Print Sermon

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন প্রতি মাসে 215টিরও বেশি দেশের প্রায় 116,000 কম্প্যুটারে www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটে পাঠানো হয়| আরও শত শত লোক ইউ টিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু খুব শীঘ্রই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান, কারণ প্রত্যেকটি ভিডিও প্রচার তাদেরকে আমাদের ওয়েবসাইটের দিকে পরিচালিত করে| ইউটিউব আমাদের ওয়েব সাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 37টি ভাষায় প্রচারিত হয় হাজার হাজার লোকের কাছে| প্রচারের এই সব পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখন আপনি ডঃ হেইমার্সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




নোহের সময় এবং লোটের সময়

(আদিপুস্তকের ৭৭তম প্রচার)
THE DAYS OF NOAH AND THE DAYS OF LOT
(SERMON #77 ON THE BOOK OF GENESIS)
(Bengali)

লেখকঃ ডঃ আর. এল. হাইমারস, জুনি.
by Dr. R. L. Hymers, Jr.

২০১৪ সালে ১৮ই মে, লস আঞ্জেলেসের ব্যাপটিস্ট ট্যাবারন্যাকেলে
সদাপ্রভুর দিনে এক সকালে একটি সংবাদ প্রচারিত হয়েছিল।
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord’s Day Morning, May 18, 2014

“আর নোহের সময়ে যেরূপ হইয়াছিল, মনুষ্যপুত্রের সময়েও তদ্রূপ হইবে। লোকে ভোজন করিত, পান করিত, বিবাহ করিত, বিবাহিত হইত, যে পর্যন্ত না নোহ জাহাজে প্রবেশ করিলেন, আর জলপ্লাবন আসিল, সকলকে বিনষ্ট করিল। সেইরূপ লোটের সময়ে যেরূপ হইয়াছিল; লোকে ভোজন করিত, পান করিত, ক্রয় করিত, বিক্রয় করিত, বৃক্ষ রোপণ করিত, গৃহ নির্মান করিত; কিন্তু যেদিন লোট সদোম হইতে বাহির হইলেন সেই দিন স্বর্গ হইতে অগ্নি ও গন্ধক বর্ষিল, সকলকে বিনষ্ট করিল। মনুষ্যপুত্র যেদিন প্রকাশিত হইবেন সে দিনেও সেইরূপ হইবে।” (লূক ১৭:২৬-৩০)|


এই পাঠটি থেকে আপনি তিনটি বিষয় খুঁজে পাবেন। প্রথম, আপনি লক্ষ্য করবেন যে দুটি মহান উদাহরণ যীশু এখানে ব্যবহার করেছেন – নোহের সময়ের জলপ্লাবন, এবং সদোম নগরীর উপরে অগ্নি ও গন্ধক বর্ষন। দ্বিতীয়, ২৭ পদের শেষ চারটি শব্দ লক্ষ্য করুন, “এবং সকলকে বিনষ্ট করিল।” এরপর লক্ষ্য করুন ২৯ পদের শেষ চারটি শব্দ, “এবং সকলকে বিনষ্ট করিল।” তারপর দেখুন ৩০ পদ, “মনুষ্যপুত্র যেদিন প্রকাশিত হইবেন সে দিনেও সেইরূপ হইবে।” এখানে যীশু খ্রীষ্টের দ্বিতীয় আগমনের কথা বিচারের সময়ে উল্লেখ করা হয়েছে যা এই অবিশ্বাসী পৃথিবীর উপরে আসবে।

নোহের সময়ে লোকেরা অপ্রস্তুত ছিল – তাই তারা প্রত্যেকে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। লোটের সময়েও লোকেরা প্রস্তুত ছিল না - তাই তারা প্রত্যেকে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। ভোজন করা এবং পান করা এবং বিবাহ করা কোনো ভুল কাজ নয়, কিন্তু সম্পূর্ণ রূপে এইসব বিষয়গুলিতেই সবাই লিপ্ত হয়ে পড়েছিল! তারা নোহ বা লোটের কথায় কর্ণপাত করেনি, তাই তারা প্রত্যেকে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল।

এবার আমরা দেখব এই দুই শ্রেণীর লোকদের বিষয় এবং দেখব কেন তারা বিচারের জন্য প্রস্তুত ছিল না। কিন্তু প্রথমেই আমার বলে রাখা উচিত যে বাইবেল আমাদের শিক্ষা দেয় ঈশ্বর হলেন কোপ এবং বিচারের ঈশ্বর। আমি জানি এই বিষয়টা এখন আর কেউ বিশ্বাস করেন না। তারা বারবার বলে, “আমি বিচারকর্ত্তা ঈশ্বরকে বিশ্বাস করিনা।” কিন্তু এই বিষয়টা তাদের বিশ্বাসের উপরে নির্ভর করে না। ঈশ্বর আপনার কল্পনার কোনো অলীক বস্তু নন। ঈশ্বর আপনার চিন্তার বাইরেও বিদ্যমান। আপনি বিশ্বাস করুন বা না ঈশ্বর সর্বদা বিদ্যমান। তাই আপনি যদি “বিচারকারী ঈশ্বরকে বিশ্বাস নাও করেন” তাতে কোনো কিছুই যায় আসে না। কারন ঈশ্বরের উপস্থিতি আপনার বিশ্বাসের উপর কোনোভাবেই নির্ভর করে না, আপনি যা কিছু চিন্তা করেন সেটা কোন কিছুকেই পরিবর্তন করে না! আপনি যদি বলেন, “সানফ্রান্সিসকো নামে কোনো জায়গা নেই।” তাহলে কি সানফ্রান্সিসকো উধাও হয়ে যাবে? নিশ্চয় নয়! আপনি বলতে পারেন, “আমি বিশ্বাস করি না যে সানফ্রান্সিসকোতে ট্রলি গাড়ি আছে।” তাহলে কি সেই শহরের সব ট্রলি গাড়ি শহর থেকে দূরে চলে যাবে? নিশ্চয় নয়! আর একই ভাবে আমাদের ঈশ্বর। আপনি যদি বলেন, “আমি বিচারকর্ত্তা ঈশ্বরকে বিশ্বাস করি না,” তাতে সত্য পরিবর্তন হয় না। আপনি বিশ্বাস করুন বা না, ঈশ্বর আপনার চিন্তার বাইরে বিদ্যমান - এবং তিনি বিচারকর্ত্তা ঈশ্বর এবং পাপের বিরদ্ধে তাঁর কোপ প্রকাশ করেন – এটা আপনি বিশ্বাস করুন বা না করুন।

এমনকি নোহের সময়ের লোকেরাও আপনার মতো একইভাবে চিন্তা করত। তাদের ঈশ্বর সম্পর্কে একটা ধারনা ছিল – কিন্তু, আপনার মতো, তারা ভেবেছিল ঈশ্বর বিচারকর্ত্তা ঈশ্বর নন! এবং, ঠিক আপনারই মতো, তারা ভুল করেছিল – যেটা ছিল একটা চরম ভুল! এবং সেই কারনে ঈশ্বর মহাপ্লাবন পাঠালেন, “এবং সকলকে বিনষ্ট করিলেন” (লূক ১৭:২৭)।

আর সেই একই ঘটনা ঘটেছিল সদোম শহরেও। সদোমের লোকেরা ভেবেছিল ঈশ্বর তাদেরকে কখনই বিচার করবেন না। নোহের সময়ে লোকেরা তার কথায় কর্ণপাত করেনি। সদোমের লোকেরাও লোটের সাবধান বানী শোনেনি। তার নিজের জামাতা ভেবেছিল যে লোট কেবল মাত্র তাদের “ব্যঙ্গ” করার উদ্দেশ্যে আগামী বিচারের কথা বলছেন। কিন্তু তারা ভুল করেছিল। বিচার তাদের উপরে নেমে আসে “এবং সকলকে বিনষ্ট করে” (লূক ১৭:২৯)।

যীশু ত্রিশ পদে সেই সাবধান বানী শেষ করলেন, এই বলে,

“মনুষ্যপুত্র যেদিন প্রকাশিত হইবেন সে দিনেও সেইরূপ হইবে।” (লূক ১৭:৩০).

আমি বিশ্বাস করি আমরাও সেই একই সময়ে বাস করছি। কেউ জানে না এই পাপী প্রজন্মের উপরে কখন ঈশ্বরের বিচার নেমে আসবে। কিন্তু প্রত্যেকটা চিহ্ন আমাদের ইঙ্গিত দেয় যে পৃথিবীর শেষ সময় উপস্থিত। এবং বাইবেল বলে, “তুমি আপন ঈশ্বরের সহিত সাক্ষাৎ করিতে প্রস্তুত হও” (আমোষ ৪:১২)। লিবার্টি ইউনিভারসিটির ডঃ এড হিন্ডসন বলেছেন,

         খ্রীস্টিয় চিন্তাধারা যা একটা সময়ে পাশ্চাত্য জগতের উপরে কর্তৃত্ত্ব করত তা আজকে ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়ে গিয়েছে আর তা উদ্ধার করা অসম্ভব। আমরা ধর্মনিরপেক্ষতা, আত্মীয়তা এবং রহস্যময়তার চোরাবালিতে ইতিমধ্যেই নিমজ্জিত হয়ে পড়েছি...
         অন্তিম সময়ের অন্তিম চিহ্ন কার্য্যগুলি প্রকাশ হবার সময় উপস্থিত। পরিবর্তন এবং উন্নতি এত দ্রুত গতিতে হচ্ছে যে আমরা একটা অজানা সঙ্কটের দিকে ছুটে চলেছি যা পৃথিবী এখনও জানে না। প্রত্যেকটা ঘটনা আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয় যে “বৃহৎ কিছু” খুব নিকটেই এসে পড়েছে (এড হিন্ডসন, পি এইচ. ডি., ফাইনাল সাইনস, হারভেস্ট হাউস পাবলিশার্স, ১৯৯৬, পৃষ্ঠা. ৬৫, ৭)|

আপনি কি ঈশ্বরের সাথে সাক্ষাৎ করতে প্রস্তুত? আপনি কি খ্রীষ্টের আগমন এবং এই সময়ের শেষ দেখার জন্য প্রস্তুত? শিষ্যেরা যীশুকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, “আর আপনার আগমনের, এবং যুগান্তের চিহ্ন কি?” (মথি ২৪:৩)। যীশু তাদের তিরস্কার করেননি। পরিবর্তে তিনি তাদেরকে অনেক চিহ্নের কথা বলেছিলেন যাতে পৃথিবীর প্রত্যেকে জানতে পারে যে সময় সন্নিকট। আমার বিশ্বাস যে আমরা এখন সেই সময়েই বাস করছি – এই মূহুর্তে। যীশু বলেছিলেন এটি নোহের সময়ের মতই হবে, মহাপ্লাবনের বিচারের আগে – এবং লোটের সময়ের মত, ঈশ্বরের অগ্নি নিক্ষেপের পূর্বে। ডঃ এম. আর. ডিহান বলেছেন,

         যীশু খ্রীষ্টের আগমনের চিহ্ন প্রত্যাখ্যান করার কোনো সুযোগ নেই। খুলে রাখা বাইবেলে আমরা সম্পূর্ণ পাঁচটি অধ্যায় পড়ে নিতে পারি মাত্র তিরিশ মিনিটের মধ্যে যেখানে যীশু দেখান “নোহের দিন গুলি এবং লোটের দিনগুলি”। নোহের সময় এবং লোটের সময়ের মধ্যে অনেক কিছু মিল আছে। সেই দিনগুলি ছিল প্রবল প্রাচুর্য্যের দিন। যীশু বলেন তারা সবাই ভোজন এবং পান করছিল...ইহা ঔদরিক এবং মদ্যপানকারীর অর্থ প্রকাশ করে। যদি কোন যুগে সেই একই সময়ের পুনরাবৃত্তি ঘটে, সেটি হল আমাদের এই আধুনিক যুগ; কারন, নোয়াহ এবং লোটের সময়ের পর, এই যুগেই সব থেকে বেশী “ঔদরিক এবং মদ্যপানকারীদের” খুঁজে পাওয়া যায়।
         এর পরে যীশু নোহ এবং লোটের সময়ের যে বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন...সেটি হল যৌনতার দুর্ব্যবহার...আমাদের আরো কিছু করার প্রয়োজন আছে কেবল এই আধুনিক সময়ের মধ্যে আমরা সেই বিষয়ের সমান্তরাল দিকটি খুঁজে পাই। সমগ্র ইতিহাসে সব থেকে বেশী এই প্রজন্মের মধ্যে আমরা খুঁজে পাই কিভাবে পারিবারিক পবিত্রতার চরম অবনতি ঘটেছে... সর্বত্র অসাধুতা, বিবাহবিচ্ছেদের সংখ্যা দ্বিগুণ, তিনগুন এবং বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে এক প্রজন্মেই...সাধারন অসাধুতাময় পাপ ছিল প্রধান উপলক্ষ্য [সদোমের] উপরে ঈশ্বরের বিচার নেমে আসার...যেভাবে মহাপ্লাবনের পূর্বে শেষ কুটোটি ছিল ঈশ্বরের পুত্রগন এবং মনুষ্যদের কন্যাগনের মধ্যে অবৈধ সম্পর্ক শুরু হয়েছিল (এম. আর. ডিহান, এম. ডি., দ্যা ডেস অফ নোহ, যোনডারভান পাবলিশিং হাউস, ১৯৬৩, পৃষ্ঠা. ৮০-৮২)।

আমি আপনাদের মনে করিয়ে দিতে চাই যে যীশু বলেছিলেন,

“আর নোহের সময়ে যেরূপ হইয়াছিল... একইভাবে হইয়াছিল লোটের সময়ে... মনুষ্যপুত্র যেদিন প্রকাশিত হইবেন সে দিনেও সেইরূপ হইবে।” (লূক ১৭,২৬,২৮,৩০)|

আর খ্রীষ্ট ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে ভয়ঙ্কর বিচার নেমে আসবে এই খ্রীষ্ট-অস্বীকারকারী, ঈশ্বর বিহীন প্রজন্মের উপরে। যীশু বলেছিলেন,

“কেননা তৎকালে এরূপ মহাক্লেশ উপস্থিত হইবে, যেরূপ জগতের আরম্ভ অবধি এ পর্য্যন্ত কখনও হয় নাই, না, আর কখনও হইবেও না। আর সেইদিনের সংখ্যা যদি কমাইয়া দেওয়া না যাইত, তবে কোনো প্রানীই রক্ষা পাইত না...” (মথি ২৪:২১,২২)|

বাইবেল বলে সেই ক্লেশের সময়ে ঈশ্বর সাতটি পাত্র (বা বাটি) ভর্তি কোপ এই পৃথিবীর উপরে ঢেলে দিচ্ছেন। যা ভবিষ্যৎবানী করা হয়েছে প্রকাশিত বাক্যের ষোড়শ অধ্যায়ে (এন এ এস ভি থেকে),

প্রথম বাটির বিচারে মনুষ্যদের গাত্রে ব্যথাজনক দুষ্ট ক্ষত জন্মিবে (২ পদ)|

দ্বিতীয় বাটির বিচারে সমুদ্র মৃত লোকের রক্তের তুল্য হইবে (৩ পদ)|

তৃতীয় বাটির বিচারে নদী ও জলের ঝরণা সকল রক্ত হইয়া গেল (৪ পদ)|

চতুর্থ বাটির বিচার সুর্য্যের উপরে ঢালা হইবে, তাহাতে অগ্নি দ্বারা মনুষ্যদিগকে তাপিত করিবার ক্ষমতা তাহাকে দত্ত হইবে, তখন মনুষ্যেরা মহা উত্তাপে তাপিত হইবে (পদ ৮,৯)|

পঞ্চম বাটির বিচার সমস্ত রাজ্যকে অন্ধকারময় করিবে এবং লোকেরা বেদনা প্রযুক্ত আপন আপন জিহ্বা চর্বন করিবে (পদ ১০)|

ষষ্ট বাটির বিচার ইউফ্রেটিস মহানদীতে ঢালা হইবে, তাহাতে নদী শুষ্ক হইয়া যাইবে (পদ ১২)|

সপ্তম বাটির বিচারে এক মহা ভূমিকম্প উপস্থিত হইবে এবং জাতিগনের নগরসকল পতিত হইবে, এবং মনুষ্যদের উপরে বৃহৎ বৃহৎ শিলাবৃষ্টি হইবে (পদ ১৯,২১)|

লোকেরা কী অনুশোচনা করবে? না! অনুশোচনা করার জন্য খুব দেরী হয়ে যাবে! “এই শিলা-বৃষ্টিরূপ আঘাত প্রযুক্ত মনুষ্যেরা ঈশ্বরের নিন্দা করিল” (প্রকাশিত বাক্য ১৬:২১)। বাইবেল বলে,

“রাত্রিকালে যেমন চোর তেমনি প্রভুর দিন আসিতেছে। লোকে যখন বলে, শান্তি ও অভয়; তখনই তাহাদের কাছে আকস্মিক বিনাশ উপস্থিত হয়, যেমন গর্ভবতীর প্রসব-বেদনা উপস্থিত হইয়া থাকে; আর তাহারা কোন ক্রমে এড়াইতে পারিবে না” (১ম থিসালনিয়ানস ৫:২-৩)|

শুধুমাত্র সত্য খ্রীষ্টিয়ান, যারা সত্য মন-পরিবর্তনের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন, তারাই কেবলমাত্র এই সমস্ত ভয়ঙ্কর ঘটনার আগেই স্বর্গে উত্তোলিত হবে। কিন্তু বেশিরভাগ তথাকথিত “খ্রীষ্টিয়ানেরা” এখানে পড়ে থাকবে। খ্রীষ্ট তাদের প্রতি বলবেন, “আমি তোমাদের চিনি না” (মথি ২৫:১২)।

আমরা প্রায়ই এই বিষয়ের উপরে প্রচার শুনে থাকি। কিন্তু, অদ্ভুতভাবে, আজকাল এই বিষয়টির উপরে খুব বেশী প্রচার শুনতে পাওয়া যায় না। ১৯৬৯ সালে বিলি গ্রাহাম বলেছিলেন,

শেষকাল সম্পর্কে বাইবেল এই শিক্ষা দেয়, এই সময় এতটাই ভীষণ বিপদ, যুদ্ধ, বিনাশ, অন্যায়, অসাধুতা উপস্থিত হবে যে ঈশ্বর নিজে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবেন...নিউজিল্যান্ডে মানবতাবাদী লোকেরা আমাদের সভা বন্ধ করে দেয়, পোস্টার হাতে নিয়ে বলে, “বিলি গ্রাহামকে আপনাদের ভয় দেখানোর সুযোগ দেবেন না”(বিলি গ্রাহাম,“দ্য ডে টু কাম,” দ্য চ্যালেঞ্জঃ সারমন্‌স ফ্রম ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেন, ডাবলডে এন্ড কোম্পানি, ১৯৬৯, পৃষ্ঠা. ১৬৪)।

কিছুদিন আগেই মারা যান এমন একজন প্রচারক নেতা আমাকে এবং আমার পরিবারকে বলেন যে বিলি গ্রাহামের প্রচার ছিল “তড়িৎশক্তির মত উদ্দীপনা দানকারী।” হ্যাঁ, কিন্তু সেই ধরনের প্রচারক আজকে কোথায়? বেশিরভাগ প্রচারকেরাই এতটা ভীতু যে তারা আগামী বিচার এবং নরকের আগুন সম্পর্কে প্রচার করতে চান না! একজন ব্যক্তি আমাকে বলেছিলেন যে আমি ভীষণ প্রাচীন চিন্তা-সম্পন্ন, একটি ডাইনোসর, আমার যোয়েল ওস্টীন’র মত নমনীয় প্রচার করা উচিত, আর এমনকি আমার উচিৎ অনেক রক্ষণশীল, এবং মুখ্য প্রচারকদের মতন প্রচার করা। আমি তাকে উত্তর দিই ২য় তিমথীয় ৪:২-৪ পদে উদ্ধৃত অংশ থেকে,

“তুমি বাক্য প্রচার কর; কার্য্যে অনুরক্ত হও সময়ে, অসময়ে; পুণঃপ্রমান কর, ধিক্কার দাও, জোর দাও দীর্ঘ যাতনার মুক্তির জন্য আর শিক্ষাদান পুর্বক অনুযোগ কর। কেননা এমন সময় আসিবে যে সময়ে লোকেরা নিরাময় শিক্ষা সহ্য করিবে না; আপন আপন অভিলাষ অনুসারে আপনাদের জন্য রাশি রাশি গুরু ধরিবে, আর কানচুলকানি বিশিষ্ট হইবে; এবং সত্য হইতে কান ফিরাইয়া, গল্পের দিকে বিপথে যাইবে” (২য় তিমথীয় ৪:২-৪)|

এটা বিস্ময়কর নয় যে আজকে আমাদের মণ্ডলীগুলি হারিয়ে যাওয়া মানুষে পরিপূর্ণ! পুরোহিতেরা পুরানো ধর্ম-সম্বন্ধীয় এবং পুরানো প্রচারকদের মত প্রচার করতে ভয় পান!

ঈশ্বরদত্ত কাজ শুধু আমার বাইবেলের প্রত্যেকটা পদ ধরে ধরে শিক্ষা দেবার জন্য নয়। আমার কাজ হল “বাক্য প্রচার করা|” গ্রহণ করুন অথবা পরিত্যাগ করুন! আমি সেটাই আপনাদের দিয়েছি যেটা বাইবেল বলে!

“আর নোহের সময়ে যেরূপ হইয়াছিল... একইভাবে হইয়াছিল লোটের সময়ে... মনুষ্যপুত্র যেদিন প্রকাশিত হইবে সে দিনেও সেইরূপ হইবে।” (লূক ১৭,২৬,২৮,৩০)|

এটা যদি আপনার জন্য অতিরিক্ত “উদ্দীপনা” প্রদানকারী হয়, তাহলে ঈশ্বর আপনাকে সাহায্য করুন! আপনি বড় এক বিপদের কবলে পড়বেন যখন বিচারের দিন উপস্থিত হবে!

এখন, ঈশ্বরের বিচারের হাত থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য আপনাকে কি করতে হবে? আপনাকে ঠিক সেটাই করতে হবে যা লোট এবং নোহ করেছিলেন!

ঈশ্বর লোটকে বলেছিলেন সদোম থেকে পালিয়ে যেতে। ঈশ্বর বলেছিলেন, “প্রান রক্ষার্থে পলায়ন কর; পশ্চাৎ দিকে দৃষ্টি করিও না...পাছে বিনষ্ট হও”(আদিপুস্তক ১৯:১৭)। আপনি যদি উদ্ধার পাবার আশা করেন, তাহলে আপনাকে এই ভাবেই করতে হবে। ঈশ্বর বিহীন জীবনযাপন থেকে বেরিয়ে আসুন। ঈশ্বর বলেন, “তোমরা তাহাদের মধ্য হইতে বাহির হইয়া আইস, ও পৃথক হও...এবং আমি তোমাদিগকে গ্রহণ করিব” (২য় করিন্থীয় ৬:১৭)। যারা মন্ডলীতে যায় না তাদের সঙ্গ ছেড়ে দিন। তাদের কাছ থেকে সরে দাঁড়ান যারা নিরন্তর পাপ করে চলেছে এবং যারা ঈশ্বরের সম্বন্ধে কোন চিন্তা করে না। সেটাই লোটকে করতে হয়েছিল, এবং সেই একই কাজ আপনাকেও করতে হবে। পাপময় জগত থেকে বেরিয়ে আসুন, এবং মণ্ডলীতে প্রবেশ করুন যার দরজা সবসময় আপনার জন্য খোলা! আর মন্ডলীতে একদল নতুন বন্ধু পাতান!

কিন্তু এটাই সব কিছু নয়! আপনাকে সেটাও করতে হবে যেটা নোহ করেছিলেন। ঈশ্বর নোহকে বললেন,

“তুমি এস...জাহাজে প্রবেশ কর” (আদিপুস্তক ৭:১)|

“তখন ঈশ্বর নোহকে কহিলেন, আমার গোচরে সকল প্রানীর অন্তিমকাল উপস্থিত; কেননা তাহাদের দ্বারা পৃথিবী দৌরাত্মে পরিপূর্ণ হইয়াছে; আর, দেখ, আমি পৃথিবীর সহিত তাহাদিগকে বিনষ্ট করিব” (আদিপুস্তক ৬:১৩)|

“তুমি এস...জাহাজে প্রবেশ কর” (আদিপুস্তক ৭:১)|

জাহাজটি ছিল, খ্রীষ্টের একটি ইঙ্গিত, বা একটি চিত্র। খ্রীষ্টের কাছে আসুন। খ্রীষ্ট বলেছেন, “আমার কাছে আইস” (মথি ১১:২৮)। নোহ সেই জাহাজে প্রবেশ করেছিলেন – এবং তিনি সেই বিচারের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন। আপনাকেও প্রবেশ করতে হবে – খ্রীষ্টের মধ্যে। খ্রীষ্ট তাঁর রক্তের দ্বারা আপনাকে আপনার সমস্ত পাপ থেকে পরিস্রুত করবেন, যে রক্ত তিনি ক্রুশে ঝরিয়েছেন| বিশ্বাসে খ্রীষ্টের কাছে আসুন! তিনি মৃত্যুকে জয় করেছেন। তিনি আপনাকে অনন্ত জীবন দিতে পারেন – এবং তিনিই আসন্ন কোপের হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবেন।

পাপকে পিছনে ফেলে এগিয়ে আসুন, যেভাবে লোট করেছিলেন। খ্রীষ্টেতে প্রবেশ করুন, যেভাবে নোহ করেছিলেন। ঈশ্বর যেন আপনাকে জাগ্রত করেন এবং তাঁর দিকে যেন আপনাকে আকর্ষণ করেন সেইরকম কাজ করার জন্য!

আপনি যদি এই বিষয়ে আমাদের সঙ্গে কথা বলতে চান, দয়া করে আপনার চেয়ার ছেড়ে প্রেক্ষাগৃহের পিছনে আসুন। ডঃ কাগান আপনাদের একটি ঘরে নিয়ে যাবেন যেখানে আমরা এই বিষয়ে কথা বলতে পারবো। ডঃ চ্যান, দয়া করে প্রার্থনা করুন যেন আজকের সকালে কেউ একজন যীশুকে বিশ্বাস করেন! আমেন।

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডাঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে
www.realconversion.com এই সাইটে পড়তে পারেন। ক্লিক করুন “সংবাদের হস্তলিপি”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাস্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মিঃ আবেল প্রধুম্মে: ২য় পিতর ২:৪-৯ |
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মিঃ বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
“In Times Like These” (by Ruth Caye Jones, 1902-1972).