি কখনও উদ্ধারপ্রাপ্ত হবেন না|) সংগ্রাম করিতে করিতে আমি অতি ক্লান্ত হইয়া পড়িয়াছিলাম, আমার যাহা ছিল তাহার সবকিছুতেই আমি ক্লান্ত হইয়া পড়িয়াছিলাম| পালক আমাকে পরামর্শ দিয়াছিলেন, এবং খ্রীষ্টের নিকট আসিতে বলিয়াছিলেন, কিন্তু আমি যাই নাই| এমনকী যদি আমার সমস্ত পাপ আমাকে দোষী সাব্যস্ত করিত আমি তখনও যীশুকে বিশ্বাস করিতাম না| আমি ‘‘চেষ্টা করিতেছিলাম’’ পরিত্রাণ লাভ করিতে, আমি ‘‘চেষ্টা করিতেছিলাম’’ খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করিতে এবং আমি পারি নাই, আমি একেবারে পারি নাই খ্রীষ্টের নিকটে (কিভাবে আসিতে হইবে তাহা চিন্তা করিতে) আসিতে, আমি খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হইবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিতে পারি নাই, এবং ইহা আমাকে অতি আশাহীন অনুভব করাইয়াছিল| আমি অনুভব করিতে পারিতাম যে আমার পাপ আমাকে নীচে নরকের দিকে ঠেলিয়া দিতেছে তাহা সত্ত্বেও আমি অনুভব করিতে পারিতাম আমার অনমনীয়তা বলপূর্বক আমার অশ্রুজল দূরে সরাইয়া দিতেছে| আমি এই দ্বন্দের মধ্যে আটকাইয়া পড়িয়াছিলাম| (প্রাচীন প্রচারকেরা একে বলেছেন ‘‘The Gospel vise’’)| আমি অনুভব করিতেছিলাম যে আমার পাপ আমাকে নীচে নরকের দিকে ঠেলিয়া দিতেছে| তাহা সত্ত্বেও আমার অনমনীয়তা বলপূর্বক আমার অশ্রুজল দূরে সরাইয়া দিতেছে| (কঠিন হৃদয়বিশিষ্ট লোক কাঁদেন না| তিনি একজন শক্ত মনের মানুষ| কিন্তু ঈশ্বর তাকে শাস্তি দিয়েছিলেন এবং যতক্ষণ না তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছিলেন আর সুসমাচারের ছাড়পত্র তাকে নিষ্পেষণ করে গেছিল|)

সহসা বহুবছর পূর্বে প্রচারিত একটি ধর্ম্মোপদেশের বাক্য আমার অন্তরে প্রবেশ করিল: ‘‘খ্রীষ্টে সমর্পিত হও! খ্রীষ্টে সমর্পিত হও!’’ সেই মুহূর্তে আমি যীশুতে আত্মসর্পণ করিয়াছিলাম এবং বিশ্বাসে তাঁহার নিকটে আসিয়াছিলাম| সেই মুহূর্তে ইহা মনে হইয়াছিল যেন মরিবার জন্য আমার নিজেকে সমর্পণ করিতে হইবে, এবং তখন খ্রীষ্ট আমাকে জীবন দান করিয়াছিলেন! আমার মনের কোন সক্রিয়তা অথবা ইচ্ছা তখন ছিল না কিন্তু আমার অন্তঃকরন দিয়া, যীশুতে সাধারনভাবে বিশ্রাম লইবার সহিত, তিনি আমাকে উদ্ধার করিয়াছিলেন! তিনি তাঁহার রক্ত দিয়া ধৌত করিয়া আমার পাপ দূরে সরাইয়া দিয়াছিলেন! সেই নির্দ্দিষ্ট মুহূর্তে, আমি খ্রীষ্টের প্রতিরোধ করা বন্ধ করিয়াছিলাম| ইহা এতই স্বচ্ছ ছিল যে আমাকে যাহা করিতে হইয়াছিল তাহা কেবল তাঁহাকে বিশ্বাস করা; আমি সেই সঠিক মুহূর্তটি স্মরণ করিতে পারি যখন আমার আমি নিবৃত্ত হইল এবং শুধুই খ্রীষ্ট থাকিলেন| আমাকে আত্মসমর্পণ করিতে হইল! সেই মুহূর্তে সেখানে কোন শারীরিক অনুভূতি অথবা কোন আচ্ছন্নকারী আলোক ছিল না, আমার কোন অনুভূতির প্রয়োজন হয় নাই, আমার নিকটে খ্রীষ্ট ছিল! ইহা ছাড়াও যীশুকে বিশ্বাস করিয়া ইহা অনুভূত হইতেছিল যেন আমার পাপ আমার আত্মা হইতে উঠাইয়া লওয়া হইয়াছে| আমি আমার পাপ হইতে ঘুরিয়া দাঁড়াইলাম, এবং আমি একমাত্র যীশুর প্রতি দৃষ্টিপাত করিলাম! যীশু আমাকে রক্ষা করিয়াছিলেন|


জনের সাক্ষ্য শোনার পরে, সেইরকম কি আপনার ক্ষেত্রে কখনও প্রকৃতভাবে ঘটেছিল? যদি তা না ঘটে থাকে তাহলে আপনার প্রকৃতভাবে মন পরিবর্তনের দরকার রয়েছে| আপনার একটি প্রকৃত মন পরিবর্তন প্রয়োজন, নকল করা নয়| একটা প্রকৃত মন পরিবর্তন পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই কি করতে হবে? প্রথম, আপনার অন্তঃকরণ কতটা পাপপূর্ণ সেই বিষয়ে চিন্তা করুন, এত পাপপূর্ণ যে আপনি সত্যি সত্যিই অনুতাপ করেননি এবং যীশুকে বিশ্বাস করতে পারেননি| এতই পাপপূর্ণ যে কেবলমাত্র কয়েকটি বাক্য শিখে আপনি আমাদেরকে প্রতারণা করার চেষ্টা করেছেন| আমি কি ঠিক বলছি? তাহলে আপনি আপনার হৃদয় এবং জীবনের পাপ থেকে অবশ্যই মুখ ফিরান| এবং অবশ্যই যীশুর কাছে আসুন এবং সেই রক্তে ধৌত হয়ে শুচি হন যা তিনি আপনার জন্য ক্রুশের উপরে ঝরিয়েছিলেন| যেখানে অন্যেরা দুপুরের খাবার খেতে উপরে চলে যাচ্ছেন আপনি এখানে বেদীর কাছে নেমে আসুন, এবং আমরা আপনার জন্য প্রার্থনা করব আর আপনাকে পরামর্শ দেব| এখনই আসুন| এখনই এখানে চলে আসুন! আমেন|


যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তাহলে ডঃ হাইমার্স আপনার কাছ থেকে কিছু শুনতে চান| যখন আপনি ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখবেন তখন অবশ্যই তাকে জানাবেন যে কোন দেশ থেকে আপনি তাকে লিখছেন নয়ত তিনি আপনার ই-মেলের জবাব দিতে সক্ষম হবেন না| যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তবে ডঃ হাইমার্সকে একট ই-মেল পাঠান এবং তাকে সেইকথা জানান, কিন্তু কোন দেশ থেকে আপনি লিখছেন চিঠিতে সেটা অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত করবেন| ডঃ হাইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net (এখানে ক্লিক করুন) | আপনি যে কোন ভাষায় ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখতে পারেন, কিন্তু যদি পারেন তো ইংরাজিতেই লিখুন| যদি আপনি ডঃ হাইমার্সকে ডাক-ব্যবস্থার মাধ্যমে চিঠি পাঠাতে চান, তবে তার ঠিকানা হল P.O. Box 15308, Los Angeles, CA 90015 | আপনি তাকে (818)352-0452 নম্বরে ফোন করতে পারেন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটে
www.sermonsfortheworld.com
ওয়েবসাইটে গিয়ে পড়তে পারেন| ক্লিক করুন “প্রচার পান্ডুলিপি|”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মিঃ আবেল প্রুধোম্মে: গীতসংহিতা 51:1-3 |
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
“The Old-Fashioned Way” (Civilla D. Martin, 1866-1948) |


খসড়া চিত্র

এখন আপনাদের পরীক্ষা করুন !

EXAMINE YOURSELVES NOW!

লেখক : ডঃ আর. এল. হেইমার্স, জুনিয়র

‘‘আপনাদের পরীক্ষা করিয়া দেখ, তোমরা বিশ্বাসে আছ কি না; প্রমাণার্থে আপনাদেরই পরীক্ষা কর| অথবা তোমরা কি আপনাদের সম্বন্ধে জান না যে, যীশু খ্রীষ্ট তোমাদিগেতে আছেন? অবশ্য যদি তোমরা অপ্রামাণিক না হও’’ (II করিন্থীয় 13:5)|

(প্রকাশিত বাক্য 20:15; 14:10, 11; যিরমিয় 6:16)

1.  প্রথমত, ঈশ্বর এবং তাঁর গৌরবগাথা দিয়ে চিরন্তন পথ শুরু হয়; নূতন পথ শুরু হয় মানুষ এবং তার চাহিদা ও অনুভূতির বিষয় দিয়ে, রোমীয় 9:18, দ্বিতীয় বিবরণ 7:21; নহিমিয় 1:5; 9:32; ইব্রীয় 10:31; 12:29; মথি 22:4 |

2.  দ্বিতীয়ত, চিরন্তন পথ আপনাকে আপনার পাপের বিষয়ে ভাবতে প্রস্তুত করে, যার শাস্তি প্রকৃত ঈশ্বর নরকে দিয়ে থাকেন; যেখানে নতুন পথ আপনাকে আপনার চাহিদা ও অনুভূতির বিষয়ে ভাবতে প্রস্তুত করে, যিরমিয় 17:9; মথি 25:46 |

3.  তৃতীয়ত, চিরন্তন পথ আপনাকে আপনার সমস্ত পাপের বিষয়ে ভাবতে প্রস্তুত করে, বিশেষ করে আপনার সমস্ত গোপন পাপ এবং আপনার অন্তঃকরণের পাপ; নতুন পথ আপনাকে নিজের সম্বন্ধে ভাল অনুভূতি পেতে প্রস্তুত করে, II তীমথিয় 3:1, 2; গীতসংহিতা 51:3 |

4.  চতুর্থত, প্রাচীন পথ ছিল আপনার নিজেকে পরীক্ষা করা; নতুন পথ মন্ডলীর চারিদিকে ঠিক ঘুরে বেড়ানোর জন্য যতক্ষণ না আপনি তা ত্যাগ করছেন এবং পাপের জীবনে ফিরে যাচ্ছেন, II করিন্থীয় 13:5 |