Print Sermon

এই ওয়েবসাইটের উদ্দেশ্য হল ধর্ম্মোপদেশের পান্ডুলিপি এবং ধর্ম্মোপদেশের ভিডিওগুলি বিশ্বব্যাপী পালক ও মিশনারিদের বিনামূল্যে সরবরাহ করা, বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বে, যেখানে ধর্ম্মতত্ত্বমূলক সেমিনারী বা বাইবেল স্কুল থাকলেও খুব কম রয়েছে|

এই সমস্ত প্রচারের পান্ডুলিপি এবং ভিডিওগুলি এখন www.sermonsfortheworld.com ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রতি মাসে 221টিরও বেশি দেশের প্রায় 1,500,000 কম্প্যুটারে যায়| শত শত লোক ইউটিউবের ভিডিওর মাধ্যমে এগুলি দেখেন, কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই তারা ইউটিউব ছেড়ে বেরিয়ে যান এবং আমাদের ওয়েবসাইটে চলে আসেন| ইউটিউব আমাদের ওয়েবসাইটে লোক এনে দেয়| প্রচারের এই পান্ডুলিপিগুলি প্রতি মাসে 38টি ভাষায় প্রায় 120,000 কম্প্যুটারে প্রচারিত হয়| প্রচারের পান্ডুলিপিগুলি গ্রন্থসত্ত্ব দ্বারা সংরক্ষিত নয়, কাজেই প্রচারকগণ আমাদের অনুমতি ছাড়াই এইগুলি ব্যবহার করতে পারেন| মুসলিম এবং হিন্দু রাষ্ট্রসমেত, সমগ্র পৃথিবীতে সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার এই মহান কাজে সাহায্য করার জন্য কিভাবে আপনি একটি মাসিক অনুদান প্রদান করতে পারেন তা জানতে অনুগ্রহ করে এখানে ক্লিক করুন|

যখনই আপনি ডঃ হেইমার্‍সকে লিখবেন সর্বদা তাকে জানাবেন যে আপনি কোন দেশে বাস করেন, অথবা তিনি আপনাকে উত্তর দিতে পারবেন না| ডঃ হেইমার্‌সের ই-মেল ঠিকানা হল rlhymersjr@sbcglobal.net |




ঈশ্বরের পুত্রের সঙ্গে আগুনের মধ্যদিয়ে হাঁটা

WALKING THROUGH THE FIRE WITH THE SON OF GOD!
(Bengali)

লেখক : ডঃ আর এল হাইমার্স, জে আর|
By Dr. R. L. Hymers, Jr.

২০১৩ সালের, ২৯শে ডিসেম্বর, লস এঞ্জেলসের ব্যাপটিষ্ট ট্যাব্যারনাকালে সকালবেলায় সদাপ্রভুর একদিনে একটি সংবাদ প্রচারিত হয়
A sermon preached at the Baptist Tabernacle of Los Angeles
Lord's Day Morning, December 29, 2013

“তখন রাজা কহিলেন, দেখ, আমি চার ব্যক্তিকে দেখিতেছি, উহারা মুক্ত হইয়া অগ্নির মধ্য দিয়া গমনা গমন করিতেছে, উহাদের কোন হানি হয় নাই; আর চতুর্থ ব্যক্তির মূর্ত্তি দেবপুত্রের সদৃশ” (দানিয়েল ৩:২৫)|


আমার উপদেশকে আমি ভুলভাবে আরম্ভ করবো| সেমিনারীতে আমাদের শেখানো হয়েছে, যেন সংবাদের শুরুতেই আমরা নাটকীয় ভঙ্গিমাতে কিছু উপস্থাপন করি, যেন লোকেদের মনোযোগ আকর্ষন করতে পারি| কিন্তু আমি ধর্মব্যাখ্যামূলক নিয়মের সমস্ত কিছুকে ভেঙ্গে দিয়ে আপনাকে আক্ষরিকভাবে ব্যাখ্যামূল পাঠ্যক্রম উপস্থাপন করবো| ধর্মব্যাখ্যা এবং আক্ষরিকভাবে ধর্মব্যাখ্যা – এই দুটি শব্দের সঙ্গে আপনি পরিচিত নন সুতরাং, আপনাকে একঘেয়েমি করার ঝুঁকি নিয়েই, তাদের আমি নির্দেশ করবো| ধর্মব্যাখ্যামূলক বিষয় নির্দেশ করে প্রচার বিষয়ক অধ্যয়নকে| ইহা হল উপদেশ প্রস্তুত ও তা অর্পন করার অধ্যয়্ন| আক্ষরিক অর্থে ধর্মব্যাখ্যামূলক হল কিভাবে বাইবেল ব্যাখ্যা করতে হয় সেই বিষয়ে অধ্যয়ন - পবিত্রশাস্ত্র অনুবাদ বা ব্যাখ্যা করার নিয়ম| ডঃ এম. আর. ডিহান (১৮৯১-১৯৬৫) আক্ষরিকভাবে ধর্মব্যাখ্যামূলক বিষয়ে এই তিনটি নিয়মকে প্রদান করেন:

(১) সমস্ত শাস্ত্রাংশের প্রাথমিক একটা ব্যাখ্যা থাকে|
(২) সমস্ত শাস্ত্রাংশের মধ্যে বেশ কিছু ব্যবহারিক আবেদন রয়েছে|
(৩) প্রায় শাস্ত্রাংশের ভাববাদীমূলক প্রকাশভঙ্গীও রয়েছে|
( M. R. DeHaan, M.D., Daniel the Prophet, Kregel Publications,
  1995 reprint, p. 73 ).

এই সংবাদের খসড়া চিত্র হিসাবে আমি ডাঃ ডিহানের বাইবেল ব্যাখ্যা বা অনুবাদের তিনটি আক্ষরিক অর্থে ধর্মব্যাখ্যা মূলক নিয়মের বিষয় আমি ব্যবহার করতে বলেছি|

১| প্রথম, সমস্ত শাস্ত্রাংশের একটা প্রাথমিক ব্যাখ্যা রয়েছে |

নবুখদ্নিৎসর ছিলেন বাবিলের রাজা| ষষ্ঠ শতাব্দীতে খ্রীষ্ট জন্মের আগে, নবুখদ্নিৎসর যিরুশালেমকে অবরোধ করার জন্য সৈন্য প্রেরন করেন| তার সৈন্যরা দিহুদার রাজাকে বন্দী করে ও তাদের জন্মভূমিতে নির্বাসিত করে রাখেন| তারা যিহুদী মন্দিরে লুটতরাজ চালায় এবং তাদের ঈশ্বরের গৃহের যে সমস্ত পাত্র ও অন্যান্য মূল্যবান দ্রব্য ছিল তা বাবিল দেশে নিয়ে যায়| রাজা আবার তার সৈন্যদের আ্জ্ঞা প্রদান করেন যেন বেশীরভাগ যিহুদীদের বাবিল দেশে দাস হিসাবে বন্দী করে নিয়ে আসে| কিন্তু নবুখদ্নিৎসর তার অধ্যক্ষ অস্পনসকে নির্দেশ প্রদান করেন যেন তিনি ইসরায়েল থেকে সবথেকে বুদ্ধিবান এবং সর্বউত্তম কয়েকজন যুবকদের নিয়ে এসে তাদের কলদীয়দের গ্রন্থ বা ভাষা বাবিলের বিজ্ঞানের বিষয়ে শিক্ষা প্রদান করে, যাতে তারা রাজার রাজদরবারে বিশেষ অধ্যক্ষ হিসাবে দাঁড়াতে পারে| এই চারজন ব্যক্তির নাম দানিয়েল, শদ্রক, মীসায়েলক, এবং অবেদনাগো| ঈশ্বর এই চার যুবক যিহুদীদের এক বিশেষভাবে আশীর্বাদ করেছিলেন| রাজা নবুখদ্নিৎসর, যখন তাদের প্রশ্ন করেন, তখন,

“আর জ্ঞান ও বুদ্ধি সংক্রান্ত যে কোন কথা রাজা তাদের জিজ্ঞাসা করিলেন তদ্বিষয়ে তাঁহার সমগ্র রাজ্যস্থ সমুদয় মন্ত্রবেত্তা ও গণক হইতে তাহাদিগকে দশগুণ অধিক বিজ্ঞ দেখিতে পাইলেন” (দানিয়েল ১:২০)|

তাদের বিচারে রাজা তাদের উপরে নির্ভর করতে এবং পরামর্শদাতা হিসাবে তাদের উপরে নির্ভর করতে থাকলেন| প্রসঙ্গত, রাজা দানিয়েলকে সমস্ত বাবিলের উপরে এক শাসনকর্তা, ও তার উপ-পরিষদ হিসাবে নির্বাচন করেন, যিনি কিনা কেবল রাজার দ্বিতীয় স্থানের অধিকারী| সেই সঙ্গে রাজা শদ্রক, মৈশক, ও অবেদনেগোকে সেই সরকারে দানিয়েলের নেতৃত্বে, সর্বোচ্চ কাজের অধিকার প্রদান করলেন|

এরপর রাজা স্বর্ণ দিয়ে এক প্রকান্ড মূর্ত্তি তৈরী করলেন যার উচ্চতা নব্বই ফিট, আর ইহাকে স্থাপন করা হলো যেন লোকেরা তার পূজা করতে পারে| একটা নিরূপিত দিনে বাবিলের সমস্ত নেতারা সেখানে উপস্থিত হলেন| রাজা উচ্চস্বরে ঘোষনা করলেন যেন প্রত্যেকে যারা এই মূর্ত্তির সামনে নতজানু হওয়াতে অস্বীকার করবে তাদের “প্রজ্বলিত অগ্নিকুন্ডে নিক্ষিপ্ত করা হইবে” (দানিয়েল ৩:১১)| শদ্রক, মৈশক, ও অবেদনাগো, যিহোবা সদাপ্রভুর আরাধনা করতেন, যিনি হলেন ইস্রায়েলের সদাপ্রভু ঈশ্বর| সুতরাং তারা রাজা’র নির্মিত মূর্ত্তির সম্মুখে নতজানু হয়নি|

কলদীয়দের জ্যোতির্বেত্তারা ইতিমধ্যেই যিহুদীদের প্রতি বিদ্বেষী ছিলেন| অতএব তারা রাজার কাছে গিয়ে বললো,

“হে রাজন, সেই ব্যক্তিরা, আপনাকে মানে নাই: তাহারা আপনার দেবগনের সেবা করেনা, এবং আপনি যে স্বর্ণময় প্রতিমা স্থাপন করিয়াছেন তাহাকেও প্রণাম করে না” (দানিয়েল ৩:১২)|

রাজা নবুখদ্নিৎসর তো নির্মম হয়ে উঠলেন| তিনি ক্রোধের সঙ্গেই শদ্রক, মৈশক, ও অবেদনাগোকে ডাকলেন| তাদের তিনি বললেন যদি তারা এই মূর্ত্তির সামনে প্রণিপাত না করে তবে তিনি তাদের এই জ্বলন্ত অগ্নিতে নিক্ষেপ করবেন| রাজার প্রতি তাদের যে উত্তর তা ছিল মর্যাদাসম্পন্ন| আমাদের ডিকন, মিঃ মেনসিয়া জানতেন তাদের উত্তরটা আমি কতোটাই না পচ্ছন্দ করি, সুতরাং ইহার উপরে তাদের কথার বিষয়ে ধাতুর পশু তৈরী করলেন যেটা বেশ কিছু বৎসর ধরে মন্ডলীতে আমার ডেস্কের উপরে রয়েছে| তারা বললো,

“যদি হয় আমরা যাহার সেবা করি, আমাদের সেই ঈশ্বর আমাদিগকে প্রজ্বলিত অগ্নিকুন্ড হইতে উদ্ধার করিতে সমর্থ আছেন, আর হে রাজন, তিনি আপনার হস্ত হইতে আমাদিগকে উদ্ধার করিবেন| আর যদি না হয়, তবুও হে রাজন, আপনি জানিবেন, আমরা আপনার দেবগনের সেবা করিব না, এবং আপনার স্থাপিত স্বর্ণ প্রতিমাকে প্রণাম করিব না” (দানিয়েল৩:১৭-১৮)|

আমাদের ঈশ্বর আমাদের মুক্ত করতে সক্ষম, কিন্তু যদি তা নাও হয় তবুও আপনার তৈরী মূর্ত্তির পূজা ও তার প্রণিপাত আমরা করবো না!

এইভাবে উত্তর দেওয়ার জন্য রাজা তাদের প্রতি প্রচন্ড ক্রুদ্ধ হয়ে উঠলেন| তখন তিনি তার অধ্যক্ষদের সেই অগ্নিকুন্ডকে আরো বেশী করে উত্তপ্ত করতে বললেন| তিনি এই আজ্ঞা প্রদান করলেন যেন এই তিনজন যিহুদীদের সেই প্রজ্বলিত অগ্নিকুন্ডে ছুঁড়ে ফেলা হয়| পরিশেষে সেই রাজা প্রজ্বলিত অগ্নিকুন্ডের দিকে দৃষ্টিপাত করলেন| তিনি যা দেখলেন তাতে রাজা অত্যন্ত বিস্মিত হয়ে উঠলেন! তিনি বললেন,

“দেখ, আমি চার ব্যক্তিকে দেখিতেছি, উহারা মুক্ত হইয়া অগ্নির মধ্য দিয়া গমনা গমন করিতেছে, উহাদের কোন হানি হয় নাই; আর চতুর্থ ব্যক্তির মূর্ত্তি দেবপুত্রের সদৃশ” (দানিয়েল ৩:২৫)|

রাজা তাদের জ্বলন্ত অগ্নির মধ্যে থেকে বাইরে আসতে বললেন| তিনি তাদের ঈশ্বরের নামে ধন্যবাদ দিলেন, যিনি হলেন ইস্রায়েলের ঈশ্বর| তিনি বললেন যে “ঈশ্বর আপন দূত প্রেরন করিয়া তাঁহার সেই দাসদিগকে উদ্ধার করিলেন, যাঁহারা তাঁহাতে বিশ্বাস করিয়াছে” (দানিয়েল ৩:২৮)| উপরোন্তু, রাজা নবুখদ্নিৎসর তাদের পুনরায় সেই কার্যাধিকারে উন্নত করলেন| রাজা আবার এই আদেশ জারি করলেন কেউ যেন ইস্রায়েলের ঈশ্বরের বিরুদ্ধে কোন কথা না বলে, আর তিনি বললেন, “কেননা এইভাবে উদ্ধার করতে আর কোন দেবতাই সমর্থ নয়” (দানিয়েল ৩:২৯)|

সেটাই হল ঐ পদের প্রাথমিক ব্যাখ্যা| কিন্তু সেখানে আরো বেশী কিছু রয়েছে!

২| দ্বিতীয়, সমস্ত শাস্ত্রাংশেরই বেশ কিছু ব্যবহারিক প্রয়োগ রয়েছে |

“কেবলমাত্র একটি অনুবাদ, কিন্তু ইহার প্রয়োগ অনেক” – আর সেটাই হল আক্ষরিকভাবে ধর্মব্যাখ্যার নিয়ম| এই বিষয়ে আমি বেশকিছু প্রয়োগের কথা চিন্তা করতে পারি|

নিশ্চিতভাবেই, ইহার প্রথম প্র্য়োগের বিষয় হল অন্যান্য যিহুদীরা, যাদের বাবিলে নির্বাসিত করা হয়েছে| তারা অন্য গোষ্ঠীর মধ্যে সমীভূত হওয়ার প্রতি প্রলুব্ধ, এক পৌত্তলিকতায় পূর্ণ সংষ্কৃতিতে মিশ্রিত হওয়ার প্রতি প্রলুব্ধ যাদের চারপাশে তারা রয়েছে, এবং তারা ঈশ্বরের লোক হওয়ার থেকে বিরত হয়ে যেতে পারে| সিংহের ডেরাতে দানিয়েলের বিবরণ, এবং প্রজ্বলিত অগ্নিকুন্ডে তিনজন ইস্রীয়দের, প্রথম বিষয় বস্তুগুলো দেওয়া হয়েছে যিহুদীদের বাবিলের বন্দিত্বে শিক্ষা দেওয়ার প্রতি যেন তারা তাদের বিশ্বাস ও উত্তরাধিকারকে অস্বীকার না করে|

কিন্তু এই যে বিবরণ তা খ্রীষ্টীয়ানদের প্রতিও প্রাসঙ্গিকপূর্ণ| আমাদের ইভানজিলিক্যাল মন্ডলী সমূহের মধ্যে আমরা আমাদের জীবনকালে বসবাস করছি প্রচন্ডভাবে এক স্বমত বা স্বধর্মত্যাগী সময়ে| আমি, আমার নিজের জীবনকালেই লক্ষ্য করেছি, যেখানে আমাদের মন্ডলীগুলো সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ের প্রার্থনা সভা, এবং তাদের সন্ধ্যাকালীন সভাগুলোকে বন্ধ করে দিয়েছে| প্রসঙ্গত, যে কোন প্রকারের প্রকৃত প্রচারে, সুসমাচারমূলক প্রচারকে প্রায় আমাদের সমস্ত মন্ডলীগুলো থেকে উধাও হয়ে যেতে দেখেছি| আমাদের ভিত্তিমূলক যে সমস্ত মন্ডলীগুলো রয়েছে, সেখান থেকে শুরু করে মানুষেরা উপদেশ বা সংবাদ প্রচার করার থেকে বরং তারা, হালকা বা নরম বাইবেল অধ্যয়্নকে উপস্থাপন করছেন| আমি এটাও লক্ষ্য করেছি যে আমাদের মন্ডলীগুলো গানের বইগুলোকে, এবং আমাদের বিশ্বাসের সেই সমস্ত মহাসংগীতগুলোকেও ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে| আমি দেখেছি তারা ভাসাভাসা সংগীতের গায়্কবৃন্দ নিয়ে এনে এমন গান গেয়েছে যা আত্মাকে পরিপূর্ণ করতে অক্ষম হয়ে উঠেছে| আমি এটাও দেখেছি যেখানে পালকেরা তাদের প্রচারের টাইকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে, পুলপিটের ওপরে খেলার সার্ট পড়ে উঠে প্রচার করছে, আর তারা লোকেদের তাদের প্রথম নাম ধরে ডাকাতে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে| তাদের পুলপিট বা প্রচার বেদীর যে পরাক্রম ও মর্যাদা যেন অতীত সময়ের এক বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছে| আমি দেখেছি, যে তাদের মন্ডলীর যুবকেরা বিস্ময়ের সঙ্গে ঘুরে বেরাচ্ছে তাদের টি-সার্ট পড়ে, এবং মেয়েরা ঘুরে বেড়াচ্ছে মিনি-স্কার্ট পড়ে| আমাদের মন্ডলীর যুবক ব্যক্তিদের দেখে মনে হয়, যেন তারা বেশ্যালয়ের জন্য দালাল, এবং ড্রাগে আসক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ভিত্তিমূলক ব্যপটিষ্ট হওয়ার থেকে বরং সেখানকার দালাল! আমরা যেন শোষন করার জন্য অঙ্গীভূত| আমরা যেন জগতের দ্বারা গ্রাসিত হয়ে পড়েছি| আমরা জগতের মতো এতটাই আসক্ত যেখানে জগত্কে আর বলতেই হবে না যে মূর্ত্তিপূজক এবং ইভানজিলিক্যালের মধ্যে আমাদের কি তফাৎ রয়েছে! হ্যাঁ, ইহা ততোটাই খারাপ! দানিয়েলের বইয়ের সেই তিনজন ইব্রীয় আমাদের বলতে চাইছেন, “আমরা আর সমীভূত বা অঙ্গীভূত হব না| আমরা জগতের সঙ্গে কাজ করবো, এবং জগতের সঙ্গেই স্কুলে যাবো, কিন্তু জগতের প্রতি বিনয়ী থাকবো| কিন্তু এর মূল্য যাই হোক না কেন - আমরা এই অবধিই যাব - এর থেকে আর বেশীদূর পর্যন্ত অগ্রসর হবো না!”

“আমরা যাহার সেবা করি আমাদের সেই ঈশ্বর… আমাদিগকে উদ্ধার করিবেন আর যদি না হয় তবু, হে রাজন, আপনি জানিবেন, আমরা আপনার দেবগনের সেবা করিব না, আপনার স্থাপিত স্বর্ণ প্রতিমাকে প্রণাম করিব না” (দানিয়েল ৩:১৭,১৮)|

ইহা যখন আক্রমনের মধ্যে পড়ে তখন আমরা উঠে দাঁড়িয়ে ইহার আত্মরক্ষা করবো| আমরা কলেজের অধ্যাপকদের উত্তর দেব যেন তারা বিবর্তনবাদ ও নিরীশ্বরবাদকে ঠেলে গুঁজে আমাদের গলার মধ্যে দিয়ে নিচে নামাতে পারে| আমরা আর রোজ প্যারেডে অংশগ্রহন করবো না, আর যতক্ষন পর্যন্ত না তারা খ্রীষ্টবিদ্বেষী বা খ্রীষ্টারীর মতবাদকে তাদের পরিবর্তনের মধ্যে রাখছে ততোক্ষন পর্যন্ত আমরা ইহাকে এমনকি পাঁচ মিনিটের জন্যও দৃষ্টিপাত করবো না| যতোক্ষন পর্যন্ত তারা আমাদের বিশ্বাসের বাইবেলভিত্তিক পরিবর্তনশীলতাকে আক্রমন ও প্রত্যাখান করে আমরা কোনমতেই আর রোজ প্যারেড দেখিব না! আর তা যদি আমাদের সমস্যার মধ্যে নিয়়ে যায় - তবে ইহা তাই হোক!

“আর যদি নাও হয়, তবু হে রাজন, আপনি জানিবেন, আমরা আপনার দেবগনের সেবা করিব না, আপনার স্থাপিত স্বর্ণ প্রতিমাকে প্রণাম করিব না!” (দানিয়েল ৩:১৮)|

আর আমরা হারিয়ে যাওয়া জগতকে বলি, “আমরা আপনার স্কুলে ড্যান্সে অংশগ্রহন করবো না! এমনকি ইহা বৈধ হলেও, আমরা আপনার পাত্রে ধূমপান করবো না! আমরা আপনার অশ্লীলতার প্রতি তাকাবো না! আমরা তোমাদের উদাহরন অনুসরন করে আমাদের সন্তানদের গর্ভপাত করবো না! তোমাদের পার্টিতে যোগদান করার জন্য আমরা আমাদের মন্ডলীতে যোগদান করা থেকে বিরত থাকবো না! কখনই নয়! কখনো নয়! কোনমতেই নয়! আমরা কোন সময়েই সে সমস্ত কাজ করবো না!”

“আমাদের ঈশ্বর… যাঁর আমরা সেবা করি তিনি আমাদের রক্ষা করতে সমর্থ আর যদি নাও হয়, তবু হে রাজন, আপনি জানিবেন, আমরা আপনার দেবগনের সেবা করিব না, এবং আপনার স্থাপিত [সেই] স্বর্ণ প্রতিমাকে প্রণাম করিব না!”

কোনমতেই নয়! কখনো নয়! কিছুতেই নয়! একেবারেই নয়! মোটেই নয়! কোনভাবেই নয়!

আমাদের পিতার বিশ্বাস! এখনও জীবিত
   করো ক্ষমা, অগ্নি এবং খড়্গের মধ্যেও:
আহা কিভাবেই না আমাদের হৃদস্পন্দন আনন্দে উচ্ছল
   যখনি আমরা সেই গৌরবময় বাক্য শুনি!
আমাদের পিতার বিশ্বাস, হল এক পবিত্র বিশ্বাস!
   মৃত্যু পর্যন্ত আমরা তোমার প্রতি স্বচ্ছ থাকবো!
(“Faith of Our Fathers” by Frederick W. Faber, 1814-1863).

ঈশ্বরের পুত্রের সঙ্গে আমরা জ্বলন্ত অগ্নির মধ্য দিয়া যাতায়ত করবো! আমরা যদি পুড়েও যাই তবুও আমরা সেই আগুনের মধ্য দিয়ে হাঁটবো! আমরা তোমার সেই অশ্লীল কামুকতা, যৌনতা, ড্রাগ এবং জাগতিকতাবাদের যে প্রতিমা বা মূর্ত্তি রয়েছে তার কাছে নতজানু হব না| ঈশ্বরের পুত্রের সঙ্গে আমরা সেই জ্বলন্ত অগ্নির মধ্যে গমনা গমন করবো!

আমাদের পিতার বিশ্বাস হল, পবিত্র বিশ্বাস!
   মৃত্যু পর্যন্ত আমরা তাঁর প্রতি সত্য থাকবো!

বিশেষ করে, যে সমস্ত খ্রীষ্টীয়ানেরা সাংঘাতিক পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন, সত্য সত্যই সেখানে এক ব্যবহারিক প্রয়োগও রয়েছে| কাউকে যেন বলতে না হয় একজন প্রকৃত খ্রীষ্টীয়ানের জীবন সর্বদা সহজ| খ্রীষ্টই আমাদের বলেছেন,

“কেহ যদি আমার পশ্চাৎ আসিতে ইচ্ছা করে, তবে সে আপনাকে অস্বীকার করুক, আপন ক্রুশ তুলিয়া লউক, এবং আমার পশ্চাদ্গামী হউক” (মথি ১৬:২৪)

এবং প্রেরিত পৌল বলেছেন, “অনেক ক্লেশের মধ্য দিয়া আমাদিগকে ঈশ্বরের রাজ্যে প্রবেশ করিতে হইবে” (প্রেরিত ১৪:২২)| আপনি যদি খ্রীষ্টের প্রকৃত শিষ্য, তবে আপনাকে অনেক পরীক্ষার মধ্য দিয়়ে যেতে হবে| কিন্তু যীশু বলেছেন,

“কিন্তু ধন্য তোমরা, যখন লোকে আমার জন্য, তোমাদিগকে নিন্দা, এবং তাড়না করে, এবং মিথ্যা করিয়া তোমাদের বিষয়ে সর্বপ্রকার মন্দ কথা বলে| আনন্দ করিও, উল্লাসিত হইও: কেননা স্বর্গে তোমাদের পুরস্কার প্রচুর: কারন তোমাদের পূর্বে যে ভাববাদিগন ছিলেন তাঁহাদিগকে তাঁহারা সেইমতো তাড়না করিত” (মথি ৫:১১-১২)|

কি প্রকার পরীক্ষা এবং ক্লেশের মধ্য দিয়ে আপনি যাচ্ছেন তাতে কোন যায় আসে না, যীশু বলেছেন, “আমি কোনমতেই তোমাকে ছাড়িব না, কোনমতেই প্রত্যাখান করিব না” (ইব্রীয় ১৩:৫)| মনে রাখবেন সেখানে সেই অগ্নিকুন্ডে তিনজন ইব্রীয়দের সঙ্গে এক চতুর্থ ব্যক্তিও ছিলেন, “আর চতুর্থ ব্যক্তির মূর্ত্তি দেবপুত্রের সদৃশ” (দানিয়েল ৩:২৫)| সেই জ্বলন্ত অগ্নিকুন্ডে যীশু, যিনি হলেন ঈশ্বর পুত্র, তিনি তাদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন! যীশু, তিনি তার পুর্ব মানব অবতারের আকারে, তাদের সেই অগ্নির মধ্য দিয়ে অক্ষত অবস্থার মধ্য দিয়ে নিয়ে গেলেন| তাঁর উপরে নির্ভর করুন, আর তিনি আপনাকে এই জীবনে অগ্নিময় পরীক্ষার মধ্য দিয়ে নিরাপদে নিয়ে যাবেন| আমাদের বিশ্বাসের এক বিরাট সংগীত যীশুর মুখের এই বাক্যগুলো এইভাবে উদ্ধৃত করেন, আর তা যথার্থভাবে তাই!

আপনার পথে যখন জ্বলন্তময় পরীক্ষা আসে তখন,
   আমার পর্যাপ্তময় অনুগ্রহই হয়ে উঠবে তোমার যোগান;
সেই শিখা তোমাকে আঘাত করবে না, আমিই হব তার অভিপ্রায়
   তোমার আবর্জনাকে ধ্বংস, ও তোমার স্বর্ণকে শোধন করব আমিই!
(“How Firm a Foundation” by an unknown author).

কিন্তু ডাঃ ডিহান আমাদের কাছে বেশ কিছু আক্ষরিক অর্থে ধর্মীয় বিষয় তুলে ধরেন|

৩| তৃতীয়, শাস্ত্রের বেশ কিছু অংশে ভাববাদীমূলক প্রকাশ রয়েছে |

ডাঃ ডিহান যথাযথ ভাবে বলেন যে “ইব্রীয়দের মধ্যে সেই তিনজন যুবক ব্যক্তি হল পরজাতীয়দের মধ্যে ইস্রায়েলের এক চিত্র| কষ্টদায়ক অগ্নিকুন্ডে নিক্ষেপ ও তাড়নার মধ্য দিয়ে নিয়ে গিয়ে তাদের ধ্বংস করে দেওয়ার বাসনা ছিল, কিন্তু অলৌকিকভাবে তারা সুরক্ষিত হয়েছিল, এমন কি তা অগ্নিদায়ক অগ্নিকুন্ডে সেই জাতিদের প্রতিযোগীতায় এবং তাড়নার [ইহুদী-বিদ্বেষ] মধ্যে পড়েও তারা সুরক্ষিত ছিল, কেননা তারা ছিল ঈশ্বরের নিয়মের সন্তান আর পরিশেষে তারা অলৌকিকভাবে মুক্তিলাভ করেছিল এবং সেই জাতির মধ্য থেকে উন্নত হয়েছিল|” (DeHaan, ibid., pp. 73-74).

পরজাতিদের মধ্যে প্রায় প্রত্যেকেই কোন দিক দিয়ে যিহুদীদের প্রতি তাড়না করেছেন| মিশর, বাবিল, গ্রীস, রোম, স্পেন, ফ্রান্স, রাশিয়া, এবং জার্মানি – এদের সকলেই যিহুদীদের প্রতি তাড়না করেছে, ও তাদের ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিল| কিন্তু তারা সকলেই ব্যর্থ হয়েছে কেননা ইস্রায়েল হল ঈশ্বরের অনন্তকালীন জাতি! এখন ইরান মনে করে যে ইহা ইস্রায়েলকে ধ্বংস করে ফেলবে! তারা এই কথা প্রায় সময়েই বলেছে| কিন্তু আমি তাদের বলেছি, “তাদের থেকেও শক্তিশালী জাতিরা সেই ইহুদীদের ধ্বংস করে দিতে চেয়েছে| তাদের সকলেই ব্যর্থ হয়েছে - আর সেইভাবে তোমরাও ব্যর্থ হবে!” অগ্নিতে পূর্ণ পীড়া ও কষ্টের মধ্যে ঈশ্বর সবসময়েই ইস্রায়েলের সঙ্গে ছিলেন, আর এখনও ঈশ্বর তাদের হতাশ করবেন না! আপনি একবার দেখুন, ঈশ্বর অব্রাহামের সঙ্গে এমন এক নিয়ম করেছেন যা কোন সময়েই ভগ্ন হবে না| ঈশ্বর তাদের বংশকে বলেই দিয়েছেন যে কমান দেশ চিরকালের জন্যই যীহুদীদের দেওয়া হয়েছে!

“সেই দিন সদাপ্রভু অব্রামের সহিত নিয়ম স্থির করিয়া, কহিলেন, আমি মিশরের নদী অবধি মহানদী ফরাৎনদী পর্যন্ত, এই দেশ, তোমার বংশকে দিলাম” (আদিপুস্তক ১৫:১৮)|

“আর তুমি, এই যে কনাম দেশে প্রবেশ করিতেছ, ইহার সমুদয় আমি তোমাকে, ও তোমার ভাবী বংশকে, চিরস্থায়ী অধিকারার্থে দিব; আর আমি তাহাদের ঈশ্বর হইব” (আদিপুস্তক ১৭:৮)|

যুগ যুগ ধরে, এই যিহুদীরা তাড়নার মধ্য দিয়ে গিয়েছেন – তা প্রায় সময়ে ভ্রান্ত খ্রীষ্টীয়ানদের দ্বারা, কেননা প্রকৃত কোন খ্রীষ্টীয়ানই কোনমতেই ঈশ্বরের লোকেদের ক্ষতি করার চেষ্টা করবে না! কিন্তু যেশুয়া (যীশু) সবসময়েই সেই অগ্নিকুন্ডের চতুর্থ ব্যক্তি হয়ে উঠেছেন, যিনি যিহুদী লোকেদের দ্বারা কষ্ট সহ্য করেছেন - আর পরিশেষে তাদের পরজাতীয় অবিশ্বাসীদের হাত থেকে বিজয় দিয়েছেন! পরিশেষে, প্রেরিত পৌলের ভাববাণী আক্ষরিক ভাবেই সত্য হয়ে উঠবে| কেননা তিনি বলেছেন, “আর এই প্রকারে সমস্ত ইস্রায়েল পরিত্রান পাইবে: যেমন লিখিত আছে, সিয়ান হইতে মুক্তিদাতা আসিবেন, আর যাকোব হইতে ভক্তিহীনতা দূর করিবেন” (রোমীয় ১১:১৬)|

শেষ করার সময়ে, আমাদের তিনজন ইব্রীয় বন্ধুদের সঙ্গে অগ্নিকুন্ডে সেই চতুর্থ ব্যক্তির বিষয়ে একটু চিন্তা করি| নবুখদ্নিৎসর বলেছিলেন তিনি ছিলেন “দেবপুত্রের” (স্বর্গদূতের) ন্যায় (দানিয়েল ৩:২৮)| দেবপুত্র বা “স্বর্গদূত” যার সাধারন অর্থ হল “বার্তাবাহক”| পুরাতন নিয়মে “সদাপ্রভুর বার্তাবাহক” প্রায় সময়ে এমন এক প্রকাশভঙ্গী যা খ্রীষ্টের বা যীশুর পূর্ব অবতারত্ব| দৃষ্টান্তস্বরূপ, “সদাপ্রভুর স্বর্গদূত বা বার্তাবাহক” মনোহ নামে এক ব্যক্তির কাছে প্রকাশিত হলেন, যিনি হলেন শিমশোনের পিতা| বাইবেল বলে,

“তখন মনোহ জানিতে পারিলেন যে ইহা সদাপ্রভুর দূত| পরে মনোহ আপন স্ত্রীকে কহিলেন, আমরা অবশ্যই মারা পড়িব, কারন আমরা ঈশ্বরকে দেখিয়াছি” (বিচারকর্ত্তৃগনের পুস্তক ১৩:২১,২২)|

সুতরাং, সদাপ্রভুর সেই দূত ছিলেন ঈশ্বর, যীশু হলেন ত্রীত্ব ঈশ্বরের দ্বিতীয় সত্বা, যিনি পুরাতন নিয়মে প্রকাশমান ছিলেন মেরির গর্ভে তাঁর অবতাররূপ গ্রহনের আগে|

সেই সঙ্গে, দানিয়েল ৩:২৫ পদে, সেই রাজা জ্বলন্ত অগ্নিকুন্ডকে দেখে বলেছিলেন, “আর চতুর্থ ব্যক্তির মূর্ত্তি দেবপুত্রের ন্যায়”| ডাঃ জে. ভারনন ম্যাকগী বলেছেন, “আমি বিশ্বাস করি যে সেই চতুর্থ ব্যক্তি ছিলেন ঈশ্বরের পুত্র, খ্রীষ্টের পূর্ব অবতারত্বের রূপ” (J. Vernon McGee, Th.D., Thru the Bible, Thomas Nelson Publishers, 1982, volume III, p,. 547; note on Daniel 3:25).

মনোনীত লোকেদের জন্য দুঃখভোগ এবং প্রত্যাখান ভাগ করার জন্য এই পৃথিবীতে নেমে আসার প্রতি যীশুর চরিত্র কতোটাই না দৃঢ়তাসূচক ছিল – আর পরিশেষে তাদের তিনি মুক্তও করলেন! তিনি স্বর্গ থেকে নেমে এলেন, কুমারী মরিয়মের গর্ভে| সর্ব প্রথম খ্রীষ্টমাসের সময়ে তিনি যখন “নেমে এলেন” তখন তিনি “রাজাদের রাজা ও প্রভুদের প্রভু হিসাবে” নেমে আসেন নি| তাঁর দ্বিতীয় আগমনে তিনি – রাজাদের রাজা ও প্রভুদের প্রভু হিসাবেই ভবিষ্যতে ফিরে আসবেন| কিন্তু তিনি কুমারী মরিয়মের গর্ভে নেমে এলেন - ঠিক সেইভাবেই যেভাবে তিনি তিন বিক্রমী বীর যিহুদী ইব্রীয়দের কাছে জ্বলন্ত অগ্নির মধ্যে নেমে এসেছিলেন!

যীশু স্বর্গ থেকে নেমে এসেছেন এই জগতে দুঃখভোগ করেন, যেন তাঁর লোকেদের নরকের জ্বলন্ত অগ্নির হাত থেকে উদ্ধার করেন! “সেই অগ্নি যা কোনমতেই নিবারিত হবে না” যার মধ্যে আমাদের সকলকেই অনন্তকাল ব্যয় করতে হত| কিন্তু আমাদের পাপের দন্ড মিটিয়ে দেওয়ার প্রতি যীশু নেমে এলেন যেন ক্রুশের উপরে মৃত্যুদন্ড ও দুঃখভোগ করেন| ঈশ্বর আমাদের সমস্ত পাপকে “গাছের উপরে তার নিজের শরীরে” বহন করলেন - সেই ক্রুশের উপরে (১ পিতর ২:২৪)| আর তাই, তাঁর লোকেদের জন্য যীশু সমস্ত পাপের জন্য বলিকৃত হইলেন|

তিনি মৃত ছিলেন, সমাধি মন্দিরের অভ্যন্তরে, তিন দিন তিনি মৃত ছিলেন| কিন্তু, ঈশ্বরের রবিবার অতি প্রত্যুষে, যীশু শারীরিকভাবে পুনরুথ্থিত হলেন – তার মধ্যে ছিল অস্থি ও মাংস – মৃত থেকে জীবিত হলেন| তিনি স্বর্গে উন্নত হলেন, আর এখন তিনি আপনার জন্য প্রার্থনা করছেন, এবং পিতা ঈশ্বরের দক্ষিন পার্শ্বে বসে রয়েছেন|

আপনি যখন যীশুকে আপনার হৃদয়ে নির্ভর করেন, তখন তিনি আপনার পাপ ক্ষমা করেন আর সেগুলোকে তিনি তাঁর রক্ত দ্বারা পরিষ্কার করেন| আপনি যখন যীশুকে আপনার হৃদয়ে নির্ভর করেন, তখন তিনি আপনাকে পাপ থেকে উদ্ধার করেন, এবং তিনি আপনাকে হারিয়ে যাওয়া আশাহীন জীবন থেকে উদ্ধার করেন – ঠিক যেমনভাবে তিনি সেই তিনজন ইব্রীয়দের জ্বলন্ত অগ্নির মধ্য থেকে মুক্ত করেছিলেন! আমেন!

আপনি যদি প্রকৃত খ্রীষ্টীয়ান হয়ে ওঠার বিষয়ে আমাদের সঙ্গে কথা বলতে চান, তবে অনুগ্রহ করে আপনার জায়গা ছেড়ে এখনি অডিটোরিয়ামের পিছনের ঘরে যান| ডাঃ কাগন আপনাকে আরো একটি ঘরে নিয়ে যাবেন সেখানে আমরা একত্রে মিলে প্রার্থনা করবো ও আপনার যা প্রশ্ন রয়েছে তার উত্তর প্রদান করবো| ডাঃ চ্যান, অনুগ্রহ করে প্রার্থনা করুন যেন কোন একজন যীশুর দ্বারা আজ মুক্তিলাভ করতে পারে! আমেন!

(সংবাদের পরিসমাপ্তি)
ডাঃ হাইমার্সের সংবাদ আপনি প্রতি সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে
www.realconversion.com এই সাইটে পড়তে পারেন। ক্লিক করুন “সংবাদের হস্তলিপি”

আপনি ডাঃ হাইমার্সকে মেইল পাঠাতে পারেন rlhymersjr@sbcglobal.net - আপনি
তাকে পত্র লিখতে পারেন P.O. Box 15308, Los Angeles, C A 90015.এই ঠিকানায়
। আপনি তাকে টেলিফোন করতে পারেন (818) 352-0452.

এই সুসমাচারের ম্যানুস্ক্রিপ্ট এর ওপর ডাঃ হাইমসের কোন কপিরাইট নেই। আপনারা
ইহা ব্যাবহার করতে পারেন ডাঃ হাইমসের অনুমতি ছাড়াই। অবশ্য, ভিডিও মেসেজ
সবই কপিরাইটের সহিত আছে এবং কেবলমাত্র তার অনুমতি নিয়েই ব্যাবহার করা যাবে।

সংবাদের আগে শাষ্ত্রাংশ পাঠ করেছেন মি. আবেল প্রধুম্মে: দানিয়েল ৩:১৬-২৫|
সংবাদের আগে একক সংগীত পরিবেশন করেছেন মি. বেঞ্জামিন কিনকেড গ্রিফিত:
“Faith of Our Fathers” (by Frederick W. Faber, 1814-1863).


খসড়া চিত্র

ঈশ্বরের পুত্রের সঙ্গে আগুনের মধ্যদিয়ে হাঁটা!

লেখক: ডাঃ আর. এল. হাইমার্স, জে আর|

“তখন রাজা কহিলেন, দেখ, আমি চার ব্যক্তিকে দেখিতেছি, উহারা মুক্ত হইয়া অগ্নির মধ্য দিয়া গমনা গমন করিতেছে, উহাদের কোন হানি হয় নাই; আর চতুর্থ ব্যক্তির মূর্ত্তি দেবপুত্রের সদৃশ” (দানিয়েল ৩:২৫)|

I. প্রথম, সমস্ত শাস্ত্রাংশের প্রাথমিক এক ব্যাখ্যা রয়েছে, দানিয়েল ১:২০;
দানিয়েল ৩: ১১, ১২, ১৭, ১৮, ২৫, ২৮, ২৯|

II. দ্বিতীয়, সমস্ত শাস্ত্রাংশেরই বেশ কিছু ব্যবহারিক প্রয়োগ রয়েছে, দানিয়েল ৩:১৭, ১৮;
মথি ১৬:২৪; প্রেরিত ১৪:২২; মথি ৫:১১-১২; ইব্রীয় ১৩:৫|

III. তৃতীয়, শাস্ত্রের বেশ কিছু অংশে ভাববাদীমূলক প্রকাশ রয়েছে, আদিপুস্তক ১৫:১৮; ১৭:৮; রোমীয় ১১:২৬; দানিয়েল ৩:২৮; বিচারকর্তৃগনের বিবরন ১৩:২১,২২;
১ পিতর ২:২৪|