Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 34টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




দুটি কারণ যে কেন আমেরিকা এবং
পাশ্চাত্যের মন্ডলীগুলি উদ্দীপনার
অভিজ্ঞতা লাভ করে না

THE TWO REASONS WHY THE CHURCHES IN AMERICA
AND THE WEST DON’T EXPERIENCE REVIVAL
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর. এল. হেইমার্স, জুনিয়র
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

2016 সালের, 25শে সেপ্টেম্বর, সদাপ্রভুর দিনের
সন্ধ্যাবেলায় লস্ এঞ্জেল্সের
ব্যাপটিষ্ট ট্যাবারন্যাক্ল মন্ডলীতে এই ধর্ম্মোপদেশটি
প্রচারিত হয়েছিল
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Evening, September 25, 2016


আজ সন্ধ্যায় আমি সেই প্রধান কারণ দুটির বিষয়ে বলতে যাচ্ছি যে কেন আমেরিকা এবং পাশ্চাত্যের মন্ডলীগুলিতে উদ্দীপনা হচ্ছে না| ‘‘উদ্দীপনা’’ বলতে আমি বোঝাতে চাই সেই সুসংহত এবং সংযত উদ্দীপনা যার বিষয়ে আমরা পড়েছি যে সেগুলি 18তম শতাব্দীতে এবং 19তম শতাব্দীর প্রথম অর্দ্ধাংশে ঘটত| আমি 20তম শতাব্দীতে এবং বর্তমানে যে সময়ে আমরা বাস করছি, অর্থাৎ 21তম শতাব্দীর প্রথম ভাগের নূতন সুসমাচার প্রচারকদের এবং পঞ্চসপ্তমীর তথাকথিত ‘‘উদ্দীপনা’’র বিষয়ে বলছি না|

অনুগ্রহ করে আপনার বাইবেলে II তিমথীয় 3:1 পদটি বের করুন (এটা স্কোফিল্ড স্টাডি বাইবেলের 1280 পৃষ্ঠায় রয়েছে)| আমি চাই আপনিও আমার সঙ্গে একযোগে এই অধ্যায়ের প্রথম 7টি পদ পাঠ করুন|

‘‘কিন্তু ইহা জানিও, শেষ কালে বিষম সময় উপস্থিত হইবে| কেননা মনুষ্যেরা আত্মপ্রিয়, অর্থপ্রিয়, আত্মশ্লাঘী, অভিমানী, ধর্ম্মনিন্দক, পিতা-মাতার অবাধ্য, অকৃতজ্ঞ, অসাধু, স্নেহরহিত, ক্ষমাহীন, অপবাদক, অজিতেন্দ্রীয়, প্রচন্ড, সদ-বিদ্বেষী, বিশ্বাসঘাতক, দুঃসাহসী, গর্ব্বান্ধ, ঈশ্বর প্রিয় নয়, বরং বিলাস প্রিয় হইবে; লোকে ভক্তির অবয়বধারী, কিন্তু তাঁহার শক্তি অস্বীকারকারী হইবে; তুমি এইরূপ লোকদের হইতে সরিয়া যাও| ইহাদের মধ্যে এমন লোক আছে, যাহারা ছলপূর্বক গৃহে গৃহে প্রবেশ করিয়া পাপে ভারাক্রান্ত ও নানাবিধ অভিলাষে চালিত যে স্ত্রীলোকেরা সতত শিক্ষা করে, তথাপি সত্যের তত্ত্বজ্ঞান পর্য্যন্ত পঁহুছিতে পারে না, তাহাদিগকে বন্দী করিয়া ফেলে’’ (II তিমথীয় 3:1-7)|

এখন 13 নং পদটি পড়ুন|

‘‘কিন্তু দুষ্ট লোকেরা ও বঞ্চকেরা, পরের ভ্রান্তি জন্মাইবে ও আপনারা ভ্রান্ত হইয়া, উত্তর উত্তর কুপথে অগ্রসর হইবে’’ (II তিমথীয় 3:13)|

এই পদগুলি ‘‘শেষের দিনের’’ (3:1) মন্ডলীগুলির গুরুতর নীতিভ্রষ্টতার বিষয়ে আমাদের বলছে| 2 নং থেকে 4 নং পদগুলি বর্ণনা করছে আমাদের সময়ের অধিকাংশ তথাকথিত ‘‘খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের’’ নীতিভ্রষ্ট অবস্থাকে| 5 নং পদটিতে সেই কারণ নির্দেশিত হয়েছে যে কেন এই সমস্ত ভ্রান্ত ‘‘খ্রীষ্ট বিশ্বাসীরা’’ এত দুষ্ট এবং বিদ্রোহী হয়ে যাচ্ছেন|

‘‘লোকে ভক্তির অবয়বধারী, কিন্তু তাঁহার শক্তি অস্বীকারকারী হইবে’’ (II তিমথীয় 3:5)|

এই পদটি ব্যাখ্যা করার আগে, আমি আপনাদের বলব ডঃ জে. ভারন্ন ম্যাকগী এই অধ্যায়টির সম্বন্ধে যা বলেছিলেন তার কিছু অংশ| 1 নং পদের ‘‘শেষ কালে’’ শব্দটি সম্পর্কে ডঃ ম্যাকগী বলেছিলেন, ‘‘‘শেষ কাল’ হইতেছে একটি পারিভাষিক শব্দ যাহা ব্যবহৃত হইতেছে... মন্ডলীতে শেষের দিনগুলির কথা [বলিতে] বলিবার নিমিত্ত|’’ 1 নং হইতে 4 নং পদগুলি সম্পর্কে ম্যাকগী বলেছিলেন, ‘‘আমরা উনিশ প্রকারের বিভিন্ন সংজ্ঞা দিয়াছি...ইহা একটি কুশ্রী [দল]... মন্ডলীর শেষের দিনগুলিতে যাহা ঘটিতেছে তাহারা উহার একটি সর্বোৎকৃষ্ট আধ্যাত্মিক চিত্র উপস্থাপন করিতেছে’’ (জে. ভারন্ন ম্যাকগী, Th.D., Thru the Bible, II তিমথীয়, অধ্যায় 3)| এরপর ডঃ ম্যাকগী 5 নং পদ ব্যাখ্যা করেছেন, ‘‘ভক্তির অবয়বধারী, কিন্তু শক্তি অস্বীকারকারী...’’ ডঃ ম্যাকগী বলেছিলেন, ‘‘ভক্তির অবয়বধারী, কিন্তু শক্তির অস্বীকারকারী! তাহারা ধর্মীয় রীতিনীতির মধ্য দিয়া যায় কিন্তু জীবন এবং বাস্তবতা হারায়’’ (ibid.)| এই সমস্ত তথাকথিত ‘‘খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের’’ রয়েছে ‘‘একটি ভক্তির অবয়ব’’ - তার অর্থ, তাদের বাহ্যিক প্রকাশ রয়েছে, কিন্তু তারা তাঁর শক্তিকে অস্বীকার করে| এর মানে তারা কখনই ঈশ্বরের শক্তি অথবা খ্রীষ্টের রক্ত দ্বারা প্রকৃতভাবে মন পরিবর্তন করেননি| এটা ব্যাখ্যা করছে যে কেন 7 নং পদটি আজকের দিনের বিশাল সংখ্যক সুসমাচার সংক্রান্ত প্রচারকদের অধিকাংশের ক্ষেত্রে সত্যি| তারা ‘‘সতত শিক্ষা করে, তথাপি সত্যের তত্ত্বজ্ঞান পর্য্যন্ত পঁহুছিতে পারে না|’’ আজ রাত্রে এখানেও ঐরকমের কিছু লোক রয়েছেন!

তারা কয়েক দশক ধরে বাইবেল অধ্যয়ণ করতে পারেন, কিন্তু কখনও মন পরিবর্তন করেন না| ডঃ চার্লস্ সি. রেইরী বলেছিলেন যে এর অর্থ হচ্ছে, ‘‘তাহারা কখনো খ্রীষ্টের পরিত্রাণকারী জ্ঞানে পৌঁছাইতে সক্ষম নয়’’ (Ryrie Study Bible; 7 নং পদের টীকা)| বর্তমানে সহস্রাধিক সুসমাচার সংক্রান্তগণ এই অবস্থায় রয়েছেন| তারা অপরিত্রাণপ্রাপ্ত, প্রাণিক মানুষ| I করিন্থীয় 2:14 পদ তাদের বর্ণনা এইভাবে করেছে, ‘‘প্রাণিক [অপরিত্রাণপ্রাপ্ত] মনুষ্য ঈশ্বরের আত্মার বিষয়গুলি গ্রহণ করে না... সে সকল সে জানিতে পারে না, কারণ তাহারা আত্মিকভাবে বিচারিত হয়|’’ এবার আমি আপনাদের দুটি কারণ বলব যে কেন 140 বছরেরও বেশি সময় ধরে আমেরিকা এবং পাশ্চাত্য জগতে কোন বৃহত্তর উদ্দীপনা হচ্ছে না|

I. প্রথমত, সেখানে 140 বছরের বেশি সময় ধরে কোন বৃহত্তর উদ্দীপনা হচ্ছে না কারণ আমরা বস্তুত কেবলমাত্র হারানো লোকদেরই ব্যাপ্তিষ্ম দিই!

সহস্রাধিক সুসমাচার সংক্রান্ত প্রচারকেরা কখনও মন পরিবর্তন করেননি কারণ তারা চার্লস্ জি. ফিনির মাধ্যমে মন্ডলীতে নিয়ে আসা ‘‘সিদ্ধান্তবাদের’’ দ্বারা প্রতারিত হয়েছেন| সমস্ত মন্ডলীতে তার শিক্ষন এত শক্তিশালীভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল যে হাজার হাজার লোক মনে করে নিতেন যে তারা পরিত্রাণ পেয়েছেন কারণ তারা ‘‘একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন,’’ একটা ‘‘পাপীর প্রার্থনা’’র সমস্ত বাক্য উচ্চারণ করেছেন, বা বাইবেলের একটা পদে বিশ্বাস স্থাপন করেছেন| কিন্তু তারা পবিত্র আত্মার কাজের মাধ্যমে পরিত্রাণপ্রাপ্ত হননি| ঈশ্বরের আত্মার প্রথম কাজ হল পাপীদের তাদের পাপের চেতনার অধীনে নিয়ে আনা| যোহন 16:8, 9 পদ দুটিতে বলা হয়েছে, ‘‘যখন তিনি [পবিত্র আত্মা] আসিয়া পাপের সম্বন্ধে জগতকে দোষী করিবেন... পাপের সম্বন্ধে, কেননা তাহারা আমাতে বিশ্বাস করে না|’’ একজন হারানো লোক যদি তার পাপের জন্য গভীরভাবে অনুতপ্ত না হন, তাহলে তিনি কখনও নিজের জীবনে খ্রীষ্টের প্রকৃত প্রয়োজন, ক্রুশের উপরে তাঁর বলিদান, এবং খ্রীষ্টের রক্তের দ্বারা তার শুচি হওয়ার প্রয়োজন অনুভব করবেন না| অনেকবার আমরা সেই সমস্ত লোকদের দেখেছি যারা বলেন যে তারা পরিত্রাত হতে চান, কিন্তু যেহেতু তারা নিজেদের পাপের সম্বন্ধে অনুতপ্ত হননি, সেহেতু তারা কখনও খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করতে সক্ষম হন না|

পবিত্র আত্মার দ্বিতীয় কাজ হল খ্রীষ্টের গৌরব করা| যীশু বলেছিলেন, ‘‘তিনি আমাকে মহিমান্বিত করিবেন: কেননা যাহা আমার [আমার যাহা লও], তাহাই লইয়া তোমাদিগকে জানাইবেন’’ (যোহন 16:14), অথবা যেমন যোহন 15:26 পদে যীশু যেমন বলেছিলেন, সেই পবিত্র আত্মা ‘‘আমার বিষয় সাক্ষ্য দিবেন|’’ পাপের চেতনার অধীনস্থ হওয়ার পরে, তখন সেই পবিত্র আত্মা, এবং একমাত্র তখনই, পাপীদের উপলব্ধি করান যে যীশুই একমাত্র তার পাপ ক্ষমা করতে পারেন| মন পরিবর্তনের চূড়ান্ত কাজ হল ঈশ্বর পাপীদের খ্রীষ্টের প্রতি আকর্ষণ করেন| যীশু বলেছিলেন, ‘‘পিতা যিনি আমাকে পাঠাইয়াছেন, তিনি আকর্ষণ না করিলে কেহ আমার কাছে আসিতে পারে না...’’ (যোহন 6:44)| সেই ব্যক্তি, যিনি বলছেন ‘‘কিভাবে আমি খ্রীষ্টের কাছে আসিব?’’, তিনি বুঝতে পারেননি যে প্রথমে তাকে অবশ্যই নিজের কৃত পাপের জন্য অনুতপ্ত হতে হবে এবং তারপরে সেই পাপ থেকে মুক্তি পাওয়ার একমাত্র আশা হিসাবে খ্রীষ্টকে দেখতে হবে, আর তারপরে তিনি খ্রীষ্টের প্রতি আকর্ষিত হবেন| পরিত্রাণ লাভের এই সমস্ত কাজ ঈশ্বরের শক্তির মধ্যে নিহিত রয়েছে| শিষ্যেরা যীশুকে প্রশ্ন করেছিলেন, ‘‘কাহার পরিত্রাণ হইতে পারে?’’ যীশু উত্তর দিয়েছিলেন, ‘‘ইহা মনুষ্যের অসাধ্য বটে, কিন্তু ঈশ্বরের অসাধ্য নয়’’ (মার্ক 10:26, 27)|

সুসংহত এবং সংযত প্রোটেষ্টান্ট মন পরিবর্তনে, প্রথমে যা ঘটে তা হল পাপের গভীর চেতনা যা পাপীকে নিজের পরিত্রাণের সম্বন্ধে হতাশায় পরিচালিত করে| তারপরে পাপীরা খ্রীষ্টকে তাদের একমাত্র আশা হিসাবে দেখতে পান, এবং খ্রীষ্টের কাছে আসেন, যেহেতু ঈশ্বর তাকে পরিত্রাতার কাছে আকর্ষণ করেন| স্বভাবতই এই সমস্ত বিষয় আধুনিক ‘‘সিদ্ধান্তবাদ’’ এর দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হয়ে থাকে| বর্তমানে সর্বসাকুল্যে যা প্রয়োজন তা হল প্রার্থনার বাক্যগুলি উচ্চারণ করা, অথবা ঘুর পথে চলে যাওয়া| মানুষের আত্মার মধ্যে ঈশ্বরের কাজ সম্পূর্ণভাবে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে| সেটাই হচ্ছে প্রথম কারণ যে আমাদের উদ্দীপনা হচ্ছে না|

আমাদের মন্ডলীতে জন্ কেগান হলেন একজন নবীন যুবক যিনি সেবাকাজে যোগদান করবেন বলে মনস্থ করেছেন| 15 বছর বয়সে তিনি মন পরিবর্তন করেছিলেন| দুটি কারণে আমি এখানে তার জীবনের সম্পূর্ণ সাক্ষ্য দিচ্ছি| প্রথম কারণ হল সেটা ছিল একটি নিখুঁত ‘‘পুরানো ধারার’’ সেই ধরনের মন পরিবর্তন, যা ঘটেছিল ফিনির দ্বারা মন পরিবর্তনকে একটি নিছক সিদ্ধান্ত গ্রহণের ঘটনাতে রূপান্তরিত করার অনেক আগে, ঠিক যেরকম আজ আমাদের নিদারুণভাবে প্রয়োজন| এবং দ্বিতীয় কারণ হল, একজন কলেজ ছাত্র যিনি গত দুই বছর যাবৎ খ্রীষ্টকে প্রতিহত করে আসছিলেন, গত শনিবারে মন পরিবর্তন করেছেন আমি এটা পাঠ করছি তা শোনার পরে| আমি খুব কম সাক্ষ্যের বিষয়েই জানি যা প্রকৃতপক্ষে কারও মন পরিবর্তন করায়| এখানে জন্ কেগানের সাক্ষ্য দেওয়া হল|

      আমি আমার মন পরিবর্তনের মুহূর্তটি এত স্পষ্ট এবং অন্তরঙ্গভাবে স্মরণ করিতে পারি যে খ্রীষ্ট যে কত বিশাল পরিবর্তন করাইয়াছিলেন তাহার তুলনায় বাক্যগুলিকে অতি ক্ষুদ্র বলিয়া বোধ হয়| আমার মন পরিবর্তনের পূর্বে আমি ক্রোধ এবং ঘৃণায় পরিপূর্ণ ছিলাম| আমি আমার পাপের জন্য গর্ব অনুভব করিতাম এবং লোকদের যন্ত্রণা দিয়া আনন্দ অনুভব করিতাম, এবং যাহারা ঈশ্বরকে ঘৃণা করিত উহাদের সহিত নিজেকে যুক্ত করিয়াছিলাম; আমার নিকট পাপ করা কোন দুঃখ করিবার ন্যায় ‘‘ভুল’’ কার্য্য ছিল না| আমি ইচ্ছাকৃতভাবে নিজেকে এই পথে রাখিয়াছিলাম| ঈশ্বর আমার উপরে এইরূপ উপায়ে কার্য্য করিতে শুরু করিয়াছিলেন যাহাতে আমার জগত আমার চতুর্দিকে শীঘ্রই চূর্ণ বিচূর্ণ হইতে শুরু করিয়াছিল যাহা আমি কখনও প্রত্যাশা করি নাই| আমার মন পরিবর্তনের পূর্বের সেই কয়েকটি সপ্তাহে অনুভব করিতাম যেন মরিয়া যাইতেছি: আমি ঘুমাইতাম না, আমি হাসিতাম না, আমি কোনরূপ শান্তি খুঁজিয়া পাইতাম না| আমার মন্ডলীতে সুসমাচার সংক্রান্ত সভাগুলি চলিতে থাকিত এবং তাহার প্রতি কৃত উপহাস আমি স্পষ্টভাবে স্মরণ করিতে পারি যেহেতু আমি আমার পালক এবং পিতাকে অসম্মান করিতাম|
      সেই পবিত্র আত্মা অতি নিশ্চিতভাবে সেইসময়ে আমার মধ্যে আমার কৃত পাপের চেতনা আনয়নের কার্য্য শুরু করিয়াছিলেন, কিন্তু আমার সমগ্র ইচ্ছাশক্তি দিয়া আমি ঈশ্বর এবং মন পরিবর্তন সম্বন্ধিত সমস্ত চিন্তা যাহা আমার হইত তাহার সকলই প্রত্যাখ্যান করিয়াছিলাম| আমি এই বিষয়ে চিন্তা করিতে অস্বীকার করিয়াছিলাম, তথাপি আমি এত যন্ত্রণা অনুভব করা বন্ধ করিতে পারি নাই| 2009 সালের, 21শে জুন, রবিবারের সকাল হইতে না হইতে আমি সম্পূর্ণভাবে নিঃশেষিত হইয়াছিলাম| আমি এই সমস্ত বিষয়ে অত্যন্ত ক্লান্ত হইয়া পড়িয়াছিলাম| আমি নিজেকে ঘৃণা করিতে শুরু করিয়াছিলাম, আমার পাপ এবং উহা আমাকে কিরূপ অনুভব করাইত তাহাকে ঘৃণা করিতে শুরু করিয়াছিলাম|
      যখন ডঃ হেইমার্স প্রচার করিতেছিলেন, আমার গর্ব নিদারুণভাবে তাহা প্রত্যাখ্যান করিবার, না শুনিবার চেষ্টা করিতেছিল, কিন্তু তাহার প্রচার চলিতে থাকাকালীন আমি আক্ষরিকভাবেই নিজের আত্মায় আমার সমস্ত পাপ অনুভব করিতে পারিয়াছিলাম| কখন প্রচার শেষ হইবে তাহার জন্য আমি সেকেন্ডের বিপরীত গণনা করিতেছিলাম, কিন্তু পালক প্রচার চালাইয়া যাইতেছিলেন, এবং আমার পাপসমূহ অন্তহীনভাবে মন্দ হইতে মন্দ হইতেছিল| আমি আর ব্যর্থ প্রতিরোধ করিতে পারিতেছিলাম না, আমাকে অবশ্যই উদ্ধার পাইতে হইত! এমনকী আমাকে যখন আমন্ত্রণ জানানো হইয়াছিল আমি বাধা দিয়াছিলাম, কিন্তু আমি উহা আর সহ্য করিতে পারিতেছিলাম না| আমি জানিতাম যে আমি ছিলাম যতটা সম্ভব হইতে পারে ততটাই মন্দ পাপী এবং আমাকে নরকে যাওয়ার মতন দোষী সাব্যস্ত করতে ঈশ্বর ন্যায়নিষ্ঠ ছিলেন| সংগ্রাম করিতে গিয়া আমি অতি ক্লান্ত হইয়া পড়িয়াছিলাম, আমার যাহা ছিল তাহার সবকিছুতেই আমি ক্লান্ত হইয়া পড়িয়াছিলাম| পালক আমাকে পরামর্শ দিয়াছিলেন, এবং খ্রীষ্টের নিকট আসিতে বলিয়াছিলেন, কিন্তু আমি যাই নাই| এমনকী যদি আমার সমস্ত পাপ আমাকে দোষী সাব্যস্ত করিত আমি তখনও যীশুকে পাইতাম না| এই মুহূর্তগুলি ছিল সর্বাপেক্ষা মন্দ যেহেতু আমি অনুভব করিতাম যেন আমাকে পরিত্রাণ করা যাইবে না এবং আমি শুধুমাত্র নরকেই যাইব| আমি ‘‘চেষ্টা করিতেছিলাম’’ পরিত্রাণ লাভ করিতে, আমি ‘‘চেষ্টা করিতেছিলাম’’ খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করিতে এবং আমি পারি নাই, আমি পারি নাই আমার ইচ্ছাকে কেবলমাত্র খ্রীষ্টের প্রতি দিতে, আমি খ্রীষ্ট বিশ্বাসী হইবার সিদ্ধান্ত নিতে পারি নাই, এবং ইহা আমাকে অতি আশাহীন অনুভব করাইয়াছিল| আমি অনুভব করিতে পারিতাম যে আমার পাপ আমাকে নীচে নরকের দিকে ঠেলিয়া দিতেছে তাহা সত্ত্বেও আমি অনুভব করিতে পারিতাম আমার অনমনীয়তা বলপূর্বক আমার অশ্রুজল দূরে সরাইয়া দিতেছে| আমি এই দ্বন্দের মধ্যে আটকাইয়া পড়িয়াছিলাম|
      সহসা বহুবছর পূর্বে প্রচারিত একটি ধর্ম্মোপদেশের বাক্য আমার অন্তরে প্রবেশ করিল: ‘‘খ্রীষ্টে সমর্পিত হও! খ্রীষ্টে সমর্পিত হও!’’ আমাকে খ্রীষ্টের প্রতি সমর্পিত হইতে হইবে এই চিন্তা আমাকে এতই আকুল করিয়া তুলিল যে বরাবরের ন্যায় মনে হইতে লাগিল যেন আমি ইহা সহজভাবে পারিব না| যীশু আমার জন্য তাঁর প্রাণ বিসর্জন দিয়াছেন| সেই প্রকৃত যীশু আমার জন্য ক্রুশারোপিত হইতে গিয়াছিলেন যখন আমি তাঁহার শত্রু ছিলাম এবং আমি তাঁহার প্রতি সমর্পিত হই নাই| এই চিন্তা আমাকে ভগ্ন করিয়াছিল; আমি বাধ্য হইয়াছিলাম সমস্ত কিছু ছাড়িয়া দিতে| আমি আর দীর্ঘক্ষণ নিজেকে ধরিয়া রাখিতে পারি নাই, আমি যীশুকে পাইতে বাধ্য হইয়াছিলাম! সেই মুহূর্তে আমি যীশুতে আত্মসর্পণ করিয়াছিলাম এবং বিশ্বাসে তাঁহার নিকটে আসিয়াছিলাম| সেই মুহূর্তে ইহা মনে হইয়াছিল যেন মরিবার জন্য আমার নিজেকে সমর্পণ করিতে হইবে, এবং তাহার পরে খ্রীষ্ট আমাকে জীবন দান করিবেন! সেখানে আমার মনের কোন সক্রিয়তা অথবা ইচ্ছা ছিল না কিন্তু আমার অন্তঃকরনের সহিত, যীশুতে সাধারনভাবে বিশ্রাম লইবার কারণে, তিনি আমাকে উদ্ধার করিয়াছিলেন! তিনি তাঁহার রক্ত দিয়া ধৌত করিয়া আমার পাপ দূরে সরাইয়া দিয়াছেন! সেই নির্দ্দিষ্ট মুহূর্তে, আমি খ্রীষ্টের প্রতিরোধ করা বন্ধ করিয়াছিলাম| ইহা এতই স্বচ্ছ যে আমাকে যাহা করিতে হইয়াছিল তাহা হইল কেবল তাঁহাকে বিশ্বাস করা; আমি সেই সঠিক মুহূর্তটি চিহ্নিত করিতে পারিলাম যখন আমি নিবৃত্ত হইলাম এবং শুধুই খ্রীষ্ট থাকিলেন| আমাকে আত্মসমর্পণ করিতে হইয়াছিল! সেই মুহূর্তে সেখানে কোন শারীরিক অনুভূতি বা আচ্ছন্নকারী আলোক ছিল না, আমার কোন অনুভূতির প্রয়োজন হয় নাই, আমার খ্রীষ্ট ছিল! ইহা ছাড়াও যীশুকে বিশ্বাস করিয়া ইহা অনুভূত হইতেছিল যেন আমার পাপ আমার আত্মা হইতে উঠাইয়া লওয়া হইয়াছে| আমি আমার পাপ হইতে ঘুরিয়া দাঁড়াইলাম, এবং আমি শুধু যীশুর প্রতি তাকাইলাম! যীশু আমাকে রক্ষা করিয়াছিলেন|
      সর্ব্বাপেক্ষা নিম্ন যোগ্যতাসম্পন্ন এক পাপীকে ক্ষমা করিতে কিরূপে যীশু আমাকে নিশ্চিতভাবে ভালবাসিয়াছিলেন যিনি একটি উত্তম মন্ডলীতে পালিত হইতেছিলেন এবং তখনও তাঁহার বিরোধীতা করিতেছিলেন! আমার মন পরিবর্তন বর্ণনা করিতে এবং যীশুর প্রতি আমার ভালবাসা ব্যক্ত করিবার জন্য মনে হয় ভাষা খুব কম পাওয়া যাইবে| খ্রীষ্ট আমার নিজের জীবন বিসর্জন দিয়াছেন এবং সেই কারণে আমি আমার সর্বস্য তাঁহাকে দিতেছি| এমনকী আমি তাঁহার মন্ডলীতে থুথু ফেলা এবং তাঁহার পরিত্রাণের বিষয়টিকে উপহাস করা সত্ত্বেও যীশু আমার জন্য ক্রুশের বিনিময়ে তাঁহার সিংহাসন ত্যাগ করিয়াছিলেন; কিরূপে আমি কখনও তাঁহার প্রেম এবং অনুগ্রহ যথেষ্টভাবে প্রচার করিতে পারি? যীশু আমার ঘৃণা এবং ক্রোধ দূরে সরাইয়া দিয়াছেন আর পরিবর্তে প্রেম দিয়াছেন| নূতনভাবে শুরু করার পক্ষে তিনি আমাকে অনেক অধিক কিছু দিয়াছেন - তিনি আমাকে একটি নূতন জীবন দান করিয়াছেন| ইহা একমাত্র বিশ্বাসের দ্বারা হইয়াছে যে আমি জানি যীশু আমার সমস্ত পাপ ধৌত করিয়া দূরে সরাইয়া দিয়াছেন, এবং আমি স্বয়ং বিস্মিত হইয়া দেখিতেছি যে কিরূপে আমার বাস্তব প্রমাণের অভাব আমি জানিলাম, কিন্তু সর্বদা আমি নিজেকে স্মরণ করাই যে ‘‘বিশ্বাস হইল অপ্রত্যাশিত বিষয়ের নিশ্চয়প্রাপ্তি’’ এবং আমি শান্তি খুঁজিয়া পাই ইহা জানিয়া যে যত্নসহ চিন্তা করিবার পর আমার বিশ্বাস যীশুতে নিশ্চল হয়| যীশুই আমার একমাত্র উত্তর|
      ঈশ্বর আমাকে যে অনুগ্রহ করিয়াছেন, যে সমস্ত সুযোগ আমার প্রতি সম্প্রসারিত করিয়াছেন, এবং তাঁহার পুত্রের প্রতি আমাকে সজোরে যে আকর্ষণ করিয়াছেন তাহার জন্য আমি অতীব কৃতজ্ঞ কারণ আমি নিজ ইচ্ছা হইতে যীশুর নিকটে কখনও আসিতে পারিতাম না| এইগুলি কেবলমাত্র শব্দ, কিন্তু আমার বিশ্বাস যীশুতে স্থাপিত হইয়াছে, কারণ তিনি আমাকে পরিবর্তিত করিয়াছেন| তিনি আমার ত্রাণকর্তা, আমার বিশ্রাম, এবং আমার পরিত্রাতা, সর্বদা সেইস্থানে বিরাজ করিতেছেন| তিনি আমাকে অত প্রেম করেন যাহার তুলনায় তাঁহার প্রতি আমার প্রেম মনে হইতেছে অতি নগন্য| আমি কখনও তাঁহার জন্য যথেষ্ট দীর্ঘ সময় ধরিয়া অথবা যথেষ্ট আন্তরিকতার সহিত বাঁচিতে পারি না, আমি খ্রীষ্টের জন্য কখনও অত্যধিক কিছু করিতে পারি না| যীশুর সেবা আমার আনন্দ! কিভাবে ঘৃণা করিতে হয় উহাই আমি সর্বসাকুল্যে জানিতাম যাহার পরেও তিনি আমাকে জীবন এবং শান্তি দিয়াছেন| যীশু হইতেছেন আমার লক্ষ্য এবং অভিমুখ| আমি নিজেকে বিশ্বাস করি না, কিন্তু একমাত্র তাঁহার মধ্যেই আশা রাখিতেছি, কারণ তিনি কখনও আমাকে অকৃতকার্য্য করান নাই| খ্রীষ্ট আমার নিকটে আসিয়াছিলেন, এবং এই কারণে আমি তাঁহাকে ছাড়িয়া যাইব না|

15 বছর বয়সে জন্ শ্যমূয়েল কেগানের মন পরিবর্তনের বিষয়ে এই কথাগুলি বলা হয়েছে| এখন তিনি সেবাকাজে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন| জন্ কেগানের ক্ষেত্রে যেরকম ঘটেছিল একটি প্রকৃত মন পরিবর্তনে সেইরকমই হয়ে থাকে! ঈশ্বর আপনার জন্য অবশ্যই ঠিক তাই করবেন যা তিনি জন্ এর জন্য করেছিলেন!

অধিকাংশ প্রচারক বর্তমানে তাকে দিয়ে অবিলম্বে একটি প্রার্থনার বাক্য পাঠ করাতেন, তারপরে তাকে ব্যাপ্তিষ্ম দিতেন - এবং তাকে আমাদের মন্ডলীর লক্ষ লক্ষ হারানো মানুষদের একজনে পরিণত করাতেন! বর্তমানে আমাদের উদ্দীপনা হচ্ছে না তার প্রথম কারণ হল যে প্রচারকরা ঈশ্বরকে পাপীদের হৃদয়ে কাজ করতে দেন না| তারা পাপীদের ছিনিয়ে নিয়ে ঈশ্বরের কাজ থেকে দূরে সরিয়ে দেন এবং হারানো অবস্থায় ব্যাপ্তিষ্ম দিয়ে দেন! আমি বিশ্বাস করি যে আজকের দিনের প্রায় সমস্ত ব্যাপ্তিষ্ম হচ্ছে হারানো মানুষদের ব্যাপ্তিষ্ম| সেটাই হচ্ছে প্রথম কারণ যে আমাদের কোন উদ্দীপনা হচ্ছে না! বস্তুত প্রত্যেকেই পরিত্রাণপ্রাপ্ত হয়েছেন বলে ঘোষিত হচ্ছেন এবং প্রকৃত মন পরিবর্তন ছাড়াই ব্যাপ্তাইজিত হচ্ছেন! আমি স্বীকার করছি যে আমি স্বয়ং সেই পাপ করতাম| ঈশ্বর, আমাকে ক্ষমা করুন| এছাড়া আর কি কারণে ঈশ্বর 140 বছরেরও বেশি সময় ধরে আমাদের থেকে উদ্দীপনা আটকিয়ে রেখেছেন? এছাড়া আর কি কারণে? ভাল, সেখানে আরও একটি কারণ রয়েছে!

II. দ্বিতীয়ত, সেখানে 140 বছরের বেশি সময় ধরে কোন উদ্দীপনা হয়নি কারণ আমরা খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের তাহাদের পাপ স্বীকার এবং যীশুর রক্ত দ্বারা শুচির তুলনায় পবিত্র আত্মার উপর বেশি জোর দিই |

এটা সেই ধরনেরই কিছু একটা ছিল যা আমি ইতিমধ্যেই জানতাম| কিন্তু সম্প্রতি এটা আমার কাছে আরও স্পষ্টতর হয়ে গিয়েছে| আমি তিনটি উদ্দীপনার প্রত্যক্ষদর্শী হয়েছি| যতদূর সম্ভব প্রথমটি ছিল সবচেয়ে শক্তিশালী - এবং তা পবিত্র আত্মার ‘‘ব্যাপ্তিষ্ম,’’ ভাষা, আরোগ্য, বা অলৌকিক কাজের উপর নির্ভরশীল ছিল না| সেটা সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল ছিল খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের কৃত তাদের পাপের স্বীকারোক্তি দেওয়া এবং খ্রীষ্টের রক্তের দ্বারা নতুনভাবে শুচি হওয়ার উপর|

বর্তমানে আমাদের মন্ডলীতে, যারা প্রকৃতভাবে মন পরিবর্তন করেছিলেন তারা এখনও পাপ ধরে রেখেছেন - হৃদয়ের সমস্ত পাপ, মনের সমস্ত পাপ, মাংসের সব পাপ| প্রথম উদ্দীপনায় আমি দেখেছিলাম, প্রায় সমস্ত মন্ডলী বেদীর সামনে এসে ঈশ্বরের প্রতি পাপ স্বীকার করছিলেন, এবং কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছিলেন যতক্ষণ না ঈশ্বর যীশুর রক্তের মাধ্যমে তাদের শান্তি দিয়েছিলেন| প্রেরিত যোহন বলেছিলেন,

‘‘যদি আমরা আপন আপন পাপ স্বীকার করি, তিনি বিশ্বস্থ ও ধার্ম্মিক, সুতরাং আমাদের পাপ সকল মোচন করিবেন এবং আমাদিগকে সমস্ত অধার্ম্মিকতা থেকে শুচি করিবেন’’ (I যোহন 1:9)|

এবং ঈশ্বর কিভাবে খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের পাপ থেকে শুচি করেন? ‘‘তাঁর পুত্র যীশুর রক্ত আমাদিগকে সমস্ত পাপ হইতে শুচি করে’’ (I যোহন 1:7)|

প্রথমত, বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীন, সমস্ত পাপ স্বীকার করা| দ্বিতীয়ত, আমাদের সমস্ত পাপ যীশুর রক্তের দ্বারা শুচি করা| শুনতে খুব সহজ, নয় কি? তবুও কতগুলি মন্ডলী আজকের দিনে এই বিষয়টির গুরুত্ব দিচ্ছেন? আমি একটির কথাও জানি না যারা তা করছেন| আর সেটাই হচ্ছে দ্বিতীয় কারণ যে 140 বছর যাবৎ আমাদের মধ্যে উদ্দীপনা হচ্ছে না!

ব্রায়ান এডওয়ার্ডসের কথা শুনুন, যিনি প্রকৃত উদ্দীপনার বিষয়ে প্রভূত অধ্যয়ণ করেছিলেন! তিনি বলেছেন,

উদ্দীপনা...ভয়ঙ্কর পাপের চেতনার সহিত শুরু হয়| ইহা প্রায়ই পাপের চেতনার সেই আকার গ্রহণ করে যাহাতে যাহারা উদ্দীপনার বিষয়ে পাঠে করিয়াছে তাহাদের অস্থির করে| কোন কোন সময়ে সেই অভিজ্ঞতা অভিভূত করে| অনিয়ন্ত্রিতভাবে, এবং অধিকতর মন্দভাবে লোকেরা ক্রন্দন করেন! কিন্তু একটি [প্রকৃত] উদ্দীপনায় অনুতাপের অশ্রু এবং দুঃখ ব্যতীত আর কোন বিষয় হয় না (Edwards, Revival, Evangelical Press, 2004, p. 115)|

গভীর, অস্বস্তিকর এবং নম্রভাবে পাপের চেতনা ব্যতীত কোন উদ্দীপনা হয় না (Edwards, ibid., p. 116)|

প্রথম যে উদ্দীপনাটি আমি দেখেছি তাতে মাত্র কয়েকজন খ্রীষ্ট বিশ্বাসী কাঁদছিলেন এবং তাদের পাপ স্বীকার করছিলেন| খুব তাড়াতাড়ি দেখা গেল সমস্ত মন্ডলী সেই লোকদের নিয়ে পূর্ণ হয়ে গেল যারা ঘন্টাধিক সময় ধরে কেঁদেছিলেন, তাদের পাপ স্বীকার করেছিলেন, আর কয়েকজন মৃদু আর্তনাদ করছিলেন| সেটাই ছিল সব| কোন পরভাষা নয়| আত্মার পরিপূর্ণতা নয়| কোন আরোগ্য নয়| আত্মায় কোন হত্যা নয়| শুধু পাপ স্বীকার, কান্না, প্রার্থনা, এবং মৃদুস্বরে গান গাওয়া| ঘন্টার পর ঘন্টা এরকম চলেছিল|

তারপর একদিন বা দুইদিনের জন্য তা বন্ধ হয় - কিন্তু তারপরে আত্মা আবার আসেন - বারে বারে তিন বছরেরও বেশি সময় ধরে আসতে থাকেন| উদ্দীপনা যতদিনে শেষ হয়েছিল ততদিনে 3,000 বেশি লোককে মন্ডলীতে যুক্ত করা হয়েছিল, সেই মন্ডলীতে যা 150 জনেরও কম লোক নিয়ে শুরু হয়েছিল| এবং তারা বাধ্য হয়েছিলেন একটির পরিবর্তে, চারটি সভা চালাতে, প্রত্যেক রবিবার সকালে, আর সেইসঙ্গে রবিবারের রাত্রে আরও দুটি সভা|

কিন্তু আমি বিশ্বাস করি না যে আমাদের মন্ডলীতে কেবলমাত্র আরও বেশি করে লোক পাওয়ার জন্যই আমাদের উচিৎ উদ্দীপনা আসার প্রার্থনা করা| আমাদের প্রকৃত উদ্দেশ্য হওয়া উচিৎ একটি শুচি মন্ডলী পাওয়া! আমাদের একটি পবিত্র মন্ডলী পেতেই হবে!

আমরা পেয়েছি বৃহৎ ধর্ম্মসভা| আমরা পেয়েছি খ্রীষ্ট ধর্ম্মের দূরদর্শন প্রচার| আমরা পেয়েছি আমাদের আরোগ্য দানের সভা| আমরা দেখেছি মন্ডলীগুলিতে পরভাষা রয়েছে এবং তা অন্যান্য অভিজ্ঞতা লাভ করেছে| কিন্তু 140 বছরেরও বেশি সময় ধরে আমেরিকাতে আমরা পাইনি একটি সুসংহতিপূর্ণ ও সংযত, ঐতিহাসিক উদ্দীপনা! এই সমস্ত অন্যান্য বিষয় দিয়ে আমাদের একপাশে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে| পবিত্র আত্মা আমাদের খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের আমাদের পাপের জন্য দোষী করবেন তা আমরা করতে দিচ্ছি না| তাঁর বহুমূল্য, এবং পবিত্র রক্তের দ্বারা আমাদের নতুন করে শুচি করার জন্য আমরা যীশুর কাছে কাঁদছি না!

আমরা আমাদের মন্ডলীতে উদ্দীপনার একটি "স্পর্শ" পেয়েছি| প্রায় 4টি রাত্রের সভাতে 11 জন লোক মন পরিবর্তন করেছেন, দুবার পরীক্ষিত হয়েছেন ডঃ কেগানের দ্বারা, যিনি হলেন একজন বিশেষজ্ঞ| আর তিনি বলেছেন সেই 11 জনের সকলেই মন পরিবর্তন করেছেন| এছাড়া আমাদের কাছে প্রায় 8 জন খ্রীষ্ট বিশ্বাসী রয়েছেন যারা তাদের সমস্ত পাপ স্বীকার করেছেন এবং প্রত্যেক রাত্রে চোখের জলে প্রার্থনা করেছেন| আমাদের মন্ডলী শুরু হওয়া অবধি, 41 বছরের মধ্যে আমরা এইরকমের একটি সভা কখনও পাইনি|

কিন্তু তার পরে আমি পাপ করেছিলাম| ডঃ কেগান আমাকে বলেছিলেন তাকে ‘‘পাপ’’ না বলতে| কিন্তু আমি মনে করছি যে আমি পাপ করেছিলাম| আমি গর্বিত হয়েছিলাম, গর্বিত এই কারণে যে আমাদের উদ্দীপনা হয়েছিল! উদ্দীপনা কেবলমাত্র শুরু হয়েছিল সত্যিই| কিন্তু আমি চেতনা এবং যীশুর রক্তের বিষয়ে প্রচার বন্ধ করে দিয়েছিলাম| আমি সভার ভার অন্য আর একজনের উপর দিয়েছিলাম, এবং গুরুত্ব যীশুর উপর থেকে সরে পবিত্র আত্মার প্রতি ঘুরে গিয়েছিল| আমার স্মরণে রাখা উচিৎ ছিল সেই কথা যা যীশু পবিত্র আত্মা সম্বন্ধে বলেছিলেন, ‘‘তিনিই আমার বিষয় সাক্ষ্য দিবেন’’ (যোহন 15:26)| আমার একদম উচিৎ হয়নি অন্য কাউকে সেখানে আসতে দেওয়া এবং পবিত্র আত্মার বিষয়ে প্রচার করানো| সেইগুলিই আমার পাপ ছিল| অহংকারের পাপ এবং অনুমানের পাপ| এবং আমি সেটা আপনাদের সকলের সামনে আজ রাত্রে স্বীকার করছি| আমার অহংকারের পাপ এবং আমার অনুমানের পাপ| অনুগ্রহ করে, প্রত্যেকে, প্রার্থনা করুন যাতে যীশুকে অবজ্ঞা করার এবং স্বীকারোক্তি দেওয়ার জন্য ঈশ্বর আমাকে ক্ষমা করেন (তারা সবাই প্রার্থনা করলেন)| এবার অনুগ্রহ করে প্রার্থনা করুন যে ঈশ্বর আমাদের কাছে আবার ফিরে আসবেন, যেমন আমি দেখেছিলাম তিনি প্রথম উদ্দীপনায় করেছিলেন| আমাদের প্রতি ফিরে আসার জন্য ঈশ্বরের উপস্থিতির প্রার্থনা করুন| অনুগ্রহ করে সজল চোখে প্রার্থনা করুন, যেমন চীনদেশে তারা করতেন (তারা প্রার্থনা করলেন)| অনুগ্রহ করে উঠে দাঁড়ান এবং গান করুন, ‘‘হালেল্লুইয়া, কি মহান পরিত্রাতা|’’ এবার ‘‘জীবন্ত ঈশ্বরের আত্মা’’ এই গানটি করুন| এখন করুন ‘‘হে ঈশ্বর, আমাকে অনুসন্ধান কর’’ গানটি| এখন ‘‘আমার সমস্ত দর্শন পূর্ণ কর’’ এই গানটির প্রথম ও শেষ স্তবকটি গান| মিস্ নগুইন, অনুগ্রহ করে ঈশ্বরের আবার নেমে আসার জন্য প্রার্থনা করুন| এখানে অনেক লোক রয়েছেন যারা এখনও হারানো এবং নীতি পালনে পশ্চাদ্পদ| ঈশ্বর তাদের জন্য নেমে আসুন তার জন্য প্রার্থনা করুন|

যারা চাইছেন যে উদ্দীপনা আবার আপনাদের মধ্যে ফিরে আসুক, তারা উঠে দাঁড়ান এবং ঈশ্বরের আবার নেমে আসার জন্য প্রার্থনা করুন| চীনদেশে যেমন করে তারা প্রার্থনা করতেন তেমনভাবে প্রার্থনা করুন| যারা নিজেদের পাপ স্বীকার করতে চাইছেন, বেদীর কাছে চলে আসুন| যারা যীশুর রক্তের দ্বারা শুচি হতে চাইছেন, তারা এখানে নেমে আসুন এবং আপনাদের পাপ স্বীকার করুন| যারা চাইছেন যীশু তাদের পরিত্রাণ দিবেন, তারাও আসুন| সাউদার্ণ ব্যাপটিষ্টের একজন সাধারন মানুষ যিনি হারানো মানুষ হিসাবে 25 বছর ধরে আমাদের মন্ডলীতে উপস্থিত হচ্ছেন, এগিয়ে আসলেন এবং একটি সত্যিকারের মন পরিবর্তনের অভিজ্ঞতা নিয়ে যীশুতে বিশ্বাস স্থাপন করলেন| আমেন|


যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তাহলে ডঃ হাইমার্স আপনার কাছ থেকে কিছু শুনতে চান| যখন আপনি ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখবেন তখন অবশ্যই তাকে জানাবেন যে কোন দেশ থেকে আপনি তাকে লিখছেন নয়ত তিনি আপনার ই-মেলের জবাব দিতে সক্ষম হবেন না| যদি এই প্রচার আপনাকে আশীর্বাদ দান করেছে তবে ডঃ হাইমার্সকে একট ই-মেল পাঠান এবং তাকে সেইকথা জানান, কিন্তু কোন দেশ থেকে আপনি লিখছেন চিঠিতে সেটা অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত করবেন| ডঃ হাইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net (এখানে ক্লিক করুন) | আপনি যে কোন ভাষায় ডঃ হাইমার্সকে চিঠি লিখতে পারেন, কিন্তু যদি পারেন তো ইংরাজিতেই লিখুন| যদি আপনি ডঃ হাইমার্সকে ডাক-ব্যবস্থার মাধ্যমে চিঠি পাঠাতে চান, তবে তার ঠিকানা হল P.O. Box 15308, Los Angeles, CA 90015 | আপনি তাকে (818)352-0452 নম্বরে ফোন করতে পারেন|

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে গিয়ে পড়তে পারেন| ক্লিক করুন “প্রচার পান্ডুলিপি|”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মিঃ এরন ইয়ান্সি: II তিমথীয় 3:1-5 |
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
      “Farther Along” (by W. B. Stevens, 1862-1940; arranged and altered
by Barney E. Warren, 1867-1951) |


খসড়া চিত্র

দুটি কারণ যে কেন আমেরিকা এবং
পাশ্চাত্যের মন্ডলীগুলি উদ্দীপনার
অভিজ্ঞতা লাভ করে না

THE TWO REASONS WHY THE CHURCHES IN AMERICA
AND THE WEST DON’T EXPERIENCE REVIVAL

লেখক : ডঃ আর. এল. হেইমার্স, জুনিয়র

‘‘কিন্তু ইহা জানিও, শেষ কালে বিষম সময় উপস্থিত হইবে| কেননা মনুষ্যেরা আত্মপ্রিয়, অর্থপ্রিয়, আত্মশ্লাঘী, অভিমানী, ধর্ম্মনিন্তক, পিতা-মাতার অবাধ্য, অকৃতজ্ঞ, অসাধু, স্নেহরহিত, ক্ষমাহীন, অপবাদক, অজিতেন্দ্রীয়, প্রচন্ড, সদ-বিদ্বেষী, বিশ্বাসঘাতক, দুঃসাহসী, গর্ব্বান্ধ, ঈশ্বর প্রিয় নয়, বরং বিলাস প্রিয় হইবে; লোকে ভক্তির অবয়বধারী, কিন্তু তাঁহার শক্তি অস্বীকারকারী হইবে; তুমি এইরূপ লোকদের হইতে সরিয়া যাও| ইহাদের মধ্যে এমন লোক আছে, যাহারা ছলপূর্বক গৃহে গৃহে প্রবেশ করিয়া পাপে ভারাক্রান্ত ও নানাবিধ অভিলাষে চালিত যে স্ত্রীলোকেরা সতত শিক্ষা করে, তথাপি সত্যের তত্ত্বজ্ঞান পর্য্যন্ত পঁহুছিতে পারে না, তাহাদিগকে বন্দী করিয়া ফেলে’’ (II তিমথীয় 3:1-7)|

(II তিমথীয় 3:13, 5; I করিন্থীয় 2:14)

I.   প্রথমত, সেখানে 140 বছরের বেশি সময় ধরে কোন বৃহত্তর উদ্দীপনা হচ্ছে না
কারণ আমরা বস্তুত কেবলমাত্র হারানো লোকদেরই ব্যাপ্তিষ্ম দিই!
যোহন 16:8, 9, 14; 15:26; 6:44; মার্ক 10:26, 27 |

II.  দ্বিতীয়ত, সেখানে 140 বছরের বেশি সময় ধরে কোন উদ্দীপনা হয়নি কারণ
আমরা খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের তাহাদের পাপ স্বীকার এবং যীশুর রক্ত দ্বারা শুচির
 তুলনায় পবিত্র আত্মার উপর বেশি জোর দিই, I যোহন 1:9, 7; যোহন 15:26 |